গোলাপী রিকশা

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে

গোলাপী রিকশা (গোলাপী অটো নামেও পরিচিত[১][২]) ভারতের কিছু শহরে মহিলা যাত্রীদের জন্য সাধারণ অটো রিকশার বিকল্প পরিবহন। রিকশায় যাতায়াতের সময় মহিলাদের হয়রানি ও দুর্ব্যবহার থেকে বিরত রাখতে ভারত সরকার এই উদ্যোগ নিয়েছিল। এতে মহিলাদের সুরক্ষার জন্য প্যানিক বোতাম এবং জিপিএস ট্র্যাকিং সিস্টেমের মতো বিশেষ বৈশিষ্ট্য ইনস্টল করা হয়েছে। গোলাপী রিকশাগুলো সম্পূর্ণটাই অথবা কেবল ছাদটি গোলাপী রঙের হয়ে থাকে। যৌন নিপীড়ন এবং ধর্ষণ থেকে মহিলাদের রক্ষা করার জন্য ভারত সরকার ২০১৩ সালে রাঁচিতে প্রথম গোলাপী রিকশা চালু করেছিল। পরবর্তীতে এটি ভারতের আরও অনেক শহরে প্রবর্তিত হয়েছিল। অটোগুলি আইনি যাচাইকরণ এবং ডকুমেন্টেশন শেষ হওয়ার পরে প্রশিক্ষিত পুরুষ বা মহিলা পেশাদারদের দ্বারা চালিত হয়।[৩][৪][৫]

নারীর ক্ষমতায়ন[সম্পাদনা]

মহিলাদের অবস্থার উন্নতির জন্য রাঁচি সরকার গোলাপী রিকশা প্রকল্পটি শুরু করেছিল। মহিলাদের নিরাপদ পরিবহনের ব্যবস্থা করে রাঁচি সরকার মহিলাদের ক্ষমতায়ন করছে, তাদেরকে কাজ করতে এবং স্বাবলম্বী হতে সক্ষম করছে। প্রথাগতভাবে ভারতে পুরুষরাই মজুরি উপার্জনকারী। নিরাপদ পরিবহন মহিলাদের স্বাধীন হতে এবং পারিবারিক আয় ও উপার্জনে অবদান রাখতে সক্ষম করেছে।[৬]

অবস্থান অনুযায়ী গোলাপী রিকশা পরিবহন[সম্পাদনা]

রাঁচি[সম্পাদনা]

রাঁচি ভারতের প্রথম শহর যেখানে গোলাপী রিকশা প্রকল্প চালু করা হয়েছিল। ২০১২ সালের দিল্লি গণধর্ষনের পরে মহিলাদের সুরক্ষার জন্য ২০১৩ সালে এটি চালু করা হয়েছিল। ঝাড়খন্ড পুলিশ মহিলা যাত্রীদের পরিবহনের জন্য রাজধানী রাঁচিতে প্রায় ২০০ টি গোলাপী ছাদের রিকশা চালু করেছে। এই অটোগুলিতে মহিলা যাত্রীদের সুরক্ষার জন্য প্যানিক বোতাম এবং জিপিএস সিস্টেমের মতো বিশেষ বৈশিষ্ট্য রয়েছে। পুলিশ এই রিকশাগুলির জন্য মহিলা চালক নিয়োগের চেষ্টা করেছিল, কিন্তু মহিলাদের কম প্রতিক্রিয়ার কারণে তারা পুরুষ চালক নিয়োগ করেছিল। সমস্ত পুরুষ চালকদের সরকারি কর্তৃপক্ষ দ্বারা নির্ধারিত পদ্ধতির মাধ্যমে যাচাই করা হয়েছিল। যারা ছাড়পত্র পেয়েছে কেবল তাদেরকেই বিশেষ পরিচয়পত্র দেওয়া হয়েছিল এবং মহিলাদের নিয়ে গাড়ি চালানোর অনুমতি দেওয়া হয়েছিল।

কিন্তু এই পরিষেবাটি এখন আর মহিলা যাত্রীদের জন্য উপলব্ধ নয় কারণ চালকদের মহিলা যাত্রী পেতে দীর্ঘ সময় অপেক্ষা করতে হয়, যার কারণে চালকরা কম সময়ে বেশি ভ্রমণ করার জন্য পুরুষ যাত্রীদেরও গোলাপী অটোতে নিয়ে যেতে শুরু করে।

ঝাড়খন্ড হাইকোর্ট আঞ্চলিক পরিবহন কর্তৃপক্ষকে আইনি অনুমতি ছাড়া শহরের সমস্ত অটো বন্ধ করে দেওয়ার নির্দেশ দিয়েছে। রাঁচিতে মোট ১২,০০০ রিকশার মধ্যে মাত্র ২,৩৩৫টি অটোর আইনি অনুমতি ছিল। ওই ২,৩৩৫টি অটোর মধ্যে কোনও গোলাপী রিকশাচালানোর আইনি অনুমতি ছিল না। ট্রেড পারমিট স্থগিত থাকার কারণে গোলাপী রিকশা চালকরা এই বাণিজ্য চালানোর জন্য আজীবন আইনি অনুমতি প্রদানের দাবিতে ধর্মঘট পালন করে।[৩][৬][৭]

সুরাট[সম্পাদনা]

সুরাট মিউনিসিপ্যাল কর্পোরেশন ২০১৭ সালের ২ জুলাই গোলাপী অটো চালু করে। কর্পোরেশন কেবল মহিলাদেরকে অটোমোবাইল চালানোর জন্য নির্বাচিত করে প্রশিক্ষণ দেয়। এসএমসি এই মহিলাদের রিকশা কেনার জন্য কেন্দ্রীয় সরকারের ২৫% ভর্তুকির সুবিধা সহ ৭% সুদের হারে ঋণ পেতে সহায়তা করেছিল। পৌর কাউন্সিল ৭০ জন মহিলাকে নির্বাচন করেছে যেখানে ১৫ জনকে প্রশিক্ষণ দেওয়া হয়েছিল এবং অন্যরা প্রশিক্ষণাধীন ছিল। তারা দিনের বেলায় স্কুল বাচ্চাদের নিয়ে যাওয়ার জন্য মেয়েদের স্কুল এলাকায় কাজ করেছে।[৮][৯][১০][১১]

বঙ্গাইগাঁও[সম্পাদনা]

বঙ্গাইগাঁও আসামের অন্যতম বড় বাণিজ্যিক ও শিল্প কেন্দ্র। ন্যাশনাল আরবান লাইভলিহুড মিশন (এনইউএলএম) যাতায়াতের সময় মহিলাদের নিরাপত্তার জন্য মহিলাদের দ্বারা চালিত গোলাপী রিকশা চালু করে। লাইসেন্স পাওয়ার আগে, চালকদেরকে দু'মাসের জন্য দিসপুর মোটর ড্রাইভিং স্কুলে প্রশিক্ষণ দেওয়া হয়েছিল। বঙ্গাইগাঁও শহরে মোট ১৩টি রিকশা রয়েছে, যা সকাল ৬টা থেকে সন্ধ্যা ৬টা পর্যন্ত সেবা প্রদান করে।

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "What happened to the pink auto? - Times of India"The Times of India। সংগ্রহের তারিখ ২০১৯-০৩-১২ 
  2. "'Pink autos' launched in Gurgaon"News18। সংগ্রহের তারিখ ২০১৯-০৩-১২ 
  3. "Pink autos in Ranchi no longer 'women only' - Times of India"TimesofIndia.IndiaTimes.com। সংগ্রহের তারিখ ২০১৯-০৩-১২ 
  4. "Pink Autos: Women Driven Auto Rickshaw Services In India"Naaree - Work From Home Career Advice, Indian Women's Magazine। ২০১৬-১২-১৩। সংগ্রহের তারিখ ২০১৯-০৩-১২ 
  5. "Pink Auto Rickshaw Project" (PDF)Odisha Police Department। Odisha Police। ২৭ জুন ২০১৫। 
  6. "City to get pink autos with women on wheels"www.millenniumpost.in। সংগ্রহের তারিখ ২০১৯-০৭-০৯ 
  7. "Driven out: Ranchi's auto service by and for women is dying"HindustanTimes.com। ২০১৫-০৪-০৯। সংগ্রহের তারিখ ২০১৯-০৩-১২ 
  8. "Launch of Pink Auto Rickshaws programme in Surat"DeshGujarat। ২০১৭-০৭-০২। সংগ্রহের তারিখ ২০১৯-০৩-১২ 
  9. "New auto service in Surat: By the women, for the women - Times of India"TimesofIndia.IndiaTimes.com। সংগ্রহের তারিখ ২০১৯-০৩-১২ 
  10. "Pink Auto Service arrives in Surat"www.cityshor.com। সংগ্রহের তারিখ ২০১৯-০৩-১২ 
  11. "In Surat now: A pink auto service by women, for women"IndianExpress.com। ২০১৭-০৭-০৩। সংগ্রহের তারিখ ২০১৯-০৩-১২