কেন হফ

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
কেন হফ
ব্যক্তিগত তথ্য
পূর্ণ নামকেনেথ উইলিয়াম হফ
জন্ম(১৯২৮-১০-২৪)২৪ অক্টোবর ১৯২৮
অবার্ন, নিউ সাউথ ওয়েলস, অস্ট্রেলিয়া
মৃত্যু২০ সেপ্টেম্বর ২০০৯(2009-09-20) (বয়স ৮০)
গ্ল্যাডস্টোন, কুইন্সল্যান্ড, অস্ট্রেলিয়া
ব্যাটিংয়ের ধরনডানহাতি
বোলিংয়ের ধরনডানহাতি মিডিয়াম-ফাস্ট
ভূমিকাবোলার
আন্তর্জাতিক তথ্য
জাতীয় পার্শ্ব
টেস্ট অভিষেক
(ক্যাপ ৮৭)
২৭ ফেব্রুয়ারি ১৯৫৯ বনাম ইংল্যান্ড
শেষ টেস্ট১৪ মার্চ ১৯৫৯ বনাম ইংল্যান্ড
খেলোয়াড়ী জীবনের পরিসংখ্যান
প্রতিযোগিতা টেস্ট এফসি
ম্যাচ সংখ্যা ২৮
রানের সংখ্যা ৬২ ৬২৪
ব্যাটিং গড় ৬২.০০ ১৬.৪২
১০০/৫০ -/- -/১
সর্বোচ্চ রান ৩১* ৯১
বল করেছে ৪৬২ ৭৭৯৬
উইকেট ১১৯
বোলিং গড় ২৯.১৬ ২০.৮৭
ইনিংসে ৫ উইকেট -
ম্যাচে ১০ উইকেট -
সেরা বোলিং ৩/৭৯ ৭/৪৩
ক্যাচ/স্ট্যাম্পিং ১/- ২৫/-
উৎস: ইএসপিএনক্রিকইনফো.কম, ১৪ সেপ্টেম্বর ২০২০
ফুটবল খেলোয়াড়ি জীবন
মাঠে অবস্থান গোলরক্ষক
জ্যেষ্ঠ পর্যায়*
বছর দল ম্যাচ (গোল)
গ্ল্যাডসভিল-রাইড
নর্থ শোর ইউনাইটেড
জাতীয় দল
১৯৪৮ অস্ট্রেলিয়া (০)
১৯৫৮ নিউজিল্যান্ড (০)
* শুধুমাত্র ঘরোয়া লীগে ক্লাবের হয়ে ম্যাচ ও গোলসংখ্যা গণনা করা হয়েছে

কেনেথ উইলিয়াম হফ (ইংরেজি: Ken Hough; জন্ম: ২৪ অক্টোবর, ১৯২৮ - মৃত্যু: ২০ সেপ্টেম্বর, ২০০৯) নিউ সাউথ ওয়েলসের অবার্ন এলাকায় জন্মগ্রহণকারী অস্ট্রেলীয় বংশোদ্ভূত নিউজিল্যান্ডীয় আন্তর্জাতিক ক্রিকেটার এবং নিউজিল্যান্ডীয় ও অস্ট্রেলীয় ফুটবলার ছিলেন।[১][২] নিউজিল্যান্ড ক্রিকেট দলের অন্যতম সদস্য ছিলেন তিনি। ১৯৫০-এর দশকের শেষদিকে অত্যন্ত সংক্ষিপ্ত সময়ের জন্যে নিউজিল্যান্ডের পক্ষে আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে অংশগ্রহণ করেছেন।

ঘরোয়া প্রথম-শ্রেণীর নিউজিল্যান্ডীয় ক্রিকেটে অকল্যান্ড ও নর্দার্ন ডিস্ট্রিক্টস এবং অস্ট্রেলীয় ক্রিকেটে নিউ সাউথ ওয়েলস কোল্টস দলের প্রতিনিধিত্ব করেন। দলে তিনি মূলতঃ ডানহাতি মিডিয়াম-ফাস্ট বোলার হিসেবে খেলতেন। এছাড়াও, ডানহাতে নিচেরসারিতে ব্যাটিং করতেন কেন হফ

প্রথম-শ্রেণীর ক্রিকেট[সম্পাদনা]

১৯৫৬-৫৭ মৌসুম থেকে ১৯৫৯-৬০ মৌসুম পর্যন্ত কেন হফের প্রথম-শ্রেণীর খেলোয়াড়ী জীবন চলমান ছিল। ডানহাতি ফাস্ট বোলার ও কার্যকর নিচেরসারির ব্যাটসম্যান ছিলেন কেন হফ।

সবমিলিয়ে ২৮টি প্রথম-শ্রেণীর ক্রিকেটে খেলায় অংশগ্রহণ করেন। অধিকাংশই নর্দার্ন ডিস্ট্রিক্টস ও অকল্যান্ডের পক্ষে খেলেছেন তিনি। ১৯৫৮-৫৯ মৌসুমে প্লাঙ্কেট শীল্ডে অন্য যে-কোন খেলোয়াড়ের তুলনায় সর্বাধিক উইকেট লাভের কৃতিত্ব প্রদর্শন করেন। ১২.১৩ গড়ে ৩৬ উইকেট পান। তন্মধ্যে, ওতাগোর বিপক্ষে খেলায় ৯৩ রান খরচায় ১১ ও ক্যান্টারবারির বিপক্ষে ১১০ রান খরচায় ১০ উইকেটের সন্ধান পেয়েছেন। ঐ প্রতিযোগিতায় তার দল শিরোপা জয় করেছিল। ১৯৫৯ সালে নিউজিল্যান্ডীয় ক্রিকেট অ্যালমেনাক কর্তৃক বর্ষসেরা দুইজন খেলোয়াড়ের অন্যতম হিসেবে মনোনীত হন।[৩]

১৯৫৯-৬০ মৌসুমে অকল্যান্ডের সদস্যরূপে ব্যক্তিগত সেরা বোলিং পরিসংখ্যান গড়েন। সেন্ট্রাল ডিস্ট্রিক্টসের বিপক্ষে খেলায় ১৪৬ রান খরচায় ১২ উইকেট পান। প্রথম ইনিংসে ৭/৪৩ ও ৫/১০৩ বোলিং পরিসংখ্যান গড়েন।

আন্তর্জাতিক ক্রিকেট[সম্পাদনা]

সমগ্র খেলোয়াড়ী জীবনে দুইটিমাত্র টেস্টে অংশগ্রহণ করেছেন কেন হফ। সবগুলো টেস্টই ইংল্যান্ডের বিপক্ষে খেলেছিলেন তিনি। ২৭ ফেব্রুয়ারি, ১৯৫৯ তারিখে ক্রাইস্টচার্চে সফরকারী ইংল্যান্ড দলের বিপক্ষে টেস্ট ক্রিকেটে অভিষেক ঘটে তার। এরপর, ১৪ মার্চ, ১৯৫৯ তারিখে অকল্যান্ডে একই দলের বিপক্ষে সর্বশেষ টেস্টে অংশ নেন তিনি।

এরপূর্বে ঐ বছরের শুরুতে দূর্ভাগ্যজনকভাবে তাকে ইংল্যান্ড গমনার্থে দলে রাখা হয়নি। ১৯৫৮-৫৯ মৌসুমে ইংল্যান্ডের বিপক্ষে দুই টেস্টে অংশ নিয়েছিলেন। সবমিলিয়ে টেস্টে ছয় উইকেট পেয়েছেন। অংশগ্রহণকৃত দুই টেস্টই তার প্রথম-শ্রেণীর ক্রিকেট খেলোয়াড়ী জীবনের সর্বশেষ ছিল। টেস্ট খেলোয়াড়ী জীবন স্বল্পস্থায়ী হলেও পূর্ণাঙ্গ খেলোয়াড়ী জীবনে সর্বাধিক ৬ উইকেট লাভে কোন ব্যাটসম্যানকেই কট আউটে বিদেয় করেননি তিনি।[৪]

ফুটবলে অংশগ্রহণ[সম্পাদনা]

ক্রিকেটের পাশাপাশি ফুটবল খেলায়ও দক্ষ ছিলেন তিনি। নিউজিল্যান্ডঅস্ট্রেলিয়ার পক্ষে ফুটবল খেলায় অংশ নিয়েছেন।[৫]

১৯৪৮ সালে অস্ট্রেলিয়ার জাতীয় দলের পক্ষে চারটি ফুটবল খেলায় অংশ নিয়েছিলেন। সবগুলোই নিউজিল্যান্ড দলের বিপক্ষে ছিল।[৬] ১৬ আগস্ট, ১৯৫৮ তারিখে নিউজিল্যান্ডের সদস্যরূপে ফুটবল খেলায় অভিষেক ঘটে তার। অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে ঐ খেলায় তার দল ৩-২ ব্যবধানে পরাভূত হয়েছিল।[৭][৮] পরের মাসে তিনি আরও চার খেলায় অংশ নেন।[২][৯] ১৪ সেপ্টেম্বর, ১৯৫৮ তারিখে তিনি তার সর্বশেষ এ-আন্তর্জাতিক খেলায় অংশ নেন। ঐ খেলায় তার দল নিউ ক্যালেডোনিয়াকে ২-১ ব্যবধানে পরাজতি করে।[৮]

২০ সেপ্টেম্বর, ২০০৯ তারিখে ৮০ বছর বয়সে কুইন্সল্যান্ডের গ্ল্যাডস্টোন এলাকায় কেন হফের দেহাবসান ঘটে।[১০]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "Ken Hough at Cricketarchive.com"। CricketArchive.com। ৬ জানুয়ারি ২০০৮ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১২ জুন ২০০৯ 
  2. "A-International Appearances - Overall"। The Ultimate New Zealand Soccer Website। ৭ অক্টোবর ২০০৮ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১৯ জুন ২০০৯ 
  3. Ken Hough
  4. Walmsley, Keith (২০০৩)। Mosts Without in Test Cricket। Reading, England: Keith Walmsley Publishing Pty Ltd। পৃষ্ঠা 457। আইএসবিএন 0947540067 .
  5. "Off-side – a cricketing XI that made strides in football"International Cricket Council। সংগ্রহের তারিখ ২১ জুন ২০১৮ 
  6. The Australian National Men’s Football Team: Caps And Captains। Football Federation Australia। 
  7. "Bob Pearce: Big game, big names"। NZ Herald। ২৩ নভে ২০০৭। 
  8. "A-International Lineups"। The Ultimate New Zealand Soccer Website। সংগ্রহের তারিখ ১৯ জুন ২০০৯ 
  9. "A-International Scorers - Overall"। The Ultimate New Zealand Soccer Website। ১৫ জুন ২০০৯ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১৯ জুন ২০০৯ 
  10. "Double international Ken Hough dies"Cricinfo। ESPN। ২২ সেপ্টেম্বর ২০০৯। সংগ্রহের তারিখ ২০০৯-০৯-২২ 

আরও দেখুন[সম্পাদনা]

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]