কেদারেশ্বর বন্দ্যোপাধ্যায়

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
কেদারেশ্বর বন্দ্যোপাধ্যায়
Professor Kedarshwar Banerjee original Image Vivek Kumar Pandey.jpg
কেদারেশ্বর বন্দ্যোপাধ্যায়, এলাহাবাদ বিশ্ববিদ্যালয়
জন্ম(১৯০০-০৯-১৫)১৫ সেপ্টেম্বর ১৯০০
স্থল (পাবনা), বিক্রমপুর ঢাকা (এখন বাংলাদেশে)
মৃত্যু৩০ এপ্রিল ১৯৭৫(1975-04-30) (বয়স ৭৪)
বারাসত, কলকাতা
জাতীয়তাভারতীয়
কর্মক্ষেত্রএক্স-রে ক্রিস্টালোগ্রাফিগ্রাফিক
প্রতিষ্ঠানএলাহাবাদ বিশ্ববিদ্যালয়, ভারত আবহাওয়া অধিদফতর, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়, এবং ইন্ডিয়ান অ্যাসোসিয়েশন ফর দ্য কালটিভেশন অব সায়েন্স
প্রাক্তন ছাত্রকলকাতা বিশ্ববিদ্যালয়
পরিচিতির কারণএক্স-রে ক্রিস্টালোগ্রাফিগ্রাফিক

কেদারেশ্বর বন্দ্যোপাধ্যায় (১৫ই সেপ্টেম্বর ১৯০০ - ৩০শে এপ্রিল ১৯৭৫) ছিলেন এক্স-রে ক্রিস্টালোগ্রাফার এবং কলকাতার ইন্ডিয়ান অ্যাসোসিয়েশন ফর দ্য কালটিভেশন অব সায়েন্সের পরিচালক।[১] তার কর্মজীবনের প্রথমদিকে তিনি নেপথালিন এবং অ্যানথ্রাসিনের কাঠামো নির্ধারণ করেছিলেন। ১৯৩১ সালে, তিনি স্যার উইলিয়াম হেনরি ব্র্যাগের সাথে কাজ করেছিলেন এবং স্ফটিক কাঠামো (ক্রিস্টাল স্ট্রাকচার) নির্ধারণের প্রথম প্রত্যক্ষ পদ্ধতি আবিষ্কার করেন। তিনি ১৯৪৩ থেকে ১৯৫২ সাল অবধি ইন্ডিয়ান অ্যাসোসিয়েশন ফর দ্য কালটিভেশন অব সায়েন্সের পদার্থবিজ্ঞানের অধ্যাপক ছিলেন এবং ১৯৫৯ থেকে, ১৯৬৫ সালে অবসর গ্রহণ অবধি, এই সংগঠনের পরিচালক ছিলেন। ১৯৫২ থেকে ১৯৫৯ সালের মধ্যে তিনি এলাহাবাদ বিশ্ববিদ্যালযয়ে পদার্থবিজ্ঞান বিভাগের প্রধান ছিলেন। ক্রিস্টালোগ্রাফিতে তার প্রচুর আগ্রহ ছিল এবং তার মৃত্যুর সাথে ভারত এক নামী শিক্ষককে হারায়। কে. ব্যানার্জি কলকাতার ইন্ডিয়ান অ্যাসোসিয়েশন ফর দ্য কাল্টিভেশন অব সায়েন্সের (আইএসিএস) স্যার চন্দ্রশেখর ভেঙ্কট রামনের গবেষণা দলের সাথে যোগ দেন। এটি ভারতের একটি শীর্ষস্থানীয় গবেষণা প্রতিষ্ঠান। তিনি আইএসিএস, ভারত আবহাওয়া অধিদফতর, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় এবং এলাহাবাদ বিশ্ববিদ্যালয়সহ বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানে কাজ করেছেন এবং অবশেষে ১৯৬৫ সালে কলকাতা আইএসিএসের পরিচালক হিসাবে অবসর গ্রহণ করেন। প্রফেসর বন্দ্যোপাধ্যায় হোমি জাহাঙ্গীর ভাবার কাছেও ক্রিস্টাল গবেষণার কয়েকটি বিষয় ব্যাখ্যা করেছিলেন (২১শে ডিসেম্বর ১৯৫৬)।[২][৩]

সম্মান এবং পুরস্কার[সম্পাদনা]

এলাহাবাদ বিশ্ববিদ্যালয় ২০০০ সালে শ্রী বন্দ্যোপাধ্যায়ের সম্মানার্থে কে. ব্যানার্জী সেন্টার অব অ্যাটমসফেরিক অ্যান্ড ওশান স্টাডিজ নামীয় একটি বায়ুমণ্ডলীয় এবং মহাসাগর বিজ্ঞান কেন্দ্র প্রতিষ্ঠা করা হয়।[৪]

তিনি জাতীয় বিজ্ঞান একাডেমী, ভারত এবং ভারতীয় বিজ্ঞান একাডেমীর সহঅধ্যাপক (ফেলো) নির্বাচিত হয়েছিলেন। তিনি ১৯৪৭ সালে ভারতীয় বিজ্ঞান কংগ্রেসে পদার্থ বিজ্ঞান গোষ্ঠীর বিভাগীয় সভাপতি, ১৯৫৮–১৯৬০ এনএএসসি এর উপ সভাপতি এবং ১৯৬৭ সালে এনএএসসি এর সাধারণ সভাপতি ছিলেন। তিনি ১৯৪৭-১৯৫১ সাল পর্যন্ত ইউনেস্কোর সাথে প্রথম জাতীয় সহযোগিতা কমিশনের সদস্য, ১৯৫৩-১৯৫৬ সাল পর্যন্ত ভারতের পরিকল্পনা কমিশনের বৈজ্ঞানিক উপদেষ্টা কমিটির সদস্য এবং বিভিন্ন জাতীয় পরীক্ষাগারগুলির পর্যালোচনা কমিটি এবং উপদেষ্টা বোর্ডের সদস্য ছিলেন। ১৯৪৮ সালে, তিনি ইন্টারন্যাশনাল ইউনিয়ন ক্রিস্টালোগ্রাফির উদ্বোধনী সম্মেলনে এবং এর সাধারণ অধিবেশনে 'সম্মানিত অতিথি' হিসাবে আমন্ত্রিত হয়েছিলেন।[৫][৬][৭]

ভারতের প্রথম ক্রিস্টালোগ্রাফার[সম্পাদনা]

বন্দ্যোপাধ্যায় ভারতে এক্স-রে ক্রিস্টালোগ্রাফিগ্রাফিকের গবেষণার ভিত্তি স্থাপন করেছিলেন। ১৯২৪ সালে, যখন সমগ্র বিশ্ব জুড়ে কেবল কয়েকটি স্ফটিক কাঠামো নির্ধারণ করা সম্ভব হয়েছিল, তখন নেপথালিন এবং অ্যানথ্র্যাসিন স্ফটিকের পারমাণবিক বিন্যাস নির্ধারণের বিষয়ে তার কাজ আন্তর্জাতিক মনোযোগ পেয়েছিল। বন্দ্যোপাধ্যায় ১৯৩০ সালে কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে ডিএসসি ডিগ্রি অর্জন করেছিলেন। উইলিয়াম হেনরি ব্র্যাগ, উইলিয়াম লরেন্স ব্র্যাগ, পল পিটার এওয়াল্ড, জন ডেসমন্ড বার্নাল, নিকোলে ভ্যাসিলিয়েভিচ বেলভ, জে. এম. রবার্টসন, কে. লনসডেল এবং মেলভিন আভ্রামি (যিনি পর্যায়ের উত্তরণে তার আভ্রামি সমীকরণের জন্য পরিচিত)-সহ তার সময়ের প্রায় সমস্ত নেতৃস্থানীয় ক্রিস্টালোগ্রাফারের সাথে তার ঘনিষ্ঠতা ছিল। ১৯৩৩ সালে, বন্দ্যোপাধ্যায় স্ফটিকগ্রাফিকের পর্যায়ের সমস্যাটির জন্য একটি নতুন পদ্ধতির প্রস্তাব করেছিলেন, যা কেবলমাত্র সেই সময়ের 'পরীক্ষা এবং ভ্রান্তি' (ট্রায়াল অ্যান্ড এরর) পদ্ধতিতে কাঠামো সমাধান পদ্ধতির বাইরেও কিছু করেছে তা নয়, আধুনিক যুগের ক্রিস্টালোগ্রাফির অত্যন্ত শক্তিশালী প্রত্যক্ষ পদ্ধতিগুলিও বর্ণনা করেছিল। ১৯৮৫ সালে ড. জেরোম কারলের নোবেল বক্তৃতায় প্রত্যক্ষ পদ্ধতিতে তার সিমনাল পেপার (প্রোস রয়াল সোসাইটি ১৯৩৩, ১৪১, ১৮৮) উদ্ধৃত হয়েছিল। কাঠামোগত এক্স-রে ক্রিস্টালোগ্রাফি ছাড়াও বন্দ্যোপাধ্যায়ের গবেষণা স্ফটিক পদার্থবিজ্ঞানের বিস্তৃত ক্ষেত্রকে অনুসরণ করেছিল। নিম্ন কোণে ছড়িয়ে পড়া, স্ফটিক থেকে ছড়িয়ে ছড়িয়ে ছিটিয়ে থাকা এক্স-রে এর তাপীয় বিচ্ছুরণ, তরল দ্বারা এক্স-রে এর বিচ্ছুরণ, পাট তন্তু এবং জৈব পলিমার, কয়লা এবং কাচের কাঠামো, এক্স-রে দ্বারা স্ফটিকগুলির স্থিতিস্থাপক স্থির করা, স্ফটিক জালকগুলির কম্পনমূলক বর্ণালীর তাত্ত্বিক মডেলিং এবং স্ফটিক আলোকবিজ্ঞানের কিছু বিষয়সহ বিভিন্ন ক্ষেত্রে তার গবেষণার অবদান আন্তর্জাতিক স্বীকৃতি পেয়েছিল। ভারতে বিজ্ঞানের অগ্রগতিতে সম্ভবত তার সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ অবদান সক্রিয় গবেষণার স্কুল তৈরি করা। তিনি যেখানেই গিয়েছিলেন, সেখানেই তরুণ, শক্তিশালী গবেষণা কর্মীদের তৈরী করে গিয়েছিলেন, যারা তার বৈজ্ঞানিক ঐতিহ্যের মশাল বহনকারী হয়ে উঠেছিল।[৮][৯][১০] .

ব্যক্তিগত জীবন[সম্পাদনা]

তিনি ১৯০০ সালের ১৫ সেপ্টেম্বর ঢাকার বিক্রমপুরের (বর্তমানে বাংলাদেশে) স্থল (পাবনা) তে বাঙালি ব্রাহ্মণ পরিবারে জন্মগ্রহণ করেছিলেন। তিনি ঢাকার জুবিলি স্কুল থেকে এবং স্নাতক, স্নাতকোত্তর এবং বিজ্ঞানের ডক্টরাল ডিগ্রি অর্জনের জন্য কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে পড়াশোনা করেছিলেন। তার গবেষণাপত্রটি ছিল "কঠিন এবং তরল পদার্থের কাঠামোর কিছু সমস্যা" ( সিএল ভি রমন)। তিনি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে (১৯৩৪-৪৩) পদার্থবিজ্ঞানের শিক্ষক, কলকাতার ইন্ডিয়ান অ্যাসোসিয়েশন ফর দ্য কাল্টিভেশন অব সায়েন্স এ পদার্থবিজ্ঞানের একজন অধ্যাপক (১৯৪৩-৬২), এলাহাবাদ বিশ্ববিদ্যালয় -এ পদার্থবিজ্ঞানের একজন অধ্যাপক (১৯৫২-৬৯), এবং ইন্ডিয়ান অ্যাসোসিয়েশন ফর দ্য কাল্টিভেশন অব সায়েন্স এর পরিচালক ছিলেন। ১৯৭৫ সালের ৩০শে এপ্রিল তিনি কলকাতার শহরতলির বারাসাতে মারা যান।[১০][১১][১২][১৩] বাংলাতে কেদারেশ্বরের অর্থ "ভগবান শিব"।

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. “K Banerjee is in list of Directors IACS” আর্কাইভইজে আর্কাইভকৃত ২ আগস্ট ২০১২ তারিখে. Professor Banerjee Indian Association of Cultivation of Science
  2. “Professor Kedareswar Banerjee – The Crystallographer (15 September 1900 – 30 April 1975)”. Professor Kedareswar Banerjee a brief Introduction from IUCR web page
  3. “Kedareswar Banerjee”. From IISc Bangore web page
  4. "Kedareswar Banerjee Centre of Atmospheric and Ocean Studies on Allahabad University"। ২ এপ্রিল ২০১৫ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১৭ অক্টোবর ২০১৯ 
  5. Professor Kedareswar Banerjee – The Crystallographer (15 September 1900 – 30 April 1975).
  6. Kedareswar Banerjee.
  7. K Banerjee
  8. “Professor Kedareswar Banerjee – The Crystallographer (15 September 1900 – 30 April 1975)”. Professor Kedareswar Banerjee's works from IUCR web page
  9. “Kedareswar Banerjee”. Professor Kedareswar Banerjee's works from IISc Bangore web page
  10. “ K Banerjee was fellow of IAS, Bangalore. Brief Biography
  11. “Banerjee, Kedareswar’s Biography on IUCR web page”. Kedareshwar Banerjee
  12. “K Banerjee pioneered the early development of the direct method of crystallography” ওয়েব্যাক মেশিনে আর্কাইভকৃত ৩ মার্চ ২০১৬ তারিখে. From Indian Association of Cultivation of Science official web pahe history
  13. “Prominent Personalities of Munshiganj (Bikrampur) District of Bangladesh: A Campaign for Public Exposure”. কেদারেশ্বর বন্দ্যোপাধ্যায় ছিলেন বাংলাদেশের মুন্সীগঞ্জ (বিক্রমপুর) জেলার।

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]