কুয়েলাপ দুর্গ

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
সরাসরি যাও: পরিভ্রমণ, অনুসন্ধান
কুয়েলাপ দুর্গ
Kuelap - Août 2007 - 05.jpg
দুর্গপ্রাকারের চিত্র
অবস্থান  পেরু
লুইয়া প্রদেশ, আমাজোনাস অঞ্চল
ধরন বসতি
ইতিহাস
প্রতিষ্ঠিত খ্রিস্টীয় ষষ্ঠ শতাব্দী
পরিত্যক্ত ১৫৩২-১৫৭০
সময়কাল প্রাককলম্বীয় পেরু
সংস্কৃতি চাচাপোয়া সংস্কৃতি

কুয়েলাপ দুর্গ (স্পেনীয় - Kuélap বা Cuélap) হল উত্তর পেরুর লুইয়া প্রদেশে আন্দিজ পর্বতমালার উচ্চ নদী উপত্যকা উতকুবাম্বায় অবস্থিত একটি প্রাচীন দুর্গ। প্রাককলম্বীয় যুগের এই দুর্গটি এই অঞ্চলের সুপ্রাচীন চাচাপোয়া সংস্কৃতির অবদান। সাধারণভাবে ধরা হয় এই দুর্গটির নির্মাণকার্য শুরু হয়েছিল ৮০০ খ্রিস্টাব্দ নাগাদ ও ১৩০০ খ্রিস্টাব্দ পর্যন্ত এই নির্মাণকার্য চলেছিল। তবে সাম্প্রতিক গবেষণায় ইঙ্গিত পাওয়া গেছে যে এই দুর্গ হয়তো বা আরও প্রাচীন।

সমুদ্রপৃষ্ঠ থেকে এই দুর্গের উচ্চতা প্রায় ২৯০০ মিটার। এর অবস্থান একটি পর্বতপৃষ্ঠের উপর। ৩০০রও বেশি পৃথক পৃথক বাড়িকে ঘিরে দীর্ঘ ও উচ্চ প্রস্তর নির্মিত প্রাচীর দিয়ে এই দুর্গটি গড়ে উঠেছে। এর দৈর্ঘ্য প্রায় ৬০০ মিটার ও প্রস্থ ১১০ মিটার। ঐতিহাসিকরা ধারণা করেন যে উয়ারিদের হাত থেকে আত্মরক্ষার প্রয়োজনেই এই বিশাল দুর্গটি তৈরি করা হয়েছিল।[১] কিন্তু এখানে যুদ্ধবিগ্রহের তেমন কোনও প্রত্নতাত্ত্বিক প্রমাণ এখনও পর্যন্ত পাওয়া যায়নি।

এই অঞ্চলে স্পেনীয় বিজয়ের পরপরই ১৫৩২ থেকে ১৫৭০ খ্রিস্টাব্দের মধ্যে দুর্গটি পরিত্যক্ত হয়। ১৮৪৩ খ্রিস্টাব্দে এই দুর্গটির ধ্বংসস্তূপ পুনরাবিষ্কৃত হয়।

দুর্গ[সম্পাদনা]

সাধারণভাবে স্বীকৃত ধারণা হল এই যে দুর্গটি ৮০০ খ্রিস্টাব্দ নাগাদ নির্মাণ শুরু হয় এবং ১৩০০ খ্রিস্টাব্দ পর্যন্ত এটি ধাপে ধাপে নির্মিত হয়। ১৮৪৩ খ্রিস্টাব্দে চাচাপোয়াদের বিচারক দন খুয়ান ক্রিসোস্তোমো নিয়েতো দুর্গটি পুনরাবিষ্কার করেন। আবিষ্কৃত ধ্বংসস্তূপটির দৈর্ঘ্য উত্তরদক্ষিণে ৫৮০ মিটার ও পূর্বপশ্চিমে ১১০ মিটার। এর প্রাচীরের উচ্চতা স্থানে স্থানে এমনকী ২১ মিটার, তবে গড়ে এই প্রাকার ১৯ মিটার উঁচু। একমাত্র যেদিকে এর খাড়া পাহাড় নেমে গেছে, সে'দিকে এই প্রাচীর অনুপস্থিত।

প্রবেশপথ[সম্পাদনা]

দুর্গের একটি মূল প্রবেশপথ; পথের সঙ্কীর্ণতা লক্ষণীয়।
দুর্গের তিনটি মূল প্রবেশপথের একটির উপর থেকে নেওয়া ছবি।

দুর্গটির মধ্যে প্রবেশের তিনটি প্রবেশপথ আবিষ্কৃত হয়েছে - তারমধ্যে দু'টি পূর্বদিকে, অর্থাৎ দুর্গটির সামনের দিকে ও তৃতীয়টি পশ্চিমদিকের দেওয়ালে। কিন্তু এই প্রবেশপথগুলি সবক'টিই যথেষ্ট উঁচু ও সঙ্কীর্ণ, যাতে একসাথে একজনের বেশি সেখান দিয়ে প্রবেশ করা সম্ভব না হয়। এর মধ্যে মূল প্রবেশপথটি এমনভাবেই নির্মিত যে যদি কোনও শত্রু সে' পথে প্রবেশ করতে চেষ্টা করে, তবে তাকে প্রথমেই এমন একটি উঁচু অংশের সম্মুখীন হতে হবে যেখান থেকে তাকে সহজেই আবার বাইরে ছুঁড়ে ফেলে দেওয়া সম্ভব।[২]

দুর্গের অভ্যন্তর[সম্পাদনা]

কুয়েলাপ দুর্গমধ্যস্থ বিভিন্ন স্তর ও তাতে অবস্থিত বাড়ির ধ্বংসস্তূপ

দুর্গটির আরও বৈশিষ্ট্য হল এই যে বাইরের প্রাকারে ঘেরা সমগ্র অংশটির মধ্যে অনেকগুলি স্তর বা প্ল্যাটফর্ম আবিষ্কৃত হয়েছে। এইসব স্তরগুলিতে মোট ৫৫০টি নির্মাণের অবশেষ আবিষ্কৃত হয়েছে। মাত্র ৫টি বাদে (যেগুলি কিছুটা চৌকোনা) এগুলির সবগুলিই গোলাকৃতি। এদের মধ্যে ৩০০ থেকে ৪০০টি পৃথক পৃথক বাড়ি বলে ধারণা করা হয়ে থাকে। বাড়িগুলি ছিল গোলাকৃতি, যাদের শুধুমাত্র ভিতটুকুই এখন অবশিষ্ট আছে। কিছু কিছু ক্ষেত্রে কিছু দেওয়ালের অংশও এখনও পর্যন্ত টিকে আছে; এগুলি প্রায় ৫০ সেন্টিমিটার পুরু ও কখনও কখনও এমনকী ২ মিটার পর্যন্ত উঁচু; এই অংশগুলি বেশিরভাগই খোদাই'এর কাজ দ্বারা অলংকৃত। চাচাপোয়াদের সংস্কৃতি ও বাড়ি তৈরির নিয়মকানুন সম্পর্কে এখনও পর্যন্ত যতটুকু জানা গেছে তার উপর ভিত্তি করে ধারণা করা হয়, এর নীচের স্তরে নির্মিত বাড়িগুলি ছিল সাধারণ মানুষের জন্য নির্দিষ্ট, অন্যদিকে উপরের স্তরের বাড়িগুলির বাসিন্দারা ছিল সম্ভবত মূলত অভিজাত শ্রেণির মানুষ। এই উপরের স্তরটি দুর্গের উত্তরপশ্চিম অংশে অবস্থিত ছিল ও সমগ্র অংশটি একটি ১১.৫ মিটার উঁচু দেওয়াল দিয়ে ঘেরা ছিল। এর ভেতরে প্রবেশের জন্য মাত্র দু'টি সঙ্কীর্ণ প্রবেশপথ দেখতে পাওয়া গেছে।[৩] এর থেকে ধারণা করা হয় যে এই পুয়েব্লো আলতো (স্পেনীয় - Pueblo alto অর্থাৎ উঁচু বসতি) বা উপরের স্তরের বাসিন্দারা ছিল সামরিক বাহিনীর সদস্য। নীচের স্তরের বাড়িগুলি ছিল তুলনায় সাধারণ। বাড়িগুলিতে প্রায়শই মাটির নীচেও একটি করে কুঠুরি ছিল। তবে বাড়িগুলির যেটুকু অবশেষ আবিষ্কৃত হয়েছে, তাতে সেগুলির আভ্যন্তরীন পরিকল্পনা, অর্থাৎ খাবার ঘর, শোবার ঘর বা রান্না করার স্থান কীরকম ছিল - সে' সম্বন্ধে আমাদের ধারণা এখনও পর্যন্ত খুব স্পষ্ট নয়। দুর্গের একেবারে মধ্যবর্তী অঞ্চলে পুয়েব্লো আলতোর মধ্যে একটি চৌকোনা বাড়ির অস্তিত্ব খুঁজে পাওয়া গেছে, যার নির্মাণশৈলী কিছুটা ইনকাদের মতো, চাচাপোয়াদের সাধারণ নির্মাণশৈলীর মতো চোঙাকৃতি নয়। ধারণা করা হয় এটি ছিল সমাজের সর্বোচ্চস্তরের নেতার জন্য নির্দিষ্ট। এর কাছাকাছিই আরও তিনটি বাড়ির ধ্বংসাবশেষ খুঁজে পাওয়া গেছে; এগুলিও চৌকোনা ও আয়তাকার। এই বিশেষ বাড়িগুলি অপেক্ষাকৃত পরবর্তী যুগের, সম্ভবত এই অঞ্চলে ইনকাদের আধিপত্যের সমসাময়িক। বিশেষত এগুলি খনন করে এর তলে আরও পুরনো কিছু বসতির চিহ্ন খুঁজে পাওয়া যাওয়ায় ঐতিহাসিকদের এই ধারণা আরও দৃঢ় হয়।

নজরদারি স্তম্ভ[সম্পাদনা]

দুর্গটির উত্তর ও দক্ষিণ সীমানায় কয়েকটি নজরদারি স্তম্ভ বা ওয়াচ টাওয়ার আবিষ্কৃত হয়েছে। এগুলি থেকে আশেপাশের বিভিন্ন গ্রামগুলিকে পরিষ্কার দেখতে পাওয়া যায়। এর থেকে আন্দাজ পাওয়া যায়, আশেপাশের টিকে থাকা প্রাচীন বসতিগুলির কোন্‌ কোন্‌টির চাচাপোয়াদের আমলে অস্তিত্ব ছিল। তাছাড়া এখান থেকে চাচাপোয়াদের পবিত্র স্থান লা হালকাকেও পরিষ্কার দেখতে পাওয়া যায়। যতদূর জানতে পারা যায়, এখানেই প্রথম চাচাপোয়ারা তাদের বসতি স্থাপন করে।

এছাড়া পুয়েব্লো আলতোর উত্তর দিকে এল তোরেওন (স্পেনীয় - el torreón; অর্থাৎ 'স্তম্ভ') নামে একটি প্রস্তর নির্মিত ৭ মিটার উঁচু স্তম্ভ দেখতে পাওয়া গেছে। এর মধ্যে আবিষ্কৃত বিভিন্ন প্রস্তরনির্মিত অস্ত্রশস্ত্র থেকে আন্দাজ করা যায়, মূলত প্রতিরক্ষার কাজেই এটি ব্যবহৃত হত।[২][৩]

এল তিনতেরো[সম্পাদনা]

এল তিনতেরো

এল তিনতেরো (স্পেনীয় ভাষা - el tintero; অর্থাৎ 'অন্ধকূপ') বা তেমপ্লো মায়োর (স্পেনীয় ভাষা - templo mayor; অর্থাৎ 'মূল মন্দির') হল কুয়েলাপ দুর্গের এমন একটি রহস্য, যার সমাধান এখনও পর্যন্ত খুঁজে পাওয়া যায়নি। এই বিশেষ বাড়িটি ৫.৫ মিটার উঁচু, গোলাকৃতি, ১৩.৫ মিটার ব্যাসযুক্ত এবং দেখতে অনেকটা উলটো শঙ্কুর মতো। কিন্তু এর মধ্যবর্তী অংশ ফাঁকা। এর যে ধ্বংসাবশেষ আমাদের হাতে এসে পৌঁছেছে, তা থেকে এর গঠনাকৃতির একটা আন্দাজ পাওয়া গেলেও, ঠিক কী প্রণালীতে এটি তৈরি করা হয়েছিল তা এখনও পরিষ্কার নয়। কারণ, বাইরে থেকে বিভিন্ন দিক থেকে সাপোর্ট ছাড়া এরকম একটি আকৃতির নির্মাণের দাঁড়িয়ে থাকা কখনওই সম্ভবপর নয়। তাছাড়া ঠিক কী উদ্দেশ্যে এটি তৈরি হয়েছিল, সে' সম্বন্ধেও ঐতিহাসিকরা এখনও পর্যন্ত মূলত অন্ধকারে। এর উদ্দেশ্য সম্বন্ধে তাঁদের মধ্যে নানা ধারণা চালু আছে - যেমন, এটি হয়তো ছিল একটি কয়েদখানা, বন্দীদের উপর অত্যাচারের স্থল অথবা মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্তদের হত্যাস্থল। এর মধ্যের ফাঁপা অংশটি থেকে বেশ কিছু জীবজন্তু ও মানুষের হাড় এবং কিছু অনুষ্ঠান পালনের চিহ্ন উদ্ধার হয়েছে, যার থেকে এ'ধরনের ধারণা গড়ে উঠেছে। কেউ কেউ আবার মনে করেন যে এটি আসলে ছিল একটি অবজারভেটরি বা মানমন্দির জাতীয় কিছু; এমনভাবেই এটি নির্মিত হয়েছিল যাতে বিশেষ বিশেষ গুরুত্বপূর্ণ দিনে এখানে সূর্যরশ্মি বিশেষ কোণ থেকে এসে প্রবেশ করে; আবার অন্য আরেকদল ঐতিহাসিকের মতে এটির সাথে ধর্মের কোনও যোগও থাকতে পারে।[৩][৪]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. Giffhorn, Hans. Wurde Amerika in der Antike entdeckt?: Karthager, Kelten und das Rätsel der Chachapoya. 2nd ed. C.H. Beck, 2014. আইএসবিএন ৩৪০৬৬৬৪৮৯X, 9783406664892.
  2. DK Eyewitness Travel Guide: Peru. Penguin. 2014. p. 250. ISBN 9781465432476.
  3. ZONA ARQUEOLÓGICA MONUMENTAL KUÉLAP (স্পেনীয় ভাষা) সংগৃহীত ১২ জুলাই, ২০১৭।
  4. Bradt, Hilary; Jarvis, Kathy (2014). Trekking in Peru: 50 Best Walks and Hikes. Bradt Travel Guides. pp. 140,142. ISBN 9781841624921.