গ্লিসারল

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
Jump to navigation Jump to search
Glycerin Skelett.svg
Glycerol-3D-balls.png

গ্লিসারল (Glycerol) স্বচ্ছ, রংহীন, আঠালো, মিষ্টি স্বাদযুক্ত জৈব রসায়নের অ্যালকোহল পরিবারের যৌগিক পদার্থ। শীলে ১৭৭৯ খ্রিষ্টাব্দে চর্বি থেকে গ্লিসারল পৃথক করেন। ১৯৪৮ খ্রিষ্টাব্দ পর্যন্ত প্রাণী ও উদ্ভিদের চর্বি ও তেল থেকে সাবান তৈরির সময়- উপজাত হিসাবে গ্লিসারল পাওয়া যেত । ১৯৪৯ খ্রিষ্টাব্দের দিকে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে প্রথম প্রোপিলিন ও চিনি থেকে এর বাণিজ্যিক উৎপাদন শুরু হয়। এর বাণিজ্যিক নাম গ্লিসারিন। মূলতঃ গ্লিসারিনের মধ্যে ৫ ভাগ পানি এবং ৯৫ ভাগ গ্লিসারল থাকে। রসায়ন বিজ্ঞানে একে বলা হয় ট্রাই-হাইড্রিক অ্যালকোহল এবং আইইউপিএসি-এর নামকরণ পদ্ধতিতে এর নাম ১,২,৩, প্রোপেন-ট্রাইঅল। গ্লিসারলের আপেক্ষিক গুরুত্ব ১.২৬৫। ১৭০ ডিগ্রি সেন্টিগ্রেড তাপমাত্রায় বাষ্পীভুত এবং ১৮ ডিগ্রি সেন্টিগ্রেড তাপমাত্রায় স্বচ্ছ স্ফটিকে পরিণত হয়। গ্লিসারল পানি ও অ্যালকোহলে দ্রবণীয় এবং ইথার ও ক্লোরোফর্মে অদ্রবণীয়।

গ্লিসারিনের নমুনা

উৎপাদন[সম্পাদনা]

SaponificationGeneral.svg

ব্যবহার[সম্পাদনা]

গ্লিসারিনের বোতল

বিস্ফোরক তৈরিতে গ্লিসারলের ব্যবহার দেখা যায়। বিশেষতঃ ডিনামাইট ও নাইট্রো-গ্লিসারিন তৈরিতে গ্লিসারল ব্যবহৃত হয়। এছাড়াও প্রসাধনী বস্তু, সাবান, ঔষধ, ফল সংরক্ষণ, ছাপার কালি, জুতার রং, মোটরযানে হিমরোধক হিসাবে গ্লিসারল ব্যবহৃত হয়। এ ছাড়া রক্তের লোহিত কণিকা, প্রাণীর বীর্য, চোখের করোনা, প্রাণীর জীবন্ত কলা সংরক্ষণে গ্লিসারল ব্যবহার করা হয়। [১]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]