গ্লোবাল ভিলেজ

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে

গ্লোবাল ভিলেজ বা ভুবনগ্রাম হলো তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি নির্ভর এমন একটি সামাজিক বা সাংস্কৃতিক ব্যবস্থা, যেখানে পৃথিবীর সকল প্রান্তের মানুষই একটি একক সমাজে বসবাস করে এবং আই.সি.টি ব্যবহারের মাধ্যমে সহজেই তাদের চিন্তা-ভাবনা,সংস্কৃতি-কৃষ্টি ইত্যাদির মিস্ক্রিয়াসহ একে অপরকে সহযোগিতা করে থাকে। তথ্য ও যোগাযোগ ব্যবস্থার ক্রমোন্নতি ও দ্রুত বিস্তারের ফলে পৃথিবী ছোট হয়ে আসছে। যার দরুন আমরা সহজেই দূরবর্তী স্হানে থেকেও তথ্যের মিথস্ক্রিয়ায় অংশ নিতে পারছি। পৃথিবীব্যাপী স্বল্প সময়ে এই যোগাযোগ সুবিধার ফলেই বিশ্বকে একটি গ্রাম হিসেবে তুলনা করা হচ্ছে। এজন্যে বর্তমান বিশ্বকে গ্লোবাল ভিলেজ বলা হয়।

গ্লোবাল ভিলেজের ধারণাকারী[সম্পাদনা]

কানাডিয়ান দার্শনিক ও লেখক হার্বাট মার্শাল ম্যাকলুহান হলেন প্রথম ব্যক্তি যিনি গ্লোবাল ভিলেজ শব্দটিকে সকলের সামনে তুলে ধরে একে জনপ্রিয় করে তোলেন। ১৯৬২ সালে তাঁর প্রকাশিত গুতেনবার্গ গ্যালাক্সি এবং ১৯৬৪ সালে প্রকাশিত আন্ডারস্ট্যান্ডিং মিডিয়া বইয়ের মাধ্যমে এই বিষয়টি গুরুত্ব লাভ করে।[১]

গ্লোবাল ভিলেজ প্রতিষ্ঠার উপাদানসসমূহ[সম্পাদনা]

  • হার্ডওয়্যার বা কম্পিউটার সংশ্লিষ্ট যন্ত্রপাতি
  • প্রোগ্রামসমূহ বা সফটওয়্যার
  • ব্যক্তিবর্গের সক্ষমতা
  • ডেটা বা ইনফরমেশন
  • ইন্টারনেট সংযুক্ততা

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. McLuhan, Marshall 1962. The Gutenberg Galaxy: the making of typographic man. London: Routledge & Kegan Paul.

আরোও দেখুন[সম্পাদনা]