জিনাথ বাকশ মসজিদ

স্থানাঙ্ক: ১২°৫১′৫৩″ উত্তর ৭৪°৪৯′৫৬″ পূর্ব / ১২.৮৬৪৮৪৯° উত্তর ৭৪.৮৩২১৮৭° পূর্ব / 12.864849; 74.832187
উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
জিনাথ বাকশ মসজিদ
বালিয়ে পল্লী
Jumma mazjid, Zinad Baksh, Bunder, Mangalore-2.jpg
জিনাথ বাকশ মসজিদের নামাজের স্থান
ধর্ম
অন্তর্ভুক্তিইসলাম
জেলাদক্ষিণ কানাডা
অবস্থান
অবস্থানবুন্দের, মঙ্গালোর, কর্ণাটক, ভারত
রাজ্যকর্ণাটক
দেশ ভারত
জিনাথ বাকশ মসজিদ কর্ণাটক-এ অবস্থিত
জিনাথ বাকশ মসজিদ
কর্ণাটকে অবস্থান
স্থানাঙ্ক১২°৫১′৫৩″ উত্তর ৭৪°৪৯′৫৬″ পূর্ব / ১২.৮৬৪৮৪৯° উত্তর ৭৪.৮৩২১৮৭° পূর্ব / 12.864849; 74.832187
স্থাপত্য
স্থাপত্য শৈলীদ্রাবিড় স্থাপত্য
প্রতিষ্ঠাতামালিক দিনার
প্রতিষ্ঠার তারিখআনু.১৮ এপ্রিল, ৬৪৩ খ্রিস্টাব্দ

জিনাথ বাকশ মসজিদ ভারতের তৃতীয় প্রাচীনতম এবং কর্ণাটক রাজ্যের প্রাচীনতম মসজিদ যা ৬৪৪ খ্রিস্টাব্দে নির্মিত হয়েছিল। বেলিয়ে পল্লী নামেও পরিচিত এই মসজিদটি ম্যাঙ্গালোর শহরের বান্দর এলাকায় অবস্থিত এবং এটি তার খাঁটি ভারতীয় স্থাপত্য শৈলীর জন্য সুপরিচিত।

মসজিদটি মুহাম্মদের সাহাবার আত্মীয় ও কিথ দ্বারা প্রতিষ্ঠিত হয়েছিল। এজন্যে এই অঞ্চলের মুসলমানদের কাছে ব্যতিক্রমী গুরুত্ব হিসাবে আবির্ভূত হয়েছিল।[১]

ইতিহাস[সম্পাদনা]

আদিকাল থেকেই আরব ব্যবসায়ীদের স্থানীয় জনগণের সাথে ভারতের পশ্চিম উপকূলীয় অঞ্চলের শাসকদের সাথে একটি উষ্ণ দীর্ঘস্থায়ী সম্পর্ক রয়েছে এবং আরব সাগরের মাধ্যমে বাণিজ্যে নিযুক্ত রয়েছে।[২]

মহীশূরের সুলতান টিপু সুলতান মসজিদটির সংস্কারের কাজ হাতে নেন।

প্রাথমিক পর্যায়ে ইসলামের আবির্ভাবের ফলশ্রুতিতে, আরব মুসলিম ব্যবসায়ীদের একটি দল, ইসলাম প্রচারক হাজারথ মোহাম্মদ মালিক বিন দীনারের নেতৃত্বে মালাবার পরিদর্শন করেছিলেন এবং কোডুঙ্গাল্লুরে অবতরণ করেছিলেন। তৎকালীন শাসক, রাজা চেরুমান পারমাল মালিক দীনার এবং তার সঙ্গীদের অত্যন্ত ধার্মিক, সৎ, নিয়মানুবর্তিতামূলক আচরণে অত্যন্ত সন্তুষ্ট হয়ে ব্যবসায়ীদের যথাযথ বাসস্থান, প্রয়োজনীয় সুযোগ-সুবিধা এবং বাণিজ্য করার জায়গা নিশ্চিত করেছিলেন। রাজা তাদের অনুরোধে মসজিদ নির্মাণের জন্য জমি প্রদান করেন।[৩][৪]

কোডুঙ্গাল্লুর চেরামান জুমা মসজিদের পরে তাদের দ্বারা নির্মিত দশটি মসজিদের মধ্যে মসজিদ জিনাথ বাকশ ছিল দ্বিতীয়। জুমাদা আল-আউয়াল মাসের ২২ তারিখ শুক্রবার, হিজরা ২২ (প্রায়। ১৮ এপ্রিল, ৬৪৩ খ্রিস্টাব্দ), মালিক বিন আবদুল্লাহ প্রথম খাজি হিসাবে নিযুক্ত হন।[৫][৬]

১৮ শতকের শেষার্ধে, মহীশূরের সুলতান টিপু সুলতান মসজিদটির সংস্কার প্রক্রিয়া হাতে নেন।[৭] মসজিদটি শুধু সংস্কারই করা হয়নি বরং কাঠের খোদাই করে সুন্দর করা হয়েছে। এই বিরল শিল্পকর্মগুলি মসজিদের স্তম্ভ ও ছাদকে শোভা পাচ্ছে।[৮][২] এই সময়েই টিপু সুলতান তার কন্যার নামানুসারে মসজিদটির নাম "মালিক দিনার ভাল্যা জুমা-আথ মসজিদ" থেকে "জিনাথ বাকশ জামে মসজিদ" নামকরণ করেন।[১]

বৈশিষ্ট্য[সম্পাদনা]

জিনাথ বাকশের বৈশিষ্ট্য এই অঞ্চলে পাওয়া অনেকগুলি মন্দিরের মতোই রয়েছে, বিশেষত উল্লেখযোগ্যভাবে ঐতিহ্যবাহী হিন্দু মন্দিরগুলির মতো মন্দিরের ট্যাঙ্কটি মসজিদের কাছাকাছি পাওয়া যায়।[৯]

জীনাথ বাকশ কর্ণাটক রাজ্যের একমাত্র মসজিদ যা সম্পূর্ণ কাঠের তৈরি। মসজিদের প্রধান আকর্ষণ হল কাঠের অভ্যন্তরীণ গর্ভগৃহ যাতে সেগুনের তৈরি ১৬টি স্তম্ভ রয়েছে। কাঠামোটি প্রতীক, ঘণ্টা এবং ফুলের নিদর্শন দিয়ে সজ্জিত। এতে নবী মোহাম্মদের জীবন কাহিনীও লেখা আছে। এই কাঠের কাঠামোটি সেগুন এবং রোজউড দিয়ে তৈরি যা মেঝে, ছাদ, দেয়াল এবং দরজা তৈরিতে ব্যবহার করা হয়েছে।[১০][২]

চিত্রশালা[সম্পাদনা]

আরও দেখুন[সম্পাদনা]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "Zeenath Baksh Masjid | Zeenath Baksh Masjid Mangalore | Zeenath Baksh Masjid History"Karnataka.com (ইংরেজি ভাষায়)। ২০১৭-১২-০২। সংগ্রহের তারিখ ২০১৮-০৬-৩০ 
  2. "Zeenath Baksh Masjid | Zeenath Baksh Masjid Mangalore | Zeenath Baksh Masjid History"Karnataka.com (ইংরেজি ভাষায়)। ২০১৭-১২-০২। সংগ্রহের তারিখ ২০১৮-০৬-৩০ "Zeenath Baksh Masjid | Zeenath Baksh Masjid Mangalore | Zeenath Baksh Masjid History". Karnataka.com. 2 December 2017. Retrieved 30 June 2018.
  3. "Zeenath Baksh Masjid, Indian Masjid Zeenath Baksh, Karnataka Masjid Zeenath Baksh, Masjid Zeenath Baksh travel guide, The Zeenath Baksh Masjid of Mangalore"www.kamalkapoor.com। সংগ্রহের তারিখ ২০১৮-০৫-২০ 
  4. "Masjid Zeenath Baksh (Jumma Masjid), Mangalore - tourmet"tourmet (ইংরেজি ভাষায়)। ২০১৫-০১-০৬। সংগ্রহের তারিখ ২০১৮-০৫-২০ 
  5. Mangalore, Mangalore Today। "Historic Masjids of Mangalore"www.mangaloretoday.com। সংগ্রহের তারিখ ২০১৮-০৬-৩০ 
  6. "Hijri Gregorian Converter by IslamiCity.org - Most Beautiful Hijri Converter on the Web - IslamiCity"www.islamicity.org (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২০২১-০৪-১২ 
  7. "Zeenath Baksh Mosque, Zeenath Baksh Juma Masjid Mangalore"www.mangaluruonline.in। সংগ্রহের তারিখ ২০১৮-০৫-২০ 
  8. Staff Correspondent (২০১৪-০৪-২৩)। "Etched in wood, Masjid is an oasis of peace"The Hindu (ইংরেজি ভাষায়)। আইএসএসএন 0971-751X। সংগ্রহের তারিখ ২০১৮-০৫-২০ 
  9. "Zeenath Baksh Mosque, Zeenath Baksh Juma Masjid Mangalore"www.mangaluruonline.in। সংগ্রহের তারিখ ২০১৮-০৫-২০ "Zeenath Baksh Mosque, Zeenath Baksh Juma Masjid Mangalore". www.mangaluruonline.in. Retrieved 20 May 2018.
  10. Staff Correspondent (২০১৪-০৪-২৩)। "Etched in wood, Masjid is an oasis of peace"The Hindu (ইংরেজি ভাষায়)। আইএসএসএন 0971-751X। সংগ্রহের তারিখ ২০১৮-০৫-২০ Staff Correspondent (23 April 2014). "Etched in wood, Masjid is an oasis of peace". The Hindu. ISSN 0971-751X. Retrieved 20 May 2018.