চিত্রা দেব

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন

চিত্রা দেব (২৪ নভেম্বর, ১৯৪৩ - ১ অক্টোবর, ২০১৭) হলেন বাঙালি সাহিত্যিক ও গবেষিকা।

প্রারম্ভিক জীবন[সম্পাদনা]

চিত্রা দেব জন্মেছিলেন বিহারেপূর্ণিয়াতে। কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে তিনি বাংলায় এম.এ ও পিএইচডি ডিগ্রি অর্জন করেন।[১][২]

কর্মজীবন[সম্পাদনা]

চিত্রা দেব আনন্দবাজার পত্রিকা কাজ শুরু করেন। তিনি পত্রিকার গ্রন্থাগারের দায়িত্বে ছিলেন। আজীবন তিনি এই পত্রিকা দপ্তরে কাজ করেছেন। গবেষণামূলক রচনার পাশাপাশি অনুবাদ ও সম্পাদনাও করেতেন। তার সবচেয়ে উল্লেখযোগ্য বই ‘ঠাকুরবাড়ির অন্দরমহল’ যা একাধিক ভাষায় অনূদিত হয়। এছাড়া ‘ঠাকুরবাড়ির বাহির মহল’, বিবাহবাসরের কাব্যকথা, ‘অন্তঃপুরের আত্মকথা’, মহিলা ডাক্তার: ভিনগ্রহের বাসিন্দা, আপন খেয়ালে চলেন রাজা, রূপবতীর মালা, ভারতের নারী ইত্যাদি বই তিনি রচনা করেন। ঐতিহাসিক ব্যক্তিদের প্রণয়কাহিনী অবলম্বনে তার গল্পগ্রন্থ 'রাজকীয় প্ৰেমকথা।[৩] শিশুদের জন্যে কয়েকটি ঐতিহাসিক ছোটগল্প রচনা করেছেন। ছোটদের জন্যে তার লেখা বইগুলি হল 'বুদ্ধদেব দেখতে কেমন ছিলেন’ অদ্ভুত যত হাতির গল্প’,‌‌ ‘‌সিদ্ধিদাতার অন্তর্ধান’‌। তিনি মুন্সি প্রেমচাঁদ এর ‘গো দান’ এবং ‘নির্মলা’র হিন্দি থেকে বাংলায় অনুবাদ করেন। সম্পাদনা করেন ‘সরলাবালা রচনা সমগ্র’। এ ছাড়া তিনি কবি চন্দ্রের মহাভারত, বিষ্ণুপুরী রামায়ণ হিন্দি থেকে বাংলায় অনুবাদ করেন।[৪]

পুরস্কার[সম্পাদনা]

ঠাকুরবাড়ির অন্দরমহল বইয়ের জন্যে পেয়েছেন বাংলা আকাদেমি পুরস্কার। বঙগীয় সাহিত্য পরিষৎ এর চিত্তরঞ্জন বন্দ্যোপাধ্যায় জন্মশতবার্ষিকী পুরস্কারে সম্মানিত হয়েছেন চিত্রা দেব।[৫]

মৃত্যু[সম্পাদনা]

২ অক্টোবর, ২০১৭ কলকাতায় মারা যান চিত্রা দেব। তিনি মায়াস্থেশিয়া রোগে দীর্ঘকাল ভুগছিলেন। মৃত্যুকালে তার বয়স হয়েছিল ৭৪ বছর। তিনি অবিবাহিতা ছিলেন।[৪]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "প্রয়াত চিত্রা দেব"। আনন্দবাজার পত্রিকা। সংগ্রহের তারিখ ৮ অক্টোবর ২০১৭ 
  2. "Chitra Deb"। ২৮ মার্চ ২০১৭ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ৮ অক্টোবর ২০১৭ 
  3. "পশ্চিমবঙ্গের বিশিষ্ট লেখক চিত্রা দেব আর নেই"kalerkantho.com। সংগ্রহের তারিখ ৮ অক্টোবর ২০১৭ 
  4. "চলে গেলেন চিত্রা দেব"। প্রথম আলো। সংগ্রহের তারিখ ৮ অক্টোবর ২০১৭ 
  5. "চিত্রা দেব প্রয়াত"। সংগ্রহের তারিখ ৮ অক্টোবর ২০১৭