জর্ডান জাতীয় ফুটবল দল

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
জর্ডান
দলের লোগো
ডাকনামআল নাশামা (সাহসী)[১]
অ্যাসোসিয়েশনজর্ডান ফুটবল অ্যাসোসিয়েশন
কনফেডারেশনএএফসি (এশিয়া)
প্রধান কোচভিতাল বোর্কেলমান্স
অধিনায়কআমির শাফি
সর্বাধিক ম্যাচআমির শাফি (১৭৫)[২][৩]
শীর্ষ গোলদাতাহাসান আব্দুল-ফাত্তিয়াহ
বাদ্রান আল-শাকরান (৩০)
মাঠবিভিন্ন
ফিফা কোডJOR
ওয়েবসাইটwww.jfa.jo
প্রথম জার্সি
দ্বিতীয় জার্সি
ফিফা র‌্যাঙ্কিং
বর্তমান ৯৫ অপরিবর্তিত (১৮ ফেব্রুয়ারি ২০২১)[৪]
সর্বোচ্চ৩৭ (আগস্ট–সেপ্টেম্বর ২০০৪)
সর্বনিম্ন১৫২ (জুলাই ১৯৯৬)
এলো র‌্যাঙ্কিং
বর্তমান ৮২ বৃদ্ধি(১ এপ্রিল ২০২১)[৫]
সর্বোচ্চ৩৭ (জুলাই ২০০৪)
সর্বনিম্ন১৪৩ (সেপ্টেম্বর ১৯৮৪, জুলাই ১৯৮৫)
প্রথম আন্তর্জাতিক খেলা
সিরিয়া ৩–১ জর্ডান 
(আলেকজান্দ্রিয়া, মিশর: ৩০ জুলাই ১৯৫৩)
বৃহত্তম জয়
 জর্ডান ৯–০ নেপাল   
(আম্মান, জর্ডান: ২৩ জুলাই ২০১১)
বৃহত্তম পরাজয়
 চীন ৬–০ জর্ডান 
(কুয়াংচৌ, চীন: 1৫ সেপ্টেম্বর ১৯৮৪)
 জাপান ৬–০ জর্ডান 
(সাইতামা, জাপান: ৮ জুন ২০১২)
এএফসি এশিয়ান কাপ
অংশগ্রহণ৪ (২০০৪-এ প্রথম)
সেরা সাফল্যকোয়ার্টার-ফাইনাল (২০০৪, ২০১১)
ডাব্লিউএএফএফ চ্যাম্পিয়নশিপ
অংশগ্রহণ৯ (২০০০-এ প্রথম)
সেরা সাফল্যরানার-আপ (২০০২, ২০০৮, ২০১৪)

জর্ডান জাতীয় ফুটবল দল (আরবি: المنتخب الأردني لكرة القدم‎‎, ইংরেজি: Jordan national football team) হচ্ছে আন্তর্জাতিক ফুটবলে জর্ডানের প্রতিনিধিত্বকারী পুরুষদের জাতীয় দল, যার সকল কার্যক্রম জর্ডানের ফুটবলের সর্বোচ্চ নিয়ন্ত্রক সংস্থা জর্ডান ফুটবল অ্যাসোসিয়েশন দ্বারা নিয়ন্ত্রিত হয়। এই দলটি ১৯৫৬ সাল হতে ফুটবলের সর্বোচ্চ সংস্থা ফিফার এবং ১৯৭৫ সাল হতে তাদের আঞ্চলিক সংস্থা এশিয়ান ফুটবল কনফেডারেশনের সদস্য হিসেবে রয়েছে। ১৯৫৩ সালের ৩০শে জুলাই তারিখে, জর্ডান প্রথমবারের মতো আন্তর্জাতিক খেলায় অংশগ্রহণ করেছে; মিশরের আলেকজান্দ্রিয়ায় অনুষ্ঠিত উক্ত ম্যাচে জর্ডান সিরিয়ার কাছে ৩–১ গোলের ব্যবধানে পরাজিত হয়েছে।

আল নাশামা নামে পরিচিত এই দলটি বেশ কয়েকটি স্টেডিয়ামে তাদের হোম ম্যাচগুলো আয়োজন করে থাকে। এই দলের প্রধান কার্যালয় জর্ডানের রাজধানী আম্মানে অবস্থিত। বর্তমানে এই দলের ম্যানেজারের দায়িত্ব পালন করছেন ভিতাল বোর্কেলমান্স এবং অধিনায়কের দায়িত্ব পালন করছেন গোলরক্ষক আমির শাফি

জর্ডান এপর্যন্ত একবারও ফিফা বিশ্বকাপে অংশগ্রহণ করতে পারেনি। অন্যদিকে, এএফসি এশিয়ান কাপে জর্ডান এপর্যন্ত ৪ বার অংশগ্রহণ করেছে, যার মধ্যে সেরা সাফল্য হচ্ছে ২০০৪ এবং ২০১১ এএফসি এশিয়ান কাপের কোয়ার্টার-ফাইনালে পৌঁছানো। এছাড়াও, জর্ডান ৯ বার ডাব্লিউএএফএফ চ্যাম্পিয়নশিপে অংশগ্রহণ করেছে, যার মধ্যে ৩ আসরে তারা ফাইনালে পৌঁছেছিল।

আমির শাফি, হাসুনেহ আল-শেখ, আমির যিব, হামজা আল-দার্দুর এবং হাসান আব্দুল-ফাত্তিয়াহের মতো খেলোয়াড়গণ জর্ডানের জার্সি গায়ে মাঠ কাঁপিয়েছেন।

র‌্যাঙ্কিং[সম্পাদনা]

ফিফা বিশ্ব র‌্যাঙ্কিংয়ে, ২০০৪ সালের আগস্ট মাসে প্রকাশিত র‌্যাঙ্কিংয়ে জর্ডান তাদের ইতিহাসে সর্বপ্রথম সর্বোচ্চ অবস্থান (৩৭তম) অর্জন করে এবং ১৯৯৬ সালের জুলাই মাসে প্রকাশিত র‌্যাঙ্কিংয়ে তারা ১৫২তম স্থান অধিকার করে, যা তাদের ইতিহাসে সর্বনিম্ন। অন্যদিকে, বিশ্ব ফুটবল এলো রেটিংয়ে জর্ডানের সর্বোচ্চ অবস্থান হচ্ছে ৩৭তম (যা তারা ২০০৪ সালে অর্জন করেছিল) এবং সর্বনিম্ন অবস্থান হচ্ছে ১৪৩। নিম্নে বর্তমানে ফিফা বিশ্ব র‌্যাঙ্কিং এবং বিশ্ব ফুটবল এলো রেটিংয়ে অবস্থান উল্লেখ করা হলো:

ফিফা বিশ্ব র‌্যাঙ্কিং
১৮ ফেব্রুয়ারি ২০২১ অনুযায়ী ফিফা বিশ্ব র‌্যাঙ্কিং[৪]
অবস্থান পরিবর্তন দল পয়েন্ট
৯৩ অপরিবর্তিত  ভিয়েতনাম ১২৫৮
৯৪ অপরিবর্তিত  মাদাগাস্কার ১২৫৭
৯৫ অপরিবর্তিত  জর্ডান ১২৪৩
৯৬ অপরিবর্তিত  কিরগিজস্তান ১২৪০
৯৭ অপরিবর্তিত  বাহরাইন ১২৩৮
বিশ্ব ফুটবল এলো রেটিং
১ এপ্রিল ২০২১ অনুযায়ী বিশ্ব ফুটবল এলো রেটিং[৫]
অবস্থান পরিবর্তন দল পয়েন্ট
৮০ বৃদ্ধি  ওমান ১৪৯৩
৮১ বৃদ্ধি ১৮  জাম্বিয়া ১৪৯১
৮২ বৃদ্ধি  জর্ডান ১৪৮৯
৮৩ অপরিবর্তিত  নিউজিল্যান্ড ১৪৮৬
৮৪ হ্রাস ১৯  কসোভো ১৪৮৩

প্রতিযোগিতামূলক তথ্য[সম্পাদনা]

ফিফা বিশ্বকাপ[সম্পাদনা]

ফিফা বিশ্বকাপ বাছাইপর্ব
সাল পর্ব অবস্থান ম্যাচ জয় ড্র হার স্বগো বিগো ম্যাচ জয় ড্র হার স্বগো বিগো
উরুগুয়ে ১৯৩০ অংশগ্রহণ করেনি অংশগ্রহণ করেনি
ইতালি ১৯৩৪
ফ্রান্স ১৯৩৮
ব্রাজিল ১৯৫০
সুইজারল্যান্ড ১৯৫৪
সুইডেন ১৯৫৮
চিলি ১৯৬২
ইংল্যান্ড ১৯৬৬
মেক্সিকো ১৯৭০
পশ্চিম জার্মানি ১৯৭৪
আর্জেন্টিনা ১৯৭৮
স্পেন ১৯৮২
মেক্সিকো ১৯৮৬ উত্তীর্ণ হয়নি
ইতালি ১৯৯০
মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র ১৯৯৪ ১২ ১৫
ফ্রান্স ১৯৯৮
দক্ষিণ কোরিয়া জাপান ২০০২ ১২
জার্মানি ২০০৬ ১০
দক্ষিণ আফ্রিকা ২০১০
ব্রাজিল ২০১৪ ২০ ৩০ ৩১
রাশিয়া ২০১৮ ২১
কাতার ২০২২ অনির্ধারিত অনির্ধারিত
মোট ০/২১ ৭০ ২৮ ১৩ ২৮ ১০৫ ৯২

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. Smale, Simon। "Who the Socceroos are facing as the Asian Cup kicks off, and when to watch"ABC News। Australian Broadcasting Corporation। সংগ্রহের তারিখ ৬ জানুয়ারি ২০১৯ 
  2. Amer Shafi Sabbah Mahmoud – Century of International Appearances
  3. FIFA Century Club
  4. "ফিফা/কোকা-কোলা বিশ্ব র‍্যাঙ্কিং"ফিফা। ১৮ ফেব্রুয়ারি ২০২১। সংগ্রহের তারিখ ১৮ ফেব্রুয়ারি ২০২১ 
  5. গত এক বছরে এলো রেটিং পরিবর্তন "বিশ্ব ফুটবল এলো রেটিং"eloratings.net। ১ এপ্রিল ২০২১। সংগ্রহের তারিখ ১ এপ্রিল ২০২১ 

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]