গেম অব থ্রোনস

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
গেম অব থ্রোনস
গেম অব থ্রোনস শিরোনাম কার্ড.jpg
ধরণ
  • ফ্যান্টাসি
  • নাট্য ধারাবাহিক
নির্মাতা
অভিনয়েচরিত্র তালিকা
কণ্ঠ প্রদানকারীরামিন জাওয়াদি
উদ্বোধনী থিম"মূল শীর্ষ গান"
কম্পোজাররামিন জাওয়াদি
প্রস্তুতকারক দেশযুক্তরাষ্ট্র
মূল ভাষাইংরেজি
মরশুমের সংখ্যা
পর্বের সংখ্যা৬৭ (পর্বের সংখ্যা)
নির্মাণ
নির্বাহী প্রযোজক
অবস্থান
  • আইসল্যান্ড
  • উত্তর আয়ারল্যান্ড
  • কানাডা
  • ক্রোয়েশিয়া
  • স্কটল্যান্ড
  • মাল্টা
  • মরক্কো
  • যুক্তরাষ্ট্র
  • স্পেন
দৈর্ঘ্য৫০–৮০ মিনিট
প্রোডাকশন কোম্পানি
  • টেলিভিশন ৩৬০
  • গ্রোক! টেলিভিশন
  • জেনারেটর এন্টারটেইনমেন্ট
  • স্টার্টলিং টেলিভিশন
  • বিগহেড লিটলহেড
পরিবেশকওয়ার্নার ব্রস. টেলিভিশন ডিস্ট্রিবিউশন
সম্প্রচার
মূল চ্যানেলএইচবিও
ছবির ফরম্যাট১০৮০আই (16:9 এইচডিটিভি)
অডিও ফরম্যাটডলবি ডিজিটাল ৫.১
মূল প্রদর্শনীএপ্রিল ১৭, ২০১১ (২০১১-০৪-১৭) – বর্তমান
ক্রমধারা
সম্পর্কিত প্রদর্শনীআফটার দ্য থ্রোনস
থ্রোনক্যাস্ট
বহিঃসংযোগ
ওয়েবসাইট
নির্মাতার ওয়েবসাইট

গেম অব থ্রোনস (ইংরেজি: Game of Thrones, প্রতিবর্ণী. গেই্‌ম অভ্‌ থ্রোন্‌স, অনুবাদ 'সিংহাসনের খেলা') ডেভিড বেনিওফডি. বি. ওয়েস নির্দেশিত মার্কিন কাল্পনিক নাট্য ধারাবাহিক। এটি জর্জ আর. আর. মার্টিন রচিত ফ্যান্টাসি উপন্যাস ধারবাহিক আ সং অব আইস অ্যান্ড ফায়ার অবলম্বনে নির্মিত, যার প্রথম উপন্যাসটি হল আ গেম অব থ্রোনস। ধারাবাহিকটি আইসল্যান্ড, উত্তর আয়ারল্যান্ড, কানাডা, ক্রোয়েশিয়া, স্কটল্যান্ড, মাল্টা, মরক্কো, যুক্তরাষ্ট্র ও স্পেনে চিত্রায়িত হয়েছে। ধারাবাহিকটি ২০১১ সালের ১৭ এপ্রিল এইচবিও চ্যানেলে প্রথম প্রচারিত হয় এবং এর সপ্তম মৌসুম শেষ হয় ২৭ আগস্ট, ২০১৭। ধারাবাহিকটি ২০১৯ সালে অষ্টম মৌসুম দিয়ে শেষ হবে।[১]

ধারাবাহিকটি ২০১৫ ও ২০১৬ সালে অসাধারণ নাট্য ধারাবাহিক বিভাগে পুরস্কারসহ ৩৮টি প্রাইমটাইম এমি পুরস্কার লাভ করে, যা অন্য যে কোন টেলিভিশন ধারাবাহিকের চেয়ে বেশি। অন্যান্য পুরস্কারের মধ্যে রয়েছে শ্রেষ্ঠ নাট্য উপস্থাপনার জন্য ২০১২ থেকে ২০১৪ সালে তিনটি হুগো পুরস্কার, ২০১১ সালে একটি পিবডি পুরস্কার। এছাড়া ২০১২ এবং ২০১৫ থেকে ২০১৭ সালে ধারাবাহিকটি চারবার শ্রেষ্ঠ নাট্য টেলিভিশন ধারাবাহিকের জন্য গোল্ডেন গ্লোব পুরস্কারের মনোনয়ন লাভ করে। কুশীলবদের মধ্যে পিটার ডিংকলেজ তার টিরিয়ন ল্যানিস্টার চরিত্রের জন্য ২০১১ ও ২০১৫ সালে দুইবার নাট্য ধারাবাহিকে শ্রেষ্ঠ পার্শ্ব অভিনেতার জন্য প্রাইমটাইম এমি পুরস্কার ও ২০১২ সালে একবার গোল্ডেন গ্লোব পুরস্কার লাভ করেন। এছাড়া লিনা হিডি, এমিলিয়া ক্লার্ক, কিট হ্যারিংটন, মেইজি উইলিয়ামস তাদের স্ব-স্ব চরিত্রের জন্য প্রাইমটাইম এমি পুরস্কারের মনোনয়ন লাভ করেন।

পটভূমি[সম্পাদনা]

গেম অব থ্রোনস ধারাবাহিকটি আ সং অব আইস অ্যান্ড ফায়ার অবলম্বনে নির্মিত।[২][৩] কাল্পনিক ওয়েস্টেরস মহাদেশের সাত রাজ্যে এবং এসোস মহাদেশে এর ঘটনাবলি সংগঠিত হয়। ধারাবাহিকটিতে কয়েকটি অভিজাত পরিবারের মধ্যে আয়রন থ্রোন দখলের ও অন্যান্য পরিবারসমূহের এর থেকে স্বাধীনতা লাভের জন্য লড়াই দেখানো হয়েছে। অন্যদিকে আরেকটি বড় ধরনের ভয় হল বরফাচ্ছন্ন উত্তরাংশ ও পূর্বে এসোস মহাদেশ।[৪]

বিষয়বস্তু[সম্পাদনা]

ধারাবাহিকটি মূলত এতে প্রদর্শিত মধ্যযুগীয় বাস্তবতার জন্য প্রশংসিত হয়েছে।[৫][৬] জর্জ আর. আর. মার্টিন গল্পটিতে জাদু ও জাদুকর সম্বলিত সমকালীন কল্পনাধর্মী গল্পের চেয়ে যুদ্ধ, রাজনৈতিক ষড়যন্ত্র ও চরিত্র সম্বলিত ঐতিহাসিক কল্পকাহিনী হিসেবে রূপ দান করেন। তিনি মনে করেন মহাকাব্যিক কাল্পনিক ধাঁচে জাদুর পরিমিত ব্যবহার থাকা উচিত।[৭][৮][৯] মার্টিন বলেন "মানব সভ্যতার ইতিহাসে সত্যিকারের ভয়ের কারণ ওর্ক বা অন্ধকার নয়, বরং আমরা নিজেরাই।"[১০]

কাল্পনিক ধরনের একটি সাধারণ বিষয়বস্তু হল ভাল ও মন্দের দ্বন্দ্ব। মার্টিন বলেন এটা বাস্তব জীবনের অবস্থা তুলে ধরে না।[১১] বাস্তব জীবনের ব্যক্তি-বিশেষের ভাল ও মন্দের সামর্থের সাথে মিল রেখে মার্টিন এ থেকে মুক্তির পথ খুঁজেছেন এবং চরিত্রের পরিবর্তন এনেছেন।[১২] এই ধারাবাহিকটি দর্শকদের বিভিন্ন চরিত্রাবলি তাদের নিজেদের দৃষ্টিকোণ থেকে দেখার সুযোগ দিয়েছে এবং যাদের খল চরিত্রে ভাবা হচ্ছে তাদেরকেও তার দিক স্পষ্ট করার সুযোগ দিয়েছে।[৯][১৩] নির্মাতা বেনিওফ বলেন, "জর্জ এতে তিক্ত বাস্তবতা থেকে শুরু করে উচ্চমাত্রার কল্পনার প্রতিফলন ঘটিয়েছেন। তিনি সাদাকালো পৃথিবীতে ধূসর সুরের পরিচয় করিয়ে দিয়েছেন।[৯]

প্রথমদিকের মৌসুমগুলোতের আ সং অব আইস অ্যান্ড ফায়ার বই হতে অনুপ্রাণিত হয়ে কয়েকটি মূল চরিত্রকে নিয়মিতভাবে মেরে ফেলা হত, এবং একে দর্শকের মাঝে উদ্বিগ্নতা সৃষ্টি বলে আখ্যায়িত করা হয়।[১৪] পরের মৌসুমগুলোতে সমালোচকগণ দেখেন যে নির্দিষ্ট কিছু চরিত্র "প্লট আর্মার" সৃষ্টি করেছে, যা এই ধারাবাহিকটিকে প্রচলিত অন্যান্য ধারাবাহিক থেকে বেশি কিছু করে তুলেছে।[১৪] এছাড়া ধারাবাহিকটিতে যুদ্ধে প্রচুর পরিমাণ মৃত্যুর চিত্র তুলে ধরা হয়েছে।[১৫][১৬]

কুশীলব ও চরিত্র[সম্পাদনা]

এই ধারাবাহিকের প্রধান চরিত্রসমূহ হলঃ

লর্ড এডার্ড "নেড" স্টার্ক (শন বিন) স্টার্ক পরিবারের প্রধান। এই পরিবারের সদস্যরা মূল গল্পে সর্বত্র বিরাজমান। নেড ও তার স্ত্রী ক্যাটলিন স্টার্কের (মিশেল ফেয়ারলি) পাঁচ সন্তান। বড় পুত্র রব স্টার্ক (রিচার্ড ম্যাডেন), তার পরে কন্যা সানসা স্টার্ক (সোফি টার্নার), আরিয়া স্টার্ক (মেইজি উইলিয়ামস), ব্রান স্টার্ক (আইজ্যাক হেম্পস্টিড-রাইট) এবং সর্বকনিষ্ঠ রিকন স্টার্ক (আর্ট পার্কিনসন)। নেডের অবৈধ সন্তান জন স্নো (কিট হ্যারিংটন) এবং তার বন্ধু স্যামওয়েল টার্লি (জন ব্র্যাডলি) লর্ড কমান্ডার জেওর মোরমন্টের (জেমস কসমো) অধীনে নাইট্‌স ওয়াচে দ্বায়িত্ব পালন করে। পরে স্নো উইন্টারফেলের রাজা এবং স্যাম সিটাডেলে দ্বায়িত্বরত। প্রাচীরের উত্তরে বসবাসকারী ওয়াইল্ডলিংসের মধ্যে রয়েছে গিলি (হান্নাহ মুরে), যে পরে স্যামের স্ত্রী, এবং যোদ্ধাদের মধ্যে রয়েছে টরমুন্ড জায়ান্টসবেন (ক্রিস্টোফার হিভজু) এবং ইগ্রিত (রোজ লেসলি)।[১৭]

স্টার্ক পরিবারের অন্যান্য সদস্যরা হলেন নেডের রক্ষী থিয়ন গ্রেজয় (আলফি অ্যালেন), তার সামন্ত রুজ বোল্টন (মাইকেল ম্যাকএলহাটন), বোল্টনের অবৈধ পুত্র রামসি বোল্টন (ইউয়ান রিওন)। রবের প্রেমিকা ও স্ত্রী তালিসা মাইগার (উনা চ্যাপলিন), আরিয়ার বন্ধু কামারের শিক্ষানবিশ এবং রবার্টের অবৈধ পুত্র গেন্ড্রি (জো দেম্পসি) ও গুপ্তহন্তা জাকেন হগার (টম অলাসচিহা), এবং ক্যাটলিন ও পরে সানসার রক্ষী নারী যোদ্ধা টার্থের ব্রিয়ান (গোয়েন্ডোলিন ক্রিস্টি)।[১৭]

রাজধানী কিংস ল্যান্ডিংয়ের চরিত্রগুলোর মধ্যে রয়েছে নেডের বন্ধু রাজা বরার্ট ব্যারাথিয়ন (মার্ক অ্যাডি) এবং রাণী সার্সি ল্যানিস্টার (লিনা হিডি), যে তার জমজ ভাই স্যার জেমি ল্যানিস্টার (নিকোলাই কোস্টা-ওয়াল্ডাউ) তার প্রেমিক রূপে গ্রহণ করে। রাণী সার্সি তার ছোট ভাই বামনাকৃতির টিরিয়ন ল্যানিস্টারকে (পিটার ডিংকলেজ) ঘৃণা করে। টিরিয়ন জফ্রি রাজা হলে তার প্রতিনিধি নির্বাচিত হয় এবং পরে জফ্রিকে হত্যার দায়ে এসোসে পালিয়ে যায় ও সেখানে রাণী ডিনেরিসের প্রতিনিধিত্ব করে। ল্যানিস্টারদের পিতা লর্ড টাইউইন ল্যানিস্টার (চার্লস ড্যান্স) ল্যানিস্টারদের প্রধান। সার্সির দুই ছেলে জফ্রি ব্যারাথিয়ন (জ্যাক গ্লিসন) এবং টমেন ব্যারাথিয়ন (ডিন-চার্লস চ্যাপম্যান)। জফ্রির রক্ষী মুখ-পোড়া যোদ্ধা স্যান্ডর "দ্য হাউন্ড" ক্লিগেন (ররি ম্যাককেন) এবং তার ভাই নাইট গ্রেগর "দ্য মাউন্টেন" ক্লিগেন (হাফথোর ইউলিউস পয়োঁসন)।[১৭]

রাজা রবার্টের পরামর্শদাতা পরিষদের মধ্যে রয়েছে পিটার "লিটলফিঙ্গার" বেলিশ (এইডান গিলেন), নপুংসক গোয়েন্দা ভ্যারিস (কনলেথ হিল)। রবার্টের ভাই স্ট্যানিস ব্যারাথিয়ন (স্টিফেন ডিলান) এবং তার পরামর্শদাতা বিদেশি অগ্নি পূজারি মেলিসান্দ্রে (কারিস ভান হাউটেঁ) ও সাবেক চোরাকারবারি ও বর্তমান নাইট স্যার ডেভস সিওর্থ (লিয়াম কানিংহাম)। ধন্যাট্য টাইরেল পরিবারের মার্জারি টাইরেল (নাটালি ডোরমার)। রাজধানীর ধর্মীয় নেতাদের প্রধান হাই স্প্যারো (জনাথন প্রাইস)।[১৭]

অন্যদিকে মূল রাজবংশের শেষ রাজার দুই সন্তান ভিসেরিস টার্গেরিয়ান (হ্যারি লয়েড) এবং ডিনেরিস টার্গেরিয়ান (এমিলিয়া ক্লার্ক) তাদের জীবন নিয়ে পালাচ্ছে এবং সিংহাসন পুনঃপ্রাপ্তির জন্য দল গঠন করছে। ডিনেরিসের যাযাবর ডথোরাকি সর্দার খাল ড্রগোর (জ্যাসন মোমোয়া) সাথে বিবাহ হয়। ড্রগোর মৃত্যুর পর তার চিতা থেকে সে তিনটি ড্রাগন নিয়ে বের হলে ডথোরাকিরা তার অনুগামী হয়। ডিনেরিসের অনুগামীদের মধ্যে আরও উল্লেখযোগ্য ব্যক্তিবর্গ হল রাজধানী থেকে নির্বাসিত নাইট স্যার জোরাহ মোরমন্ট (ইয়ান গ্লেন), নাথের বহুভাষী মিসান্দেই (নাথালি এমানুয়েল) এবং যোদ্ধা দারিও নাহারিস (মিখেল হুইসমান)।[১৭]

মূল্যায়ন[সম্পাদনা]

গেম অব থ্রোনস শুরুর পূর্বে থেকেই ভক্তমহলের মধ্যে প্রত্যাশিত একটি ধারাবাহিক ছিল,[১৮][১৯] এবং প্রচারের পরে ইতিবাচক সমালোচনা লাভ করেছে ও ব্যবসাসফল হয়েছে। দ্য গার্ডিয়ান অনুসারে, ২০১৪ সালে এটি ছিল টেলিভিশনে "সর্ববৃহৎ নাটক" এবং "সর্বাধিক আলোচিত অনুষ্ঠান"।[৫]

সমালোচকদের প্রতিক্রিয়া[সম্পাদনা]

মৌসুম সমালোচকদের প্রতিক্রিয়া
রটেন টম্যাটোস মেটাক্রিটিক
৮৯% (৩৩টি পর্যালোচনা)[২০] ৮০ (২৮টি পর্যালোচনা)[২১]
৯৬% (৩৩টি পর্যালোচনা)[২২] ৯০ (২৬টি পর্যালোচনা)[২৩]
৯৭% (৪৪টি পর্যালোচনা)[২৪] ৯১ (২৫টি পর্যালোচনা)[২৫]
৯৭% (৫০টি পর্যালোচনা)[২৬] ৯৪ (২৯টি পর্যালোচনা)[২৭]
৯৫% (৫২টি পর্যালোচনা)[২৮] ৯১ (২৯টি পর্যালোচনা)[২৯]
৯৬% (২৯টি পর্যালোচনা)[৩০] ৭৩ (৯টি পর্যালোচনা)[৩১]
৯৬% (৩৪টি পর্যালোচনা)[৩২] ৭৭ (১২টি পর্যালোচনা)[৩৩]

গেম অব থ্রোনস সমালোচকদের দ্বারা প্রশংসিত হয়েছে, যদিও এই ধারাবাহিকে প্রদর্শিত নগ্নতা ও খুনাখুনির দৃশ্যসমূহ সমালোচিত হয়েছে। এই ধারাবাহিকের বিভিন্ন মৌসুমসমূহ বিভিন্ন প্রকাশনার বার্ষিক "সেরা" তালিকায় স্থান করে নিয়েছে, এর মধ্যে উল্লেখযোগ্য হল দ্য ওয়াশিংটন পোস্ট (২০১১), টাইম (২০১১ ও ২০১২) এবং দ্য হলিউড রিপোর্টার (২০১২)।[৩৪][৩৫][৩৬]

অভিনয়শিল্পীদের অভিনয়ও প্রশংসিত হয়েছে। পিটার ডিংকলেজ "সুন্দর, নীতিগতভাবে দ্ব্যর্থতাসম্পন্ন, ও আত্ম-সচেতন"[৩৭] টিরিয়ন ল্যানিস্টার চরিত্রটির জন্য প্রাইমটাইম এমি পুরস্কারগোল্ডেন গ্লোব পুরস্কার লাভ করেন। লস অ্যাঞ্জেলেস টাইমসের ম্যারি ম্যাক্‌নামারা ২য় মৌসুমে টিরিয়ন কেন্দ্রীয় চরিত্রে চলে আসার পর বলেন "এটি বিভিন্ন দিক থেকে গেম অব থ্রোনস ডিঙ্কলিজের শো"।[৩৮][৩৯] কয়েকজন সমালোচক অভিনেত্রী[৩৮] ও শিশুশিল্পীদের অভিনয়কেও তুলে ধরেছেন।[৪০] ১ম মৌসুমে চৌদ্দ বছর বয়সী মেইজি উইলিয়ামস আরিয়া স্টার্ক চরিত্রে অভিনয় করেন। এটি ছিল তার অভিনীত প্রথম কাজ। পরে তিনি ২য় মৌসুমে প্রবীণ অভিনেতা চার্লস ড্যান্সের (টাইউইন ল্যানিস্টার) সাথে সমান তালে অভিনয় করেন।[৪১]

পুরস্কার ও মনোনয়ন[সম্পাদনা]

গেম অব থ্রোনস শুরু হওয়ার পর থেকে ৩৮টি প্রাইমটাইম এমি পুরস্কার, ৫টি স্ক্রিন অ্যাক্টরস গিল্ড পুরস্কার, এবং একটি পিবডি পুরস্কার লাভ করে।[৪২]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. Hibberd, James (জুন ২, ২০১৭)। "Game of Thrones: HBO clarifies prequels, final seasons plan"এন্টারটেইনমেন্ট উয়িকলি (ইংরেজি ভাষায়)। জুন ২, ২০১৭ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১ সেপ্টেম্বর ২০১৭ 
  2. Fleming, Michael (জানুয়ারি ১৬, ২০০৭)। "HBO turns 'Fire' into fantasy series"ভ্যারাইটি (ইংরেজি ভাষায়)। মে ১৬, ২০১২ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১০ সেপ্টেম্বর ২০১৭ 
  3. Cogman, Bryan (নভেম্বর ৬, ২০১৪)। Inside HBO's Game of Thrones (ইংরেজি ভাষায়)। Orion। পৃষ্ঠা 4। আইএসবিএন 978-1-4732-1040-0। নভেম্বর ৬, ২০১৬ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১০ সেপ্টেম্বর ২০১৭ 
  4. Martin, George R. R. (জুলাই ১৬, ২০১০)। "From HBO" (ইংরেজি ভাষায়)। Not a Blog। মার্চ ৭, ২০১৬ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১০ সেপ্টেম্বর ২০১৭ 
  5. Hughes, Sarah (মার্চ ২২, ২০১৪)। "'Sopranos meets Middle-earth': how Game of Thrones took over our world"দ্য গার্ডিয়ান (ইংরেজি ভাষায়)। সেপ্টেম্বর ২০, ২০১৬ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১ সেপ্টেম্বর ২০১৭ 
  6. Orr, David (আগস্ট ১২, ২০১১)। "Dragons Ascendant: George R. R. Martin and the Rise of Fantasy"দ্য নিউ ইয়র্ক টাইমস (ইংরেজি ভাষায়)। মার্চ ২৮, ২০১৩ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১৮ সেপ্টেম্বর ২০১৭ 
  7. Richards, Linda (জানুয়ারি ২০০১)। "January interview: George R.R. Martin"জানুয়ারি ম্যাগাজিন (ইংরেজি ভাষায়)। এপ্রিল ৪, ২০১২ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১৮ সেপ্টেম্বর ২০১৭ 
  8. Itzkoff, Dave (এপ্রিল ১, ২০১১)। "His Beautiful Dark Twisted Fantasy: George R. R. Martin Talks Game of Thrones"দ্য নিউ ইয়র্ক টাইমস (ইংরেজি ভাষায়)। এপ্রিল ২, ২০১১ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১৮ সেপ্টেম্বর ২০১৭ 
  9. Cogman, Bryan (নভেম্বর ৬, ২০১৪)। Inside HBO's Game of Thrones (ইংরেজি ভাষায়)। Orion। পৃষ্ঠা 7। আইএসবিএন 978-1-4732-1040-0। নভেম্বর ৬, ২০১৬ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১৮ সেপ্টেম্বর ২০১৭ 
  10. Itzkoff, Dave (মে ২, ২০১৪)। "For 'Game of Thrones,' Rising Unease Over Rape's Recurring Role"দ্য নিউ ইয়র্ক টাইমস (ইংরেজি ভাষায়)। আগস্ট ২১, ২০১৬ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১৮ সেপ্টেম্বর ২০১৭ 
  11. Gevers, Nick (ডিসেম্বর ২০০০)। "Sunsets of High Renown – An Interview with George R. R. Martin" (ইংরেজি ভাষায়)। Infinity Plus। এপ্রিল ৪, ২০১২ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১৮ সেপ্টেম্বর ২০১৭ 
  12. "The battle between good and evil reigns – Martin talks about new series Game of Thrones"দ্য গার্ডিয়ান (ইংরেজি ভাষায়)। জুন ১১, ২০১১। এপ্রিল ২, ২০১৬ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১৮ সেপ্টেম্বর ২০১৭ 
  13. Baum, Michele Dula (এপ্রিল ১১, ২০০১)। "A Song of Ice and Fire – Author George R.R. Martin's fantastic kingdoms" (ইংরেজি ভাষায়)। সিএনএন। এপ্রিল ৪, ২০১২ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১৮ সেপ্টেম্বর ২০১৭ 
  14. Fowler, Matt (আগস্ট ২৭, ২০১৭)। "Game of Thrones: "The Dragon and the Wolf" Review" (ইংরেজি ভাষায়)। আইজিএন। সংগ্রহের তারিখ ১৮ সেপ্টেম্বর ২০১৭ 
  15. Kirschling, Gregory (নভেম্বর ২৭, ২০০৭)। "George R.R. Martin answers your questions"এন্টারটেইনমেন্ট উয়িকলি (ইংরেজি ভাষায়)। এপ্রিল ৪, ২০১২ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১৮ সেপ্টেম্বর ২০১৭ 
  16. Boulaziz, Louisa (সেপ্টেম্বর ১৩, ২০১৬)। "Game of Thrones is realistic"ইউনিভার্সিটাস (ইংরেজি ভাষায়)। মার্চ ২০, ২০১৭ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১৮ সেপ্টেম্বর ২০১৭ 
  17. "Game of Thrones: Cast" (ইংরেজি ভাষায়)। এইচবিও। সেপ্টেম্বর ১, ২০১৬ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১০ সেপ্টেম্বর ২০১৭ 
  18. Gregory, Mathilda (জুলাই ২৩, ২০১০)। "Is A Game of Thrones the most eagerly anticipated TV show ever?"দ্য গার্ডিয়ান (ইংরেজি ভাষায়)। London। নভেম্বর ২০, ২০১১ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১ সেপ্টেম্বর ২০১৭ 
  19. Colins, Scott (আগস্ট ৮, ২০১০)। "With 'Game of Thrones,' HBO is playing for another 'True Blood'"লস অ্যাঞ্জেলেস টাইমস (ইংরেজি ভাষায়)। আগস্ট ২১, ২০১৬ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১ সেপ্টেম্বর ২০১৭ 
  20. "Game of Thrones: Season 1 (2011)" (ইংরেজি ভাষায়)। রটেন টম্যাটোস। আগস্ট ২৩, ২০১৫ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১ সেপ্টেম্বর ২০১৭ 
  21. "Game of Thrones: Season 1" (ইংরেজি ভাষায়)। মেটাক্রিটিক। জুলাই ১৬, ২০১৭ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১ সেপ্টেম্বর ২০১৭ 
  22. "Game of Thrones: Season 2 (2012)" (ইংরেজি ভাষায়)। রটেন টম্যাটোস। আগস্ট ২১, ২০১৫ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১ সেপ্টেম্বর ২০১৭ 
  23. "Game of Thrones: Season 2" (ইংরেজি ভাষায়)। মেটাক্রিটিক। আগস্ট ১৯, ২০১৭ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১ সেপ্টেম্বর ২০১৭ 
  24. "Game of Thrones: Season 3 (2013)" (ইংরেজি ভাষায়)। রটেন টম্যাটোস। আগস্ট ২১, ২০১৫ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১ সেপ্টেম্বর ২০১৭ 
  25. "Game of Thrones: Season 3" (ইংরেজি ভাষায়)। মেটাক্রিটিক। আগস্ট ১৯, ২০১৭ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১ সেপ্টেম্বর ২০১৭ 
  26. "Game of Thrones: Season 4" (ইংরেজি ভাষায়)। রটেন টম্যাটোস। আগস্ট ২১, ২০১৫ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১ সেপ্টেম্বর ২০১৭ 
  27. "Game of Thrones: Season 4" (ইংরেজি ভাষায়)। মেটাক্রিটিক। এপ্রিল ৪, ২০১৪ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১ সেপ্টেম্বর ২০১৭ 
  28. "Game of Thrones: Season 5 (2015)" (ইংরেজি ভাষায়)। রটেন টম্যাটোস। আগস্ট ২৬, ২০১৫ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১ সেপ্টেম্বর ২০১৭ 
  29. "Game of Thrones: Season 5" (ইংরেজি ভাষায়)। মেটাক্রিটিক। এপ্রিল ১৭, ২০১৫ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১ সেপ্টেম্বর ২০১৭ 
  30. "Game of Thrones: Season 6 (2016)" (ইংরেজি ভাষায়)। রটেন টম্যাটোস। এপ্রিল ২৪, ২০১৬ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১ সেপ্টেম্বর ২০১৭ 
  31. "Game of Thrones: Season 6" (ইংরেজি ভাষায়)। মেটাক্রিটিক। এপ্রিল ২৬, ২০১৬ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১ সেপ্টেম্বর ২০১৭ 
  32. "Game of Thrones: Season 7" (ইংরেজি ভাষায়)। রটেন টম্যাটোস। এপ্রিল ৩০, ২০১৬ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১ সেপ্টেম্বর ২০১৭ 
  33. "Game of Thrones: Season 7" (ইংরেজি ভাষায়)। মেটাক্রিটিক। জুলাই ২২, ২০১৭ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১ সেপ্টেম্বর ২০১৭ 
  34. "Thrones lands on tons of top TV shows of 2011 lists" (ইংরেজি ভাষায়)। WinterIsComing.net। ডিসেম্বর ২৩, ২০১১। মার্চ ৫, ২০১৩ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১ সেপ্টেম্বর ২০১৭ 
  35. Martin, George R. R. (ডিসেম্বর ২১, ২০১১)। "Plaudits for GAME OF THRONES" (ইংরেজি ভাষায়)। Not A Blog। আগস্ট ২১, ২০১৬ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ডিসেম্বর ২৩, ২০১১ 
  36. "Game of Thrones: The best of 2012" (ইংরেজি ভাষায়)। WinterIsComing.net। ডিসেম্বর ২৭, ২০১২। এপ্রিল ১১, ২০১৪ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১ সেপ্টেম্বর ২০১৭ 
  37. Gilbert, Matthew (এপ্রিল ১৫, ২০১১)। "Fantasy comes true with HBO's 'Game of Thrones'"দ্য বোস্টন গ্লোব (ইংরেজি ভাষায়)। মার্চ ৪, ২০১৬ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১ সেপ্টেম্বর ২০১৭ 
  38. McNamara, Mary (এপ্রিল ১৫, ২০১১)। "Swords, sex and struggles"লস অ্যাঞ্জেলেস টাইমস (ইংরেজি ভাষায়)। আগস্ট ২১, ২০১৬ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১ সেপ্টেম্বর ২০১৭ 
  39. Paskin, Willa (মার্চ ২৯, ২০১২)। "Bloody, bloody "Game of Thrones""স্যালন (ইংরেজি ভাষায়)। মার্চ ২৯, ২০১২ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১ সেপ্টেম্বর ২০১৭ 
  40. Roush, Matt (এপ্রিল ১৫, ২০১১)। "Roush Review: Grim Thrones Is a Crowning Achievement"টিভি গাইড (ইংরেজি ভাষায়)। আগস্ট ২১, ২০১৪ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১ সেপ্টেম্বর ২০১৭ 
  41. "The Tywin and Arya Show"রোলিং স্টোন (ইংরেজি ভাষায়)। মে ১৫, ২০১২। আগস্ট ২১, ২০১৬ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১ সেপ্টেম্বর ২০১৭ 
  42. "Complete List of Recipients of the 71st Annual Peabody Awards" (ইংরেজি ভাষায়)। পিবডি পুরস্কার। এপ্রিল ৪, ২০১২। জুন ১, ২০১২ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১ সেপ্টেম্বর ২০১৭ 

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]