জালাল আলমগীর

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
ড. জালাল আলমগীর
জালাল আলমগীর.jpg
জন্ম(১৯৭১-০১-১৭)১৭ জানুয়ারি ১৯৭১
মৃত্যু৩ ডিসেম্বর ২০১১(2011-12-03) (বয়স ৪০)
শিক্ষাপিএইচডি (রাষ্ট্রবিজ্ঞান)
মাতৃশিক্ষায়তনব্রাউন বিশ্ববিদ্যালয়
সেন্ট লরেন্স বিশ্ববিদ্যালয়
পেশাঅধ্যাপক
নিয়োগকারীম্যাসাচুসেটস-বোস্টন বিশ্ববিদ্যালয়
পরিচিতির কারণশিক্ষাবিদ
পিতা-মাতাড. মহিউদ্দীন খান আলমগীর (পিতা)

ড. জালাল আলমগীর (১৭ জানুয়ারি ১৯৭১ - ৩ ডিসেম্বর ২০১১) একজন মার্কিন বাঙ্গালি শিক্ষাবিদ এবং ম্যাসাচুসেটস-বোস্টন বিশ্ববিদ্যালয়ের রাজনৈতিক বিজ্ঞানের সহযোগী অধ্যাপক ছিলেন। তিনি বিশ্বায়ন এবং প্রতিনিধিত্বমূলক রাজনীতির মধ্যে আন্তঃ সম্পর্কীয় বিষয়ে বিশেষজ্ঞ ছিলেন। ৩ ডিসেম্বর ২০১১ তারিখে থাইল্যান্ডের ফুকেট বিচে সমুদ্রে জীববৈচিত্র পর্যবেক্ষণে গিয়ে পানিতে ডুবে মারা যান। [১][২]

কর্মজীবন[সম্পাদনা]

জালাল ব্রাউন বিশ্ববিদ্যালয় থেকে পিএইচডি করেন। তিনি ম্যাসাচুসেটস-বোস্টন বিশ্ববিদ্যালয়ের একজন স্থায়ী শিক্ষক ছিলেন, রাজনৈতিক বিজ্ঞানের সহযোগী অধ্যাপক পদে অধিষ্ঠিত ছিলেন। তিনি হার্ভার্ড বিশ্ববিদ্যালয়ের সাউথ এশিয়া ইনিশিয়েটিভের সহকর্মী ছিলেন। উমাসে যোগদান করার আগে আলমগীর ব্রাউন ইউনিভার্সিটির ইন্টারন্যাশনাল স্টাডিজের ওয়াটসন ইন্সটিটিউট ফর ইন্টারন্যাশনাল স্টাডিজ, কলম্বিয়া বিশ্ববিদ্যালয়ের সাউদার্ন এশীয় ইনস্টিটিউট এবং নিউ দিল্লির পলিসি রিসার্চ সেন্টারের গবেষণায় অংশ নেন। গবেষণার পাশাপাশি তিনি জাতিসংঘ জনসংখ্যা তহবিল এবং কৌশল পরামর্শদাতাদের হয়ে কাজ করেন।

জালাল মৃত্যুর আগ পর্যন্ত একাধিক গবেষণামূলক প্রকল্পে কাজ করেন, উল্লেখযোগ্য হলো বাংলাদেশ ও পাকিস্তানের রাজনৈতিক সহিংসতা ও বিচার, বাংলাদেশের পরাষ্ট্র নীতি, ভারতীয় পররাষ্ট্র নীতিতে মূল্যবোধের প্রতিনিধিত্ব এবং মিয়ানমারের কর্তৃত্ববাদ ও বিশ্বায়নের মধ্যে সম্পর্ক।

বিশ্ববিদ্যালয়ে কর্মজীবনের পাশাপাশি, আলমগীর রেড ব্রিজ স্ট্রাটেজি, ইনকর্পোরেটেডের অধ্যক্ষ ছিলেন।

ব্যক্তিগত জীবন[সম্পাদনা]

জালাল ১৭ জানুয়ারি ১৯৭১ সালে চাঁদপুরের জেলার কচুয়া উপজেলার শিক্ষাবিদ পরিবার হিসেবে খ্যত খান পরিবারে জন্মগ্রহণ করেন। তিনি আওয়ামী লীগের চাঁদপুর-১ (কচুয়া) আসনের সংসদ সদস্য ও সাবেক স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী ড মহিউদ্দীন খান আলমগীরের পুত্র ও চাঁদপুর জেলার প্রথম মুসলিম গ্র্যাজুয়েট আশেক আলী খানের দৌহিত্র। তার চাচা ড. বোরহান উদ্দিন খান জাহাঙ্গীর ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক ছিলেন। বাংলাদেশের ইতিহাসবিদ ও লেখক ড. মুনতাসির মামুন তাদের পরিবারের সদস্য। তার জন্মস্থানে তার নামে ‘জালাল আলমগীর স্মৃতি পাঠাগার’ রয়েছে।

লেখক[সম্পাদনা]

জালালের উল্লেখযোগ্য বই, ইন্ডিয়া ওপেন-ইকোনমি পলিসি: গ্লোবালিজম, প্রতিদ্বন্দ্বিতা, ক্রনিটিটি [৩] ২০০৮ এর "পলিসিমেকার্স লাইব্রেরির" জন্য প্রস্তাবিত বই হিসাবে এশিয়া পলিসি নির্বাচিত হয়েছিল এবং এসোসিয়েশন ফর এশিয়ান স্টাডিজের আনন্দ কান্তিশ কুমারস্বামী বই পুরস্কারের জন্য মনোনীত হয়েছিল।

নিবন্ধ এবং প্রবন্ধ[সম্পাদনা]

জালালের প্রবন্ধগুলিতে "১৯৭১ সালের গণহত্যা: যুদ্ধাপরাধ ও রাজনৈতিক অপরাধ" [৪] এবং "বাংলাদেশ এর নতুন সূচনা" অন্তর্ভুক্ত। [৫] ও অন্যান্যা গবেষণা ইন্টারন্যাশনাল স্টাডিজ রিভিউ, এশিয়ান সার্ভে, এশিয়ান স্টাডিজ রিভিউ, ইস্যু অ্যান্ড স্টাডিজ, প্যাসিফিক অ্যাফেয়ার্স, ব্রাউন ইকোনোমিক রিভিউ, জার্নাল অফ কনটেমপরিশিয়া এশিয়া, দ্য জার্নাল অফ বাংলাদেশ স্টাডিজ, দ্য জার্নাল অফ সোশ্যাল স্টাডিজ, গ্লোবালাইজেশন এর এনসাইক্লোপিডিয়া, স্টেটস এ প্রকাশিত হয়েছে দ্য গ্লোবাল ইকোনমি । লিন্ডা ওয়েইস, ক্যামব্রিজ ইউনিভার্সিটি প্রেস), এবং ভারতে গ্লোবালাইজেশন অ্যান্ড পলিটিক্স (অক্সফোর্ড ইউনিভার্সিটি প্রেস) এ প্রকাশিত হয়েছে।

তিনি ‘পররাষ্ট্র নীতি ও বর্তমান ইতিহাস’ চায়না ডেইলি, ‘ওপেন ডেমোক্র্যাসি, গ্লোবালপস্ট’ দ্য ডেইলি স্টার ফোরাম, ক্যাটামারান: দক্ষিণ এশীয় আমেরিকান রাইটিং এর জার্নাল , ওয়াশিংটন ডিসির হাফিং পোস্ট এবং বিভিন্ন পত্রিকা এবং পত্রিকাগুলিতে লিখেছেন। জালালের ভাষ্য ও মতামত দ্য নিউইয়র্ক টাইমস, দ্য ওয়াশিংটন পোস্ট, এবং দ্য বোস্টন গ্লোবে প্রকাশিত হয়েছে এবং ডাব্লু বিবিআই রেডিও (নিউ ইয়র্ক), নেয়েন (বোস্টন), ডয়েচে ভেলে রেডিও (জার্মানি) এবং ভয়েস অফ আমেরিকাতে প্রচারিত হয়েছে। .

সামাজিক আন্দোলন[সম্পাদনা]

আলমগীর ইন্টারনেট-ভিত্তিক বাংলাদেশী মানবাধিকার সংস্থা দৃষ্টিপাতের সদস্য ছিলেন, দৃষ্টিপাত বাংলাদেশী কর্মীদের একটি বিশ্বব্যাপী নেটওয়ার্ক, এবং দীক্ষিতিপত রাইটারস কালেক্টিভ-তে অংশগ্রহণ করেন। ২০০৭ সালে, তার বাবা, সংসদ সদস্য মুহিউদ্দীন খান আলমগীরকে আটক করার প্রতিবাদে তত্ত্বাবধায়ক সরকারের বিরুদ্ধে প্রতিবাদ জানান। ক্যান্সার গবেষণার জন্য তহবিল সংগ্রহের জন্য তিনি ৮৫ মাইল প্রশস্ত প্যান-ভর চ্যালেঞ্জে সাইকেল চালান। এ তহবিল ড্যান্স-ফারবার ক্যান্সার ইনস্টিটিউটে,দান করেন। বোস্টনে ক্যান্সারের জন্য তার মায়ের চিকিৎসার অভিজ্ঞতা থেকে অনুপ্রাণিত হয়ে এ কাজ করেন। [৬]

মৃত্যু[সম্পাদনা]

২০১১ সালের ডিসেম্বরে ছুটির দিনে আলমগীর থাইল্যান্ডে তার স্ত্রী ফজিলা মোর্শেদকে নিয়ে ভ্রমণে বের হন। ফুকেটের ইয়ানুই বিচ এ স্নোকারিং করার সময় তিনি ডুবে যান। এ ঘটনা তৎকালিন বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা একটি শোক বার্তা প্রকাশ করেন। শোকবার্তায় তিনি "মৃত আত্মার পরিত্রাণের জন্য প্রার্থনা করেন এবং দুঃখভোগী পরিবারের প্রতি তার সহানুভূতি প্রকাশ করেছিলেন।" ৫ ডিসেম্বর ২০১১ তারিখে জালালের মৃতদেহ বাংলাদেশে আসার সময় এয়ারপোর্টে তার চাচা শিক্ষাবিদ বোরহানউদ্দীন খান জাহাঙ্গীর, ভাই মুনতাসির মামুন, খন্দকার রশিদুল হক নোবা ও অন্যান্যরা উপস্থিত ছিলেন। [৭]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "Dr Jalal Alamgir drowns in sea in Thailand"The Daily Star। ৪ ডিসেম্বর ২০১১। সংগ্রহের তারিখ ৪ ডিসেম্বর ২০১১ 
  2. Riaz, Ali (৫ ডিসেম্বর ২০১১)। "My Friend Jalal Alamgir"Prothom Alo। ২০১১-১২-০৬ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ৫ ডিসেম্বর ২০১১ 
  3. Alamgir, Jalal (২০১০)। India's Open-Economy Policy: Globalism, Rivalry, Continuity। Routledge। পৃষ্ঠা 176। আইএসবিএন 978-0-415-78087-2 
  4. Alamgir, Jalal; D'Costa, Bina (২৬ মার্চ ২০১১)। "The 1971 Genocide: War Crimes and Political Crimes"। 
  5. Alamgir, Jalal (জুলাই ২০০৯)। "Bangladesh's Fresh Start": 41–55। doi:10.1353/jod.0.0100 
  6. [১] Pan-Mass Challenge: Jalal Alamgir's ride
  7. "Dr Jalal's body arrives"The Daily Sun। ৫ ডিসেম্বর ২০১১। ৫ ডিসেম্বর ২০১১ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ৫ ডিসেম্বর ২০১১