বিষয়বস্তুতে চলুন

গোটেইক ভায়াডাক্ট

স্থানাঙ্ক: ২২°২০′৩৫″ উত্তর ৯৬°৫১′৩৫″ পূর্ব / ২২.৩৪৩০৬° উত্তর ৯৬.৮৫৯৭২° পূর্ব / 22.34306; 96.85972
উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
গোটেইক ভায়াডাক্ট
ဂုတ်ထိပ်တံတား
স্থানাঙ্ক২২°২০′৩৫″ উত্তর ৯৬°৫১′৩৫″ পূর্ব / ২২.৩৪৩০৬° উত্তর ৯৬.৮৫৯৭২° পূর্ব / 22.34306; 96.85972
বহন করে১টি রেল ট্র‍্যাক
অতিক্রম করেগোহটউইন স্ট্রীম
স্থাননাউনঘকিও, লাশিওপাইন ওও লুইনের মধ্যে
দাপ্তরিক নামগোটেইক ভায়াডাক্ট
অন্য নামগোহটেইক ভায়াডাক্ট
রক্ষণাবেক্ষকরেল পরিবহন মন্ত্রণালয়
বৈশিষ্ট্য
নকশাকাঠের পায়া[১]
মোট দৈর্ঘ্য৬৮৯ মিটার (২,২৬০ ফু)
প্রস্থএকক রেল ট্র্যাক
ইতিহাস
নির্মাণ শুরু২৮-৪-১৮৯৯
নির্মাণ শেষ১-১-১৯০০
চালু১-১-১৯০০
পরিসংখ্যান
দৈনিক চলাচলপ্রতিদিন দুটি ট্রেন চলাচল করে। মান্দালে থেকে ল্যাশিও এবং ল্যাশিও থেকে মান্দালে।
টোল৪,০০ ডলার / ৩,৯৫০ ক্যত
অবস্থান
মানচিত্র

গোটেইক ভায়াডাক্ট (বর্মী: ဂုတ်ထိပ်တံတား, MLCTS: gu.hti.ta.aa.) গোহটেইক ভায়াডাক্ট নামেও পরিচিত) হল মায়ানমারের (বার্মা নামেও পরিচিত) পশ্চিমাঞ্চলীয় শান রাজ্যের নাউনঘকির একটি রেলপথ কাঠের পায়া। সেতুটি বার্মার প্রাক্তন ব্রিটিশ ঔপনিবেশিক প্রশাসকদের গ্রীষ্মকালীন রাজধানী পায়ান ওও লুইন ও উত্তর শান রাজ্যের প্রধান শহর লাশিও এর মধ্যে অবস্থিত। এটি মিয়ানমারের সর্বোচ্চ সেতু এবং যখন এটি সম্পন্ন হয়েছিল তখন বিশ্বের বৃহত্তম রেলপথ ছিল। এটি মান্দালয়ের প্রায় ১০০ কিলোমিটার উত্তর-পূর্বে অবস্থিত।

সেতুটি ১৮৯৯ সালে পেনসিলভানিয়া ও মেরিল্যান্ড ব্রিজ কনস্ট্রাকশন কোম্পানি দ্বারা নির্মিত হয়েছিল এবং ১৯০০ সালে খোলা হয়েছিল।[২] উপাদানগুলি পেনসিলভানিয়া ইস্পাত কোম্পানি দ্বারা তৈরি করা হয়েছিল এবং মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র থেকে পাঠানো হয়েছিল। এই অঞ্চলে ব্রিটিশ সাম্রাজ্যের প্রভাব বিস্তারে সাহায্য করার জন্য রেললাইনটি নির্মিত হয়েছিল। বার্মা রেলওয়ে কোম্পানির প্রকৌশলী স্যার আর্থার রেন্ডেল নির্মাণ প্রকল্পটি তত্ত্বাবধান করেন।[৩]

সেতু তথ্য

[সম্পাদনা]
১৮৯৯ বা ১৯০০ সালে গোকটেইক ভায়াডাক্ট

ভায়াডাক্টের পরিমাপ শেষ থেকে শেষ পর্যন্ত, ৬৮৯ মিটার (২,২৬০ ফু) এবং ১২ মিটার (৩৯ ফু) বিস্তৃত ১৫টি টাওয়ার রয়েছে পাশাপাশি ২৪ মিটার (৭৯ ফু) দীর্ঘ একটি যুগ্ম টাওয়ার রয়েছে। ১৫টি টাওয়ার ৩৭ মিটার (১২১ ফু) এর ১০টি ডেক ট্রাস স্প্যান এবং ১৮ মিটার (৫৯ ফু) দীর্ঘ প্লেট গার্ডার স্প্যান ও ১২ মিটার (৩৯ ফু) একটি অ্যাপ্রোচ স্প্যানের ভারবহন করে। অনেক সূত্র সেতুটির উচ্চতা ২৫০ মিটার (৮২০ ফু) নির্ধারণ করেছে। এটি অনুমিতভাবে নদীর স্তরের একটি পরিমাপ কারণ এটি একটি সুড়ঙ্গের মধ্য দিয়ে ভূগর্ভে প্রবাহিত হয় যেখানে এটি কাঠের পায়ার নীচে চলে যায়। সবচেয়ে উঁচু টাওয়ারের নিচের দিকে রেলের ডেক থেকে মাটি পর্যন্ত পরিমাপ করা সেতুটির প্রকৃত উচ্চতা ১০২ মিটার (৩৩৫ ফু)। নির্মাণ ব্যয় ছিল ১,১১,২০০ পাউন্ড। [৪]

প্রযুক্তিগত এবং প্রাকৃতিক অবস্থার কারণে এটি বিশ্বমানের একটি সেরা কাজ হিসাবে বিবেচিত হয়।

তথ্যসূত্র

[সম্পাদনা]
  1. "Gokteik Viaduct"। Highestbridges.com। ২০১৩-০১-২৩ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২০১১-০৩-১১ 
  2. Turk, J. D. (সেপ্টেম্বর ১৯০১)। "Building An American Bridge In Burma"। Doubleday, Page & Co.: 1148–1167। সংগ্রহের তারিখ এপ্রিল ২৯, ২০১২ 
  3. History of rail transport in Burma
  4. [|Nawnghkio township profile 2009 by Township Peace and Development Council]