কেজিএফ: চ্যাপ্টার টু

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
কে.জি.এফ চ্যাপ্টার ২
কেজিএফ চ্যাপ্টার ২ এর পোস্টার.jpeg
প্রেক্ষাগৃহে মুক্তির পোস্টার
পরিচালকপ্রশান্ত নীল
প্রযোজকবিজয় কিরগণ্ডুর
রচয়িতাপ্রশান্ত নীল
শ্রেষ্ঠাংশে
সুরকাররবি বশরুর
চিত্রগ্রাহকভুবন গৌড়া
সম্পাদকউজ্জ্বল কুলকর্নি
প্রযোজনা
কোম্পানি
  • (কন্নড়)
  • হোম্বালে ফিল্মস
  • কেআরজি স্টুডিওস
  • জয়ান্ন ফিল্মস
  • (হিন্দি)
  • এক্সেল এন্টারটেইনমেন্ট
  • এএ ফিল্মস
  • (তেলুগু)
  • বারাহি চালনা চিত্রম
  • (তামিল)
  • ড্রিম ওয়ারিওর পিকচার্স
  • (মালয়ালম)
  • পৃথিবীরাজ প্রোডাকশন
মুক্তি
  • ১৪ এপ্রিল ২০২২ (2022-04-14)
দৈর্ঘ্য১৬৮ মিনিট
দেশভারত
ভাষাকন্নড়
নির্মাণব্যয়১০০ কোটি
আয়প্রা. ₹১,১৬৯.৭১ কোটি[১]

কে.জি.এফ: চ্যাপ্টার টু হলো প্রশান্ত নীল রচিত ও পরিচালিত এবং হাম্বল ফিল্মসের ব্যানারে নির্মিত কন্নড় ভাষার একশন, ক্রাইম ও গ্যাংস্টার ধর্মী ভারতীয় চলচ্চিত্র। এটি কেজিএফ: চ্যাপ্টার ওয়ান এর গল্পের ধারাবাহিকতায় নির্মিত। কেজিএফ : চ্যাপ্টার ওয়ান ২০১৮ সালে মুক্তি পেয়েছিল যাতে প্রধান চরিত্রে অভিনয় করেছিলেন যশ। এবং চ্যাপ্টার টু তে অভিনয়ের মাধ্যমে বলিউড অভিনেতা সঞ্জয় দত্তের কান্নাড় ভাষার চলচ্চিত্রে অভিষেক হয়। সিনেমাটির মূল চিত্রগ্রহণ ২০১৯ সালের মার্চ মাসে শুরু হয় এবং বার বার মুক্তির তারিখ পেছানোর পর অবশেষে ১৪ এপ্রিল, ২০২২ বড়পর্দায় আসে কেজিএফ চ্যাপ্টার ২। যা হিন্দি, মালায়ালাম, তামিল এবং তেলুগু ভাষায় ডাবিং করে মুক্তি দেওয়া হয়েছে। [২][৩][৪] সিনেমাটি রাজা কৃষ্ণাপ্পা বেরিয়া ওরফে রকি ভাইকে কেন্দ্র করে, যিনি নিজেকে কোলার গোল্ড ফিল্ডের রাজা হিসেবে প্রতিষ্ঠিত করার পর, প্রতিপক্ষ এবং সরকারি আধিকারিকদের বিরুদ্ধে তার আধিপত্য বজায় রাখতে সংগ্রাম করেছিলেন।

কাহিনী[সম্পাদনা]

সিনেমাটির প্লট অনুযায়ী, কে.জি.এফ : চ্যাপ্টার-১ এর ঘটনার বিবরণ দেওয়ার পর রাতেই আনন্দ ইঙ্গালাগি স্ট্রোক করেন। তার ছেলে বিজয়েন্দ্র তার জন্য K.G.F: চ্যাপ্টার ২-এর দায়িত্ব নেন।

রকি গাড়ুড়ার একমাত্র উত্তরাধিকারী বিরাটকে হত্যা করে এবং গুরু পান্ডিয়ান, অ্যান্ড্রুস, রাজেন্দ্র দেশাই এবং কমলের ক্ষোভের জন্য কোলার গোল্ড ফিল্ডস (K.G.F) এর রাজা হিসেবে দায়িত্ব নেয়।  রকি সিনেমার নায়িকা রীনাকে জিম্মি করে এবং কামালকে হত্যা করেন।  তিনি ৮টি রিজার্ভ মাইনে কাজ শুরু করার নির্দেশ জারি করেন।  রকির জনপ্রিয়তা সিবিআই অফিসার কান্নেগান্তি রাঘবনের দৃষ্টি আকর্ষণ করে।  কিছু কেন্দ্রীয় মন্ত্রী, কেজিএফ-এর প্রতি বিরক্ত হয়ে তৎকালীন বিরোধী দলীয় নেত্রী রমিকা সেনকে ক্ষমতায় আনতে ডিওয়াইএসএস-সমর্থিত সরকারের বিরুদ্ধে অনাস্থা প্রস্তাবের পরিকল্পনা করে।  ইতিমধ্যে আধিরা, যাকে মৃত বলে ধরে নেওয়া হয়েছিল, একটি ফাঁড়িতে সমস্ত রক্ষীদের পুনরুত্থিত করে এবং হত্যা করে।  রকিকে কেজিএফ-এর বাইরে আনার জন্য, অ্যান্ড্রু রীনাকে বাইরে প্রলুব্ধ করতে রাজেন্দ্র দেশাই খুন হয়েছেন এমন সংবাদ টিভিতে প্রচার করে এবং রীনা কেজিএফ থেকে বাইরে বের হওয়ার সময় জন তাকে ধরে ফেলে। অধীরা উপস্থিত হয়ে রকিকে গুলি করে কিন্তু তাকে হত্যা করে না।  রকি সুস্থ হয়ে ওঠে কিন্তু বুঝতে পারে যে আধিরা’র লোকেরা তার বের হওয়ার সমস্ত পথ বন্ধ করে দিয়েছে।

ইতিমধ্যে, শেট্টি পশ্চিম উপকূল জুড়ে অ্যান্ড্রুজের অন্যান্য অধস্তনদের সাথে সম্পর্ক স্থাপন করে এবং রকির সহযোগীদের নির্মূল করে।  তারাও ইনায়েত খলিলের সঙ্গে যোগ দেয়।  রীনার সাথে আহত রকি দুবাই যান খলিলের সাথে স্বর্ণ চোরাচালানের লেনদেনের জন্য, কিন্তু খলিলের ইতিমধ্যেই শেট্টির সাথে চুক্তি হয়ে গেছে।  রকির সহযোগীরা শেট্টির সহযোগীদের হত্যা করে এবং ওয়েস্টার্ন কোস্ট পুনরুদ্ধার করে এবং খলিল রকির সাথে ডিল করে এবং তাকে একে-৪৭ ও আরও কয়েকটি অস্ত্র বিক্রি করে।  অধিরার দোসররা স্বর্ণের চোরাচালান মনে করে রকির ট্রাকে অতর্কিত হামলা চালায়।  রকি এবং তার দল তাদের নতুন অর্জিত অস্ত্র দিয়ে ট্রাক থেকে বের হয়ে অধিরার দোসরদের হত্যা করে।  অধীর আহত হয় কিন্তু রকি তাকে সতর্ক করে দেয়।  এদিকে রকির দোসররা ভোটের বিরুদ্ধে মন্ত্রীদের হুমকি দেয় এবং অনাস্থা প্রস্তাব ব্যর্থ হয়।  রকি শেঠিকে হত্যা করে, বোম্বেতে নিয়ন্ত্রণ লাভ করে।  পান্ডিয়ান রকিকে রামিকা সেনের ক্রমবর্ধমান উচ্চতা সম্পর্কে সতর্ক করে কিন্তু তিনি তাকে উপেক্ষা করেন।রকির জন্য অনুভূতি তৈরি হয়।

তিন বছর পর ১৯৮১ সালে, রামিকা সেন ভারতীয় সাধারণ নির্বাচনে জয়ী হন এবং প্রধানমন্ত্রী হন।  রাঘবন তাকে কেজিএফ-এর পরিস্থিতি সম্পর্কে অবহিত করার পরে, তিনি সমস্ত রাজ্যের সীমানা বন্ধ করে দেন এবং রকির গুদামগুলিতে অভিযান চালানোর জন্য বিভিন্ন সিবিআই কর্মকর্তাদের অনুমোদন করেন।  একজন তরুণ ইঙ্গালাগি রকির গোয়েন্দাদের দ্বারা গুপ্তচরবৃত্তি করতে গিয়ে ধরা পড়ে, কিন্তু রকি তার সততা দেখে মুগ্ধ হয়।  সিবিআই তাদের অভিযানে ৪০০ গ্রাম সোনার বার ছাড়া কিছুই পায়নি।  রকি এটি একটি থানা থেকে উদ্ধার করে এবং একাই একটি ডষ্ক দিয়ে থানাটির উপর হামলা চালায়।

রকি K.G.F থেকে সমস্ত রপ্তানি বন্ধ করে দিয়ে সোনা মজুত করা শুরু করে।  অ্যান্ড্রুস রকিকে হত্যা করার জন্য আধীরাকে অনুরোধ করে।  রকির নির্দেশে সহযোগীরা তার পিতার সন্ধান করে, একজন মাতাল যিনি তার পরিবার পরিত্যাগ করেছিলেন এবং রকি তার মায়ের কবরের তত্ত্বাবধায়ক তার পিতাকে অভিষিক্ত করেন।  রীনার সাথে তার বিয়েও হয়।  রকি রামিকা সেনের সাথে দেখা করে এবং তাকে একটি ফাইল দেয় যা অর্থ পাচারে তার জড়িত থাকার বিষয়টি প্রকাশ করে। কিন্তু তিনি এটি বিবেচনা করতে পারেন না কারণ, তার দলের প্রায় ২০০ সদস্য দুর্নীতিতে জড়িত ছিলেন।

আধিরা কেজিএফের কাছে একটি গোপন পথের তথ্য পায় এবং অ্যান্ড্রুজকে জানায়।  আধিরা, অ্যান্ড্রুস, দায়া, জন এবং তাদের দল খলিলের আর্মিদের নিয়ে কেজিএফ আক্রমণ করে।  ঠিক যেমন রীনা রকির কাছে তার গর্ভাবস্থার কথা ঘোষণা করে, অধিরা তাকে মারাত্মকভাবে আঘাত করে।  পরবর্তী সংঘর্ষে, রকির বাহিনী অ্যান্ড্রুস এবং দায়াকে হত্যা করে, আর রকি জন এবং অধীরাকে হত্যা করে।  রকি এবং তার দোসররা পার্লামেন্টে সেনের বক্তৃতা অবস্থায় আক্রমণ করে এবং পান্ডিয়ানকে হত্যা করে। কেননা পান্ডিয়ানই গরুড়ার উপর আধীরকে আক্রমণের জন্য মঞ্চস্থ করেছিলেন এবং পরে অধিরাকে গরুড়ার উপর আক্রমণের কথা আগেই জানিয়েছিলেন। তিনিই সেই ব্যক্তি যিনি অধিরার গোপন পথ দেখিয়েছিলেন, অ্যান্ড্রুজকে রকি নিয়োগের জন্য প্ররোচিত করেছিলেন, দিল্লিতে অনাস্থা প্রস্তাবের নাটক মঞ্চস্থ করেছিলেন এবং শেট্টিকে রকির বিশ্বাস অর্জনের জন্য খলিলের সাথে বাহিনীতে যোগ দিতে রাজি করেছিলেন।[৫]

রামিকা সেন রকির বিরুদ্ধে একটি অবৈধ ও অলিখিত মৃত্যু পরোয়ানা জারি করেন এবং ভারতীয় সেনাবাহিনীকে দায়িত্ব প্রদান করেন।  রকি কেজিএফ খালি করে এবং তার ক্যাশ সোনা নিয়ে একটি জাহাজে করে রওয়ানা দেয়। নৌবাহিনী তাড়া দেয় কিন্তু রকি আত্মসমর্পণ করতে অস্বীকার করে। রামিকা তার ক্ষমতার বলে কেজিএফ এবং তার জাহাজে বোমা মারার আদেশ জারি করেন।  রকি নিহত হয় এবং সোনাসহ সাগরে ডুবে যায়, যা পর্যন্ত হারিয়ে যায়। জাহাজে রওয়ানা দেওয়ার আগে, রকি সমস্ত কেজিএফ কর্মীদের জন্য একটি নতুন উপনিবেশ তৈরি করেছিল। রকির গোয়েন্দাদের হাতে আটক হওয়া সেই তরুণ সাংবাদিক ইঙ্গালাগি রকির উপর একটি বই লেখার সিদ্ধান্ত নেযন।

রকির জাহাজে হামলার পর রকির উপর কোনো বোমা পড়েনি, তাকে সমুদ্রে ডুবতে দেখা যায়। গভীর সাগরে ডুবে যাওয়া রকি নিখোঁজের তিন মাস পরে একটি মধ্য-ক্রেডিট দৃশ্যে, একজন সিআইএ কর্মকর্তা ১৯৭৮-১৯৮১ সালের মধ্যে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র এবং ১৬টি দেশে রকির অপরাধ তালিকাভুক্ত একটি ফাইল রামিকা সেনের কাছে হস্তান্তর করেন। বর্তমান সময়ে, টেলিভিশন চ্যানেলের পিয়ন আইসিইওতে চিকিৎসাধীন আনন্দ ইঙ্গালাগির লাইব্রেরিতে কেজিএফ চ্যাপ্টার-৩ এর খসড়া দেখতে পান। যা দেখে ধারণা করা হচ্ছে আগামী সিজনে কেজিএফ চ্যাপ্টার-৩ আনতে যাচ্ছেন পরিচালক প্রশান্ত নীল।

অভিনয়ে[সম্পাদনা]

১ম পর্ব[সম্পাদনা]

২০১৮ সালে এই চলচ্চিত্রটির প্রথম পর্ব কেজিএফ: চ্যাপটার ওয়ান নির্মিত হিয়েছিল।

সংগীত[সম্পাদনা]

ছবিটির সঙ্গীত পরিচালনা করেছেন রবি বসরুর।  মিউজিক স্বত্বের মালিক লাহারি মিউজিক এবং টি-সিরিজ[৬] ব্যাঙ্গালোরে বাসরুর নতুন সংস্কার করা রেকর্ডিং স্টুডিওতে এপ্রিল ২০১৯-এ ফিল্মের মিউজিক সেশন শুরু হয়েছিল।

বক্স অফিস[সম্পাদনা]

গত ১৪ এপ্রিল ‘কেজিএফ: চ্যাপ্টার ২’ মুক্তি পেয়েছে। আর মাত্র চারদিনেই এটি আয় করে নিয়েছে ৬০০ কোটি টাকারও বেশি! বক্স অফিসে অবিশ্বাস্য রকমের ব্যবসা করছে ‘কেজিএফ ২’। মুক্তির প্রথম দিন এটি আয় করে ১৬৫ কোটি ৫০ লাখ রুপি। এরপরের তিনদিনে যথাক্রমে আয় ১৩৯ কোটি ২৫ লাখ, ১১৫ কোটি ৮ লাখ ও ১৩২ কোটি ১৩ লাখ রুপি। চারদিন শেষে বিশ্বব্যাপী সিনেমাটির আয় ৫৫১ কোটি ৮৩ লাখ রুপি। বাংলাদেশি টাকায় যার পরিমাণ প্রায় ৬২২ কোটি।

বক্স অফিস বিশ্লেষক রমেশ বালা জানান, ১৫ এপ্রিল থেকে ১৭ এপ্রিল পর্যন্ত বিশ্বব্যাপী আয়ে দ্বিতীয় অবস্থানে রয়েছে ‘কেজিএফ: চ্যাপ্টার ২’। প্রথম স্থানে রয়েছে হলিউডের ‘ফ্যান্টাস্টিক বিস্ট’। বলাই বাহুল্য, ভারতের একটি আঞ্চলিক সিনেমা হয়েও কেজিএফ টক্কর দিচ্ছে হলিউডকে।[৭]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "'KGF: Chapter 2' box office collection day 28: Yash starrer earns Rs.1169.71 cr, becomes highest-grossing film overseas post-pandemic"টাইমস অব ইন্ডিয়া। ১২ মে ২০২২। সংগ্রহের তারিখ ১৩ মে ২০২২ 
  2. "The story of KGF is fresh and special for Indian cinema: Yash"The New Indian Express 
  3. "Kannada star Yash optimistic about upcoming action-period drama 'KGF'"Devdiscourse। ২২ ফেব্রুয়ারি ২০২২ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১৭ এপ্রিল ২০২২ 
  4. "১৪ এপ্রিল বড়পর্দায় আসছে 'কেজিএফ চ্যাপ্টার ২"। https://bengali.abplive.com (bd ভাষায়)। ২০২২-০২-২২।  |ওয়েবসাইট= এ বহিঃসংযোগ দেয়া (সাহায্য);
  5. "KGF 2 Machine Gun: KGF 2-এ রকির মেশিনগান ৭১ বছর ধরে বিশ্বে দাপিয়েছে"Aaj Tak বাংলা। সংগ্রহের তারিখ ২০২২-০৪-২১ 
  6. Hungama, Bollywood। "K.G.F – Chapter 2 Cast List | K.G.F – Chapter 2 Movie Star Cast | Release Date | Movie Trailer | Review- Bollywood Hungama" (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২০২২-০৪-২৭ 
  7. https://www.bd24live.com/bangla/465110/  |শিরোনাম= অনুপস্থিত বা খালি (সাহায্য)