জওহর নবোদয় বিদ্যালয়

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
জওহর নবোদয় বিদ্যালয়
অবস্থান
সমগ্র ভারতে
তথ্য
ধরনআবাসিক
নীতিবাক্যপ্রজ্ঞানম্‌ ব্রহ্ম
প্রতিষ্ঠাকাল১৯৮৬
শ্রেণীষষ্ঠ শ্রেণী থেকে দ্বাদশ শ্রেণী পর্যন্ত
শিক্ষার্থী সংখ্যা২,৪১,৬৪৮ (৩১ মার্চ, ২০১৫ - এর তথ্যমতে)[১]
ক্যাম্পাসের আকার৫ একর (২০,০০০ বর্গ মিটার)
ক্যাম্পাসের ধরনগ্রামাঞ্চল
অন্তর্ভুক্তিকেন্দ্রীয় মাধ্যমিক শিক্ষা পরিষদ
তথ্য৬৬০ টি অনুমোদনপ্রাপ্ত বিদ্যালয় এবং ৫৮৯ টি কার্যকরী বিদ্যালয় (৩১ মার্চ, ২০১৫ - এর তথ্যমতে)

জওহর নবোদয় বিদ্যালয়' (ইংরেজি: Jawahar Navodaya Vidyalaya) হল ভারত সরকারের মানব সম্পদ বিকাশ মন্ত্রালয় দ্বারা পরিচালিত এক আবাসিক বিদ্যালয় ব্যবস্থা। তামিলনাডু রাজ্য ছাড়া [[ভারত

]]-এর বাকী সমস্ত রাজ্য এবং কেন্দ্রশাসিত অঞ্চল-এর বিভিন্ন জেলায় এই বিদ্যালয় আছে। "নবোদয় বিদ্যালয় সমিতি" নামের একটি সমিতি এই বিদ্যালয়সমূহের পরিচালনা করে। ভারতের প্রাক্তন প্রধানমন্ত্রী রাজীব গান্ধীর মস্তিষ্কপ্রসূত এই বিদ্যালয় ব্যবস্থার মুখ্য বৈশিষ্ট্য হল, আর্থ-সামাজিক দিক থেকে দুর্বল পরিবারগুলির (বিশেষত গ্রামাঞ্চলের) তীক্ষ্ণ মেধাসম্পন্ন শিশুদের বেছে অন্য এক বিশ্বমানের পরিবেশে রেখে তাঁদেরকে উচ্চ মানদণ্ডের শিক্ষা প্রদান করা[১]। এই বিদ্যালয়সমূহে শিক্ষালাভ করার জন্য একজন ছাত্রকে একটি দেশভিত্তিক বাছাই পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হতে হয়। এই পরীক্ষাটি প্রত্যেক বছর বিদ্যালয় থাকা জেলাসমূহে অনুষ্ঠিত করা ১ মার্চ, ২০১৫-এর তথ্যমতে ভারতে সর্বমোট ৬৬০ টি অনুমোদনপ্রাপ্ত এবং ৫

৮৯ টি কার্যকরী জওহর নবোদয় বিদ্যালয় আছে। একটি জেলায় সাধারণত একটি জওহর নবোদয় বিদ্যালয় থাকে

লক্ষ্য[সম্পাদনা]

  • সামাজিক ন্যায় এবং সমতার মাধ্যমে উত্তম সম্পদ বিকাশ
  • দেশের বিভিন্ন অঞ্চলের মেধাসম্পন্ন শিশুদেরকে (বিশেষত গ্রামাঞ্চলের) উত্তম শিক্ষাপ্রদানের মাধ্যমে রাষ্ট্রীয় একতার বিকাশ এবং এভাবে শিশুদের ক্ষমতার পূর্ণ বিকাশ
  • ভাল গুণসম্পন্ন আধুনিক শিক্ষাপ্রদান; এর অন্তর্ভুক্ত হল সংস্কৃতি এবং ঐতিহ্যের শিক্ষা, পরিবেশ বিষয়ক শিক্ষা, শারীরিক শিক্ষা, দুঃসাহসিক ক্রীড়া ইত্যাদি
  • ত্রিভাষিক মাধ্যমে শিক্ষা প্রদানের মধ্য দিয়ে এইটি নিশ্চিত করা যে, প্রতিটি ছাত্র-ছাত্রীরই যাতে তিনটি ভাষার ওপরে পর্য্যাপ্ত দখল থাকে
  • অভিজ্ঞতা এবং সুবিধার বিতরণ এবং বহুল প্রচারের মাধ্যমে একটি জেলায় সামগ্রিক শিক্ষা মানদণ্ড উন্নয়নের কেন্দ্রবিন্দু হিসাবে কাজ করা[১]

বাছাই প্রক্রিয়া[সম্পাদনা]

জওহর নবোদয় বিদ্যালয়ে প্রবেশের জন্য বছরে জেলা এবং ব্লক ভিত্তিতে সমগ্র ভারতে একটি বাছাই পরীক্ষা আয়োজন করা হয়। এই পরীক্ষার প্রশ্নপত্র কেন্দ্রীয় মাধ্যমিক শিক্ষা পরিষদ দ্বারা করা হয়। প্রশ্নপত্রটি বস্তুনিষ্ঠ হয় এবং এটি তৈরি করার সময় লক্ষ্য রাখা হয় যাতে গ্রামাঞ্চলের শিশুদের প্রশ্নপত্র বুঝতে কোনো অসুবিধা না হয়।

জওহর নবোদয় বিদ্যালয়ের সমগ্র আসনের ৭৫% আসন গ্রামাঞ্চলের শিশুদের জন্য সংরক্ষিত। জেলার তফসিলি জাতি এবং উপজাতি জনসংখ্যার অনুপাতের ওপর নির্ভর করে তাঁদের জন্যও সংরক্ষণ থাকে, এই অনুপাত এই শ্রেণীকয়টির জনসংখ্যার জাতীয় গড় অনুপাতের থেকে কমের কয়েকটি নেওয়া হয় না। এক তৃতীয়াংশ আসন মেয়েদের জন্য সংরক্ষিত এবং ৩% আসন "ভিন্নভাবে সক্ষম" শিশুদের জন্য[১]

বিদ্যালয় ব্যবস্থা[সম্পাদনা]

জওহর নবোদয় বিদ্যালয় একটি আবাসিক শিক্ষা প্রতিষ্ঠান এবং এখানে ছেলে-মেয়েদের সহ-শিক্ষা প্রদান করা হয়। ছাত্র-ছাত্রীর জন্য অতি উচ্চ মানদণ্ডের আবাসের ব্যবস্থা থাকে। একজন ছাত্র বা ছাত্রীর দৈনন্দিন প্রয়োজনীয় সকল সুবিধা বিদ্যালয় পরিসরে উপলব্ধ হয়।

জওহর নবোদয় বিদ্যালয়ে ষষ্ঠ শ্রেণীর থেকে শিক্ষাদান আরম্ভ করা হয় এবং দ্বাদশ শ্রেণী পর্যন্ত শিক্ষাদান করা হয়। সেই সঙ্গে, এখানে নবম এবং একাদশ শ্রেণীতে ছাত্র-ছাত্রীর প্রবেশের ব্যবস্থা করা হয়েছে। এই বিদ্যালয়ে কোনো সুবিধার জন্য মূল্য দেওয়ার প্রয়োজন ছিল না, কিন্তু বর্তমান নবম শ্রেণীর থেকে দ্বাদশ শ্রেণী পর্যন্ত ছাত্রদের মাসিক ২০০ টাকা করে বিদ্যালয় বিকাশ নিধির জন্য মূল্য দিতে হয়। তফসিলি জাতি, তফসিলি উপজাতি, মেয়ে, ভিন্নভাবে সক্ষম এবং দারিদ্র্য সীমারেখার নীচের পরিবারের ছাত্র ছাত্রীদের এই মূল্য থেকে রেহাই দেওয়া হয়[১]

শিক্ষা[সম্পাদনা]

জওহর নবোদয় বিদ্যালয়ে কেন্দ্রীয় মাধ্যমিক শিক্ষা পরিষদ-এর শিক্ষাপঞ্জী মেনে চলা হয়। শিক্ষার মাধ্যম হিসাবে তিনটি ভাষা ব্যবহার করা হয় এবং তিনটি ভাষাকেই সমান গুরুত্ব প্রদান করা হয়। এই তিনটি ভাষা হল ইংরাজী, হিন্দী এবং রাজ্যিক ভাষাটি[১]

এই বিদ্যালয়সমূহে মুখ্য বিষয়সমূহের বাইরেও ক্রীড়া, সংগীত, কম্পিউটার বিজ্ঞান, সামাজিক গঠনমূলক কর্ম ইত্যাদির শিক্ষা প্রদান করা হয়। এইসব বিভিন্ন বিষয়ের জন্য প্রয়োজনীয় সকল পরিকাঠামো বিদ্যালয়সমূহে পর্য্যাপ্ত পরিমানে যোগান দেওয়া হয়। এই বিষয়গুলিতে ছাত্রছাত্রীর উৎকর্ষ সাধন করার জন্য এক-একটি রাজ্য বা অঞ্চলের জওহর নবোদয় বিদ্যালয়সমূহের মধ্যে প্রত্যেক বছর এই বিষয়গুলির উপর বিভিন্ন প্রতিযোগিতার আয়োজন করা হয়।

বিদ্যালয়সমূহের পরিচালনা[সম্পাদনা]

ভারত সরকারের মানব সম্পদ বিকাশ মন্ত্রালয়ের মাধ্যমিক এবং উচ্চ শিক্ষা বিভাগের নবোদয় বিদ্যালয় সমিতির দ্বারা এই বিদ্যালয়সমূহের পরিচালনা করা হয়। পরিচালনার সুবিধার কারণে সমগ্র ভারতকে আটটা ক্ষেত্রে ভাগ করে প্রত্যেক ক্ষেত্রে একটি করে ক্ষেত্রীয় কার্যালয় স্থাপন করা হয়েছে। প্রত্যেকটি বিদ্যালয়ের জন্য একটি করে বিদ্যালয় পরিচালনা সমিতি এবং উপদেষ্টা সমিতি থাকে। জেলার উপায়ুক্ত এই সমিতিগুলির অধ্যক্ষতা করেন। জেলার বিশিষ্ট লোকদের থেকে কিছু সংখ্যক লোককে এই সমিতিগুলিতে নেওয়া হয়। নবোদয় বিদ্যালয় সমিতির বর্তমান ক্ষেত্রীয় কার্যালয়সমূহ এইসব স্থানে অবস্থিত:

নবোদয় বিদ্যালয় সমিতির মুখ্য কার্যালয়ের বর্তমান ঠিকানা : এ'-২৮, কৈলাশ কলোনি, নতুন দিল্লী - ১১০০৪৮ [১]

শিক্ষার্থী পরিভ্রমণ ব্যবস্থা[সম্পাদনা]

জওহর নবোদয় বিদ্যালয়সমূহের অন্য এক উল্লেখযোগ্য বৈশিষ্ট্য হল নবম শ্রেণীতে করা এক বছরের জন্য শিক্ষার্থীর বদলিকরণ। এই যোজনার অধীনে, একটি বিদ্যালয়ের নবম শ্রেণীর ৩০% ছাত্রছাত্রীকে ভারতের ভিন্ন এক অংশের অন্য একটি বিদ্যালয়ে এক বছরের জন্য পাঠানো হয়। এই বদলির সময় ভাষার বিষয়টি লক্ষ্য রাখা হয়, কোনো এক নির্দিষ্ট ভাষিক অঞ্চলের ছাত্র-ছাত্রীকে এক সম্পূর্ণ ভিন্ন ভাষিক অঞ্চলে পাঠানো হয়। এই প্রক্রিয়ার মূল লক্ষ্য হ'ল জাতীয় একতার মজবুতীকরণ এবং ছাত্রছাত্রীর মানসিক পরিসরের বিস্তার ঘটানো।

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "Overview"। ৪ ডিসেম্বর ২০১১ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২ ডিসেম্বর ২০১১ 

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]

টেমপ্লেট:ভারতের বিদ্যালয় শিক্ষা