চলচ্চিত্রে যৌনতা

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
দ্য কিস (১৮৯৬) চলচ্চিত্রের দৃশ্যে অন্তর্ভুক্ত উপাদান চলচ্চিত্রে প্রথম যৌন দৃশ্য হিসাবে গণ্য করা হয়।

চলচ্চিত্রে যৌনতা মূলত কোনো চলচ্চিত্রের কাহিনি নির্মাণে অন্যান্য উপাচারের সঙ্গে যৌনানুষঙ্গের ব্যবহার এবং যৌনতার উপস্থাপনা বোঝায়। পোশাক-পরিচ্ছদে নায়ক-নায়িকার যৌনাবেদন উপস্থাপনা থেকে শুরু করে অনুপুঙ্খ শয্যাদৃশ্য পর্যন্ত নানাভাবে যৌনতাকে চলচ্চিত্রে ব্যবহার করা হয়। মানবদেহের নগ্নতা থেকে যৌনানুষঙ্গের শুরু, এবং তা নরনারীর যৌনমিলনের গ্রাফিক বর্ণনা পর্যন্ত বিস্তৃত হতে পারে।

ইরোটিক চলচ্চিত্র সাধারণত এমন চলচ্চিত্র যার ইরোটিক গুণমান রয়েছে এবং যা যৌনতার অনুভূতি সৃষ্টি করে, পাশাপাশি যৌন বাসনা, ইন্দ্রিয়সুখ এবং প্রণয়ধর্মী প্রেমের নান্দনিকতার বিষয়ে দার্শনিক চিন্তাভাবনার সৃষ্টি করে।

চলচ্চিত্রের ক্রমবিকাশোর পর থেকেই যেকোনো ধরনের চলচ্চিত্রে যৌনতার উপস্থিতি প্রশ্নবিদ্ধ এবং বিতর্কিত বিষয় হয়েছে। কেননা যৌনতা কাহিনির দাবীতে সংযোজিত না দর্শকের আকর্ষণ বৃদ্ধির লক্ষ্যে অনুপ্রবিষ্ট এই তর্কের সার্বজনীন সুরাহা হয় না। যৌন দৃশ্য সম্বলিত কিছু চলচ্চিত্র ধর্মীয় গোষ্ঠী দ্বারা সমালোচিত বা নিষিদ্ধ হয়েছে, কখনো কখনো রক্ষণশীল দেশের সরকার কর্তৃক সেন্সরশিপের বিষয় এবং নিষিদ্ধ হয়েছে। কোনো চলচ্চিত্র মুল্যায়ন (রেটিং) পদ্ধতি অনুযায়ী কোনো দেশে যৌন দৃশ্য সমন্বিত চলচ্চিত্রগুলি সাধারণত একটি বিধিনিষেধযুক্ত শ্রেণির অর্ন্তভুক্ত হয়। চলচ্চিত্রে নগ্নতা যৌনতা বা অ-যৌনতা হিসাবে গণ্য করা যেতে পারে। রক্ষণশীলরা যে কোন ধরনের যৌনানুষঙ্গের বিরোধী; অন্যদিকে মুক্তমনারা কাহিনীর প্রয়োজনে যৌনতার ব্যবহারে আপত্তি করে না। যৌনাচার মানব জীবন এবং জীবনরীতির অঙ্গীভূত বিধায় চলচ্চিত্রের কাহিনীতে এর প্রাসঙ্গিকতা অস্বীকার করা যায় না।

আরো দেখুন[সম্পাদনা]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

আরও পড়ুন[সম্পাদনা]

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]