চিত্রাঙ্কনের ইতিহাস

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
অরোক্সের ( বস প্রিমিজিনিয়াস  প্রিমিজিনিয়াস ) গুহাচিত্র , লাস্কো , ফ্রান্স , প্রাগৈতিহাসিক কলা

চিত্রকলার ইতিহাস প্রাগতিহাসিক মানুষের থেকে প্রাপ্ত শিল্পকর্মগুলি থেকে শুরু হয় এবং সমস্ত সংস্কৃতিকেই পরিব্যপ্ত করে ৷ এটি প্রাচীনকাল থেকে অবিরাম চলে আসা ও পর্যায়ক্রমিক বিরতির প্রতিনিধিত্ব করে। সংস্কৃতিব্যপী , বিস্তৃত মহাদেশ ব্যপী এবং সহস্রাব্দব্যপী চিত্রকলার এই ইতিহাস সৃজনশীলতার একটি চলমান নদী, যা একবিংশ শতাব্দীতেও অব্যাহত রয়েছে।[১] বিশ শতকের গোড়ার দিকে এটি প্রধানত প্রতিনিধিত্বমূলক, ধর্মীয় এবং ধ্রুপদীয় বিষয় নির্ভর ছিল, কিন্তু পরবর্তী সময়ে আরও বিশুদ্ধ বিমূর্ত এবং ধারণাগত পদ্ধতি প্রাধান্য পেয়েছিল।

প্রাচ্য চিত্রকলার বিকাশ ঐতিহাসিকভাবে পাশ্চাত্য চিত্রকলার সমসাময়িক হলেও কয়েক শতাব্দী আগে ।[২] আফ্রিকীয় শিল্প, ইহুদীয় শিল্প, ইসলামী শিল্প, ভারতীয় শিল্পকলা,[৩] চীনা শিল্প এবং জাপানি শিল্প[৪] প্রত্যেকেরই পশ্চিমা শিল্পের উপর তাৎপর্যপূর্ণ প্রভাব ছিল এবং এর বিপরীতও সঠিক ।[৫]

প্রথমদিকে উপযোগী উদ্দেশ্য এবং সাম্রাজ্যবাদী, বেসরকারী, সাধারন নাগরিক এবং ধর্মীয় পৃষ্ঠপোষকতা প্রদর্শন করলেও , পূর্ব এবং পাশ্চাত্য চিত্রকলা পরে অভিজাত এবং মধ্যবিত্ত শ্রেণীর পৃষ্ঠপোষকতা পেয়েছিল। আধুনিক যুগ থেকে মধ্যযুগ ও পরে রেনেসাঁর সময়কালে চিত্রকরেরা চার্চ এবং ধনী অভিজাতদের জন্য কাজ করত ।[৬] বারোক যুগের সূচনার পর শিল্পীরা শিক্ষিত এবং সমৃদ্ধ মধ্যবিত্ত শ্রেণীর থেকে ব্যক্তিগত কাজ পেতেন।[৭]অবশেষে পশ্চিমে "শিল্পের জন্য শিল্প"[৮] এই ধারণা ফ্রান্সিস্কো গোয়া, জন কনস্টেবল, এবং জে এম এম ডব্লু টার্নারের[৯] মতো রোমান্টিক চিত্রশিল্পীদের অঙ্কনে প্রকাশ পেতে শুরু করে । ১৯ শতকে বাণিজ্যিক শিল্পকলা জাদুঘরের উত্থান ঘটেছিল, যা ২০ শতকেও পৃষ্ঠপোষকতা পায় ।[১০]

প্রাগৈতিহাসিক[সম্পাদনা]

প্রাচীনতম আবিষ্কৃত চিত্রগুলি প্রায় ৪০০০০ বছরের পুরানো। স্পেনের কর্ডোবা বিশ্ববিদ্যালয়ের হোসে লুইস সানচিড্রিয়ান বিশ্বাস করেন যে চিত্রগুলি খুব সম্ভবত নিয়ানডার্থালদের আঁকা , আধুনিক মানবের আঁকা নয় ।[১১][১২][১৩] ফ্রান্সের চৌভেট গুহায় চিত্রগুলি প্রায় ৩২০০০ বছরের পুরানো বলে মনে হয়। এগুলি লাল গিরিমাটি এবং কালো রঞ্জক ব্যবহার করে খোদাই করা ও আঁকা এবং ঘোড়া, গণ্ডার, সিংহ, মহিষ, ম্যামথ বা মানুষকে  শিকাররত অবস্থা বর্ণনা করে। সারা বিশ্ব জুড়ে গুহাচিত্রের উদাহরণ রয়েছে যেমন ফ্রান্স, ভারত, স্পেন, দক্ষিণ আফ্রিকা, চীন, অস্ট্রেলিয়া ইত্যাদিতে ৷

এই চিত্রগুলি যারা তৈরি করেছিলেন  তাদের কাছে এর অর্থ নিয়ে বিভিন্ন প্রাথমিক ধারণা রয়েছে। প্রাগৈতিহাসিক শিল্পীরা প্রাণীদের আরও সহজেই শিকার করার জন্য তাদের অন্তরাত্মা বা আত্মাকে "ধরার"  জন্য সেই চিত্রগুলি এঁকে থাকতে পারেন বা আঁকা চিত্রগুলি আশেপাশের প্রকৃতির উপর প্রতিবাদী দৃষ্টি অথবা শ্রদ্ধার বহিঃপ্রকাশ হতে  পারে। এগুলি প্রদর্শনের একটি প্রাথমিক প্রয়োজন যা মানুষের জন্মগত - এর ফলে হতে পারে  অথবা ব্যবহারিক তথ্য সঞ্চারের জন্যও  হতে পারে।

ভীমবেটকা প্রস্তরক্ষেত্র , প্রস্তর চিত্র , প্রস্তর যুগ , ভারত
লাস্কো , ঘোড়া
এলান্ড, পাথুরে শিল্পকর্ম , দ্রাকেন্সবার্গ , দক্ষিণ আফ্রিকা
ষাঁড় ও ঘোড়া
পলিক্রোমেসের বিশাল সভাঘরের বাইসন , আলতামিরা গুহা , স্পেন
ষাঁড়ের গুহাচিত্র ,  স্পেন
সুইডেনের পেট্রোগ্লিফ নর্ডিক ব্রোঞ্জ যুগের (চিত্র)
বৃহৎ প্রদর্শনশালায় প্রাপ্ত পিকটোগ্রাফ , ক্যানিয়নল্যান্ড  জাতীয় উদ্যান , উটার অশ্বক্ষুরাকৃতি ক্যানিয়নে অবস্থিত , ১৫০০ খ্রীস্টপূর্ব
আর্জেন্টিনার সান্তা ক্রুজ এলাকায় হাতের গুহা ৭৩০০ খ্রীস্টপূর্ব
ব্র্যাড-শ প্রস্তরচিত্র পশ্চিম অস্ট্রেলিয়ার কিমবার্লি এলাকার উত্তর-পশ্চিমে প্রাপ্ত ।

[১৪]

প্রস্তর যুগে গুহা চিত্রগুলিতে মানুষের প্রদর্শন খুব কম ছিল। বেশিরভাগ ক্ষেত্রে, প্রাণীই আঁকা হত, শুধুমাত্র যেসব প্রাণীরা খাদ্য হিসাবে  ব্যবহৃত হত তারা নয়, এমন প্রাণীও যারা শক্তির প্রতীক যেমন গণ্ডার বা বৃহৎ বিড়ালের মতো প্রাণীরাও উপস্থাপিত হয়েছিল, যেমন চৌভেট গুহায়। বিন্দুর মতো চিহ্নও মাঝে মাঝে আঁকা হত । বিরল মানুষের উপস্থাপনাগুলির মধ্যে হ্যান্ডপ্রিন্ট এবং স্টেনসিল এবং মানব / প্রাণী সংকর চিত্রিত চিত্রগুলি অন্তর্ভুক্ত রয়েছে। ফ্রান্সের আর্দেক বিভাগের চৌভেট গুহায় প্রাচীন প্রস্তর যুগের সর্বাধিক গুরুত্বপূর্ণ সংরক্ষিত গুহচিত্রগুলি রয়েছে, যা  ৩১,০০০ খ্রিস্টপূর্বের আগে আঁকা। স্পেনের আলতামিরা গুহ চিত্রগুলি খ্রিস্টপূর্ব ১৪০০০ থেকে ১২০০০ এর মধ্যে আঁকা হয়েছিল এবং অন্যদের মধ্যে বাইসনও প্রদর্শিত হয়েছিল। ফ্রান্সের দর্দোগনে লাসাক্সের ষাঁড়ের হলটি হল একটি বিখ্যাত গুহা চিত্রকর্ম যা প্রায় ১৫০০০ থেকে ১০০০০ খ্রিস্টপূর্বাব্দের মধ্যে বানানো হয়েছিল ।

চিত্রগুলির কোনো অর্থ থাকলে তা জানা নেই । গুহাগুলি কোনও জনবসতিপূর্ণ অঞ্চলে ছিল না, তাই এগুলি সম্ভবত  অনুষ্ঠানিক  কাজে ব্যবহৃত হত। প্রাণীগুলির সাথে এমন চিহ্ন রয়েছে যা কিনা সম্ভাব্য যাদু ব্যবহারের ইঙ্গিত দেয়। ল্যাসাক্সে তীরের মতো চিহ্নগুলি কখনও কখনও বর্ষপঞ্জি বা পঞ্জিকা হিসাবে ব্যবহৃত হয় বলে ধারণা করা হয়, তবে এই প্রমাণগুলি আপাতদৃষ্টিতে শেষ কথা নয় [১৫] মধ্যপ্রস্তর যুগের সর্বাধিক গুরুত্বপূর্ণ নিদর্শন ছিল মার্চিং যোদ্ধা, যা কিনা স্পেনের ক্যাসেলেন, সিঙ্গেল ডি লা মোলায় পাওয়া একটি প্রস্তর চিত্রকর্ম যে টি খ্রিস্টপূর্ব ৭০০০ থেকে ৪০০০ অব্দের মধ্যে তৈরী। ব্যবহৃত কৌশলটি সম্ভবত থুথু বা শিলাটির উপরে রঞ্জকগুলিকে ফুঁকে দেওয়া। শৈল্পিক হলেও চিত্রকর্মগুলি বেশ বাস্তবিক ৷ কাঠামোগুলি সমাপতিত হলেও ত্রি-মাত্রিক নয়।

প্রাচীনতম ভারতীয় চিত্রকলাগুলি ছিল প্রাগৈতিহাসিক সময়ের প্রস্তর চিত্রকলা , যেমন ভিমবেটকার প্রস্তরক্ষেত্রগুলির মতো জায়গাগুলিতে পাওয়া প্রস্তর খোদাই এবং এর কয়েকটি খ্রিস্টপূর্ব ৫৫০০ বছরেরও বেশি প্রাচীন। এই ধরনের কাজ অব্যাহত ছিল এবং বেশ কয়েক সহস্রাব্দের পরে,  ৭ম শতাব্দীতে, মহারাষ্ট্র রাজ্যের অজন্তার খোদাই করা স্তম্ভগুলি ভারতীয় চিত্রগুলির একটি দুর্দান্ত উদাহরণ উপস্থাপনা করে। রংগুলি, বেশিরভাগ ক্ষেত্রে লাল এবং কমলার বিভিন্ন রঞ্জনবৈচিত্র্য খনিজ উপাদান  থেকে প্রাপ্ত।

প্রাচ্য[সম্পাদনা]

 রাজসভার পরিবেশের দেওয়াল চিত্র , শু শিয়ানশিয়ুর সমাধিতে , উত্তর "কি" রাজবংশ, ৫৭১ খ্রিস্টাব্দ , চীনের শানশি প্রদেশের থাইউয়েনে অবস্থিত
একজন ব্যক্তি ড্রাগনের উপর চেপে চলেছে ,  রেশম তন্তুর উপর অঙ্কিত , খ্রিস্টপূর্ব পঞ্চম – তৃতীয় শতাব্দী , প্রাচীন চীনের যুদ্ধরত রাজ্য কাল , জিদাংকু  সমাধি নং ১ ,  হুনান প্রদেশের ছাংশায়

প্রাচ্য চিত্রশিল্পের ইতিহাসে বিভিন্ন সংস্কৃতি এবং ধর্মের বিস্তৃত প্রভাব রয়েছে ৷ প্রাচ্য চিত্রকলা বিকাশ ঐতিহাসিকভাবে  পাশ্চাত্য চিত্রকলার মোটামুটি সমসাময়িক হলেও কয়েক শতাব্দী আগে। আফ্রিকীয় শিল্প, ইহুদীয় শিল্প, ইসলামীয় শিল্প, ভারতীয় শিল্প [১৬] চীনি শিল্প, কোরিয় শিল্প এবং জাপানি শিল্প[৪] প্রত্যেকেরই পাশ্চাত্য শিল্পে তাৎপর্যপূর্ণ প্রভাব ছিল এবং এর বিপরীতও সঠিক ।[৫] চীনা চিত্রশিল্প বিশ্বের অন্যতম প্রাচীন বহমান শৈল্পিক ঐতিহ্য। প্রথম দিকের চিত্রগুলি প্রতিনিধিত্বমূলক না হলেও অলঙ্কারিক ছিল; এগুলিতে চিত্রের পরিবর্তে কারুকাজ বা নকশা ছিল । প্রারম্ভিক মৃৎশিল্পগুলিতে সর্পিল, আঁকাবাঁকা সর্পিল , বিন্দু বা প্রাণী আঁকা ছিল। যুদ্ধবাজ রাজ্যগুলির সময়কাল থেকেই (৪০৩ - ২২১  খ্রীস্টপূর্ব ) শিল্পীরা তাদের চারপাশের বিশ্বকে উপস্থাপনা করতে শুরু করেছিলেন। জাপানী চিত্রকর্ম হল জাপানী কলার অন্যতম প্রাচীন এবং অত্যন্ত পরিশুদ্ধ অঙ্গ , যা বিভিন্ন ধরনের শৈলী এবং ভঙ্গিমাকে ঘিরে ব্যপ্ত । জাপানী চিত্রকলার ইতিহাস হল দেশীয় জাপানী নান্দনিকতা এবং আমদানিকৃত ধারণাগুলির অভিযোজনের মাধ্যমে সংশ্লেষ এবং প্রতিযোগিতার এক দীর্ঘ ইতিহাস। কোরিয় চিত্রকলা যা একটি স্বতন্ত্র রূপ হিসাবে ১০৮ খ্রিস্টপূর্বাব্দে  গোজোসিয়নের পতনের পরে শুরু হয়েছিল, এটি বিশ্বের প্রাচীনতম চিত্রকলার অন্যতম । তৎকালীন সময়ের শিল্পকর্ম বিভিন্ন রূপে বিবর্তিত হয়েছিল যা কোরিয়ার তিনটি রাজত্বকালকে চিহ্নিত করেছিল, বিশেষ করে চিত্রকর্ম এবং প্রাচীরচিত্রগুলি যা গোগুরইওর রাজকীয় সমাধিতে শোভা পাচ্ছে। তিন রাজবংশের সময়কালে এবং গোরিও রাজবংশের রাজত্বকালের সময়ে  কোরিয়ান চিত্রকলা মূলত কোরিয়ান ধাঁচের ভূমিরূপ , মুখের বৈশিষ্ট্য, বৌদ্ধকেন্দ্রিক বিষয়ের সমন্বয়ে সৃষ্ট এবং কোরিয় জ্যোতির্বিদ্যার দ্রুত বিকাশের ফলে স্বর্গীয় পর্যবেক্ষণকেন্দ্রিক ছিল।

পূর্ব এশীয়

চীন, জাপান এবং কোরিয়ার চিত্রকলার একটি শক্তিশালী ঐতিহ্য রয়েছে যা লিপিবিদ্যা এবং মুদ্রণ শৈলী শিল্পের সাথেও জড়িত আছে  ( এত বেশি  রকম যে এগুলিকে চিত্রকলা হিসাবে দেখা হয় )। সুদূর প্রাচ্যের ঐতিহ্যবাহী চিত্রকলার প্রধান বৈশিষ্ট্যগুলি হল জল কেন্দ্রিক কৌশল, কম বাস্তবতা , "মার্জিত" এবং স্টাইলাইজড মূল বিষয় , চিত্রায়নের রৈখিক পদ্ধতি , সাদা স্থানের গুরুত্ব ( বা নেতিবাচক স্থানের ) এবং প্রাকৃতিক দৃশ্যের চয়ন (মানব চিত্রের পরিবর্তে )। রেশম বা কাগজের স্ক্রোলগুলিতে কালি এবং রঙ ব্যবহার ছাড়াও বার্ণিশের উপর সোনার চিত্র পূর্ব এশীয় শিল্পকর্মের অন্য একটি সাধারণ মাধ্যম ছিল। যদিও অতীতে রেশম আঁকার জন্য কিছুটা ব্যয়বহুল মাধ্যম ছিল, হান রাজসভার নপুংসক কাই লুন দ্বারা খ্রিস্টীয় প্রথম শতাব্দীতে কাগজের উদ্ভাবন , কেবল লেখার জন্য সস্তা এবং বিস্তৃত মাধ্যমই সরবরাহ করেনি , চিত্রকলার জন্যও  একটি সস্তা এবং বিস্তৃত মাধ্যম সরবরাহ করেছিল ( যার ফলে এগুলি জনসাধারণের কাছে আরও সুলভ  হয়ে ওঠে )।

কনফুসিয়ানিজম, দাওবাদ এবং বৌদ্ধধর্মের মতাদর্শগুলি পূর্ব এশীয় শিল্পকলায় গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করেছিল। দ্বাদশ শতাব্দীর লিন টিংগুই এবং তাঁর লুওহান লন্ডারিংয়ের মতো মধ্যযুগীয় গান রাজবংশের চিত্রশিল্পীরা [১৭] (স্মিথসোনিয়ান ফ্রেয়ার গ্যালারী অফ আর্টে অবস্থিত) চিরাচরিত চীনা শিল্পকর্মে বৌদ্ধ ধারণা সংশ্লেষের এক উদাহরণ। রেশমের  উপরে চিত্রগুলিতে (লিঙ্কটিতে চিত্র ও বিবরণ সরবরাহ করা হয়েছে) টাকমাথাযুক্ত বৌদ্ধ লুহানকে নদীর ধারে কাপড় ধোয়ার ব্যবহারিক বিন্যাসে চিত্রিত করা হয়েছে। যদিও চিত্রটি  দৃশ্যতই  অত্যাশ্চর্য,  সমৃদ্ধ , বিশদ এবং উজ্জ্বল, অস্বচ্ছ বর্ণগুলিতে লুওহানকে চিত্রিত করা হয়েছে একটি অস্পষ্ট , বাদামী এবং নরম কাঠের পরিবেশের বিপরীতে। এছাড়াও, গাছের শীর্ষগুলি ঘূর্ণি কুয়াশায় আবৃত রয়েছে, যা কিনা পূর্ব এশীয় চিত্রশিল্পে  উল্লিখিত সাধারণ "নেতিবাচক স্থান" সরবরাহ করে।

জাপোনিসমে , ১৯ শতকের শেষের দিকে ভিনসেন্ট ভ্যান গখ এবং অঁরি দ্য তুলুজ-লোত্রেকের মতো উত্তর-অন্তর্মুদ্রাবাদী এবং জেমস ম্যাকনিল হুইস্লারের মতো টোনবাদীরা ১৯ শতকের গোড়ার দিকে জাপানী উকিও-ই শিল্পী যেমন হোকুসাই (১৭৬০– ১৮৪৯) এবং হিরোশিগের (১৭৯৭–১৮৫৮) প্রশংসা করতেন এবং তাদের দ্বারা প্রভাবিত হয়েছিলেন ।

কিং মিং ফেস্টিভাল চলাকালীন  নদীর পাশের পরিদৃশ্য, দ্বাদশ শতাব্দীর সং রাজবংশের চীনা শিল্পী জ্যাং জেদুয়ানের মূল আকাঁর  ১৮ শতাব্দীর পুননির্মাণ । জ্যাং এর  আঁকা আসল চিত্রটিকে পণ্ডিতেরা   "চীনা সভ্যতার অন্যতম সেরা শিল্পকর্ম" হিসাবে শ্রদ্ধা করেন ৷[১৮] দ্রষ্টব্য ডান দিক থেকে স্ক্রোলটি শুরু হয়।

চীনা

হান রাজপ্রাসাদে বসন্তের সকাল , মিং সময়কালীন শিল্পী কিউ ইং ( ১৪৯৪ - ১৫৫২ খ্রীঃ )

চীনা অঙ্কন শিল্পকর্মের প্রাচীনতম উদাহরণগুলি হল যুদ্ধরত রাজ্য কালের সময়কালীন (৪৮১ - ২২১ খ্রীস্টপূর্বে) যেগুলি কিনা  শিলা , ইট , পাথর , রেশম বা সমাধির ম্যুরালগুলিতে আঁকা চিত্র । এগুলি প্রায়শই সরলিকৃত শৈলী বিন্যাসযুক্ত এবং কম-বেশি অল্প কিছু প্রাথমিক জ্যামিতিক নিদর্শন সমৃদ্ধ ছিল। সেগুলি প্রায়শই পৌরাণিক প্রাণী , গার্হস্থ্য দৃশ্যাবলী , শ্রমের দৃশ্য বা প্রাসাদে আধিকারিকদের ভরা সমাবেশের চিত্র পরিবেশন করে। এই সময়কালের শিল্পকর্ম এবং পরবর্তী চিন রাজবংশ (২২১ - ২০৭ খ্রিস্টপূর্ব) এবং হান সাম্রাজ্য (২০২ খ্রিস্টপূর্ব - ২২০ খ্রিস্টাব্দ) সময়কালীন  শিল্পকর্মগুলি  নিজেদের উচ্চতর ব্যক্তিগত মতপ্রকাশের উপায় হিসাবে তৈরি করা হয়নি; বরং শিল্পকর্মগুলি তৈরি করা হত মরনোত্তর রীতিনীতির প্রতীক হিসাবে  এবং সম্মান জ্ঞাপনের জন্য , পৌরাণিক দেবদেবীদের বা পূর্বপুরুষদের আত্মার উপস্থাপনা করার জন্য । হান রাজবংশের সময় রেশমের উপর আদালতের কর্মকর্তাদের  এবং ঘরোয়া দৃশ্যের চিত্র আঁকা হত এবং ঘোড়ার পিঠে শিকার করা বা কুচকাওয়াজে অংশ গ্রহণের দৃশ্যও  ছিল ৷ পোড়ামাটির সৈন্যবাহিনীর সৈনিক এবং ঘোড়ার মূর্তিগুলির  আসল আঁকা ছবি এবং  ত্রিমাত্রিক শিল্প যেমন মূর্তি বিষয়ক চিত্রও ছিল।  প্রাচীন পূর্ব চিন রাজবংশের সামাজিক ও সাংস্কৃতিক আবহাওয়ার সময় (৩১৬ - ৪২০ খ্রি) যা কিনা দক্ষিণের নানজিংয়ে অবস্থিত ছিল ,  চিত্রাঙ্কন কনফুসীয়-শিক্ষিত আমলা , আধিকারিক এবং অভিজাতদের এক অন্যতম অবসর সময় যাপনের মাধ্যম  হয়ে ওঠে ( এরই সাথে ছিল গুকিন জিথার দ্বারা সংগীত পরিবেশনা , সুন্দর চারুলিপি লেখা  এবং কবিতা লেখা  ও  আবৃত্তি করা)। চিত্রকলা শৈল্পিক স্ব-প্রকাশের একটি সাধারণ মাধ্যমে  পরিণত হয়েছিল এবং এই সময়কালের চিত্রশিল্পীরা রাজসভা বা অভিজাত সামাজিক বর্তনীর  মধ্যে  তাদের সহকর্মীদের দ্বারা বিবেচিত হতেন।

গৌতম বুদ্ধ , জ্যাং শেংওয়েন ( ১১৭৩ - ১১৭৬ খ্রীঃ ) , সং রাজবংশের সময়কালে

পাশ্চাত্য[সম্পাদনা]

মিশর , গ্রীস ও রোম

গ্রীক টেরাকোটা দেওয়াল চিত্র , খ্রীস্টপূর্ব তৃতীয় শতাব্দী ।

প্রাচীন মিশরের স্থাপত্য এবং ভাস্কর্যের (যা মূলত উজ্জ্বল রঙে আঁকা) , মন্দির এবং অট্টালিকায় দেওয়াল চিত্রকর্মের এবং প্যাপিরাস পাণ্ডুলিপি চিত্রকর্মের  একটি সুপ্রাচীন ঐতিহ্য আছে । মিশরীয় প্রাচীর চিত্রকর্ম এবং আলংকারিক চিত্রকর্মগুলি বেশীরভাগই চিত্রানুগ হয়, কখনও কখনও বাস্তবের চেয়ে প্রতীকী ভাব বেশী থাকে । মিশরীয় চিত্রগুলি স্থূল  রূপরেখা এবং সমতল সিলুয়েটে মূর্তিগুলিকে  চিত্রিত করে, যেখানে প্রতিসাম্য একটি ধ্রুবক বৈশিষ্ট্য। মিশরীয় চিত্রশিল্পের সাথে লিখিত ভাষার  নিবিড় যোগাযোগ রয়েছে - যাকে মিশরীয় হায়ারোগ্লিফ বলা হয়। হাতে আঁকা প্রতীক লিখিত ভাষার প্রথম রূপ হিসাবে খুঁজে  পাওয়া যায়। মিশরীয়রা লিনেনেও আঁকত এবং এর অবশিষ্টাংশ আজও সংরক্ষিত আছে । অত্যন্ত শুষ্ক আবহাওয়ার কারণে প্রাচীন মিশরীয় চিত্রকলা আজও সংরক্ষিত আছে । প্রাচীন মিশরীয়রা মৃত্যু পরবর্তী  জীবনকে একটি মনোরম জায়গা হিসাবে তৈরি করার জন্য চিত্রাঙ্কন করত । মূল বিষয়গুলির  মধ্যে মৃত ব্যক্তির পরজন্মের মধ্যে দিয়ে সফর  এবং তার সাথে  পাতাল দেবতার    সাথে পরিচয় করিয়ে দেওয়ার জন্য রক্ষক দেবতাদের প্রচেষ্টা ইত্যাদি অন্তর্ভুক্ত ছিল।  রা , হোরাস , আনুবিস , নুট , ওসাইরিস এবং আইসিস ইত্যাদি দেব-দেবীদের  চিত্রগুলি এ জাতীয় চিত্রকর্মের উদাহরণ। কিছু সমাধি চিত্রগুলি এমন ক্রিয়াকলাপ দেখায় যার সাথে মৃত ব্যক্তিরা জীবিত থাকাকালীন জড়িত ছিলেন এবং অনন্তকাল ধরে করে যাওয়ার ইচ্ছা পোষণ করেন । নব্য মিশরীয় সাম্রাজ্য  এবং এর পরবর্তীকালে,  মৃত ব্যক্তির সাথে মৃতের বই সমাধিস্থ করা হত । পরবর্তী জীবনে প্রবেশের জন্য এটি গুরুত্বপূর্ণ বলে বিবেচিত হত ।

মিশরের উত্তরে ক্রীট দ্বীপকে কেন্দ্র করে মিনোয়ান সভ্যতা গড়ে উঠেছিল। ননোসের প্রাসাদে পাওয়া প্রাচীর চিত্রগুলি মিশরীয়দের মতো হলেও শৈলীতে অনেক বেশি স্বাধীন ছিল। খ্রিস্টপূর্ব ১৬০০ খ্রিস্টাব্দের দিকে মাইসেনিয়ান গ্রীকরা , মিনোয়ান ক্রীটের অনুরূপ শিল্প তৈরি করেছিল। গ্রীক অন্ধকার যুগের সময় প্রাচীন গ্রীক শিল্পটি আরও কম জটিল হয়ে উঠেছিল , ভূমধ্যসাগর জুড়ে গ্রীক সভ্যতার নবজীবন এবং প্রাচ্য  শৈলীর সাথে গ্রীক শিল্পের মেলবন্ধনে নতুন রূপের সৃষ্টি হয়েছিল ।

হাদেস এবং পার্সেফোন রথে চড়ে যাচ্ছে , গ্রিসের ভার্জিনার ম্যাসিডোনের রানী প্রথম ইউরিডাইসের সমাধিসৌধ থেকে প্রাপ্ত খ্রিস্টপূর্ব চতুর্থ শতাব্দীর একটি প্রাচীর চিত্র ।

আফ্রিকা[সম্পাদনা]

সাবেকি পোশাক পরিহিত এবং মুখচিত্রে সজ্জিত কিকুয়ু মহিলা৷
মাথায় মুকুট এবং মুখ চিত্রে সজ্জিত নবীন মাসাই যোদ্ধা।
চিত্র সমন্বিত দোগোন গুহা , মালিতে৷

আফ্রিকার ঐতিহ্যবাহী সংস্কৃতি এবং উপজাতিদের ভাস্কর্য এবং মূর্তিশিল্পের বিপরীতে দ্বি-মাত্রিক উপস্থাপনে খুব আগ্রহ ছিল বলে মনে হয় না। তবে, আফ্রিকীয় সংস্কৃতির আলংকারিক চিত্রগুলি বেশীরভাগ বিমূর্ত এবং জ্যামিতিক ভাবনাযুক্ত ছিল। আর একটি চিত্রের ধরন হল শরীর এবং মুখের চিত্রকলা যেমন মাশাই এবং কাকিয়ে উপজাতির অনুষ্ঠানগুলিতে লক্ষ্য করা যায়। নির্দিষ্ট কয়েকটি গ্রামে আনুষ্ঠানিকভাবে গুহা চিত্রকর্ম এখনও তৈরী করা হয়। মনে রাখবেন যে পাবলো পিকাসো এবং অন্যান্য আধুনিক শিল্পীরা আফ্রিকার ভাস্কর্য এবং তাদের বিভিন্ন শৈলীর মুখোশ দ্বারা প্রভাবিত হয়েছিলেন। সমসাময়িক আফ্রিকীয় শিল্পীরা পশ্চিমা শিল্পকলা অনুসরণ করেন এবং তাদের চিত্রগুলির থেকে পাশ্চাত্য শিল্পকর্মের সামান্যই পার্থক্য খুঁজে পাওয়া যায়।

সুদানী

পুরানো ডোঙ্গোলায় প্রাপ্ত যীশুর দীক্ষাদান বিষয়ক একটি মধ্যযুগীয় নুবিয় চিত্র৷

মিশরের সীমান্তবর্তী প্রাচীন নুবিয়ার কুশ রাজত্বে (অর্থাৎ আধুনিক সুদানে) দেওয়াল চিত্র এবং চিত্রসমন্বিত বস্তুসহ বিভিন্ন ধরণের কলার নিদর্শন পাওয়া গেছে। কেরমা সংস্কৃতির কেন্দ্রস্থল সুদানের কেরমা অঞ্চলে ( যেটি কুশ রাজ্যের পূর্বসূরী ছিল ) , একটি রাজকীয় সমাধি থেকে  ১৭০০ খ্রিস্টপূর্বের একটি  খন্ডিত চিত্র পাওয়া গেছে যাতে একটি পালতোলা জাহাজ এবং সিঁড়িসহ ঘর চিত্রিত করা রয়েছে যার সাথে মিশরীয় রানী হাতশেপসুতের (১৪৭৯–১৪৫৮ খ্রীস্টপূর্ব)  রাজত্বের সময়কালীন দৃশ্যের সাদৃশ্য খুঁজে পাওয়া যায়৷ [১৯][২০] দেওয়াল চিত্রের প্রাচীন ঐতিহ্য , যেটি আবু সালিহ  খ্রিস্টীয় দ্বাদশ শতাব্দীতে প্রথম বর্ণনা করেছিলেন , মধ্যযুগীয় নুবিয়ায় সেই ধারা অব্যাহত ছিল। [২১]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. Bruce Cole; Adelheid M. Gealt (১৫ ডিসেম্বর ১৯৯১)। Art of the Western World: From Ancient Greece to Post Modernismবিনামূল্যে নিবন্ধন প্রয়োজন। Simon and Schuster। আইএসবিএন 978-0-671-74728-2। সংগ্রহের তারিখ ৮ সেপ্টেম্বর ২০১১ 
  2. The Meeting of Eastern and Western Art, Revised and Expanded edition (Hardcover) by Michael Sullivan.
  3. "Art View; Eastern Art Through Western Eyes"The New York Times। ১০ জুলাই ১৯৯৪। সংগ্রহের তারিখ ৩০ নভেম্বর ২০১০ 
  4. Wichmann, Siegfried (১৯৯৯)। Japonisme: The Japanese Influence on Western Art Since 1858আইএসবিএন 978-0-500-28163-5 
  5. Sullivan, Michael (১৯৮৯)। The Meeting of Eastern and Western Art। University of California Press। আইএসবিএন 978-0-520-05902-3 
  6. Discussion of the role of patrons in the Renaissance. Retrieved 11 November 2008.
  7. History 1450–1789: Artistic Patronage. Retrieved 11 November 2008.
  8. Britannica.com. Retrieved 11 November 2008.
  9. Victorianweb.org, Aesthetes, Decadents, and the Idea of Art for Art's Sake George P. Landow, Professor of English and the History of Art, Brown University. Retrieved 11 November 2008.
  10. Cézanne to Picasso: Ambroise Vollard, Patron of the Avant-Garde, Chicago Art Institute. Retrieved 11 November 2008 ওয়েব্যাক মেশিনে আর্কাইভকৃত ১২ অক্টোবর ২০০৮ তারিখে.
  11. Fergal MacErlean (১০ ফেব্রুয়ারি ২০১২)। "First Neanderthal cave paintings discovered in Spain"New Scientist। সংগ্রহের তারিখ ১০ ফেব্রুয়ারি ২০১২ 
  12. Amos, Jonathan (১৫ জুন ২০১২)। "Red dot becomes 'oldest cave art'" – www.bbc.co.uk-এর মাধ্যমে। 
  13. Diaz, Jesus। "These Are the Earliest Human Paintings Ever"Gizmodo 
  14. Tacon, Paul; Mulvaney, Ken; Fullagar, Richard; Head, Lesley (১৯৯৯), "Bradshaws' – an eastern province?", Rock Art Research, 16 (2): 127–129 
  15. M. Hoover, "Art of the Paleolithic and Neolithic Eras", from Art History Survey 1, San Antonio College (July 2001; accessed 11 June 2005).
  16. "Holland Cotter"NY Times। ৯ আগস্ট ২০১৪ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২৭ অক্টোবর ২০০৭ 
  17. "Open F-S: Sketch after Cecil Lawson's Swan and Iris"Freer – Sackler। ১১ জুন ২০০৭ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। 
  18. Seno, Alexandra A. (২ নভেম্বর ২০১০)। "'River of Wisdom' is Hong Kong's hottest ticket"The Wall Street Journal 
  19. Hatke, George (2013). Aksum and Nubia: Warfare, Commerce, and Political Fictions in Ancient Northeast Africa. New York University Libraries: Ancient World Digital Library. Accessed 12 May 2018.
  20. Boivin, N. and Fuller, D. Q. (2009). "Shell Middens, Ships, and Seeds: Exploring Coastal Subsistence, Maritime Trade and the Dispersal of Domesticates in and Around the Arabian Peninsula." Journal of World Prehistory 22: 113–80 [p. 140].
  21. Nadig, Peter C. (3 April 2009) [16 January 2003]. "Derek A. Welsby, The Medieval Kingdoms of Nubia. Pagans, Christians and Muslims along the Middle Nile. London: The British Museum Press, 2002." Bryn Mawr Classical Review. Accessed 12 May 2018.