গেম (২০১৪-এর চলচ্চিত্র)

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
সরাসরি যাও: পরিভ্রমণ, অনুসন্ধান
গেম
গেম অফিসিয়াল পোস্টার
গেম অফিসিয়াল পোস্টার
পরিচালক বাবা যাদব
প্রযোজক রিলায়েন্স এন্টারটেইনমেন্ট
গ্রাসরুট এন্টারটেইনমেন্ট
রচয়িতা এ.আর. মুরুগাদোস
চিত্রনাট্যকার এন.কে. সলিল
উৎস তামিল চলচ্চিত্র থুপাক্কি
অভিনেতা জিৎ
শুভশ্রী গাঙ্গুলী
সুরকার জিৎ গাঙ্গুলী
চিত্রগ্রাহক পি. সিলভাকুমার
সম্পাদক মহম্মদ কালাম
পরিবেশক জলসা মুভিজ প্রোডাকশনস
মুক্তি ৩০শে মে, ২০১৪
দেশ ভারত
ভাষা বাংলা

গেম (ইংরেজি: Game) পরিচালক বাবা যাদব পরিচালিত ২০১৪ সালের একটি বাংলা চলচ্চিত্র[১] জিৎশুভশ্রী গাঙ্গুলী এই চলচ্চিত্রের মুখ্য ভূমিকায় আছেন।[২] ২০১৪ সালের মে মাসে চলচ্চিত্রটি মুক্তি পায়।[১] রিলায়েন্স এন্টারটেইনমেন্ট এই চলচ্চিত্রের প্রযোজনা করেছে। প্রখ্যাত তামিল চলচ্চিত্র থুপ্পাকি অবলম্বনে নির্মিত হয়েছে এই চলচ্চিত্র।[৩] উল্লেখ থাকে যে একই কাহিনী অবলম্বনে হিন্দি ভাষায় একটি চলচ্চিত্র নির্মিত হয়েছে যার নাম হলিডে: এ সোলজার ইজ নেভার অফ ডিউটি

কাহিনী[সম্পাদনা]

ভারতীয় সেনাবাহিনীর ক্যাপ্টেন অভিমন্যু ওরফে অভি ছুটিতে সহকর্মীদের সাথে বাড়ি ফেরার সাথে সাথে তার বাবা মা ও দুই বোন তার বিয়ে দেওয়ার জন্যে ব্যস্ত হয়ে পড়েন। তৃষা'কে পাত্রী হিসেবে বাড়ির লোক পছন্দ করলেও অভিমন্যু নাকচ করে দেয়। কিন্তু তার বন্ধু পুলিশ ইনস্পেকটর শান্তি ও সে দুজনে একটি মহিলা বক্সিং টুর্নামেন্টে গেলে অভিমন্যু দেখে তৃষা আধুনিকা ও বক্সিং চ্যাম্পিয়ন। অভিমন্যুর তাকে ভাল লাগতে শুরু করে। শান্তি ও অভিমন্যু বাসে করে যাওয়ার সময় বাসের একজনের পকেটমার হয়। পকেটমারকে ধরা হলেও অন্য এক ব্যক্তি রহস্যজনক ভাবে পালাতে থাকে। অভি ও শান্তি তাকে তাড়া করে ধরে কিন্তু বাসটি বিষ্ফোরনে ধ্বংস হয়ে যায়। অভি বুঝতে পারে কলকাতায় বিরাট সন্ত্রাসবাদী চক্র বোমা বিস্ফোরনের ষড়যন্ত্র করছে। ধরা পড়া লোকটি পুলিশ হেফাজত থেকে পালায় ঠিকই কিন্তু অভি তাকে আবার নিজে পাকড়াও করে এবং বাড়িতে নিয়ে এসে অত্যাচার করে জেনে নেয় কোন পুলিশ অফিসার থাকে পালাতে সাহায্য করেছে। অপরাধী পুলিশ অফিসারকে গিয়ে অভিমন্যু জানায় সে ভারতীয় সেনাবাহিনীর একজন সিক্রেট এজেন্ট। অফিসার আত্মহত্যা করতে বাধ্য হয়। অভি তার সহকর্মীদের নিয়ে সন্ত্রাসবাদী দলের বারোজন স্লিপার এজেন্টকে হত্যা করে। স্লিপার এজেন্টদের মাধ্যমে দেশবিরোধী শক্তি গোপনে ধ্বংসাত্মক কাজে ইন্ধন যোগাচ্ছিল। এই স্লিপার এজেন্টদের প্রধান কলকাতায় আসে অভিমন্যুর মুখোমুখি হতে। তাকে সাহায্য করে প্রতিরক্ষা দপ্তরের এক বড়কর্তা যে গোপনে সন্ত্রাসবাদীদের সাথে যুক্ত। অভির সহকর্মীদের প্রত্যেককে টার্গেট করে স্লিপার সেলের প্রধান। সাথীদের জীবন বাঁচাতে সন্ত্রাসবাদীদের আস্তানায় যেতে বাধ্য হয় অভিমন্যু।

অভিনয়ে[সম্পাদনা]

সহ আরো অনেকে।

সংগীত[সম্পাদনা]

এই চলচ্চিত্রের সংগীত পরিচালনা করবেন প্রখ্যাত সংগীত পরিচালক জিৎ গাঙ্গুলী[৪]

গেম
জিৎ গাঙ্গুলী কর্তৃক চলচ্চিত্রের অ্যালবাম
ধরন চলচ্চিত্রের গান
উৎপাদক রিলায়েন্স এন্টারটেইনমেন্ট
গ্রাসরুট এন্টারটেইনমেন্ট
জিৎ গাঙ্গুলী কালক্রম
চিরদিনই তুমি যে আমার ২ গেম
নং শিরোনাম গানের কথা কণ্ঠশিল্পী(রা) সময়
১. "বামচিকি চিকনি চিকি[৫]"     নাকাশ আজিজ, আকৃতি কক্কর ০৩:৪৬
২. "গেম (টাইটেল ট্র্যাক)[৬]"     জাভেদ আলী ০৩:৩৮
৩. "ওরে মনওয়া রে[৭]"     অরিজিৎ সিং, আকৃতি কক্কর ০৪:৪৪
৪. "পার্টি অল নাইট[৮]"     বেনী দয়াল, নীতি মোহন ০৩:২৮

প্রযোজনা[সম্পাদনা]

দৃশ্যায়ণ[সম্পাদনা]

চলচ্চিত্রের দৃশ্যায়ণ করা হয়েছে কলকাতা, দুবাইসহ আরো কিছু স্থানে। এর টাইটেল ট্র্যাকের দৃশ্যায়ণ বোলপুরে হলেও এর খরচ দুবাইয়ে দৃশ্যায়ণ হওয়া কিছু গানের খরচের চেয়েও অনেক বেশি, প্রায় চল্লিশ লাখ টাকা। ৩৮-৪৩ ডিগ্রী সেলসিয়াসে শ্যুটিং হওয়া এই গানে জিৎ খালি গায়ে দর্শকের সামনে আসবেন। এর জন্য নায়ককে আলাদাভাবে ডায়েট করতে হয়েছে। তিনি চলচ্চিত্রের দৃশ্যায়ণ শুরুর ১০ দিন আগে থেকেই লবণছাড়া ডায়েটে ছিলেন।[৪]

রিভিউ[সম্পাদনা]

সংবাদ প্রতিদিন চলচ্চিত্রের রিভিউতে জিতের পাঞ্চলাইন, শুভশ্রীর অভিনয় ও জিৎ গাঙ্গুলীর সংগীতের প্রশংসা করে। তবে তৃষা চরিত্রে শুভশ্রীর উজ্জ্বলতা সময়ের সাথে কমে যায় বলে তারা মন্তব্য করে।[৯]

অন্যান্য সংস্করণ[সম্পাদনা]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "গেম-এর চ্যালেঞ্জ"আনন্দবাজার পত্রিকা। সংগৃহীত ৪ এপ্রিল ২০১৪ 
  2. "শুভশ্রী বাংলাদেশে"দৈনিক মানবজমিন। সংগৃহীত ৬ এপ্রিল ২০১৪ 
  3. "Thuppakki's growing nationwide appeal"। Behindwoods। ৫ ফেব্রুয়ারি ২০১৪। সংগৃহীত ৭ ফেব্রুয়ারি ২০১৪ 
  4. "৪০ লাখের গান"এই সময়। সংগৃহীত ১৫ এপ্রিল ২০১৪ 
  5. "Game Song 1"। সংগৃহীত ১০ এপ্রিল ২০১৪ 
  6. "Game Song 2"। সংগৃহীত ২৪ এপ্রিল ২০১৪ 
  7. "Game Song 3"। সংগৃহীত ০৮ মে ২০১৪ 
  8. "Game Song 4"। সংগৃহীত ২১ মে ২০১৪ 
  9. "জিৎ নিশ্চিত"সংবাদ প্রতিদিন। সংগৃহীত ০৬ জুন ২০১৪ 
  10. "রিমেক নিয়েও কম্পিটিশন"আনন্দবাজার পত্রিকা। সংগৃহীত ০৭ জুন ২০১৪ 

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]