গ্রিন লাইন (দিল্লি মেট্রো)

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
গ্রীন লাইন
Green Line Delhi metro.jpg
কীর্তি নগর শাখা লাইনে একটি নতুন ট্রেন উদ্ভোদন হচ্ছে, ২০১১
সংক্ষিপ্ত বিবরণ
স্থিতিসক্রিয়
মালিকডিএমআরসি (ডিএমআরসি)
অঞ্চলদিল্লি, হরিয়ানা
বিরতিস্থল
স্টেশনমোট ২৩
পরিষেবা
ধরনদ্রুতগতির পরিবহন
সিস্টেমদিল্লি মেট্রো
পরিচালকদিল্লি মেট্রো রেল কর্পোরেশন
রোলিং স্টকমিৎশুবিস-রোটেম-বিইএমএল স্ট্যান্ডার গেজ
ইতিহাস
চালু৩ এপ্রিল ২০১০; ১২ বছর আগে (2010-04-03)
কারিগরি তথ্য
রেলপথের দৈর্ঘ্য২৯.৬৪ কিমি (১৮.৪২ মা)
বৈশিষ্ট্যউত্তোলিত
ট্র্যাক গেজ১,৪৩৫ মিমি (৪ ফুট ৮ ১/২ ইঞ্চি) স্ট্যান্ডার্ড গেজ
চালন গতি৩০ কিমি/ঘণ্টা
সর্বোচ্চ উচ্চতা২১৫ মিটার

গ্রীন লাইন (লাইন ৫) হল দিল্লি মেট্রো রেল ব্যবস্থার পঞ্চম লাইন এবং পূর্বের ব্রডগেজ লাইনের পরিবর্তে অন্যান্য লাইনগুলির মধ্যে প্রথম স্টার্ন্ডার্ড গেজ লাইন। এটি ইন্দ্রলোক (রেড লাইনের স্টেশন) এবং মুন্ডা-এর মধ্যে একটি লাইন। এই লাইনটি অশোক পার্ক এলাকায় ব্লু লাইনের কিরিটি নগর স্টেশনের সাথে যুক্ত। দিল্লি মেট্রোর দ্বিতীয় পর্যায়ের অংশ হিসাবে রেলপথটি সম্পূর্ণরূপে উড়ালপথে নির্মিত। উত্তর দিল্লি এবং উত্তর-পশ্চিম দিল্লিতে ব্যস্ত জাতীয় সড়ক ১০ বরাবর এই লাইনের বেশীরভাগ অংশ নির্মিত হয়েছে। লাইনটিতে ২৩ টি স্টেশন রয়েছে এবং লাইনটির মোট দৈর্ঘ্য ২৯.৬৪ কিমি।

ইতিহাস[সম্পাদনা]

৩ এপ্রিল ২০১০ এবং ৩.৫ কিমি কিরিটি নগর-অশোক পার্ক প্রধান শাখা লাইন ও ২৭ আগস্ট ২০১১ তে ১৫.১ কিলোমিটার ইন্দ্রলোক-মুন্ডকা বিভাগের সাথে লাইনটি খোলা হয়েছিল। যদিও এর রুট অন্যান্য লাইনের চেয়ে ছোট।[১] গ্রীন লাইনটি রেড লাইন এবং ব্লু লাইন থেকে আসার জন্য দিল্লীবাসীদের কাছে একটি লাইফলাইন হিসাবে কাজ করে, কারণ এটি পাঞ্জাবি বাগ, পশ্চিম বিহার, নংলোই এবং মুন্ডা এর মতো বড় বাণিজ্যিক ও আবাসিক এলাকা জুড়ে রয়েছে।৬ আগস্ট ২০১২ তারিখে, কেন্দ্র সরকার দিল্লি মেট্রোকে মুন্ডা থেকে হরিয়ানা পর্যন্ত বাহাদুরগড় পর্যন্ত সম্প্রসারণের অনুমোদন দিয়েছে যা জনসাধারনের সহজে জাতীয় রাজধানী অঞ্চলে আগমনের জন্য একটি বড় পদক্ষেপে।১১.১৮ কিলোমিটারের প্রসারিত মেট্রো লাইনে মুন্ডা শিল্প এলাকা, ঘভরা, টিক্রি কালান, তিকরি বর্ডার, আধুনিক শিল্পকলা, বাস স্ট্যান্ড এবং মুন্ডা ও বাহাদুরগড়ের মধ্যে সিটি পার্কের সাতটি স্টেশন থাকবে।

এই প্রকল্পের নির্মাণ কাজ ২০১৩ সালে শুরু হয় এবং ২০১৬ এর দ্বিতীয়ার্ধে শেষ হবে আর তৃতীয় ধাপের কাজ পর্যায়ক্রমে বিস্তৃত হবে।প্রকল্পের নির্মান শেষ হলে, বাহাদুরগড় থেকে দিল্লিতে যাত্রীদের যাত্রা সুবিধা প্রদান করবে ।২০১৬ সালে, প্রায় ৯৬,০০০ যাত্রী এই মেট্রো সুবিধা ব্যবহার করবে এবং ২০২১ সালে , মেট্রো ব্যবহারকারীদের সংখ্যা ১,৫০,০০০ পর্যন্ত পৌঁচ্ছে যেতে পাড়ে বলে আশা করা হচ্ছে।ডিএমআরসি লাইনের অতিরিক্ত রোলিং স্টকের জন্য একটি আদেশ দিয়েছে।দিল্লি মেট্রো র তৃতীয় ধাপের প্রকল্পটির জন্য ২০১৬ সাল নাগাদ ১,৮০০ কোচের প্রয়োজন হবে। ফরিদাবাদ লাইনের জন্য অতিরিক্ত ৬০ টি কোচ প্রয়োজন এবং গ্রীন লাইনের সম্প্রসারনের পর আরও ৩৫ কোচ প্রয়োজন হবে। [২]

স্টেশন[সম্পাদনা]

দিল্লি মেট্রো গ্রিন লাইন
কীর্তি নগর
সদ্গুরু রাম সিংহ মার্গ
প্যাটেল নগর রেলওয়ে স্টেশন
ইন্দ্রলোক
অশোক পার্ক মেইন
পাঞ্জাবি বাগ
পাঞ্জাবি বাগ পশ্চিম
চক্রপথ
শিবাজী পার্ক
মাদিপুর
পশ্চিম বিহার পূর্ব
পশ্চিম বিহার পশ্চিম
বহিঃস্থ চক্রপথ
পীরাগড়ী
উদ্যোগ নগর
সুরজমল স্টেডিয়াম
নজফগড় রোড
নাঙ্গলোই
নাঙ্গলোই রেলওয়ে স্টেশন
নাঙ্গলোই রেলওয়ে স্টেশন
রাজধানী পার্ক
মুণ্ডকা
মুণ্ডকা শিল্প তালুক (এমআইএ)
ঘেওরা
টিকরী কালান
টিকরী বর্ডার
পণ্ডিত শ্রীরাম শর্মা
বাহাদুরগড় সিটি
ব্রিগেডিয়ার হোশিয়ার সিংহ
গ্রিন লাইন
ক্রম স্টেশনের নাম উদ্ভোদন সংযোগ অবস্থা অবস্থান
বাংলা হিন্দি
ইন্দরলোক इन्दरलोक ৩ এপ্রিল ২০১০[৩]      রেড লাইন উত্তোলিত ২৮°৪০′২৪″ উত্তর ৭৭°১০′১৩″ পূর্ব / ২৮.৬৭৩৪৪৫° উত্তর ৭৭.১৭০৩৩৭° পূর্ব / 28.673445; 77.170337
অশোক পার্ক মেন अशोक पार्क मेन ৩ এপ্রিল ২০১০[৩]      গ্রিন লাইন শাখা উত্তলিত ২৮°৪০′১৮″ উত্তর ৭৭°০৯′১৮″ পূর্ব / ২৮.৬৭১৬০৩° উত্তর ৭৭.১৫৫০১১° পূর্ব / 28.671603; 77.155011
পাঞ্জাবি বাগ ইস্ট पंजाबी बाग़ ৩ এপ্রিল ২০১০[৩] না উত্তলিত ২৮°৪০′২৩″ উত্তর ৭৭°০৮′৪৫″ পূর্ব / ২৮.৬৭২৯৩৬° উত্তর ৭৭.১৪৫৯৭২° পূর্ব / 28.672936; 77.145972
শিবাজি পার্ক शिवाजी पार्क ৩ এপ্রিল ২০১০[৩] না উত্তলিত ২৮°৪০′৩০″ উত্তর ৭৭°০৭′৪৯″ পূর্ব / ২৮.৬৭৪৯৪৪° উত্তর ৭৭.১৩০৩৪৭° পূর্ব / 28.674944; 77.130347
মাদিপুর मादीपुर ৩ এপ্রিল ২০১০[৩] না উত্তলিত ২৮°৪০′৩৫″ উত্তর ৭৭°০৭′১০″ পূর্ব / ২৮.৬৭৬৩৬১° উত্তর ৭৭.১১৯৫৬১° পূর্ব / 28.676361; 77.119561
পশ্চিম বিহার ইস্ট पश्चिम विहार पूर्व ৩ এপ্রিল ২০১০[৩] না উত্তলিত ২৮°৪০′৩৮″ উত্তর ৭৭°০৬′৪৪″ পূর্ব / ২৮.৬৭৭২৯৪° উত্তর ৭৭.১১২২৭২° পূর্ব / 28.677294; 77.112272
পশ্চিম বিহার পশ্চিম पश्चिम विहार पश्चिम ৩ এপ্রিল ২০১০[৩] না উত্তলিত ২৮°৪০′৪৩″ উত্তর ৭৭°০৬′০৮″ পূর্ব / ২৮.৬৭৮৫৮৯° উত্তর ৭৭.১০২১০৬° পূর্ব / 28.678589; 77.102106
পীড়া গর্হি पीरागढ़ी ৩ এপ্রিল ২০১০[৩] না উত্তলিত ২৮°৪০′৪৭″ উত্তর ৭৭°০৫′৩৩″ পূর্ব / ২৮.৬৭৯৭০৩° উত্তর ৭৭.০৯২৫৫° পূর্ব / 28.679703; 77.09255
উদ্যোগ নগর उद्योग नगर ৩ এপ্রিল ২০১০[৩] না উত্তলিত ২৮°৪০′৫২″ উত্তর ৭৭°০৪′৫১″ পূর্ব / ২৮.৬৮০৯৯৪° উত্তর ৭৭.০৮০৭৭৫° পূর্ব / 28.680994; 77.080775
১০ সুরজাল স্টেডিয়াম सूरजमल स्टेडियम ৩ এপ্রিল ২০১০[৩] না উত্তলিত ২৮°৪০′৫৪″ উত্তর ৭৭°০৪′২৬″ পূর্ব / ২৮.৬৮১৭৯২° উত্তর ৭৭.০৭৩৯৫৩° পূর্ব / 28.681792; 77.073953
১১ নাগলই नांगलोई ৩ এপ্রিল ২০১০[৩] না উত্তলিত ২৮°৪০′৫৬″ উত্তর ৭৭°০৩′৫৩″ পূর্ব / ২৮.৬৮২৩৫৬° উত্তর ৭৭.০৬৪৬৭৫° পূর্ব / 28.682356; 77.064675
১২ নাগলই রেলওয়ে স্টেশন नांगलोई रेलवे स्टेशन ৩ এপ্রিল ২০১০[৩] Mainline rail interchange উত্তরাঞ্চলীয় শহরতলি রেল উত্তলিত ২৮°৪০′৫৬″ উত্তর ৭৭°০৩′২২″ পূর্ব / ২৮.৬৮২১০৬° উত্তর ৭৭.০৫৬০৮৩° পূর্ব / 28.682106; 77.056083
13 রাজধানী পার্ক राजधानी पार्क ৩ এপ্রিল ২০১০[৩] না উত্তলিত ২৮°৪০′৫৬″ উত্তর ৭৭°০২′৩৮″ পূর্ব / ২৮.৬৮২২° উত্তর ৭৭.০৪৩৮৪৪° পূর্ব / 28.6822; 77.043844
১৪ মুন্ডকা मुण्डका ৩ এপ্রিল ২০১০[৩] Mainline rail interchange উত্তরাঞ্চলীয় শহরতলি রেল উত্তলিত ২৮°৪০′৫৭″ উত্তর ৭৭°০১′৪৯″ পূর্ব / ২৮.৬৮২৪৪২° উত্তর ৭৭.০৩০২১৯° পূর্ব / 28.682442; 77.030219
১৫ মুন্ডকা শিল্প এলাকা (এমআইএ) मुण्डका औद्योगिक क्षेत्र না উত্তলিত
১৬ ঘেভরা মেট্রো স্টেশন घेवरा मेट्रो स्टेशन না উত্তলিত
১৭ টিক্রি কালান टीकरी कालन না উত্তলিত
১৮ টিক্রি বর্ডার टीकरी बॉर्डर না উত্তলিত
১৯ আধুনিক শিল্পকৌশল এস্টেট (এমআইই) मॉडर्न औद्योगिक एस्टेट না উত্তলিত
২০ বাস স্ট্যান্ড बस स्टैंड না উত্তলিত
২১ বাহাদুরগড় সিটি পার্ক बहादुरगढ़ सिटी पार्क না উত্তলিত

নির্মান[সম্পাদনা]

ভবিষ্যত প্রকল্প[সম্পাদনা]

মুন্ডা থেকে বাহাদুরগড় পর্যন্ত মেট্রো পথের দৈর্ঘ্য ১১.১৮২ কিলোমিটার (উত্তলিত) এবং মোট স্টেশন ৭ টি। ডিসেম্বর ২০১৬ সাল পর্যন্ত প্রকল্পের কাজ-কর্মের অগ্রগতি (এলিভেটেড) ৮৬.৩৪% ।কয়েকটি স্থানে জমি এখনও পাওয়া যায়নি। এই জমি পাওয়া সম্ভব হলে লক্ষ্যমাত্রার কাজ করা হবে। [৪]

শাখা লাইন[সম্পাদনা]

কিশোরগঞ্জের শাখা লাইনটি যাত্রীদের জন্য ভাড়া এবং ভ্রমণের সময় কমাতে বোঝা যায় কিন্তু প্রাথমিকভাবে গেজ ট্রেনের ধীর গতির গতিপথের ফলে লোকজন কাশ্মীর গেট ও রাজিব চৌকোর মধ্যে পারস্পরিক বিনিময় করে একই পুরানো লম্বা রুমে পৌঁছান।তবে, শিগগিরই ট্রেনের গতি বাড়তে থাকে এবং ইন্ধরলোক ও কিরিটি নগর স্টেশন উভয় স্থানে সমান সংখ্যক লোক চলাচল করতে শুরু করে।বেশিরভাগ যাত্রী অশোক পার্ক মেইন, পিরেগড়ী এবং নানলোলোই ও মুন্ডাতে নেমে যায়।২০২১ সালের মধ্যে, এই লাইনটি সম্পূর্ণ হবে এবং বাহাদুরগড় থেকে দিল্লি গেট এবং দ্বারকা সেক্টর ২৮ পর্যন্ত প্রসারিত হবে, যাতে পর্যায়ক্রমে চতুর্থ এক্সটেনশনের অধীনে বিদ্যমান ইন্টারচেঞ্জ স্টেশনে ভিড় হ্রাস করা যায়।

অবকাঠামো[সম্পাদনা]

গ্রীন লাইন বোম্বার্ডিয়র সিটিফ্লো ৩৫০ সিগন্যালিং দ্বারা সজ্জিত।

রোলিং স্টক[সম্পাদনা]

গ্রীন লাইন মিত্সুবিশি, হুন্ডাই রোটেম এবং ভারত আর্থ মুভার্স (বিইএমএল) এর একটি কনসোর্টিয়াম দ্বারা নির্মিত স্ট্যান্ডার্ড গেজ ট্রেন ব্যবহার করে।গ্রীন লাইন এবং ভায়োলেট লাইন উভয়ের জন্য মোট ১৯৬ টি গাড়ির অর্ডার দেওয়া হয়েছিল, যা ৪-কার কনফিগারেশন (৪৬ টি ট্রেন) এবং ৬-কার কনফিগারেশন (২ টি ট্রেন) উভয়ের মধ্যে চালানোর পরিকল্পনা রয়েছে।দক্ষিণ কোরিয়াতে চ্যাংয়নে একটি ট্রেন তৈরি করা হয়েছিল এবং বাকি ট্রেনগুলি বেঙ্গালোরের বেইলেলের সুবিধাতে নির্মিত হয়েছিল।ব্রডগেজ ট্রেনের ৩.২ মিটারের তুলনায় এই ট্রেনের প্রস্থ ২.৯ মিটার।[৫]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "Delhi metro opens first standard gauge line"। Railway Gazette। ২০১০-০৪-০৬। ২০১০-০৬-২৯ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২০১০-০৯-০৫ 
  2. "সংরক্ষণাগারভুক্ত অনুলিপি"। ২২ অক্টোবর ২০১২ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২ জুন ২০১৭ 
  3. "Metro Goes To Mundka On new green line"। The Times of India। ২০১০-০৪-০১। ২০১১-০৮-১১ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২০১৭-০৬-০২ 
  4. http://www.delhimetrorail.com/Show_corridor_details.aspx?id=7
  5. "Delhi Metro gets standard gauge train"। Hindu Business Line। ১৮ মার্চ ২০০৯। ২৩ জুন ২০০৯ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ৫ সেপ্টেম্বর ২০১০