ঘোড়াশাল রেলওয়ে স্টেশন

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
ঘোড়াশাল রেলওয়ে স্টেশন
বাংলাদেশের রেলওয়ে স্টেশন
ঘোড়াশাল রেলওয়ে ট্রেনগাড়ী.jpg
ঘোড়াশালে ট্রেন
অবস্থানপলাশ উপজেলা, নরসিংদী জেলা, ঢাকা বিভাগ
 বাংলাদেশ
মালিকানাধীনবাংলাদেশ রেলওয়ে
পরিচালিতবাংলাদেশ রেলওয়ে
লাইনটঙ্গী-ভৈরব-আখাউড়া লাইন
প্ল্যাটফর্মদুটি আছে
রেলপথমিটারগেজ
ট্রেন পরিচালকপূর্বাঞ্চল রেলওয়ে
নির্মাণ
গঠনের ধরনমানক
পার্কিংআছে
সাইকেলের সুবিধাআছে
প্রতিবন্ধী প্রবেশাধিকারআছে
ইতিহাস
চালু১৯১৪
ট্রাফিক
যাত্রীসমূহউঠানো হয়
অবস্থান

ঘোড়াশাল রেলওয়ে স্টেশন বাংলাদেশের ঢাকা বিভাগের নরসিংদী জেলার পলাশ উপজেলায় অবস্থিত একটি রেলওয়ে স্টেশন[১][২]

ইতিহাস[সম্পাদনা]

আসাম বেঙ্গল রেলওয়ে কোম্পানি দ্বারা ১৯১০ থেকে ১৯১৪ সালের মধ্যে টঙ্গী-ভৈরব-আখাউড়া লাইন তৈরি করা হয়। এই লাইনের একটি গুরুত্বপূর্ণ স্টেশন ছিলো আখাউড়া রেলওয়ে স্টেশন। এই স্টেশন থেকে দুইটি শাখা রেললাইন ছিলো একটি শীতলক্ষ্যা নদীর ঘাট পর্যন্ত অপরটি পলাশে ১৯৩২ সালে প্রতিষ্ঠিত দেশবন্ধু চিনি কল লিমিটেড পর্যন্ত পন্য আনা নেওয়ার কাজের জন্য নির্মাণ করা হয়েছিলো। কালের বিবর্তনে এই রেললাইনগুলি বিলুপ্ত হয়ে গেছে। ঘোড়াশাল-পলাশ রেললাইনটি এখন ঘোড়াশাল-পলাশ সড়ক হিসেবে ব্যবহৃত হচ্ছে। তবে ২০১৯ সালে বিশ্বব্যাংকের পরামর্শে ঘোড়াশাল সার কারখানাপলাশ সার কারখানাকে একত্রিত করে একটি বৃহৎ সার কারখানা নির্মাণকে[৩][৪] কেন্দ্র করে পলাশ-ঘোড়াশাল রেললাইন পূনঃনির্মাণ করা হবে।[৫]

পরিষেবা[সম্পাদনা]

ঘোড়াশাল রেলওয়ে স্টেশন দিয়ে চলাচল কারী ট্রেনের তালিকা নিম্নে দেওয়া হলো:

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. Liton, Lutfar Zaman। "নরসিংদীতে ঘোড়াশাল রেলওয়ে স্টেশন'র শোভা-যাত্রা'র মাধ্যমে দেশের বন্ধকৃত ৬০টি রেলস্টেশনের আনুষ্ঠানিক যাত্রারাম্ভ"CNANews24.Com। সংগ্রহের তারিখ ২০২০-০৩-০৮ 
  2. "পলাশে রেলওয়ের ৬ একর জমি দখলমুক্ত | banglatribune.com"Bangla Tribune। সংগ্রহের তারিখ ২০২০-০৩-০৮ 
  3. "Japan and China sign deal to build Bangladesh's biggest fertilizer factory in Narsingdi"Dhaka Tribune। ২০১৮-১০-২৪। সংগ্রহের তারিখ ২০২০-০৩-০৮ 
  4. "ঘোড়াশাল ও পলাশ ভেঙে হচ্ছে একটি সার কারখানা"Dhakatimes24.com। সংগ্রহের তারিখ ২০২০-০৩-০৮ 
  5. NorshingdiNews। "জেলা প্রশাসকের সাথে সার কারখানা প্রতিনিধিদলের সাক্ষাৎ"নরসিংদী টাইমস। সংগ্রহের তারিখ ২০২০-০৩-০৮