চাল তুষ তেল

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
সরাসরি যাও: পরিভ্রমণ, অনুসন্ধান

তুষ তেল হচ্ছে ধানের তুষ বা খোসা থেকে নিষ্কাশিত তেল। মূলত ধানের তুষ ছাড়ানোর পরে চালের গায়ে বাদামী যে অংশ থাকে ওখান থেকে এই তেল নিষ্কাশন করা হয়। এটা উচ্চ স্মোক পয়েন্ট ( ২৩২ °সে বা৪৫০ °ফা), মৃদু গন্ধ এবং উচ্চ তাপমাত্রার রান্না যেমন কড়া ভাজার জন্য সুপরিচিত। এটা রান্নার তেল হিসেছে কিছু এশিয়ান দেশ যেমন বাংলাদেশ, জাপান, ভারত এবং চীনে ব্যবহৃত হয়।[১]

মাঝে তুষ তেলের বোতল। তার দুপাশে তিলের তেল এবং হেম্প বীজের বোতল

ব্যবহার[সম্পাদনা]

রাইস ব্রান অয়েল বা চালের তুষ তেল হচ্ছে একটি ভোজ্য তেল যা উদ্ভিজ্জ ঘি প্রস্তুতিতে ব্যবহার করা হয়।চালের তুষ তেলে থেকে চাল তুষ মোম তৈরি করা হয়। যা প্রসাধনী, মিষ্টান্ন, জুতার খালি, মসৃণকারী যৌগ ইত্যাদিতে কারনাউবা মোমের বিকল্প হিসেবে ব্যবহার করা হয়।

উপাদান[সম্পাদনা]

চাল তুষ তেলের উপাদান প্রায় বাদাম তেলের কাছাকাছি। এতে ৩৮% মনোআনস্যাচুরেটেড, ৩৭% পলিআনস্যাচুরেটেড এবং ২৫% সম্পৃক্ত ফ্যাটি এসিড। ফ্যাটি এসিডের অনুপাত হচ্ছে:

ফ্যাটি অ্যাসিড শতাংশ
C14:0 মিস্টিরিক অ্যাসিড 0.6%
C16:0 পামিটিক অ্যাসিড 21.5%
C18:0 স্টিয়ারিক অ্যাসিড 2.9%
C18:1 অলেয়িক অ্যাসিড (একটি ওমেগা ৯ ফ্যাটি অ্যাসিড) 38.4%
C18:2 লিনোলেইক অ্যাসিড (LA একটি ওমেগা ৬ ফ্যাটি অ্যাসিড) 34.4%
C18:3 α-লিনোলেনিক অ্যাসিড (ALA, একটি ওমেগা ৩ ফ্যাটি অ্যাসিড) 2.2%
চরিত্র অশোধিত চাল তুষ তেল অপরিশোধিত তেল
আর্দ্রতা 0.5-1.0% 0.1-0.15%
ঘনত্ব (15-15 °সি) 0.913-0.920 0.913-0.920
প্রতিসরাঙ্ক 1.4672 1.4672
আয়োডিন মান 85-100 95-104
সাবানিকরণ মান 187 187
অসাবানিকরণ ব্যাপার 4.5-5.5 1.8-2.5
ফ্রি ফ্যাটি অ্যাসিড 5-15% 0.15-0.2%
অরাইজ্যানল 2.0 1.5-1.8
টোকোফেরল 0.15 0.05
রঙ(টিন্টোমিটার) 20Y+2.8 R 10Y+1.0 R

স্বাস্থ্য উপকারিতা[সম্পাদনা]

চাল তুষ তেলের উপাদান অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট γ-অরাইজানল।

কলেস্টেরল[সম্পাদনা]

এক পর্যালোচনায় দেখা গেছে রাইস ব্রান অয়েল এবং এর উপাদান সমূহ মোট রক্তরস কোলেস্টর কমায় ও ট্রাইগ্লিসারয়েড কমায় এবং এইচডিএল কোলেস্টেরল বাড়ায়।[২]

মেনোপজ[সম্পাদনা]

একটি ছোট গবেষণায় দেখা গেছে তুষ তেলে গামা অরাইজনল থাকার কারণে যেসকল মহিলারা চার থেকে ছয় সপ্তাহ বিশুদ্ধ তুষ তেল গ্রহণ করে থাকে তাদের ঋতুচলাকালীন সময়ে ৯০ ভাগের শারিরীক প্রদাহ কম হয়।[৩][অ-প্রাথমিক উৎস প্রয়োজন]

অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট স্থায়িত্ব[সম্পাদনা]

একটি পাত্রে তুষ তেল নিয়ে উত্তপ্ত করলে দেখা যায় অবশেষ স্যাম্পলে প্রাপ্ত অরাইজানলের পরিমান প্রায় আগের মত আছে। এমনকি ১৮০ ডিগ্রি তাপমাত্রায় আট ঘন্টা জ্বালালেও এটা অক্ষুন্ন থাকে। তবে এই মাইক্রোওয়েভ চুলায় অরাইজানলের মাত্রা কমে যায়।

ক্যালসিয়াম শোষণ[সম্পাদনা]

চাল তুষ তেলে কোলেস্টেরল কমাতে সাহায্য করে কারণ এই তেলের উপাদান কোলেস্টেরল কমাতে ভূমিকা রাখে। এর উপাদানের ক্যালসিয়াম শোষণের ক্ষমতা আছে তাই এটা নির্দিষ্ট ধরণের কিডনি পাথর তৈরির হার কমাতে পারে।.[৪]

ইনসুলিন প্রতিরোধ[সম্পাদনা]

ইদুরের উপর পরিচালিত এক গবেষণায় দেখা গেছে রাইস ব্রাইণ অয়েলের অরাইজানল ইনসুলিন প্রতিরোধে সহায়তা করে।

আরও দেখুন[সম্পাদনা]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. Orthoefer, F. T. (২০০৫)। "Chapter 10: Rice Bran Oil"। in Shahidi, F.। Bailey's Industrial Oil and Fat Products 2 (6 সংস্করণ)। John Wiley & Sons, Inc.। পৃ: ৪৬৫। আইএসবিএন 978-0-471-38552-3। সংগৃহীত ২০১২-০৩-০১ 
  2. A.F. Cicero; A. Gaddi (২০০১)। "Rice bran oil and gamma-oryzanol in the treatment of hyperlipoproteinaemias and other conditions"Phytother Res 15 (4): 277–286। ডিওআই:10.1002/ptr.907পিএমআইডি 11406848। সংগৃহীত ২০০৬-১০-০৯ 
  3.   |title= অনুপস্থিত বা খালি (সাহায্য)|title= অনুপস্থিত বা খালি (সাহায্য)
  4. http://www.webmd.com/vitamins-supplements/ingredientmono-852- rice%20bran.aspx?activeingredientid=852&activeingredientname=rice%20bran