চুহুংমুং

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন

চুহুংমুং (ইংরেজি: Suhungmung)আহোম রাজা চুপিম্ফারের পুত্র ছিলেন। চুপিম্ফার মৃত্যুর পর তিনি ১৪৯৭ সনে আহোম সাম্রাজ্যের রাজসিহাংসনে বসেন।[১] দিহিঙ্গীয়া ফৈদের রাজপুত্রদের মধ্যে তাঁকেই শ্রেষ্ঠ হিসেবে গন্য করা হয়। তিনি দিহিঙ্গীয়া রজা বা ওপরজনা দিহিঙ্গীয়া রজা নামেও বিখ্যাত। তাঁর অপরনাম স্বর্গনারায়ন। তাঁর রাজত্বকাল থেকে আহোম রাজারা স্বর্গদেউ উপাধী ব্যবহার করা আরম্ভ করেন। তিনি বকতাত নামক স্থানে আহোম সাম্রাজ্যের রাজধানী স্থাপন করেন।

শাসন[সম্পাদনা]

স্বর্গদেউ চুহুংমুং বরগোহাই ও বুঢ়াগোহাইয়ের সমমর্যদায় বরপাত্রগোহাই পদবীর সৃষ্টি করেন। তিনি শদিয়ার জন্য শদিয়াখোয়া গোহাই ও মরঙ্গীর জন্য মরঙ্গীখোয়া গোহাইয়ের পদবী সৃষ্টি করেন। আহোম রাজকুমারদের তিনি দিহিঙ্গীয়া, টিপমীয়া, চারিঙ্গীয়া ও তুংখুঙ্গীয়া ইত্যাদি চাঁরটি ভাগে ভাগ করেন। কছাড়ী রাজ্যের নঁগাও অংশ ও চুতীয়া রাজ্য তিনি নিজের রাজ্যের অন্তর্ভুক্ত করেন। ১৫৩২ সনে বঙ্গের সেনাপতি তুর্বকের নেতৃত্বে মোগল সেনা অসম আক্রমণ করে। এই যুদ্ধে ফ্রাচেংনমুং বরগোহাই সহ আঠজন আহোম সেনাপতি নিহত হয়। ফ্রাচেংনমুং বরগোহাইয়ের মৃত্যুর পর তাঁর পত্নী মূলা গাভরু ভরলীর পাড়ে আহোমের পক্ষ হয়ে যুদ্ধে যোগদান করেন। কিন্তু মোগল সেনা মূলা গাভরুকে যুদ্ধে অন্যায় ভাবে হত্যা করে। অবশেষে আহোম সেনাপতি কনচেং বরপাত্রগোহাই তুর্বককে হত্যা করে মোগল সেনাকে পরাজিত করেন। তখন থেকেই করতোয়া নদী দুইটি রাজ্যের সীমানা হিসেবে নির্ধারন করা হয়। তাঁর রাজত্বকালে হারমতী গড়, করতোয়া দল, করতোয়া পুখুরী ও আঠাবারীর পুকুর নির্মাণ করা হয়। ১৫১০ তিনি সর্বপ্রথম আহোম রাজ্যে জনগননা আরম্ভ করেন।

মৃত্যু[সম্পাদনা]

চুহুংমুং ঘুমন্ত অবস্থায় ষড়যন্ত্র করে বরকোয়র চুক্লেনমংয়ের তাঁকে হত্যা করেন।

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]