গেম অব থ্রোনস

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
গেম অব থ্রোনস
গেম অব থ্রোনস শিরোনাম কার্ড.jpg
ধরণ
  • কল্পনাধর্মী
  • নাট্য ধারাবাহিক
নির্মাতা
অভিনয়েচরিত্র তালিকা
কণ্ঠ প্রদানকারীরামিন জাওয়াদি
উদ্বোধনী থিম"মূল শীর্ষ গান"
কম্পোজাররামিন জাওয়াদি
প্রস্তুতকারক দেশযুক্তরাষ্ট্র
মূল ভাষাইংরেজি
মরশুমের সংখ্যা
পর্বের সংখ্যা৬৮ (পর্বের সংখ্যা)
নির্মাণ
নির্বাহী প্রযোজক
  • ডেভিড বেনিওফ
  • ডি. বি. ওয়েস
  • ক্যারোলিন স্ট্রাউস
  • ফ্রাঙ্ক ডোয়েলগার
  • বার্নাদেত্তে কলফিল্ড
  • জর্জ আর. আর. মার্টিন
অবস্থান
  • আইসল্যান্ড
  • উত্তর আয়ারল্যান্ড
  • কানাডা
  • ক্রোয়েশিয়া
  • স্কটল্যান্ড
  • মাল্টা
  • মরক্কো
  • যুক্তরাষ্ট্র
  • স্পেন
দৈর্ঘ্য৫০–৮০ মিনিট
প্রোডাকশন কোম্পানি
  • টেলিভিশন ৩৬০
  • গ্রোক! টেলিভিশন
  • জেনারেটর এন্টারটেইনমেন্ট
  • স্টার্টলিং টেলিভিশন
  • বিগহেড লিটলহেড
পরিবেশকওয়ার্নার ব্রস. টেলিভিশন ডিস্ট্রিবিউশন
সম্প্রচার
মূল চ্যানেলএইচবিও
ছবির ফরম্যাট১০৮০আই (16:9 এইচডিটিভি)
অডিও ফরম্যাটডলবি ডিজিটাল ৫.১
মূল প্রদর্শনী১৭ এপ্রিল ২০১১ (2011-04-17) – বর্তমান
ক্রমধারা
সম্পর্কিত প্রদর্শনীআফটার দ্য থ্রোনস
থ্রোনক্যাস্ট
বহিঃসংযোগ
ওয়েবসাইট
নির্মাতার ওয়েবসাইট

গেম অব থ্রোনস (ইংরেজি: Game of Thrones, প্রতিবর্ণী. গেই্‌ম অভ্‌ থ্রোন্‌স, অনুবাদ 'সিংহাসনের খেলা') হল ডেভিড বেনিওফডি. বি. ওয়েস নির্দেশিত মার্কিন কাল্পনিক নাট্যধর্মী টেলিভিশন ধারাবাহিক। এটি জর্জ আর. আর. মার্টিন রচিত ফ্যান্টাসি উপন্যাস ধারাবাহিক আ সং অব আইস অ্যান্ড ফায়ার অবলম্বনে নির্মিত, যার প্রথম উপন্যাসটি হল আ গেম অব থ্রোনস। ধারাবাহিকটি আইসল্যান্ড, উত্তর আয়ারল্যান্ড, কানাডা, ক্রোয়েশিয়া, স্কটল্যান্ড, মাল্টা, মরক্কো, স্পেনমার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে চিত্রায়িত হয়েছে।[১] ধারাবাহিকটি ২০১১ সালের ১৭ই এপ্রিল এইচবিও চ্যানেলে প্রথম প্রচারিত হয় এবং এর সপ্তম মৌসুম শেষ হয় ২৭শে আগস্ট ২০১৭। ২০১৯ সালের ১৪ই এপ্রিল ধারাবাহিকটির অষ্টম মৌসুম এবং শেষ মৌসুম এর ১ম পর্ব প্রচারিত হয়েছে।[২][৩]

কাল্পনিক মহাদেশ ওয়েস্টরস ও এসস-এর পটভূমিতে আবর্তিত গল্পে গেম অব থ্রোনস-এর কয়েকটি কাহিনিসূত্র ও বিশাল সংখ্যক কুশীলব রয়েছে, তবে এতে তিনটি প্রধান গল্প আবর্তিত হয়েছে। প্রথমটি সাত রাজ্যের লৌহ সিংহাসন, যেখানে রয়েছে দখল বা এর থেকে স্বাধীনতা লাভের লক্ষ্যে কয়েকটি অভিজাত রাজ্যবংশের মধ্যে মৈত্রী ও দ্বন্দ্বের গল্প। দ্বিতীয় গল্পটি সর্বশেষ শাসনকারী রাজবংশের শেষ উত্তরসূরিকে কেন্দ্র করে, যাকে নির্বাসিত করা হয় এবং সে সিংহাসন দখল করতে বদ্ধপরিকর। তৃতীয় গল্পে রয়েছে নাইট্‌স ওয়াচ, একটি দীর্ঘকালস্থায়ী ভ্রাতৃত্ব যারা দেয়ালের উত্তরের বন্য মানুষ ও কিংবদন্তি প্রাচীন জীবদের হুমকির হাত থেকে এই রাজসিংহাসনকে প্রতিরক্ষায় নিয়োজিত।

গেম অব থ্রোনস এইচবিও চ্যানেলে রেকর্ড সংখ্যক দর্শককে আকৃষ্ট করতে পেরেছে এবং এর বিস্তৃত, সক্রিয় ও আন্তর্জাতিক ভক্তকূল রয়েছে। সমালোচকগণ এর প্রশংসা করেছেন, বিশেষ করে এর অভিনয়, জটিল চরিত্রাবলি, গল্প, ব্যপ্তি ও নির্মাণ গুণের জন্য, যদিও এর প্রায়ই নগ্নতা ও সহিংসতার (যৌন সহিংসতা-সহ) জন্য এটি সমালোচিত হয়েছে। ধারাবাহিকটি ২০১৫, ২০১৬ ও ২০১৭ সালে তিনটি সেরা নাট্যধর্মী ধারাবাহিক বিভাগে পুরস্কারসহ ৪৭টি প্রাইমটাইম এমি পুরস্কার লাভ করে, যা প্রাইম টাইমে (রাতে) প্রচারিত অন্য যে কোন টেলিভিশন ধারাবাহিকের চেয়ে বেশি। অন্যান্য পুরস্কারের মধ্যে রয়েছে শ্রেষ্ঠ নাট্যধর্মী উপস্থাপনার জন্য ২০১২ থেকে ২০১৪ সালে তিনটি হুগো পুরস্কার, ২০১১ সালে একটি পিবডি পুরস্কার। এছাড়া ২০১২ এবং ২০১৫ থেকে ২০১৭ সালে ধারাবাহিকটি চারবার শ্রেষ্ঠ নাট্য টেলিভিশন ধারাবাহিকের জন্য গোল্ডেন গ্লোব পুরস্কারের মনোনয়ন লাভ করে।

ধারাবাহিকটির কলাকুশলীদের মধ্যে পিটার ডিংকলেজ তার টিরিয়ন ল্যানিস্টার চরিত্রের জন্য ২০১১, ২০১৫ ও ২০১৮ সালে তিনবার নাট্যধর্মী ধারাবাহিকে শ্রেষ্ঠ পার্শ্ব অভিনেতা বিভাগে প্রাইমটাইম এমি পুরস্কার ও ২০১২ সালে একবার সেরা টিভি পার্শ্ব অভিনেতা বিভাগে গোল্ডেন গ্লোব পুরস্কার লাভ করেন। এছাড়া লিনা হিডি, এমিলিয়া ক্লার্ক, কিট হ্যারিংটন, মেইজি উইলিয়ামস, নিকোলাই কোস্টার-ভাল্টাউ, ডায়ানা রিগম্যাক্স ভন সিডো তাদের স্ব-স্ব চরিত্রের জন্য প্রাইমটাইম এমি পুরস্কারের মনোনয়ন লাভ করেন।

পটভূমি[সম্পাদনা]

দৃশ্যপট[সম্পাদনা]

গেম অব থ্রোনস ধারাবাহিকটি আ সং অব আইস অ্যান্ড ফায়ার অবলম্বনে নির্মিত।[৪][৫] কাল্পনিক ওয়েস্টেরস মহাদেশের সাত রাজ্যে এবং এসোস মহাদেশে এর ঘটনাবলি সংগঠিত হয়। ধারাবাহিকটিতে কয়েকটি অভিজাত পরিবারের মধ্যে লৌহ সিংহাসন দখলের ও অন্যান্য পরিবারসমূহের এই সিংহাসনের প্রভাব থেকে স্বাধীনতা লাভের জন্য লড়াই দেখানো হয়েছে। অন্যদিকে আরেকটি বড় ধরনের হুমকি হল বরফাচ্ছন্ন উত্তরাংশ ও পূর্বে এসোস মহাদেশ।[৬]

ধারাবাহিকটির নির্মাতাদের একজন ডেভিড বেনিওফ জাদু ও ড্রাগন সম্বলিত কল্পনাধর্মী পটভূমিতে এর দৃশ্যপট ও গম্ভীর বর্ণনার জন্য কৌতুক করে গেম অব থ্রোনস-এর ট্যাগলাইন "মধ্য-পৃথিবীর দ্য সোপরানোস" বলে উল্লেখ করেন।[৭] ২০১২ সালে এক গবেষণায় দেখা যায়, ৪০টি সাম্প্রতিক টিভি অনুষ্ঠানের মধ্যে গড়ে ১৪টি মৃত্যু নিয়ে গেম অব থ্রোনস প্রতি পর্বে মৃত্যুর দিক থেকে র‍্যাংকিংয়ে দ্বিতীয়।[৮]

বিষয়বস্তু[সম্পাদনা]

ধারাবাহিকটি মূলত এতে প্রদর্শিত মধ্যযুগীয় বাস্তবতার জন্য প্রশংসিত হয়েছে।[৯][১০] জর্জ আর. আর. মার্টিন গল্পটিতে জাদু ও জাদুকর সম্বলিত সমকালীন কল্পনাধর্মী গল্পের চেয়ে যুদ্ধ, রাজনৈতিক ষড়যন্ত্র ও চরিত্র সম্বলিত ঐতিহাসিক কল্পকাহিনি হিসেবে রূপ দান করেন। তিনি মনে করেন মহাকাব্যিক কল্পনাধর্মী ধারায় জাদুর পরিমিত ব্যবহার থাকা উচিত।[১১][১২][১৩] মার্টিন বলেন "মানব সভ্যতার ইতিহাসে সত্যিকারের ভয়ের কারণ ওর্ক বা অন্ধকার নয়, বরং আমরা নিজেরাই।"[১৪]

কল্পনাধর্মী ধারার একটি সাধারণ বিষয়বস্তু হল ভালো ও মন্দের দ্বন্দ্ব। মার্টিন বলেন এটা বাস্তব জীবনের অবস্থা তুলে ধরে না।[১৫] বাস্তব জীবনের ব্যক্তি-বিশেষের ভালো ও মন্দের সামর্থের সাথে মিল রেখে মার্টিন এ থেকে মুক্তির পথ খুঁজেছেন এবং চরিত্রের পরিবর্তন এনেছেন।[১৬] এই ধারাবাহিকটি দর্শকদের বিভিন্ন চরিত্রাবলি তাদের নিজেদের দৃষ্টিকোণ থেকে দেখার সুযোগ দিয়েছে এবং যাদের খল চরিত্রে ভাবা হচ্ছে তাদেরকেও তার দিক স্পষ্ট করার সুযোগ দিয়েছে।[১৩][১৭] নির্মাতা বেনিওফ বলেন, "জর্জ এতে তিক্ত বাস্তবতা থেকে শুরু করে উচ্চমাত্রার কল্পনার প্রতিফলন ঘটিয়েছেন। তিনি সাদাকালো পৃথিবীতে ধূসর সুরের পরিচয় করিয়ে দিয়েছেন।[১৩]

প্রথমদিকের মৌসুমগুলোতের আ সং অব আইস অ্যান্ড ফায়ার বই হতে অনুপ্রাণিত হয়ে কয়েকটি মূল চরিত্রকে নিয়মিতভাবে মেরে ফেলা হত, এবং একে দর্শকের মাঝে উদ্বিগ্নতা সৃষ্টি বলে আখ্যায়িত করা হয়।[১৮] পরের মৌসুমগুলোতে সমালোচকগণ দেখেন যে নির্দিষ্ট কিছু চরিত্র "প্লট আর্মার" সৃষ্টি করেছে, যা এই ধারাবাহিকটিকে প্রচলিত অন্যান্য ধারাবাহিক থেকে বেশি কিছু করে তুলেছে।[১৮] এছাড়া ধারাবাহিকটিতে যুদ্ধে প্রচুর পরিমাণ মৃত্যুর চিত্র তুলে ধরা হয়েছে।[১৯][২০]

অনুপ্রেরণা ও পরিবর্তন[সম্পাদনা]

প্রথম মৌসুমটি প্রথম উপন্যাসের ঘটনাবলি অনুসারে নির্মিত হলেও পরের মৌসুমগুলোতে ব্যাপক পরিবর্তন লক্ষ্য করা যায়। ডেভিড বেনিওফের মতে, এই ধারাবাহিকটি হল মূল সম্পূর্ণ উপন্যাস ধারাবাহিকের উপযোগকরণ এবং জর্জ আমাদের জন্য যে মানচিত্র তৈরি করে দিয়েছে তার অনুসরণ এবং প্রধানতম মাইলফলকগুলো ছোঁয়া; কিন্তু যাত্রাপথের সকল যাত্রাবিরতিতে থামা নয়।"[২১]

উপন্যাসগুলো ও তাদের উপযোগকরণে ইউরোপীয় ইতিহাসের দৃশ্যপট, চরিত্র ও ঘটনার দৃশ্যাবলিকে মূলভিত্তি হিসেবে দেখানো হয়েছে।[২২] ওয়েস্টরসের বেশিরভাগ অংশই হল মধ্যযুগীয় ইউরোপের ধ্বংসাবশেষ, ভূমি ও সংস্কৃতি[২৩] থেকে শুরু করে রাজপ্রাসাদ-অভ্যন্তরের ষড়যন্ত্র, সামন্তবাদ, দুর্গ, ও নাইটদের টুর্নামেন্ট। উপন্যাসগুলোর প্রধান অনুপ্রেরণা হল ল্যাঙ্কেস্টার ও ইয়র্ক পরিবারের মধ্যে ওয়ার অব দ্য রোজেস খ্যাত গৃহযুদ্ধসমূহ (১৪৫৫-৮৫),[২৪] যা মার্টিনের উপন্যাসে ল্যানিস্টার ও স্টার্ক পরিবার হিসেবে দেখানো হয়েছে। সার্সি ল্যানিস্টার "ফ্রান্সের শি-উল্‌ফ" খ্যাত ইজাবেলার (১২৯৫-১৩৫৮) সাথে তুলনীয়;[২২] এছাড়া ফরাসি ঔপন্যাসিক মরিস দ্র্যুওঁর ঐতিহাসিক উপন্যাস ধারাবাহিক দি অ্যাকার্সড কিংস-এ উল্লেখিত ইজাবেলা ও তার পরিবার মার্টিনের প্রধান অনুপ্রেরণা।[২৫]

অন্যান্য ঐতিহাসিক ঘটনাবলির মধ্যে রয়েছে হাদ্রিয়ানের দেয়াল (যা মার্টিনের দেয়াল), রোমান সাম্রাজ্য, আটলান্টিসের কিংবদন্তি (প্রাচীন ভ্যালিরিয়া), বাইজেন্টাইন গ্রিক অগ্নিকাণ্ড (বন্যআগুন), ভাইকিং যুগে আইসল্যান্ডীয় বীরদের বীরত্বগাঁথা (আয়রনবর্ন), মোঙ্গল উপদল (ডথোরাকি), শতবর্ষের যুদ্ধ, এবং ইতালীয় রেনেসাঁস।[২২] এই সকল উপাদানকে বিপরীত ইতিহাসের একটি নিখাঁদ অ বিশ্বাসযোগ্য সংস্করণ নির্মাণে মার্টিনের দক্ষতা ফলেই এই ধারাবাহিকটি জনপ্রিয়তা লাভ করে।[২২]

কুশীলব ও চরিত্র[সম্পাদনা]

এই ধারাবাহিকের প্রধান চরিত্রসমূহ হলঃ

লর্ড এডার্ড "নেড" স্টার্ক (শন বিন) স্টার্ক পরিবারের প্রধান। এই পরিবারের সদস্যরা মূল গল্পে সর্বত্র বিরাজমান। নেড ও তার স্ত্রী ক্যাটলিন স্টার্কের (মিশেল ফেয়ারলি) পাঁচ সন্তান। বড় পুত্র রব স্টার্ক (রিচার্ড ম্যাডেন), তার পরে কন্যা সানসা স্টার্ক (সোফি টার্নার), আরিয়া স্টার্ক (মেইজি উইলিয়ামস), ব্রান স্টার্ক (আইজ্যাক হেমস্টিড রাইট) এবং সর্বকনিষ্ঠ রিকন স্টার্ক (আর্ট পার্কিনসন)। নেডের অবৈধ সন্তান জন স্নো (কিট হ্যারিংটন) এবং তার বন্ধু স্যামওয়েল টার্লি (জন ব্র্যাডলি) লর্ড কমান্ডার জেওর মোরমন্টের (জেমস কসমো) অধীনে নাইট্‌স ওয়াচে দ্বায়িত্ব পালন করে। পরে স্নো উইন্টারফেলের রাজা এবং স্যাম সিটাডেলে দ্বায়িত্বরত। প্রাচীরের উত্তরে বসবাসকারী ওয়াইল্ডলিংসের মধ্যে রয়েছে গিলি (হ্যানা মারি), যে পরে স্যামের স্ত্রী, এবং যোদ্ধাদের মধ্যে রয়েছে টরমুন্ড জায়ান্টসবেন (ক্রিস্টোফার হিভজু) এবং ইগ্রিত (রোজ লেসলি)।[২৬]

স্টার্ক পরিবারের অন্যান্য সদস্যরা হলেন নেডের রক্ষী থিয়ন গ্রেজয় (আলফি অ্যালেন), তার সামন্ত রুজ বোল্টন (মাইকেল ম্যাকএলহাটন), বোল্টনের অবৈধ পুত্র রামসি বোল্টন (ইউয়ান রিওন)। রবের প্রেমিকা ও স্ত্রী তালিসা মাইগার (উনা চ্যাপলিন), আরিয়ার বন্ধু কামারের শিক্ষানবিশ এবং রবার্টের অবৈধ পুত্র গেন্ড্রি (জো দেম্পসি) ও গুপ্তহন্তা জাকেন হগার (টম অলাসচিহা), এবং ক্যাটলিন ও পরে সানসার রক্ষী নারী যোদ্ধা টার্থের ব্রিয়ান (গোয়েন্ডোলিন ক্রিস্টি)।[২৬]

রাজধানী কিংস ল্যান্ডিংয়ের চরিত্রগুলোর মধ্যে রয়েছে নেডের বন্ধু রাজা বরার্ট ব্যারাথিয়ন (মার্ক অ্যাডি) এবং রাণী সার্সি ল্যানিস্টার (লিনা হিডি), যে তার জমজ ভাই স্যার জেমি ল্যানিস্টার (নিকোলাই কোস্টার-ভাল্টাউ) তার প্রেমিক রূপে গ্রহণ করে। রাণী সার্সি তার ছোট ভাই বামনাকৃতির টিরিয়ন ল্যানিস্টারকে (পিটার ডিংকলেজ) ঘৃণা করে। টিরিয়ন জফ্রি রাজা হলে তার প্রতিনিধি নির্বাচিত হয় এবং পরে জফ্রিকে হত্যার দায়ে এসোসে পালিয়ে যায় ও সেখানে রাণী ডিনেরিসের প্রতিনিধিত্ব করে। ল্যানিস্টারদের পিতা লর্ড টাইউইন ল্যানিস্টার (চার্লস ড্যান্স) ল্যানিস্টারদের প্রধান। সার্সির দুই ছেলে জফ্রি ব্যারাথিয়ন (জ্যাক গ্লিসন) এবং টমেন ব্যারাথিয়ন (ডিন-চার্লস চ্যাপম্যান)। জফ্রির রক্ষী মুখ-পোড়া যোদ্ধা স্যান্ডর "দ্য হাউন্ড" ক্লিগেন (ররি ম্যাককেন) এবং তার ভাই নাইট গ্রেগর "দ্য মাউন্টেন" ক্লিগেন (হাফথোর ইউলিউস পয়োঁসন)।[২৬]

রাজা রবার্টের পরামর্শদাতা পরিষদের মধ্যে রয়েছে পিটার "লিটলফিঙ্গার" বেলিশ (এইডান গিলেন), নপুংসক গোয়েন্দা ভ্যারিস (কনলেথ হিল)। রবার্টের ভাই স্ট্যানিস ব্যারাথিয়ন (স্টিফেন ডিলান) এবং তার পরামর্শদাতা বিদেশি অগ্নি পূজারি মেলিসান্দ্রে (কারিস ভান হাউটেঁ) ও সাবেক চোরাকারবারি ও বর্তমান নাইট স্যার ডেভস সিওর্থ (লিয়াম কানিংহাম)। ধন্যাট্য টাইরেল পরিবারের মার্জারি টাইরেল (নাটালি ডোরমার)। রাজধানীর ধর্মীয় নেতাদের প্রধান হাই স্প্যারো (জনাথন প্রাইস)। দক্ষিণের ডর্নের এলারিয়া স্যান্ড (ইন্দিরা ভার্মা), যে ল্যানিস্টারদের বিরুদ্ধে প্রতিশোধ নিতে চায়।[২৬]

অন্যদিকে মূল রাজবংশের শেষ রাজার দুই সন্তান ভিসেরিস টার্গেরিয়ান (হ্যারি লয়েড) এবং ডিনেরিস টার্গেরিয়ান (এমিলিয়া ক্লার্ক) তাদের জীবন নিয়ে পালাচ্ছে এবং সিংহাসন পুনঃপ্রাপ্তির জন্য দল গঠন করছে। ডিনেরিসের যাযাবর ডথোরাকি সর্দার খাল ড্রগোর (জেসন মোমোয়া) সাথে বিবাহ হয়। ড্রগোর মৃত্যুর পর তার চিতা থেকে সে তিনটি ড্রাগন নিয়ে বের হলে ডথোরাকিরা তার অনুগামী হয়। ডিনেরিসের অনুগামীদের মধ্যে আরও উল্লেখযোগ্য ব্যক্তিবর্গ হল রাজধানী থেকে নির্বাসিত নাইট স্যার জোরাহ মোরমন্ট (ইয়ান গ্লেন), নাথের বহুভাষী মিসান্দেই (নাথালি এমানুয়েল) এবং যোদ্ধা দারিও নাহারিস (মিখেল হুইসমান)।[২৬]

নির্মাণ[সম্পাদনা]

গল্প বিন্যাস[সম্পাদনা]

২০০৬ সালের জানুয়ারি মাসে ডেভিড বেনিওফ জর্জ আর. আর. মার্টিনের সাহিত্য প্রতিনিধির সাথে তার প্রতিনিধিত্ব করা বই সম্পর্কে ফোনে কথা বলেন এবং আ সং অব আইস অ্যান্ড ফায়ার ধারাবাহিক নিয়ে আগ্রহ প্রদর্শন করেন। যদিও কৈশোরে তিনি কল্পকাহিনির ভক্ত ছিলেন, তিনি তখনো বইটি পড়েননি। সাহিত্য প্রতিনিধি তাকে এই ধারাবাহিকের প্রথম চারটি বই প্রেরণ করেন।[২৭] বেনিওফ প্রথম উপন্যাস আ গেম অব থ্রোনস-এর কয়েকশ পাতা পড়ে ডি. ডব্লিউ. ওয়েসের সাথে তার আগ্রহের কথা প্রকাশ করেন এবং মার্টিনের এই উপন্যাসগুলো নিয়ে একটি টেলিভিশন ধারাবাহিক নির্মাণের কথা বলেন। ওয়েস প্রথম উপন্যাসটি "সম্ভবত ৩৬ ঘন্টা" সময়ে শেষ করেন।[২৮] তারা মার্টিনের সাথে সান্তা মনিকার বুলেভারে এক রেস্তোরাঁয় বসে পাঁচ ঘন্টা আলোচনার পর এইচবিওর কাছে একটি ধারাবাহিক নির্মাণের চিত্রনাট্য উপস্থাপন করে। বেনিওফের মনে করেন, "জন স্নোর মা কে?" এই প্রশ্নের উত্তর দিতে পারায় তারা মার্টিনের নিকট থেকে ইতিবাচক সাড়া পান।[২৯]

অভিনয়শিল্পী নির্বাচন[সম্পাদনা]

নিনা গোল্ড ও রবার্ট স্টার্ন এই ধারাবাহিকের প্রাথমিক অভিনয়শিল্পী নির্বাচনকারী।[৩০] অডিশন ও পঠন প্রক্রিয়ার মধ্য দিয়ে মূল অভিনয়শিল্পীদের নির্বাচন করা হয়। ব্যতিক্রম ছিলেন পিটার ডিংকলেজশন বিন, লেখক নিজেই শুরু থেকে তাদের চেয়েছিলেন; ২০০৯ সালে এই প্রকল্পে তাদের যোগদানের ঘোষণা দেওয়া হয়।[৩১][৩২] এই প্রকল্পে চুক্তি স্বাক্ষরকারী অন্য অভিনয়শিল্পীগণ ছিলেন জন স্নো চরিত্রে কিট হ্যারিংটন, জফ্রি ব্যারাথিয়ন চরিত্রে জ্যাক গ্লিসন, ভিসেরিস টার্গেরিয়ান চরিত্রে হ্যারি লয়েড এবং রবার্ট ব্যারাথিয়ন চরিত্রে মার্ক অ্যাডি[৩২][৩৩] নির্মাতাদ্বয় বেনিওফ ও ওয়েসের মতে এই ধারাবাহিকের জন্য নির্বাচিত প্রথম অভিনয়শিল্পী ছিলেন অ্যাডি, তার অডিশন তারা যেমন চেয়েছিলেন তেমনই হয়েছিল।[৩৪] প্রথম মৌসুমে কয়েকটি চরিত্রের জন্য পুনরায় নতুন অভিনয়শিল্পী নেওয়া হয়। শুরুতে ক্যাটলিন স্টার্ক চরিত্রে অভিনয় করেছিলেন জেনিফার এল, কিন্তু পরে মিশেল ফেয়ারলিকে এই চরিত্রের জন্য নেওয়া হয়।[৩৫] ডিনেরিস টার্গেরিয়ান চরিত্রে প্রথম অভিনয় করেছিলেন ট্যামজিন মার্চেন্ট, পরে এমিলিয়া ক্লার্ক এই চরিত্রে অভিনয় করেন।[৩৬][৩৭] প্রথম মৌসুমের বাকি অভিনয়শিল্পীদের ২০০৯ সালের দ্বিতীয়ার্ধে নির্বাচন করা হয়।[৩৮]

উপযোগকরণ[সম্পাদনা]

মৌসুম Ordered চিত্রায়ন প্রথম প্রদর্শিত শেষ প্রদর্শিত উপযোগকৃত উপন্যাস সূত্র
১ম মৌসুম ২ মার্চ ২০১০ ২০১০-এর দ্বিতীয়ার্ধ্ব ১৭ এপ্রিল ২০১১ ১৯ জুন ২০১১ আ গেম অব থ্রোনস [৩৯]
২য় মৌসুম ১৯ এপ্রিল ২০১১ ২০১১-এর দ্বিতীয়ার্ধ্ব ১ এপ্রিল ২০১২ ৩ জুন ২০১২ আ ক্ল্যাশ অব কিংসআ স্টর্ম অব সোর্ডস-এর শুরুর কয়েকটি পরিচ্ছেদ [৪০][৪১]
৩য় মৌসুম ১০ এপ্রিল ২০১২ জুলাই - নভেম্বর ২০১২ ৩১ মার্চ ২০১৩ ৯ জুন ২০১৩ আ স্টর্ম অব সোর্ডস-এ প্রথম দুই-তৃতীয়াংশ [৪২][৪৩][৪৪]
৪র্থ মৌসুম ২ এপ্রিল ২০১৩ জুলাই - নভেম্বর ২০১৩ ৬ এপ্রিল ২০১৪ ১৫ জুন ২০১৪ আ স্টর্ম অব সোর্ডস-এ বাকি এক-তৃতীয়াংশ ও আ ফিস্ট ফর ক্রোসআ ড্যান্স উইথ ড্রাগন্‌স-এর কিছু অংশ [৪৫][৪৬]
৫ম মৌসুম ৮ এপ্রিল ২০১৪ জুলাই - ডিসেম্বর ২০১৪ ১২ এপ্রিল ২০১৫ ১৪ জুন ২০১৫ আ ফিস্ট ফর ক্রোস, আ ড্যান্স উইথ ড্রাগনস এবং মূল বিষয়ের সাথে আ স্টর্ম অব সোর্ডস-এর শেষ কয়েকটি পরিচ্ছেদ ও দ্য উইন্ডস অব উইন্টার-এর কিছু অংশ [৪৭][৪৮]
[৪৯][৫০][৫১]
৬ষ্ঠ মৌসুম জুলাই - ডিসেম্বর ২০১৫ ২৪ এপ্রিল ২০১৬ ২৬ জুন ২০১৬ দ্য উইন্ডস অব উইন্টার-এর মূল বিষয়বস্তুর সাথে আ ফিস্ট অব ক্রোসআ ড্যান্স উইথ ড্রাগনস-এর শেষের কিছু অংশ [৪৭][৫২]
[৫৩][৫৪]
৭ম মৌসুম ২১ এপ্রিল ২০১৬ আগস্ট ২০১৬ - ফেব্রুয়ারি ২০১৭ ১৬ জুলাই ২০১৭ ২৭ আগস্ট ২০১৭ দ্য উইন্ডস অব উইন্টার-এর মূল বিষয়বস্তু এবং আ ড্রিম অব স্প্রিং [৫৫][৫৬]
[৫৩][৫৭][৫৮]
৮ম মৌসুম ৩০ জুলাই ২০১৬ অক্টোবর ২০১৭ - জুলাই ২০১৮ ১৪ এপ্রিল ২০১৯ ১৯ মে ২০১৯ [৫৩][৫৯]
[৬০][৬১][৬২][৬৩]

মূল্যায়ন[সম্পাদনা]

গেম অব থ্রোনস শুরুর পূর্বে থেকেই ভক্তমহলের মধ্যে প্রত্যাশিত একটি ধারাবাহিক ছিল,[৬৪][৬৫] এবং প্রচারের পরে ইতিবাচক সমালোচনা লাভ করেছে ও ব্যবসাসফল হয়েছে। দ্য গার্ডিয়ান অনুসারে, ২০১৪ সালে এটি ছিল টেলিভিশনে "সর্ববৃহৎ নাটক" এবং "সর্বাধিক আলোচিত অনুষ্ঠান"।[৯]

সমালোচকদের প্রতিক্রিয়া[সম্পাদনা]

মৌসুম সমালোচকদের প্রতিক্রিয়া
রটেন টম্যাটোস মেটাক্রিটিক
৯০% (৩৬টি পর্যালোচনা)[৬৬] ৮০ (২৮টি পর্যালোচনা)[৬৭]
৯৬% (৩৬টি পর্যালোচনা)[৬৮] ৯০ (২৬টি পর্যালোচনা)[৬৯]
৯৭% (৪৪টি পর্যালোচনা)[৭০] ৯১ (২৫টি পর্যালোচনা)[৭১]
৯৭% (৪৪টি পর্যালোচনা)[৭২] ৯৪ (২৯টি পর্যালোচনা)[৭৩]
৯৫% (৫৪টি পর্যালোচনা)[৭৪] ৯১ (২৯টি পর্যালোচনা)[৭৫]
৯৫% (৩৭টি পর্যালোচনা)[৭৬] ৭৩ (৯টি পর্যালোচনা)[৭৭]
৯৩% (৫০টি পর্যালোচনা)[৭৮] ৭৭ (১২টি পর্যালোচনা)[৭৯]

গেম অব থ্রোনস সমালোচকদের প্রশংসা অর্জন করেছে, যদিও এই ধারাবাহিকে প্রদর্শিত নগ্নতা ও খুনাখুনির দৃশ্যসমূহ সমালোচিত হয়েছে। এই ধারাবাহিকের বিভিন্ন মৌসুমসমূহ বিভিন্ন প্রকাশনার বার্ষিক "সেরা" তালিকায় স্থান করে নিয়েছে, এর মধ্যে উল্লেখযোগ্য হল দ্য ওয়াশিংটন পোস্ট (২০১১), টাইম (২০১১ ও ২০১২) এবং দ্য হলিউড রিপোর্টার (২০১২)।[৮০][৮১][৮২]

অভিনয়শিল্পীদের অভিনয়ও প্রশংসিত হয়েছে। পিটার ডিংকলেজ "সুন্দর, নীতিগতভাবে দ্ব্যর্থতাসম্পন্ন, ও আত্ম-সচেতন"[৮৩] টিরিয়ন ল্যানিস্টার চরিত্রটির জন্য প্রাইমটাইম এমি পুরস্কারগোল্ডেন গ্লোব পুরস্কার লাভ করেন। লস অ্যাঞ্জেলেস টাইমসের ম্যারি ম্যাক্‌নামারা ২য় মৌসুমে টিরিয়ন কেন্দ্রীয় চরিত্রে চলে আসার পর বলেন "এটি বিভিন্ন দিক থেকে গেম অব থ্রোনস ডিঙ্কলিজের শো"।[৮৪][৮৫] কয়েকজন সমালোচক অভিনেত্রী[৮৪] ও শিশুশিল্পীদের অভিনয়কেও তুলে ধরেছেন।[৮৬] ১ম মৌসুমে চৌদ্দ বছর বয়সী মেইজি উইলিয়ামস আরিয়া স্টার্ক চরিত্রে অভিনয় করেন। এটি ছিল তার অভিনীত প্রথম কাজ। পরে তিনি ২য় মৌসুমে প্রবীণ অভিনেতা চার্লস ড্যান্সের (টাইউইন ল্যানিস্টার) সাথে সমান তালে অভিনয় করেন।[৮৭]

পুরস্কার ও প্রশংসা[সম্পাদনা]

গেম অব থ্রোনস ধারাবাহিকটি শুরু হওয়ার পর থেকে ৪৭টি প্রাইমটাইম এমি পুরস্কার, ৫টি স্ক্রিন অ্যাক্টরস গিল্ড পুরস্কার, এবং একটি পিবডি পুরস্কার লাভ করে।[৮৮] এটি টেলিভিশন ধারাবাহিকের জন্য সর্বোচ্চ এমি পুরস্কার অর্জনের রেকর্ড গড়ে, যা ফ্রেজিয়ার (৩৭টি পুরস্কার অর্জন করে) থেকে এগিয়ে।[৮৯] ২০১৩ সালে রাইটার্স গিল্ড অব আমেরিকা গেম অব থ্রোনস-কে টেলিভিশনের ইতিহাসে "রচিত সেরা ধারাবাহিক" তালিকায় ৪০তম স্থান প্রদান করে।[৯০] ২০১৫ সালে দ্য হলিউড রিপোর্টার তাদের "সর্বকালের সেরা টিভি অনুষ্ঠান" তালিকায় এই ধারাবাহিকটিকে চতুর্থ স্থান প্রদান করে।[৯১] ২০১৬ সালে প্রকাশিত এম্পায়ার-এর "সর্বকালের সেরা ৫০ টিভি অনুষ্ঠান" তালিকায় এটি সপ্তম স্থান অধিকার করে;[৯২] এবং রোলিং স্টোন-এর "সর্বকালের সেরা টিভি অনুষ্ঠান" তালিকায় এটি ১২তম স্থান অধিকার করে।[৯৩]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. ম্যাকগোইন, ক্যাথরিন (১১ জুলাই ২০১৭)। "Winter is here: 44 Game of Thrones locations in pictures"স্কাইস্ক্যানার (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ৩ মার্চ ২০১৯ 
  2. হিবার্ড, জেমস (২ জুন ২০১৭)। "Game of Thrones: HBO clarifies preques, final seasons plan"এন্টারটেইনমেন্ট উয়িকলি (ইংরেজি ভাষায়)। জুন ২, ২০১৭ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১ সেপ্টেম্বর ২০১৭ 
  3. প্যাটেন, ডমিনিক (১৪ জানুয়ারি ২০১৯)। "'Game Of Thrones' Final Season Debut Date Revealed By HBO With New Tease"ডেডলাইন (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ৩ মার্চ ২০১৯ 
  4. Fleming, Michael (জানুয়ারি ১৬, ২০০৭)। "HBO turns 'Fire' into fantasy series"ভ্যারাইটি (ইংরেজি ভাষায়)। মে ১৬, ২০১২ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১০ সেপ্টেম্বর ২০১৭ 
  5. Cogman, Bryan (নভেম্বর ৬, ২০১৪)। Inside HBO's Game of Thrones (ইংরেজি ভাষায়)। Orion। পৃষ্ঠা 4। আইএসবিএন 978-1-4732-1040-0। নভেম্বর ৬, ২০১৬ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১০ সেপ্টেম্বর ২০১৭ 
  6. Martin, George R. R. (জুলাই ১৬, ২০১০)। "From HBO" (ইংরেজি ভাষায়)। Not a Blog। মার্চ ৭, ২০১৬ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১০ সেপ্টেম্বর ২০১৭ 
  7. ক্যাচকা, বরিস (১৮ মে ২০০৮)। "Dungeon Master: David Benioff"নিউ ইয়র্ক। ৩ মে ২০১৬ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ৯ এপ্রিল ২০১৯ 
  8. ওকনেল, মাইকেল (২২ মে ২০১২)। "'Game of Thrones' Topped by 'Spartacus: Vengeance' as TV's Deadliest Series"দ্য হলিউড রিপোর্টার (ইংরেজি ভাষায়)। ২৯ জুন ২০১৬ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ৯ এপ্রিল ২০১৯ 
  9. Hughes, Sarah (মার্চ ২২, ২০১৪)। "'Sopranos meets Middle-earth': how Game of Thrones took over our world"দ্য গার্ডিয়ান (ইংরেজি ভাষায়)। সেপ্টেম্বর ২০, ২০১৬ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১ সেপ্টেম্বর ২০১৭ 
  10. Orr, David (আগস্ট ১২, ২০১১)। "Dragons Ascendant: George R. R. Martin and the Rise of Fantasy"দ্য নিউ ইয়র্ক টাইমস (ইংরেজি ভাষায়)। মার্চ ২৮, ২০১৩ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১৮ সেপ্টেম্বর ২০১৭ 
  11. Richards, Linda (জানুয়ারি ২০০১)। "January interview: George R.R. Martin"জানুয়ারি ম্যাগাজিন (ইংরেজি ভাষায়)। এপ্রিল ৪, ২০১২ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১৮ সেপ্টেম্বর ২০১৭ 
  12. Itzkoff, Dave (এপ্রিল ১, ২০১১)। "His Beautiful Dark Twisted Fantasy: George R. R. Martin Talks Game of Thrones"দ্য নিউ ইয়র্ক টাইমস (ইংরেজি ভাষায়)। এপ্রিল ২, ২০১১ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১৮ সেপ্টেম্বর ২০১৭ 
  13. Cogman, Bryan (নভেম্বর ৬, ২০১৪)। Inside HBO's Game of Thrones (ইংরেজি ভাষায়)। Orion। পৃষ্ঠা 7। আইএসবিএন 978-1-4732-1040-0। নভেম্বর ৬, ২০১৬ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১৮ সেপ্টেম্বর ২০১৭ 
  14. Itzkoff, Dave (মে ২, ২০১৪)। "For 'Game of Thrones,' Rising Unease Over Rape's Recurring Role"দ্য নিউ ইয়র্ক টাইমস (ইংরেজি ভাষায়)। আগস্ট ২১, ২০১৬ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১৮ সেপ্টেম্বর ২০১৭ 
  15. Gevers, Nick (ডিসেম্বর ২০০০)। "Sunsets of High Renown – An Interview with George R. R. Martin" (ইংরেজি ভাষায়)। Infinity Plus। এপ্রিল ৪, ২০১২ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১৮ সেপ্টেম্বর ২০১৭ 
  16. "The battle between good and evil reigns – Martin talks about new series Game of Thrones"দ্য গার্ডিয়ান (ইংরেজি ভাষায়)। জুন ১১, ২০১১। এপ্রিল ২, ২০১৬ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১৮ সেপ্টেম্বর ২০১৭ 
  17. Baum, Michele Dula (এপ্রিল ১১, ২০০১)। "A Song of Ice and Fire – Author George R.R. Martin's fantastic kingdoms" (ইংরেজি ভাষায়)। সিএনএন। এপ্রিল ৪, ২০১২ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১৮ সেপ্টেম্বর ২০১৭ 
  18. Fowler, Matt (আগস্ট ২৭, ২০১৭)। "Game of Thrones: "The Dragon and the Wolf" Review" (ইংরেজি ভাষায়)। আইজিএন। সংগ্রহের তারিখ ১৮ সেপ্টেম্বর ২০১৭ 
  19. Kirschling, Gregory (নভেম্বর ২৭, ২০০৭)। "George R.R. Martin answers your questions"এন্টারটেইনমেন্ট উয়িকলি (ইংরেজি ভাষায়)। ৪ এপ্রিল ২০১২ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১৮ সেপ্টেম্বর ২০১৭ 
  20. Boulaziz, Louisa (সেপ্টেম্বর ১৩, ২০১৬)। "Game of Thrones is realistic"ইউনিভার্সিটাস (ইংরেজি ভাষায়)। মার্চ ২০, ২০১৭ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১৮ সেপ্টেম্বর ২০১৭ 
  21. হিবার্ড, জেমস (১৭ মার্চ ২০১৫)। "Game of Thrones showrunners answer burning season 5 questions"এন্টারটেইনমেন্ট উয়িকলি (ইংরেজি ভাষায়)। ৩০ এপ্রিল ২০১৬ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ৯ এপ্রিল ২০১৯ 
  22. হল্যান্ড, টম (২৪ মার্চ ২০১৩)। "Game of Thrones is more brutally realistic than most historical novels"দ্য গার্ডিয়ান (ইংরেজি ভাষায়)। লন্ডন। জুন ২৯, ২০১৩ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ৯ এপ্রিল ২০১৯ 
  23. মুন্ড, লুকাস (২৭ মার্চ ২০১৩)। "Are the Lands of Westeros Inspired by Real-Life Countries?"স্লেট (ইংরেজি ভাষায়)। ১১ ফেব্রুয়ারি ২০১৭ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ৯ এপ্রিল ২০১৯ 
  24. ওর, ডেভিড (১২ আগস্ট ২০১১)। "Dragons Ascendant: George R. R. Martin and the Rise of Fantasy"দ্য নিউ ইয়র্ক টাইমস (ইংরেজি ভাষায়)। ২২ জুলাই ২০১৬ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ৯ এপ্রিল ২০১৯ 
  25. মিলনে, বেন (৪ এপ্রিল ২০১৪)। "Game of Thrones: The cult French novel that inspired George RR Martin"বিবিসি নিউজ (ইংরেজি ভাষায়)। ২১ জুলাই ২০১৬ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ৯ এপ্রিল ২০১৯ 
  26. "Game of Thrones: Cast" (ইংরেজি ভাষায়)। এইচবিও। সেপ্টেম্বর ১, ২০১৬ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১০ সেপ্টেম্বর ২০১৭ 
  27. কগম্যান, ব্রায়ান (৬ নভেম্বর ২০১৪)। Inside HBO's Game of Thrones। গলানৎস। আইএসবিএন 9781473210400। ডিসেম্বর ১৯, ২০১৬ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা 
  28. মিচেল, এলভিস (৮ মে ২০১৩)। "UpClose: Game of Thrones with David Benioff and D.B. Weiss (FULL LENGTH)"সাউন্ডক্লাউড (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ৩ মার্চ ২০১৯ 
  29. বার্নবম, ডেব্রা (১৫ এপ্রিল ২০১৫)। "'Game of Thrones' Creators: We Know How It's Going to End"ভ্যারাইটি (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ৩ মার্চ ২০১৯ 
  30. ব্যারাক্লো, লিও (১৫ এপ্রিল ২০১৬)। "'Game of Thrones' Casting Director Nina Gold to Receive BAFTA Award"ভ্যারাইটি (ইংরেজি ভাষায়)। ৮ আগস্ট ২০১৬ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ৯ এপ্রিল ২০১৯ 
  31. আন্দ্রিভা, নেলি (৫ মে ২০০৯)। "Two will play HBO's 'Game'"দ্য হলিউড রিপোর্টার (ইংরেজি ভাষায়)। ৯ মে ২০০৯ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ৯ এপ্রিল ২০১৯ 
  32. কিট, বরিস; আন্দ্রিভা, নেলি (১৯ জুলাই ২০০৯)। "Sean Bean ascends to 'Game of Thrones'" (ইংরেজি ভাষায়)। রয়টার্স। ৬ নভেম্বর ২০১৫ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ৯ এপ্রিল ২০১৯ 
  33. মার্টিন, জর্জ আর. আর. (১৯ জুলাই ২০০৯)। "A Casting We Will Go"নট আ ব্লগ (ইংরেজি ভাষায়)। লাইভ জার্নাল। আগস্ট ২১, ২০১৬ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ৯ এপ্রিল ২০১৯ 
  34. ওয়ালশ, মাইকেল (১২ মার্চ ২০১৭)। "What We Learned From Game Of Thrones' SXSW Panel, and What It Might Mean" (ইংরেজি ভাষায়)। নার্ডিস্ট ইন্ডাস্ট্রিজ। ২ এপ্রিল ২০১৭ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ৯ এপ্রিল ২০১৯ 
  35. সেপিনওয়াল, অ্যালান (১৯ মার্চ ২০১০)। "'Game of Thrones' recasting: Ehle out, Fairley in" (ইংরেজি ভাষায়)। হিটফিক্স। ২১ আগস্ট ২০১৬ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ৯ এপ্রিল ২০১৯ 
  36. রায়ান, মরিন (২১ মে ২০১০)। "Exclusive: 'Game of Thrones' recasts noble role"শিকাগো ট্রিবিউন (ইংরেজি ভাষায়)। ৩ আগস্ট ২০১৬ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ৯ এপ্রিল ২০১৯ 
  37. মার্টিন, জর্জ আর. আর. (২১ মে ২০১০)। "A New Daenerys"নট আ ব্লগ (ইংরেজি ভাষায়)। লাইভ জার্নাল। ২১ আগস্ট ২০১৬ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ৯ এপ্রিল ২০১৯ 
  38. রায়ান, মরিন (১৩ অক্টোবর ২০০৯)। "The 'Games' afoot: HBO's 'Game of Thrones' gears up"শিকাগো ট্রিবিউন (ইংরেজি ভাষায়)। ১৭ আগস্ট ২০১৬ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ৯ এপ্রিল ২০১৯ 
  39. রায়ান, মরিন (২ মার্চ ২০১০)। "HBO picks up 'Game of Thrones'; first picture, cast list"শিকাগো ট্রিবিউন। আগস্ট ২১, ২০১৬ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ৪ মার্চ ২০১৯ 
  40. হিবার্ড, জেমস (এপ্রিল ১৯, ২০১১)। "HBO renews 'Game of Thrones' for second season!"এন্টারটেইনমেন্ট উয়িকলি। আগস্ট ২১, ২০১৬ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ জুলাই ১৯, ২০১৫ 
  41. অ্যান্ডারস, চার্লি জেন (জুন ৫, ২০১২)। "10 Best Changes Game of Thrones Made to A Clash of Kings"। গিজমোডো। আগস্ট ২১, ২০১৬ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ জানুয়ারি ৩, ২০১৬ 
  42. ওকনেল, মাইকেল (এপ্রিল ১০, ২০১২)। "'Game of Thrones' Renewed for Season 3"The Hollywood Reporter। আগস্ট ২১, ২০১৬ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ জুলাই ১৯, ২০১৫ 
  43. হিবার্ড, জেমস (মার্চ ৩০, ২০১২)। "'Game of Thrones' showrunners on season 2, splitting Book 3 and their hope for a 70-hour epic"Entertainment Weekly। পৃষ্ঠা 3। আগস্ট ২১, ২০১৬ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ এপ্রিল ১০, ২০১২ 
  44. Schwartz, Terri (মে ১২, ২০১৪)। "'Game of Thrones' Season 4: Writer Bryan Cogman breaks down Tyrion's trial, book deviations and that White Walker scene"Zap2it। জুন ৩০, ২০১৫ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ মে ১৭, ২০১৫ 
  45. হিবার্ড, জেমস (এপ্রিল ২, ২০১৩)। "'Game of Thrones' renewed for season 4"Entertainment Weekly। অক্টোবর ৯, ২০১৪ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ এপ্রিল ২, ২০১৩ 
  46. ভিনেয়ার্ড, জেনিফার (জুন ১১, ২০১৩)। "What Will Happen in Season 4 of Game of Thrones?"Vulture। আগস্ট ২১, ২০১৬ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ফেব্রুয়ারি ৭, ২০১৪ 
  47. গোল্ডম্যান, এরিক (এপ্রিল ৮, ২০১৪)। "Game of Thrones Renewed for Season 5 and Season 6"IGN। আগস্ট ২১, ২০১৬ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ এপ্রিল ৮, ২০১৪ 
  48. "Game of Thrones Season 5: Inside the Episode #9 (HBO)"। জুন ৭, ২০১৫। জুন ৮, ২০১৫ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ জুন ৯, ২০১৫YouTube-এর মাধ্যমে। 
  49. হিবার্ড, জেমস (জুন ১৮, ২০১৪)। "'Game of Thrones' showrunners talk season 5: 'There will be Dorne'"Entertainment Weekly। জানুয়ারি ১২, ২০১৫ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ জুন ১৮, ২০১৪ 
  50. কেইন, এরিক (এপ্রিল ১২, ২০১৫)। "Why Season 5 Of 'Game Of Thrones' Is The Most Important Yet For HBO"Forbes। এপ্রিল ১৫, ২০১৫ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ এপ্রিল ১৩, ২০১৫ 
  51. "Game of Thrones Episodes: EP510: Mother's Mercy"। Westeros.org। জুন ১৭, ২০১৫ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ জুন ১৮, ২০১৫ 
  52. Noble, Matt (আগস্ট ১৮, ২০১৫)। "'Game of Thrones' director Jeremy Podeswa dishes Jon Snow death, teases season six (Exclusive Video)"। GoldDerby। এপ্রিল ৩, ২০১৬ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ আগস্ট ২১, ২০১৫ 
  53. হিবার্ড, জেমস (মে ২৪, ২০১৬)। "George R. R. Martin revealed 3 huge shocks to Game of Thrones producers"Entertainment Weekly। আগস্ট ২১, ২০১৬ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ মে ২৪, ২০১৬ 
  54. Vineyard, Jennifer (মে ৫, ২০১৬)। "Why It's a Misconception That Game of Thrones Has Gone 'Off-Book'"Vulture। আগস্ট ২১, ২০১৬ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ মে ২৪, ২০১৬ 
  55. উদ্ধৃতি ত্রুটি: অবৈধ <ref> ট্যাগ; seasons 7 and 8 নামের সূত্রের জন্য কোন লেখা প্রদান করা হয়নি
  56. উদ্ধৃতি ত্রুটি: অবৈধ <ref> ট্যাগ; HBO confirms নামের সূত্রের জন্য কোন লেখা প্রদান করা হয়নি
  57. উদ্ধৃতি ত্রুটি: অবৈধ <ref> ট্যাগ; s7 renewed নামের সূত্রের জন্য কোন লেখা প্রদান করা হয়নি
  58. "Shows A-Z - game of thrones on hbo"The Futon Critic। আগস্ট ১৬, ২০১৭ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ এপ্রিল ৪, ২০১৭ 
  59. হিবার্ড, জেমস (জুলাই ৩০, ২০১৬)। "Game of Thrones: HBO confirms season 8 will be last"Entertainment Weekly। সেপ্টেম্বর ১, ২০১৬ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ মার্চ ১৩, ২০১৭ 
  60. Shepherd, Jack (অক্টোবর ২৩, ২০১৭)। "Game of Thrones season 8 filming looks to be underway as cast members spotted in Belfast"The Independent। সংগ্রহের তারিখ অক্টোবর ২৪, ২০১৭ 
  61. প্যাটেন, ডমিনিক (জানুয়ারি ১৩, ২০১৯)। "'Game Of Thrones' Final Season Debut Date Revealed By HBO With New Tease"Deadline Hollywood। সংগ্রহের তারিখ জানুয়ারি ১৪, ২০১৯ 
  62. রুটস, কিম্বারলি (নভেম্বর ১৩, ২০১৮)। "'Game of Thrones' Season 8 to Premiere in April 2019"TVLine। সংগ্রহের তারিখ নভেম্বর ১৩, ২০১৮ 
  63. "Shows A-Z - game of thrones on hbo"The Futon Critic। সংগ্রহের তারিখ জানুয়ারি ১৫, ২০১৯ 
  64. গ্রেগরি, মাটিল্ডা (জুলাই ২৩, ২০১০)। "Is A Game of Thrones the most eagerly anticipated TV show ever?"দ্য গার্ডিয়ান (ইংরেজি ভাষায়)। লন্ডন। নভেম্বর ২০, ২০১১ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১ সেপ্টেম্বর ২০১৭ 
  65. কলিন্স, স্কট (৮ আগস্ট ২০১০)। "With 'Game of Thrones,' HBO is playing for another 'True Blood'"লস অ্যাঞ্জেলেস টাইমস (ইংরেজি ভাষায়)। আগস্ট ২১, ২০১৬ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১ সেপ্টেম্বর ২০১৭ 
  66. "Game of Thrones: Season 1 (2011)" (ইংরেজি ভাষায়)। রটেন টম্যাটোস। আগস্ট ২৩, ২০১৫ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১ সেপ্টেম্বর ২০১৭ 
  67. "Game of Thrones: Season 1" (ইংরেজি ভাষায়)। মেটাক্রিটিক। জুলাই ১৬, ২০১৭ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১ সেপ্টেম্বর ২০১৭ 
  68. "Game of Thrones: Season 2 (2012)" (ইংরেজি ভাষায়)। রটেন টম্যাটোস। আগস্ট ২১, ২০১৫ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১ সেপ্টেম্বর ২০১৭ 
  69. "Game of Thrones: Season 2" (ইংরেজি ভাষায়)। মেটাক্রিটিক। আগস্ট ১৯, ২০১৭ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১ সেপ্টেম্বর ২০১৭ 
  70. "Game of Thrones: Season 3 (2013)" (ইংরেজি ভাষায়)। রটেন টম্যাটোস। আগস্ট ২১, ২০১৫ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১ সেপ্টেম্বর ২০১৭ 
  71. "Game of Thrones: Season 3" (ইংরেজি ভাষায়)। মেটাক্রিটিক। আগস্ট ১৯, ২০১৭ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১ সেপ্টেম্বর ২০১৭ 
  72. "Game of Thrones: Season 4" (ইংরেজি ভাষায়)। রটেন টম্যাটোস। আগস্ট ২১, ২০১৫ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১ সেপ্টেম্বর ২০১৭ 
  73. "Game of Thrones: Season 4" (ইংরেজি ভাষায়)। মেটাক্রিটিক। এপ্রিল ৪, ২০১৪ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১ সেপ্টেম্বর ২০১৭ 
  74. "Game of Thrones: Season 5 (2015)" (ইংরেজি ভাষায়)। রটেন টম্যাটোস। আগস্ট ২৬, ২০১৫ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১ সেপ্টেম্বর ২০১৭ 
  75. "Game of Thrones: Season 5" (ইংরেজি ভাষায়)। মেটাক্রিটিক। এপ্রিল ১৭, ২০১৫ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১ সেপ্টেম্বর ২০১৭ 
  76. "Game of Thrones: Season 6 (2016)" (ইংরেজি ভাষায়)। রটেন টম্যাটোস। এপ্রিল ২৪, ২০১৬ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১ সেপ্টেম্বর ২০১৭ 
  77. "Game of Thrones: Season 6" (ইংরেজি ভাষায়)। মেটাক্রিটিক। এপ্রিল ২৬, ২০১৬ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১ সেপ্টেম্বর ২০১৭ 
  78. "Game of Thrones: Season 7" (ইংরেজি ভাষায়)। রটেন টম্যাটোস। এপ্রিল ৩০, ২০১৬ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১ সেপ্টেম্বর ২০১৭ 
  79. "Game of Thrones: Season 7" (ইংরেজি ভাষায়)। মেটাক্রিটিক। জুলাই ২২, ২০১৭ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১ সেপ্টেম্বর ২০১৭ 
  80. "Thrones lands on tons of top TV shows of 2011 lists" (ইংরেজি ভাষায়)। WinterIsComing.net। ডিসেম্বর ২৩, ২০১১। মার্চ ৫, ২০১৩ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১ সেপ্টেম্বর ২০১৭ 
  81. Martin, George R. R. (ডিসেম্বর ২১, ২০১১)। "Plaudits for GAME OF THRONES" (ইংরেজি ভাষায়)। Not A Blog। আগস্ট ২১, ২০১৬ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ডিসেম্বর ২৩, ২০১১ 
  82. "Game of Thrones: The best of 2012" (ইংরেজি ভাষায়)। WinterIsComing.net। ডিসেম্বর ২৭, ২০১২। এপ্রিল ১১, ২০১৪ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১ সেপ্টেম্বর ২০১৭ 
  83. গিলবার্ট, ম্যাথু (এপ্রিল ১৫, ২০১১)। "Fantasy comes true with HBO's 'Game of Thrones'"দ্য বোস্টন গ্লোব (ইংরেজি ভাষায়)। মার্চ ৪, ২০১৬ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১ সেপ্টেম্বর ২০১৭ 
  84. McNamara, Mary (১৫ এপ্রিল ২০১১)। "Swords, sex and struggles"লস অ্যাঞ্জেলেস টাইমস (ইংরেজি ভাষায়)। আগস্ট ২১, ২০১৬ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১ সেপ্টেম্বর ২০১৭ 
  85. পাসকিন, উইলা (মার্চ ২৯, ২০১২)। "Bloody, bloody "Game of Thrones""স্যালন (ইংরেজি ভাষায়)। মার্চ ২৯, ২০১২ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১ সেপ্টেম্বর ২০১৭ 
  86. রুশ, ম্যাট (১৫ এপ্রিল ২০১১)। "Roush Review: Grim Thrones Is a Crowning Achievement"টিভি গাইড (ইংরেজি ভাষায়)। আগস্ট ২১, ২০১৪ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১ সেপ্টেম্বর ২০১৭ 
  87. "The Tywin and Arya Show"রোলিং স্টোন (ইংরেজি ভাষায়)। ১৫ মে ২০১২। ২১ আগস্ট ২০১৬ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১ সেপ্টেম্বর ২০১৭ 
  88. "Complete List of Recipients of the 71st Annual Peabody Awards" (ইংরেজি ভাষায়)। পিবডি পুরস্কার। এপ্রিল ৪, ২০১২। জুন ১, ২০১২ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১ সেপ্টেম্বর ২০১৭ 
  89. "'101 Best Written TV Series Of All Time' From WGA/TV Guide: Complete List"ডেডলাইন (ইংরেজি ভাষায়)। ৩ জুন ২০১৩। সংগ্রহের তারিখ ৩ মার্চ ২০১৯ 
  90. "'101 Best Written TV Series Of All Time' From WGA/TV Guide: Complete List"ডেডলাইন (ইংরেজি ভাষায়)। ৩ জুন ২০১৩। সংগ্রহের তারিখ ৩ মার্চ ২০১৯ 
  91. "The X-Files - Hollywood's 100 Favorite TV Shows"দ্য হলিউড রিপোর্টার (ইংরেজি ভাষায়)। ১৬ সেপ্টেম্বর ২০১৫। সংগ্রহের তারিখ ৩ মার্চ ২০১৯ 
  92. "The 50 Best TV Shows Ever"এম্পায়ার (ইংরেজি ভাষায়)। ১৫ জুন ২০১৬। সংগ্রহের তারিখ ৩ মার্চ ২০১৯ 
  93. শেফিল্ড, রব (২১ সেপ্টেম্বর ২০১৬)। "100 Greatest TV Shows of All Time"রোলিং স্টোন (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ৩ মার্চ ২০১৯ 

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]