কুইন এলিজাবেথ-শ্রেণির বিমানবাহী রণতরী

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
HMS Queen Elizabeth and HMS Prince of Wales meet at sea for the first time.jpg
শ্রেণি'র সারাংশ
নাম: কুইন এলিজাবেথ শ্রেণি
নির্মাতা: এয়ারক্রাফট ক্যরিয়ার এলায়েন্স
ব্যবহারকারী:  রাজকীয় নৌবাহিনী
পূর্বসূরী: Invincible শ্রেণী
খরচ: £৭.৬ বিলিয়ন (উভয় জাহাজের জন্য বাজেট) (অর্থবর্ষ২০১৯)[১]
নির্মিত: 2009–2017
অনুমোদন লাভ: 2017–present[২]
পরিকল্পিত:
সম্পন্ন:
সক্রিয়:
সাধারণ বৈশিষ্ট্য
প্রকার: বিমানবাহী রণতরী
ওজন: ৬৫,০০০ টন (৬৪,০০০ লং টন; ৭২,০০০ শর্ট টন)[৩]
দৈর্ঘ্য: ২৮৪ মি (৯৩২ ফু)[৪]
প্রস্থ:
  • ৩৯ মি (১২৮ ফু) waterline
  • ৭৩ মি (২৪০ ফু) overall[৫][৬]
গভীরতা: ১১ মি (৩৬ ফু)
পাটাতন: ১৬,০০০ মি (১,৭০,০০০ ফু) 9 decks beneath flightdeck with hangar covering the centrepiece of two decks (without islands)
ইনস্টল ক্ষমতা:
প্রচালনশক্তি:
গতিবেগ: In excess of ২৫ নট (৪৬ কিমি/ঘ; ২৯ মা/ঘ)[৭]
সীমা: ১০,০০০ নটিক্যাল মাইল (১৯,০০০ কিমি; ১২,০০০ মা)
সৈন্য সংখ্যা: ২৫০ থেকে ৯০০[৮]
লোকবল: 679 crew, not including air element; total berths for up to 1,600
সেন্সর এবং
কার্যপদ্ধতি:
রণসজ্জা:
বিমান বহন:
বিমানচালানর সুবিধাসমূহ:
  • Large flight deck with ski jump
  • Hangar deck
  • Two aircraft lifts
টীকা: Capable of carrying more than 70 aircraft[১১]

কুইন এলিজাবেথ-শ্রেণিটি যুক্তরাজ্যের রয়্যাল নেভির দুটি বিমানবাহী রণতরীর একটি শ্রেণি।[১২] এলিজাবেথ (দ্বিতীয় এলিজাবেথ নয়) এর সম্মানে ৪ ই জুলাই ২০১৪ সালে নেতৃত্বাধীন জাহাজের নামকরণ করা হয় এইচএমএস কুইন এলিজাবেথ।[১৩][১৪] ২০১৮ সালে প্রত্যাশিত প্রাথমিক পরিচালনা সক্ষমতা[১৫] সহ ২০১৭ সালের ৭ ডিসেম্বর[২] কমিশন লাভ করে।[১৬] দ্বিতীয়টি, এইচএমএস প্রিন্স অব ওয়েলস ২০১৭ সালের ২১ ডিসেম্বর জলে ভাসানো হয় এবং এটি ২০১৯ সালের ১০ ডিসেম্বর কমিশন লাভ করে।[১৭] ন্যাটো ২০১৪ ওয়েলস শীর্ষ সম্মেলনে তৎকালীন প্রধানমন্ত্রী ডেভিড ক্যামেরন ঘোষণা করেন যে দ্বিতীয় বিমানবাহী রণতরীকে আগামি কয়েক বছরের মধ্যে অনিশ্চয়তার অবসান ঘটিয়ে পরিষেবাতে আনা হবে। এটি নভেম্বরের ২০১৫ সালে সরকারী কৌশলগত প্রতিরক্ষা পর্যালোচনা দ্বারা নিশ্চিত করা হয়, পাশাপাশি উভয় বাহকই পরিষেবাতে প্রবেশ করায় এটি যে কোনও সময় উপলব্ধ।[১৮][১৯][২০]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "MOD Major Projects Report 2019"। সংগ্রহের তারিখ ১৩ মে ২০২০ 
  2. "HMS Queen Elizabeth crew switch on its radar for first time"। Naval Technology। ১১ সেপ্টেম্বর ২০১৫ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২৯ আগস্ট ২০১৫ 
  3. "HMS Queen Elizabeth"। royalnavy.mod.uk। ৭ ডিসেম্বর ২০১৮ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১২ জানুয়ারি ২০১৮ 
  4. "Queen Elizabeth Class"। Royal Navy। ১০ আগস্ট ২০১৩ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২১ আগস্ট ২০১৩ 
  5. "Queen Elizabeth Class (CVF)"। Naval Technology। ১ জুলাই ২০১৭ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ৬ জুলাই ২০১৭ 
  6. "Royal Navy – Aircraft Carriers – The Future Carrier (CVF) Queen Elizabeth Class – Illustrious – n3a3"। Armed Forces। ১২ অক্টোবর ২০১৮ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ৬ জুলাই ২০১৭ 
  7. "HMS Queen Elizabeth exceeds stated maximum speed on trials"। ukdefencejournal.org.uk। ২৪ জুলাই ২০১৭। সংগ্রহের তারিখ ১০ জুলাই ২০১৮ 
  8. "HMS Ocean:Written question – 19049"। Parliament of the United Kingdom। ২২ ডিসেম্বর ২০১৫ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১৬ ডিসেম্বর ২০১৫ 
  9. "Babcock to Deliver, Convert Phalanx 1B CIWS for Royal Navy Queen Elizabeth Aircraft Carrier"। ১৬ ডিসেম্বর ২০১৪। ১৭ ডিসেম্বর ২০১৪ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১৭ ডিসেম্বর ২০১৪ 
  10. Royal Navy – Global Force 2013 (PDF) (graphic), Press Association, পৃষ্ঠা 86, ২০১৮-০৯-২১ তারিখে মূল (PDF) থেকে আর্কাইভ করা  – source: Royal Navy.
  11. "Replacing the Invincibles: inside the Royal Navy's controversial £6.2 billion warships", Wired, ৪ সেপ্টেম্বর ২০১৭ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা, সংগ্রহের তারিখ ১০ সেপ্টেম্বর ২০১৭  – source: Wired UK
  12. "Should HMS Queen Elizabeth be fitted with her own missile defences?"www.savetheroyalnavy.org। সংগ্রহের তারিখ ২০১৯-১২-০৫ 
  13. "HMS Queen Elizabeth is named by Her Majesty The Queen"www.royalnavy.mod.uk (ইংরেজি ভাষায়)। ৪ জুলাই ২০১৪। ৫ মার্চ ২০১৮ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ৫ মার্চ ২০১৮ 
  14. George Allison। "Royal Navy press team confirm which monarch HMS Queen Elizabeth is named for"। Ukdefencejournal.org.uk। ৬ মার্চ ২০১৮ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ৪ মার্চ ২০১৮ 
  15. "F-35 jets, Apache Choppers To Fly From UK's HMS Queen Elizabeth Carrier in 2018"। Defenseworld.net। ৩১ জুলাই ২০১৭ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ৬ জুলাই ২০১৭ 
  16. "F-35 jets, Apache Choppers To Fly From UK's HMS Queen Elizabeth Carrier in 2018"। Defenseworld.net। ৩১ জুলাই ২০১৭ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ৬ জুলাই ২০১৭ 
  17. Maddox, David (২৩ মার্চ ২০১৩)। "600 Royal Navy personnel may be stationed at Rosyth"The Scotsman। ২৫ মার্চ ২০১৩ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ৩০ মার্চ ২০১৩ 
  18. "Queen Elizabeth class aircraft carrier: A Guide"। ৩ এপ্রিল ২০১৪। ১২ নভেম্বর ২০১৪ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১৪ নভেম্বর ২০১৪ 
  19. "UK aircraft carrier Prince of Wales to go into service"। BBC। ৫ সেপ্টেম্বর ২০১৪। ২৩ সেপ্টেম্বর ২০১৪ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১৮ সেপ্টেম্বর ২০১৪ 
  20. "Should HMS Queen Elizabeth be fitted with her own missile defences?"। সংগ্রহের তারিখ ৫ ডিসেম্বর ২০১৯