সরকারি কমার্স কলেজ, চট্টগ্রাম

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
(চট্টগ্রাম সরকারি কমার্স কলেজ থেকে পুনর্নির্দেশিত)
Jump to navigation Jump to search
সরকারি কমার্স কলেজ, চট্টগ্রাম
কলেজের প্রবেশদ্বার
কলেজের প্রবেশদ্বার
নীতিবাক্য প্রবেশ করো জ্ঞান অন্বেষণে
ধরন সরকারি কলেজ
স্থাপিত ১৯৪৭ (১৯৪৭)
পেরেন্ট প্রতিষ্ঠান
গভর্নর কমার্সিয়াল ইন্সটিটিউট (অংশবিশেষ)
অধিভুক্তি চট্টগ্রাম শিক্ষা বোর্ড ও জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়
অধ্যক্ষ প্রফেসর মোহাম্মদ আইয়ুব ভূঁইয়া
অ্যাকাডেমিক কর্মকর্তা
৩৩ জন
প্রশাসনিক কর্মকর্তা
৪৯ জন
শিক্ষার্থী আনুমানিক ৭,৫০০
অবস্থান চট্টগ্রাম, বাংলাদেশ
২২°১৯′৩৪″ উত্তর ৯১°৪৯′০২″ পূর্ব / ২২.৩২৬০৩৩° উত্তর ৯১.৮১৭২৮৬° পূর্ব / 22.326033; 91.817286স্থানাঙ্ক: ২২°১৯′৩৪″ উত্তর ৯১°৪৯′০২″ পূর্ব / ২২.৩২৬০৩৩° উত্তর ৯১.৮১৭২৮৬° পূর্ব / 22.326033; 91.817286
শিক্ষাঙ্গন নগর
ভাষা বাংলা, ইংরেজি
ওয়েবসাইট সরকারি কমার্স কলেজ, চট্টগ্রাম

সরকারি কমার্স কলেজ, চট্টগ্রাম, যা চট্টগ্রাম কমার্স কলেজ নামেও পরিচিত, বাংলাদেশের দক্ষিণ পূর্বাঞ্চলীয় শহর চট্টগ্রামের আগ্রাবাদ এলাকায় অবস্থিত একটি কলেজ। এটি বাণিজ্য বিষয়ে উচ্চতর শিক্ষা প্রদানের জন্য প্রতিষ্ঠা করা হয়েছিলো।

ইতিহাস[সম্পাদনা]

১৯৪৭ এর দেশভাগের প্রাক্কালে কলকাতার “গভ. কমার্সিয়াল ইনস্টিটিউট” এর একটি অংশ হিসেবে তৎকালীন পূর্ব পাকিস্তানের বাণিজ্যিক শহর চট্টগ্রামে এর জন্মলাভ। ১৯৬১ সাল পর্যন্ত আই.কম ও বি.কম কোর্স চালু ছিল। এরপর ১৯৬২ তে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অধীনে বি.কম (অনার্স) ইন কমার্স কোর্স, ১৯৭৩ এ চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের অধীনে হিসাববিজ্ঞান ও ব্যবস্থাপনা বিষযে পৃথক অনার্স কোর্স চালু হয়। ১৯৯২ সালে জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিষ্ঠার পর ১৯৯৩ সাল থেকে এ কলেজে এম.কম ১ম পর্ব এবং এম.কম শেষ পর্ব প্রবর্তিত হয়, যা বর্তমানে যথাক্রমে এম.বি.এস ১ম পর্ব ও এম.বি.এস শেষপর্ব নামে পরিচিত। [১]

অবস্থান[সম্পাদনা]

কলেজটি চট্টগ্রাম শহরের আগ্রাবাদ এলাকার, পাঠানটুলি, কমার্স কলেজ রোডে অবস্থিত।

কমার্স কলেজ রোডে অবস্থিত সরকারি কমার্স কলেজের ছবি

অনুষদ সমূহ[সম্পাদনা]

অবকাঠামো[সম্পাদনা]

ব্যবস্থাপনা[সম্পাদনা]

শিক্ষকবৃন্দ[সম্পাদনা]

এ কলেজে ৫ জন অতিথি শিক্ষকসহ ৩৩ জন নিবেদিতপ্রাণ শিক্ষক রয়েছেন।

  • ব্যাবস্থাপনা বিভাগের শিক্ষক শিক্ষিকা বৃন্দঃ

প্রফেসরঃ মোহাম্মদ শাহ আলম (বিভাগীয় প্রধান)
সহযোগী অধ্যাপকঃ ড.মোহাম্মদ তৌহিদুর রহমান(সংযুক্ত)
সহযোগী অধ্যাপকঃ জনাব মোঃ নুরুল ইসলাম চৌধুরী
সহকারী অধ্যাপকঃ জনাব সৈয়দ সাইমন মোরশেদ
সহকারী অধ্যাপকঃ জনাব মিশু বড়ুয়া
সহকারী অধ্যাপকঃ জনাব মোহাম্মদ ইউনুচ
প্রভাষকঃ জনাব মাহমুদুল হক
প্রভাষকঃ জনাব এস.এম.রুবাইয়াত ফাহিম
প্রভাষকঃ জনাব ফারুক আহম্মদ মজুমদার
প্রভাষকঃ জনাব মোস্তাক মোঃ মুরাদ খান

  • হিসাববিজ্ঞান বিভাগের শিক্ষক শিক্ষিকা বৃন্দঃ

প্রফেসর আবু মুহাম্মদ রহিমুল্লাহ (বিভাগীয় প্রধান) সহযোগী অধ্যাপকঃজনাব সুশেন কুমার বড়ুয়া
সহকারী অধ্যাপকঃ জনাব মোহাম্মদ হাশেম
সহকারী অধ্যাপকঃ জনাব মোঃ জহির হোসেন চৌধুরী
সহকারী অধ্যাপকঃ জনাব মোঃআবদুর রহিম
প্রভাষকঃ জনাব মুহাম্মদ জাহাঙ্গীর
প্রভাষকঃ জনাব রাজিয়া সুলতানা
প্রভাষকঃ জনাব কাজী মোঃ রোকন উদ্দিন
প্রভাষকঃ জনাব কামরুন নাহার

  • ইংরেজি বিভাগের শিক্ষক বৃন্দঃ

সহকারী অধ্যাপকঃ জনাব মোঃ কামাল হোসেন
প্রভাষকঃ জনাব রাজীব চৌধুরী
প্রভাষকঃ জনাব আবুল হাসনাত

  • অর্থনীতি বিভাগের শিক্ষক শিক্ষিকা বৃন্দঃ

সহকারী অধ্যাপকঃ জনাব রিজওয়ানা জেরিন খান
প্রভাষকঃ জনাব ফারজানা আইরিন

  • বাংলা বিভাগের শিক্ষক সমূহঃ

সহকারী অধ্যাপকঃ জনাব মুহাম্মদ আবু সাঈদ
প্রভাষকঃ জনাব এহতেশাম-উল-হক

  • শরীর চর্চা ও সহকারী লাইব্রেরিয়ান কাম ক্যাটালগার

বিভাগের শিক্ষকঃ শরীর চর্চাঃ জনাব মোহাম্মদ আবু কাউছার
সহকারী লাইব্রেরিয়ানঃ জনাব নুরুদ্দীন জাহেদ

  • অতিথি শিক্ষক শিক্ষিকাবৃন্দঃ

প্রভাষকঃ জনাব মোঃ সাহেদ বদরুল আহসান(পরিসংখ্যান)
প্রভাষকঃ জনাব মোঃ সাইফুল হক(হিসাববিজ্ঞান)
প্রভাষকঃ জনাব মোঃ আনোয়ার হোসেন(ইংরেজি)
প্রভাষকঃ জনাব সুমী রাণী দে(বাংলা)
প্রভাষকঃ জনাব আবদুল আল মামুন(তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি )

কর্মকর্তা-কর্মচারী[সম্পাদনা]

প্রধান সহকারীঃ জনাব মোঃ সিরাজুল ইসলাম

হিসাব রক্ষকঃ জনাব মোঃ ইব্রাহিম
ক্যাশিয়ারঃ জনাব মোঃ ইউসুফ
অফিস সহকারীঃ জনাব মোঃ তৌহিদুল ইসলাম
অফিস সহকারীঃ পদ শূন্য
স্টোর কিপারঃ পদ শূন্য
বুক সর্টারঃ জনাব মোঃ আলকাজ উদ্দিন

বেসরকারি কর্মরত[সম্পাদনা]

অপারেটর কাম ল্যাব এ্যসিসটেন্টঃ জনাব আবুু হেনা মোঃ সেলিম
মেট্রোনঃ(ছাত্রী হোস্টেল) জনাব রৌশন আরা বেগম।
জনাব সোলতানা আক্তার

সেমিনার অফিস সহকারী[সম্পাদনা]

জনাব জোবেদা বেগম (হিসাববিজ্ঞান)
জনাব মোঃ মোরশেদ আলম(ব্যবস্থাপনা)

এছাড়া ৪র্থ শ্রেণী সরকারী কর্মকর্তা ১৪ জন, ৪র্থ শ্রেণী বেসরকারী কর্মকর্তা ২৩ জন কর্মরত আছেন।

সহ-শিক্ষা কার্যক্রম[সম্পাদনা]

শুধু শ্রেণী শিক্ষা ক্ষেত্রে নয়, সহশিক্ষা কার্যক্রমেও এ কলেজের সুনাম রয়েছে। একাধিকবার জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয় আয়োজিত সাংস্কৃতিক প্রতিযোগিতায় স্বর্ণ ও রৌপ্য পদক লাভ করেছে। বেতার, টেলিভিশনসহ বিভিন্ন ইলেকট্রনিক ও প্রিন্ট মিডিয়ায় এ কলেজের শিক্ষার্থীদের সদর্প পদচারণা রয়েছে। কলেজের বিতর্ক সংগঠন(সিসিডিএস), বি.এন.সি.সি, রেড ক্রিসেন্ট ও রোভার স্কাউট অনেক বেশি সমৃদ্ধ। বিভিন্ন সেবামূলক কার্যক্রমে এ কলেজের ভূমিকা অত্যন্ত প্রশংসনীয়। ঐতিহ্য এবং সাফল্যের আরেক দিগন্ত এ কলেজের প্রাক্তন ছাত্রদের ঈর্ষণীয় কর্মজীবন। সফল ব্যবসায়ী, সরকারের উচ্চ পর্যায়ের আমলা, বন্দরের চেয়ারম্যান, বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্যসহ বিভিন্ন সরকারি কলেজের অধ্যক্ষ হিসেবে অত্যন্ত কৃতিত্ব ও সুনামের সাথে দায়িত্ব পালন করেছেন এ কলেজের শিক্ষার্থীরা। এসব সাফল্যকে ধারণ করে আগামীতে আরো সুন্দর ও গৌরবোজ্জল ভবিষ্যৎ নির্মাণে আমাদের সম্মিলিত প্রয়াসে সবাই সহযোগিতার উষ্ণ করতল প্রসারিত করবেন বলে প্রত্যাশা রাখি। শ্রম এবং শিল্পের বিনিময়ে অর্জিত হোক আমাদের কাঙ্খিত আগামী। বিভিন্ন সহশিক্ষা কার্যক্রম ও দায়িত্বরতদের তালিকাঃ

  • সিসিডিএস(বিতর্ক সংগঠন) পরিষদঃ

সভাপতিঃ জনাব তাওহীদুল কবির সাধারন সম্পাদকঃ জনাব সাদ্দাম হোসেন সোহাগ

  • বিডি আ.ই.সি.টি ক্লাবঃ

উপদেষ্টা পরিষদ আছে।কমিটি গঠিত হয়নি।

  • রেডক্রিসেন্ট ইউনিটঃ

যুব প্রধানঃ আশিকুর রহমান কৌশিক দপ্তর বিভাগীয় প্রধানঃ মোঃ মাহিন

ক্যাডেট ইনচার্জঃ মোঃ সাঈদ জিলানী সার্জেন্ট ইনচার্জঃ মুসা আবু মারজুক

  • রোভার স্কাউট গ্রুপঃ

সিনিয়র রোভার মেটঃ হামিদ হোসেন সম্পাদক-ক্রু কাউন্সিলঃ জাহিদ হাসান

  • গার্লস ইন রোভার মেটঃ

সিনিয়র রোভার মেটঃ নুসরাত আক্তার

কৃতিত্ব[সম্পাদনা]

সরকারি কমার্স কলেজ মেধাবী শিক্ষার্থীদের প্রতিষ্ঠান। সাড়ে সাত হাজার শিক্ষার্থীর এ প্রতিষ্ঠানে ২৯ জন নিবেদিতপ্রাণ প্রতিশ্রতিশীল শিক্ষকের নিরলস প্রচেষ্টায় প্রতি বছর শিক্ষার্থীরা ঈর্ষণীয় সাফল্য অর্জন করে। সনাতন পরীক্ষা পদ্ধতি চালু থাকার সময় এ কলেজের শিক্ষার্থীরা মেধা তালিকায় প্রথম ২০ টি আসন অর্জনসহ ১৯৯৪ সালে শিক্ষা মন্ত্রণালয় কর্তৃক শ্রেষ্ঠ শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের স্বীকৃতি লাভ করে। ২০০২ সালের বি.কম (পাস) পরীক্ষার রেজাল্টের ভিত্তিতে চট্টগ্রাম বিভাগের শ্রেষ্ঠ কলেজ বিবেচিত হয়। এইচ.এস.সি পর্যায়েও চট্টগ্রাম শিক্ষা বোর্ডে বরাবরই ১ম স্থান অর্জন করে আসছে। বিবিএস (পাস), অনার্স ও মাস্টার্স শ্রেণীর রেজাল্ট আরো প্রশংসনীয়। এছাড়াও ২০১৮ সালে বিটিভির চট্টগ্রাম কেন্দ্রের যুক্তিতর্ক অনুষ্ঠানে বিজয়ী হয় কমার্স কলেজ ডিবেটিং সোশ্যাটি-সিসিডিএস।

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]