ক্লাইভ র‍্যাডলি

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
ক্লাইভ র‍্যাডলি
ব্যক্তিগত তথ্য
পূর্ণ নামক্লাইভ থর্নটন র‍্যাডলি
জন্ম (1944-05-13) ১৩ মে ১৯৪৪ (বয়স ৭৫)
হার্টফোর্ড, ইংল্যান্ড
ব্যাটিংয়ের ধরনডানহাতি
বোলিংয়ের ধরনলেগ ব্রেক
খেলোয়াড়ী জীবনের পরিসংখ্যান
প্রতিযোগিতা টেস্ট ওডিআই এফসি এলএ
ম্যাচ সংখ্যা ৫৫৯ ৪০৯
রানের সংখ্যা ৪৮১ ২৫০ ২৬,৪৪১ ১০,৪৭৬
ব্যাটিং গড় ৪৮.১০ ৮৩.৩৩ ৩৫.৪৪ ৩০.৫৪
১০০/৫০ ২/২ ১/১ ৪৬/১৩৯ ৭/৫৭
সর্বোচ্চ রান ১৫৮ ১১৭* ২০০ ১৩৩*
বল করেছে ২৭৮ ২৫
উইকেট
বোলিং গড় ২০.০০ ১৮.০০
ইনিংসে ৫ উইকেট
ম্যাচে ১০ উইকেট -
সেরা বোলিং ২/৩৮ ১/২
ক্যাচ/স্ট্যাম্পিং ৪/– –/– ৫১৬/– ১৩৮/–
উৎস: ইএসপিএনক্রিকইফো.কম, ২০ মার্চ ২০১৯

ক্লাইভ থর্নটন র‍্যাডলি, এমবিই (ইংরেজি: Clive Radley; জন্ম: ১৩ মে, ১৯৪৪) হার্টফোর্ডে জন্মগ্রহণকারী বিখ্যাত ও সাবেক ইংরেজ আন্তর্জাতিক ক্রিকেট তারকা।[১] ইংল্যান্ড ক্রিকেট দলের অন্যতম সদস্য ছিলেন তিনি। ১৯৭৮ সময়কালে স্বল্প সময়ের জন্যে ইংল্যান্ডের পক্ষে আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে অংশগ্রহণ করেছিলেন। ঘরোয়া প্রথম-শ্রেণীর ইংরেজ কাউন্টি ক্রিকেটে মিডলসেক্স ও নিউজিল্যান্ডীয় ক্রিকেট অকল্যাণ্ড দলের প্রতিনিধিত্ব করেছেন। দলে তিনি মূলতঃ ডানহাতি ব্যাটসম্যান হিসেবে খেলতেন। এছাড়াও, লেগ ব্রেক বোলিংয়ে পারদর্শীতা দেখিয়েছেন ‘র‍্যাডার্স’ ডাকনামে পরিচিত ক্লাইভ র‍্যাডলি

প্রথম-শ্রেণীর ক্রিকেট[সম্পাদনা]

১৯৬১ সালে মাইনর কাউন্টিতে নরফোকের পক্ষে ৮টি খেলায় অংশ নেন। এরপর ১৯৬২ সালে মিডলসেক্সের দ্বিতীয় একাদশে খেলেন। এ দলটিতে ১৯৯০ সাল পর্যন্ত অংশ নেন। অন্যদিকে ১৯৬৪ থেকে ১৯৮৭ সাল প্রথম একাদশের পক্ষে ৫২০টি প্রথম-শ্রেণীর খেলায় অংশ নিয়ে ৪৬টি শতরানের ইনিংস উপহার দেন। ব্যক্তিগত সর্বোচ্চ করেন ২০০। এছাড়াও, ১৯৮৪-৮৫ মৌসুমে নিউজিল্যান্ডীয় ক্রিকেটে অকল্যান্ড এইসের পক্ষে খেলেছিলেন।

বেশ কয়েকবছর মিডলসেক্সের দক্ষ ফিল্ডারের ভূমিকায় অবতীর্ণ হয়েছিলেন। মাইক ব্রিয়ারলি ইংল্যান্ডের দলনেতার ভূমিকায় অধিষ্ঠিত হলেও বেশ সুচারুভাবে তার নেতৃত্বের শূন্যতা পূরণে সক্ষমতা দেখিয়েছেন।

আন্তর্জাতিক ক্রিকেট[সম্পাদনা]

সমগ্র খেলোয়াড়ী জীবনে আটটি টেস্ট ও চারটি একদিনের আন্তর্জাতিকে অংশগ্রহণ করেছিলেন। প্রথম-শ্রেণীর ক্রিকেটে সংগৃহীত ৩৫.৪৪ ব্যাটিংয়ের গড়ের তুলনায় টেস্টের ৪৮.১০ গড় তুলনান্তে অনেক বেশী। তবে, বেশ বয়স নিয়ে তেত্রিশ বছর বয়সে টেস্ট ক্রিকেটে অভিষেক ঘটেছিল ৫ ফুট ১০ ইঞ্চি উচ্চতার অধিকারী ক্লাইভ র‍্যাডলি’র।[১] ১ ফেব্রুয়ারি, ১৯৭৮ তারিখে নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে টেস্ট ক্রিকেটে অভিষেক ঘটে ক্লাইভ র‍্যাডলি’র।

অকল্যাণ্ডে অনুষ্ঠিত নিজস্ব দ্বিতীয় টেস্টে দীর্ঘ ১১ ঘন্টা ক্রিজে অবস্থান করে ১৫৮ রানের ইনিংস খেলেছিলেন। এরপর পাকিস্তানের বিপক্ষে সিরিজের প্রথম টেস্টেও ১১৫ রান তুলেন। শেষ দুই টেস্টে ৫৯ ও ৭৭ রানের ইনিংস খেলেন। ফলশ্রুতিতে শীতকালে অস্ট্রেলিয়া গমনের জন্যে ইংরেজ দলের সদস্যরূপে মনোনীত হন।

বেশ দূর্ভাগ্যজনকভাবে ক্লাইভ র‍্যাডলি’র টেস্ট খেলোয়াড়ী জীবন স্বল্প সময়েই শেষ হয়ে যায়। ১৯৭৮-৭৯ মৌসুমে অস্ট্রেলিয়া গমন করেন। সিরিজের প্রথম টেস্টে মাথায় গুরুতর আঘাত পেলে এ ঘটনা ঘটে। স্বল্প কয়েকজন আন্তর্জাতিক ক্রিকেটারের অন্যতম হিসেবে সর্বশেষ একদিনের আন্তর্জাতিকে শতরান করার গৌরব অর্জন করেছিলেন। ১৯৭৮ সালে নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে এ শতরানটি করেছিলেন।

ঘরোয়া ক্রিকেটে অনবদ্য ক্রীড়াশৈলী প্রদর্শনের স্বীকৃতিস্বরূপ ১৯৭৯ সালে উইজডেন কর্তৃক অন্যতম বর্ষসেরা ক্রিকেটারের সম্মাননায় ভূষিত হন।[২]

অবসর[সম্পাদনা]

ক্রিকেট খেলা থেকে অবসর গ্রহণের পর ১৯৮৮ থেকে ১৯৯০ সময়কালে মিডলসেক্সের দ্বিতীয় একাদশ দলের কোচ হিসেবে দায়িত্ব পালন করেছিলেন। ১৯৯১ সালে ডন উইলসনের পরিবর্তে মেরিলেবোন ক্রিকেট ক্লাবের (এমসিসি) প্রধান কোচ হিসেবে নিযুক্ত হন। ২০০৯ সালে অবসর গ্রহণের পূর্ব-পর্যন্ত এ দায়িত্ব পালন করেছিলেন তিনি।[১] লর্ডসের সাথে ৪৮ বছর পার করার পর ক্লাইভ র‍্যাডলি অবসর নেন।

২০০৮ সালে ক্রিকেট খেলায় অসামান্য অবদানের স্বীকৃতিস্বরূপ নববর্ষের সম্মাননা হিসেবে এমবিই পদবীতে ভূষিত হন।[৩] এরপর এপ্রিল, ২০১৩ সালে মিডলসেক্স কাউন্টি ক্রিকেট ক্লাবের ১৪৯তম বার্ষিক সাধারণ সভায় দুই বছর মেয়াদে ২২শ সভাপতি হিসেবে ক্লাইভ র‍্যাডলিকে নির্বাচিত করা হয়। তিনি জিওফ নরিসের স্থলাভিষিক্ত হন।

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. Bateman, Colin (১৯৯৩)। If The Cap Fits। Tony Williams Publications। পৃষ্ঠা 136। আইএসবিএন 1-869833-21-X 
  2. "Wisden's Five Cricketers of the Year"ESPNcricinfoESPN। ২৩ মার্চ ২০১৫ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১৫ এপ্রিল ২০১৫ 
  3. Radley and Heyhoe-Flint honoured, Cricinfo, Retrieved on 29 December 2007

আরও দেখুন[সম্পাদনা]

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]