জুলিয়াস অ্যাডামস স্ট্র্যাটন

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
জুলিয়াস অ্যাডামস স্ট্র্যাটন
জুলিয়াস অ্যাডামস স্ট্র্যাটন.jpg
১১তম ম্যাসাচুসেট্‌স ইনস্টিটিউট অব টেকনোলজি এর প্রেসিডেন্ট
কাজের মেয়াদ
১৯৫৯ – ১৯৬৬
পূর্বসূরীজেমস রয়ান কিলান
উত্তরসূরীহওয়ার্ড ওয়েসলে জনসন
১ম ম্যাসাচুসেট্‌স ইনস্টিটিউট অব টেকনোলজি এর চ্যান্সেলর
কাজের মেয়াদ
১৯৫৬ – ১৯৫৯
উত্তরসূরীপল ই. গ্রে
ব্যক্তিগত বিবরণ
জন্ম(১৯০১-০৫-১৮)১৮ মে ১৯০১
সিয়াটল, ওয়াশিংটন
মৃত্যু২২ জুন ১৯৯৪(1994-06-22) (বয়স ৯৩)
বোস্টন, ম্যাসাচুসেটস
জাতীয়তামার্কিন যুক্তরাষ্ট্র মার্কিন
বাসস্থানযুক্তরাষ্ট্র
জুলিয়াস অ্যাডামস স্ট্র্যাটন
কর্মক্ষেত্রতড়িৎ প্রকৌশল
প্রতিষ্ঠানম্যাসাচুসেট্‌স ইনস্টিটিউট অব টেকনোলজি
প্রাক্তন ছাত্র
সন্দর্ভসমূহStreuungskoeffizient von Wasserstoff nach der Wellenmechanik (১৯২৭)
পিএইচডি উপদেষ্টাপল স্কেরের
উল্লেখযোগ্য
পুরস্কার
আইইইই মেডেল অব অনার (১৯৫৭)
ফ্যারাডে মেডেল (১৯৬১)

জুলিয়াস অ্যাডামস স্ট্র্যাটন (ইংরেজি: Julius Adams Stratton) (১৮ মে, ১৯০১ – ২২ জুন, ১৯৯৪)[১] একজন মার্কিন তড়িৎ প্রকৌশলী এবং বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসক। তিনি ওয়াশিংটন বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি হন এবং ১ বছর পরে এমআইটিতে চলে যান।

এমআইটি থেকে ইলেকট্রিক্যাল ইঞ্জিনিয়ারিং এর উপর ১৯২৩ সালে স্নাতক এবং ১৯২৬ সালে স্নাতকোত্তর পাশ করেন। ১৯২৭ সালে ইটিএইচ জুরিখ হতে ডক্টরেট ডিগ্রি গ্রহণ করেন।[২]

জীবনী[সম্পাদনা]

১৯৪১ সালে পদার্থবিজ্ঞানের McGraw-Hill সিরিজের ইলেক্ট্রোম্যাগনেটিক থিওরি (Electromagnetic Theory) তিনি প্রকাশ করেন যা আইইইই দ্বারা পুনরায় ইস্যু করা হয়।

তিনি ১৯৫৯ থেকে ১৯৬৬ সাল পর্যন্ত এমআইটির প্রেসিডেন্ট হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন। এছাড়াও তিনি এমআইটির বিভিন্ন পদে চাকরী করেন। ১৯৪৯ সালে তিনি প্রভোস্ট, ১৯৫১ সালে ভাইস প্রেসিডেন্ট এবং ১৯৫৬ সালে চ্যান্সেলর হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন। তিনি ফর্ড ফাউন্ডেশনের চেয়ারম্যান হিসেবে ১৯৬৪ থেকে ১৯৭১ পর্যন্ত দায়িত্ব পালন করেন।

১৯৬৭ সালে কংগ্রেসের দ্বারা প্রতিষ্ঠিত "Commission on Marine Sciences, Engineering and Resources" কমিশনে তিনি দায়িত্ব পালন করেন। ১৯৬৯ সালে কমিশন "Our Nation and the Sea" একটি রিপোর্ট প্রকাশ করে যাতে যুক্তরাষ্ট্র এবং বহিঃবিশ্বের সুমদ্র বিজ্ঞান এবং ব্যবস্থা সম্পর্কে বলা হয়। পরবর্তীতে কমিশনটি স্ট্র্যাটন কমিশন নামে পরিচিতি পায়।

স্ট্র্যাটন জাতীয় ইঞ্জিনিয়ারিং একাডেমির প্রতিষ্ঠাতা সদস্য ছিলেন।[৩]

১৯৬৬ সালে স্ট্র্যাটন Science and the Educated Man: Selected Speeches of Julius A. Stratton (Cambridge, Mass.: MIT Press, 1966), তার বক্তব্যগুলো তুলে ধরেন। বইটির ভূমিকা লেখেন এমআইটি এর আরেক প্রফেসসর এল্টিং ই. মরিসন[৪]

জুলিয়াস অ্যাডামস স্ট্র্যাটনের সম্মানে এমআইটি স্টুডেন্ট সেন্টারের ৮৪ নং ম্যাসাচুসেটস অ্যাভেন্যু তার নামে নামকরণ করে। তিনি ১৯৫৭ সালে আইইইই মেডেল অব অনার এবং ১৯৬১ সালে ফ্যারাডে মেডেল লাভ করেন।[১]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "President Emeritus Julius Adams Stratton dies at 93" (ইংরেজি ভাষায়)। 
  2. Stratton, Julius Adams (১৯২৮)। Streuungskoeffizient von Wasserstoff nach der Wellenmechanik [Scattering coefficient of hydrogen after wave mechanics] (Ph.D.) (ইংরেজি ভাষায়)। Eidgenössische Technische Hochschule Zürichওসিএলসি 720868304ProQuest-এর মাধ্যমে। (সদস্যতা নেয়া প্রয়োজন (সাহায্য)) 
  3. "Founding members of the National Academy of Engineering" (ইংরেজি ভাষায়)। National Academy of Engineering। সংগ্রহের তারিখ ২১ অক্টোবর ২০১২ 
  4. Honan, William H., "Elting E. Morison, 85, Educator Who Wrote Military Biographies", The New York Times, April 26, 1995

উৎস[সম্পাদনা]

  • Johnson, Howard W. (মার্চ ১৯৯৬)। "Julius Adams Stratton (18 May 1901-22 June 1994)"। Proceedings of the American Philosophical Society (ইংরেজি ভাষায়)। 140 (1): 116–121। জেস্টোর 987282 

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]

অ্যাকাডেমিক অফিস
নতুন অফিস Chancellor of the Massachusetts Institute of Technology
1956 – 1959
শূন্য
Title next held by
Paul E. Gray
পূর্বসূরী
James Rhyne Killian
President of the Massachusetts Institute of Technology
1959 – 1966
উত্তরসূরী
Howard Wesley Johnson