চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় গ্রন্থাগার

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
সরাসরি যাও: পরিভ্রমণ, অনুসন্ধান
চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় গ্রন্থাগার
লাল রঙের ভবন
গ্রন্থাগার ভবন
গঠিত নভেম্বর ১৮, ১৯৬৬ (১৯৬৬-১১-১৮)
ধরণ সাবস্ক্রিপশন গ্রন্থাগার
অবস্থান
গ্রন্থাগারিক এসএম আবু তাহের
ওয়েবসাইট www.cu.ac.bd

চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় গ্রন্থাগার, চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের অভ্যন্তরে অবস্থিত চট্টগ্রামের সর্ববৃহৎ গ্রন্থাগার। ১৯৬৬ সালে এটি প্রতিষ্ঠা করা হয়। এই গ্রন্থাগারের বর্তমান সংগ্রহ সংখ্যা প্রায় ৪ লক্ষ।[১][২] গ্রন্থাগারটি বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ কর্তৃক নিয়ন্ত্রিত এবং পরিচালিত।

অবস্থান[সম্পাদনা]

চট্টগ্রাম শহর থেকে প্রায় ২২ কিলোমিটার উত্তরে হাটহাজারী থানার ফতেহপুর ইউনিয়নে অবস্থিত চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় এলাকার শহীদ মিনারের পাশে এই গ্রন্থাগারের অবস্থান।[৩][৪]

ইতিহাস[সম্পাদনা]

১৯৬৬ সালের নভেম্বরের ১৮ তারিখ কয়েকজন কর্মকর্তা নিয়ে ভবনের নিচতলায় ১২০০ বর্গফুট বিশিষ্ট একটি কক্ষে মাত্র ৩০০টি বইয়ের সংগ্রহ নিয়ে গ্রন্থাগারটির যাত্রা শুরু হয়।[১] পরবর্তীকালে ১৯৬৮ সালে বর্তমান প্রশাসনিক ভবনের (মল্লিক ভবন) দক্ষিণ পাশে মানবিক ও সমাজ বিজ্ঞান অনুষদের ওপর প্রায় ১৪ হাজার বই নিয়ে ক্ষুদ্র পরিসরে গ্রন্থাগারটি প্রতিষ্ঠা করা হয়। এরপর অস্থায়ী গ্রন্থাগারাটি বর্তমান ভবনে স্থানান্তরিত করা হয়। ১৯৭৩ সালের ডিসেম্বর মাসের দিকে কিছুদিনের জন্য গ্রন্থাগারটি বর্তমান প্রশাসনিক ভবনে স্থানান্তরিত করা হয়েছিল। বর্তমানে ৫৬ হাজার ৭শত বর্গফুট পরিমিত এলাকা জুড়ে অবস্থিত এই গ্রন্থাগারের অবস্থান হল কলা অনুষদের দক্ষিণ পাশে চাকসু ভবনের পূর্ব পাশে ও আইটি ভবনের পশ্চিম পাশে।[১][৫][৬][৭]

ভবন[সম্পাদনা]

চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় গ্রন্থাগার ভবন

গ্রন্থাগারটি একটি দ্বিতল ভবনে অবস্থিত, যেখানে অনুষদভিত্তিক পাঠকক্ষ রয়েছে। এবং প্রতিটি পাঠকক্ষের সাথে শিক্ষকেদর জন্য পৃথক পাঠকক্ষের ব্যবস্থা রয়েছে। এছাড়াও এমপিল এবং পিওইচডি গবেষকদের জন্য রয়েছে ২৪টি গবেষণাকক্ষ। সেমিনার-সিম্পোজিয়ামের জন্য রয়েছে একটি অডিটোরিয়াম।[৮]

মুক্তিযুদ্ধ কর্নার[সম্পাদনা]

বিশ্ববিদ্যালয়ের কেন্দ্রীয় গ্রন্থাগারে ১৯৭১ সালে সংগঠিত মুক্তিযুদ্ধের সঠিক ইতিহাস চর্চার উপযোগী মুক্তিযুদ্ধ কর্নার ২০০৯ সালে চালু করা হয়। তৎকালীন উপাচার্য আবু ইউসুফ আলমের উদ্যোগে এই কর্নার স্থাপিত হয়। এখানে মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাস সংবলিত বই ও জার্নালসহ দুর্লভ চিত্রের সংগ্রহ রয়েছে। বর্তমানে মুক্তিযুদ্ধ কর্নারে মোট বইয়ের সংখ্যা আনুমানিক ১১৩০।[৯]

প্রতিবন্ধী পাঠকক্ষ[সম্পাদনা]

চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ে বিভিন্ন বিভাগের অধ্যয়নরত প্রতিবন্ধী শিক্ষার্থীদের সুবিধার জন্য গ্রন্থাগার কর্তৃপক্ষ ২০১১ সালে একটি আলাদা পাঠকক্ষ চালু করে। শিক্ষার্থীদের জন্য এখানে ব্রেল পদ্ধতিতে পাঠগ্রহণের ব্যবস্থা রয়েছে। এই পাঠকক্ষে মোট বইয়ের সংখ্যা প্রায় ২০৫ এবং রয়েছে ইন্টারনেট ব্যবহারের সুযোগ। যদিও প্রতিবন্ধী শিক্ষার্থীদের অনুপস্থিতির কারণে বর্তমানে এটি বন্ধ রয়েছে।[৯]

বিভাগ[সম্পাদনা]

গ্রন্থসূচী
বুকস্টাক এবং ইস্যু শাখা

গ্রন্থাগারে কার্যক্রম মূলত নিম্নলিখিত এই শাখাার মাধ্যমে পরিচালিত হয়ে থাকে:

সংস্থাপন শাখা
যাবতীয় প্রাতিষ্ঠানিক কার্যক্রম এই শাখার থেকে সম্পাদন করা হয়।[৮]
সংগ্রহ শাখা
স্থানীয় এবং বিদেশি বই ও সাময়িকি, পত্রিকা ইত্যাদি সংগ্রহ এই শাখা পরিচালনা করে।[১০]
বাধাই শাখা
বই, সাময়িকি পত্র, গবেষণা পত্র ইত্যাদি সংগ্রহের পরবর্তী প্রধান কাজ প্রয়োজন অনুসারে বাঁধাইয়ের কাজ এই শাখার অভ্যন্তরে করা হয়।[১০]
প্রক্রিয়াকরণ শাখা
যাবতীয় সংগ্রহাদী সংগ্রহ এবং বাঁধাই কার্যক্রম সমাপ্তির পর সংযোজন প্রক্রিয়া শুরু হয়। এরপর সূচীকরণ, শ্রেণীকরণ, টাইপ এবং স্পাইন ইত্যাদি কাজ করা হয়। এছাড়াও এই শাখা হারানো বইসমূহের মূল্য নির্ধারণের কাজও করে থাকে।[১০]
বই ইস্যু শাখা
এই শাখা থেকে বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষক, শিক্ষার্থী, কর্মচারী এবং গবেষকদের বই ইস্যু এবং ফেরত নেয়া হয়। পাশাপাশি প্রাত্যহিক ইস্যু এবং ফেরতের হিসাব সংরক্ষণ করা হয়। এখানে নির্ধারিত সময়ের মধ্যে বই ফেরত দেওয়ার বিধান রয়েছে।[১০]

সংগ্রহ[সম্পাদনা]

গ্রন্থাগারের অভ্যন্তরিণ বাগান
গ্রন্থসূচী

গ্রন্থাগারের সংগৃহীত পাঠসামগ্রীকে প্রধান সংগ্রহ, জার্নাল সংগ্রহ, রেফারেন্স সংগ্রহ, চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন থিসিস সংগ্রহ, দূষ্প্রাপ্য এবং পাণ্ডুলিপি শাখা এই পাঁচটি ভাগে ভাগ করা হয়েছে। গ্রান্থাগার ভবনের নিচ তলায় এর প্রশাসনিক শাখা যেখানে গ্রন্থাগারিকের অফিস অ্যাকুইজিশন শাখা, প্রসেসিং শাখা, বাইন্ডিং শাখা, সার্কুলেশন শাখা ছাড়াও কলা অনুষদের ছাত্রছাত্রীদের পাঠকক্ষ এবং অডিটরিয়াম ও দৈনিক পত্রিকা পাঠকক্ষ রয়েছে। এছাড়াও রয়েছে কলা, বিজ্ঞান, বাণিজ্য এবং সমাজবিজ্ঞান এবং আইন অনুষদের পৃথক পাঠকক্ষ এবং বিষয় সংলগ্ন বইয়ের সমষ্টি। পাশাপাশি রয়েছে হস্তলিপি ও দূষ্প্রাপ্য শাখা, ফটোকপি ও কম্পিউটার ল্যাব। মোজানীন (দুইটি তলার মধ্যে নিচু একটি তলা) তলার রয়েছে রেফারেন্স শাখা এবং জার্নাল, সাময়িকী শাখা এবং ইন্টারনেট সার্ভিসকক্ষ এবং গবেষণাকক্ষ। এছাড়াও দেশী-বিদেশী বিভিন্ন পত্রিকা, দূষ্প্রাপ্য বই এবং রেফারেন্স শাখার জন্যও রয়েছে আলাদা পাঠকক্ষ এবং সংলগ্ন বইয়ের সমষ্টি। জার্নাল শাখায় দেশী-বিদেশী সম্প্রতিককালে প্রকাশিত চাহিদা-সাময়িকী ছাড়াও পুরাতন সংখ্যাগুলো বাঁধাই করে ডিডিপি পদ্ধতি অনুসরণ করে সাজিয়ে রাখা হয়েছে যেখানে প্রায় ৩২ হাজার বাঁধাইকৃত সাময়িকী রয়েছে। রেফারেন্স শাখায় রয়েছে গবেষণা রিপোর্ট, বিশ্বকোষ অভিধান, হ্যান্ডবুক, ম্যানুয়েল, পঞ্জিকা, গ্লোব, এনজিও প্রকাশনা, ন্যাড়া, আইএলও ইউনেস্কো, বিশ্বব্যাংক আইএমএফ, ইউনিসেফ বিবিএস, বিশ্ববিদ্যালয় প্রকাশনা। গ্রান্থাগারে দেশী-বিদেশী বই-পত্রিকা-জার্নালের সংখ্যা প্রায় দুই লাখের বেশি। এর মধ্যে পনের হাজার জার্নাল এবং দুই হাজার গবেষণাপত্র রয়েছে।[১][৫][৬][১১]

দূষ্প্রাপ্য এবং পাণ্ডুলিপি শাখা[সম্পাদনা]

গ্রন্থাগারের দূষ্প্রাপ্য এবং পাণ্ডুলিপি শাখায় গবেষণা কর্মের জন্য উপাত্ত হিসেবে চিহ্নিত প্রাচীন পাণ্ডুলিপি, দূর্লভ দলিল, বই, সাময়িকী, দৈনিক এবং বিশ্ববিদ্যালয় থেকে প্রাকাশিত বিভিন্ন গুরত্বপূর্ণ সংগ্রহ সংরক্ষিত রয়েছে। পুঁথি সংগ্রাহক আবদুস সাত্তার চৌধুরী সংগৃহীত পুঁথি, পুস্তক এবং পাণ্ডুলিপি নিয়েই এই দূষ্প্রাপ্য এবং পাণ্ডুলিপি শাখা খোলা হয়। এ-শাখায় প্রাচীন ভূজপত্র, তানপত্র, হাতে তৈরি তুলট কাগজ, তালপাতা ও বাঁশখণ্ডের উপর বাংলা, সংস্কৃত, পালি, আরবি, ফারসি এবং উর্দু ভাষায় রচিত ৫৬৫টি পাণ্ডুলিপি সংগৃহীত রয়েছে, যে সকল পাণ্ডুলিপি প্রায় আড়াইশ থেকে একশ বছরের মধ্যে অনুলিখিত। এগুলোর মধ্যে রয়েছে, সফর আলি বিরচিত ‘‘গোলে হরমুজ খান’’, গয়াস বিরচিত ‘‘বিজয় হামজা’’, জিন্নত আলী রচিত ‘‘মনিউল বেদায়াত’’, সৈয়দ গাজী বিরচিত ‘‘হর গৌড়ির পুঁথি’’, হামিদুল্লাহ খাঁ রচিত ‘‘ধর্ম বিবাদ’’, পরাগল খাঁ রচিত ‘‘মহাভারত’’ ইত্যাদি। এছাড়াও এ-শাখায় প্রায় দুই শতাধিক পুরানো ছাপা পুঁথি রয়েছে। দর্শন, বিজ্ঞান, ইতিহাস, সাহিত্য, সমাজ বিজ্ঞান, ধর্ম ইত্যাদি বিষয়ক প্রায় তিন হাজারের অধিক গ্রন্থ রয়েছে।[৫] পরবর্তীতে মুন্সী আবদুল করিম সাহিহ্যবিশারদ প্রদত্ত সংগ্রহ প্রফেসর ড. আবদুল করিম সংগ্রহ (চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক ভিসি) প্রফেসর ড. আবদুল গফুর প্রদত্ত সংগ্রহ, ইবনে গোলাম নবী প্রদত্ত সংগ্রহ, বাবু কাসেম চন্দ্র রক্ষিত প্রদত্ত সংগ্রহ রশীদ আল ফারুকী প্রদত্ত সংগ্রহ, প্রফেসর ড. ভূঁইয়া ইকবাল প্রদত্ত সংগ্রহও এ শাখাকে করেছে সমৃদ্ধ।[১][৫][৬]

পত্রিকা এবং সাময়িকী[সম্পাদনা]

বিশ্ববিদ্যালয়ের সংগ্রহ ছাড়াও সাহিত্য বিশারদ কর্তৃক প্রদত্ত প্রায় সাড়ে তিন হাজার পুরানো সাময়িকী রয়েছে এই গ্রন্থাগারে, যেগুলো ১৮৭২ থেকে ১৯৫৩ সালের মধ্যে প্রকাশিত। এগুলোর মধ্যে রয়েছে, অঞ্জলী, অনুসন্ধান, পূর্ব পাকিস্তান, আর্য্যাবর্ত, সীমান্ত, পূরবী পাঞ্জজন্য, সাধনা, ভারতি, ‘‘আর এসলাম’’, ‘‘ইসলাম প্রচারক’’, ‘‘আলো’’, ‘‘এডুকেশন গেজেট’’, ‘‘সাপ্তাহিক বার্তাবহ’’, ‘‘ছায়াবিথী’’, ‘‘ঢাকা রিভিউ’’, ‘‘পূর্ণিমা’’, ‘‘প্রকৃতি’’, ‘‘প্রতিভা’’, ‘‘ভাণ্ডার’’, ‘‘প্রবাসী’’, ‘‘বঙ্গীয় সাহিত্য পরিষদ পত্রিকা’’, ‘‘বঙ্গীয় মুসলিম সাহিত্য পত্রিকা’’; চট্টগ্রাম থেকে প্রকাশিত ‘‘সাধনা’’, ‘‘পাঞ্চজন্য’’, ‘‘পূরবী’’, ‘‘সীমান্ত’’, ‘‘অগ্রগতি’’, ‘‘পূর্ব পাকিস্তান’’ ইত্যাদি।[৫][৬]

গ্যালারি[সম্পাদনা]

আরও দেখুন[সম্পাদনা]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. গাজী মোহাম্মদ নুরউদ্দিন। "প্রাচীন পুঁথি-পাণ্ডুলিপির বিশাল সংগ্রহ চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় গ্রন্থাগার"দৈনিক আজাদী। সংগৃহীত জানুয়ারি ১০, ২০১৫ 
  2. সিরাজুল ইসলাম, সম্পাদক (জানুয়ারি ২০০৩)। "চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়"বাংলাপিডিয়াঢাকা: এশিয়াটিক সোসাইটি বাংলাদেশআইএসবিএন 984-32-0576-6। সংগৃহীত জানুয়ারি ১০, ২০১৫ 
  3. "Chittagong University Library (Chittagong, Bangladesh)"। Libraries & Archives in South Asia। সংগৃহীত মে ০৪, ২০১৫ 
  4. "চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় : প্রাকৃতিক ও স্থাপত্য সৌন্দর্যের আধার"দৈনিক ইনকিলাব (ঢাকা)। এপ্রিল ১৫, ২০১৫। সংগৃহীত মে ০৪, ২০১৫ 
  5. মোহাম্মদ খালেদ, সম্পাদক (নভেম্বর ১৯৯৫)। "নগর-জীবন"। হাজার বছরের চট্টগ্রামচট্টগ্রাম: এম এ মালেক (দৈনিক আজাদী)। পৃ: ৩০৯-৩১০। 
  6. মহিউদ্দিন টিপু (ফেব্রুয়ারি ২৪, ২০১০)। "চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় কেন্দ্রীয় লাইব্রেরি আলোকিত এক টুকরো গ্রাম"দৈনিক সংগ্রাম। সংগৃহীত জানুয়ারি ১০, ২০১৫ 
  7. সাহাবুদ্দীন জামিল (নভেম্বর ২৮, ২০১৩)। "চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় কেন্দ্রীয় গ্রন্থাগার"সাম্প্রতিক দেশকাল। সংগৃহীত মে ০৪, ২০১৫ 
  8. আমিরুল আলম খান; মীর আবু সালেহ শাসসুদ্দীন শিশির, সম্পাদকবৃন্দ (সেপ্টেম্বর ২৫, ২০১০)। "চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় গ্রন্থাগার"। লাইব্রেরি নিয়ে যত কথা (বাংলা ভাষায়)। সৈয়দ মুহাম্মদ আবু তাহের (২০১০ সংস্করণ)। চট্টগ্রাম: এসেলারো। পৃ: ৭৪। আইএসবিএন 984-70185-0004-4 
  9. সাইফ উল আলম, মুবীন কাউসার নুফা, মুমতাহিনা আলম এশা। "ইতিহাস-ঐতিহ্যের স্মারক চবির কেন্দ্রীয় গ্রন্থাগার"binodon-sarabela.com। বিনোদন সারাবেলা। সংগৃহীত মে ০৪, ২০১৫ 
  10. আমিরুল আলম খান; মীর আবু সালেহ শাসসুদ্দীন শিশির, সম্পাদকবৃন্দ (সেপ্টেম্বর ২৫, ২০১০)। "চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় গ্রন্থাগার"। লাইব্রেরি নিয়ে যত কথা (বাংলা ভাষায়)। সৈয়দ মুহাম্মদ আবু তাহের (২০১০ সংস্করণ)। চট্টগ্রাম: এসেলারো। পৃ: ৭৫। আইএসবিএন 984-70185-0004-4 
  11. হেদায়েত উল্লাহ খন্দকার পলাশ। "জ্ঞানপিপাসুদের জ্ঞানভাণ্ডার"দৈনিক যায় যায় দিন। সংগৃহীত জানুয়ারি ১০, ২০১৫ 

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]