কিউবা জাতীয় ফুটবল দল

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
কিউবা
দলের লোগো
ডাকনামলেওনেস দেল কারিবে
অ্যাসোসিয়েশনকিউবা ফুটবল অ্যাসোসিয়েশন
কনফেডারেশনকনকাকাফ (উত্তর আমেরিকা)
প্রধান কোচপাবলো এলিয়ের সানচেস
অধিনায়কআরিচেল এর্নান্দেস
সর্বাধিক ম্যাচইয়েনিয়ের মার্কেস (১২৬)
শীর্ষ গোলদাতালেস্তের মোরে (৩০)
মাঠপেদ্রো মারেরো স্টেডিয়াম
ফিফা কোডCUB
প্রথম জার্সি
দ্বিতীয় জার্সি
ফিফা র‌্যাঙ্কিং
বর্তমান ১৭৭ বৃদ্ধি ২ (৩১ মার্চ ২০২২)[১]
সর্বোচ্চ৪৬ (নভেম্বর–ডিসেম্বর ২০০৬)
সর্বনিম্ন১৮২ (আগস্ট ২০১৭, মার্চ–মে ২০১৮)
এলো র‌্যাঙ্কিং
বর্তমান ১৩৭ বৃদ্ধি ১০ (৩০ এপ্রিল ২০২২)[২]
সর্বোচ্চ৫২ (ফেব্রুয়ারি ২০০৫)
সর্বনিম্ন১৪৭ (সেপ্টেম্বর ২০১৯)
প্রথম আন্তর্জাতিক খেলা
 কিউবা ৩–১ জ্যামাইকা 
(হাভানা, কিউবা; ১৬ মার্চ ১৯৩০)
বৃহত্তম জয়
 কিউবা ১১–০ টার্কস ও কেইকোস দ্বীপপুঞ্জ 
(হাভানা, কিউবা; ৮ সেপ্টেম্বর ২০১৮)
বৃহত্তম পরাজয়
 সুইডেন ৮–০ কিউবা 
(অঁতিব, ফ্রান্স; ১২ জুন ১৯৩৮)
 সোভিয়েত ইউনিয়ন ৮–০ কিউবা 
(মস্কো, সোভিয়েত ইউনিয়ন; ২৪ জুলাই ১৯৮০)
বিশ্বকাপ
অংশগ্রহণ১ (১৯৩৮-এ প্রথম)
সেরা সাফল্যকোয়ার্টার-ফাইনাল (১৯৩৮)
কনকাকাফ গোল্ড কাপ
অংশগ্রহণ১১ (১৯৭১-এ প্রথম)
সেরা সাফল্যচতুর্থ স্থান (১৯৭১)

কিউবা জাতীয় ফুটবল দল (ইংরেজি: Cuba national football team) হচ্ছে আন্তর্জাতিক ফুটবলে কিউবার প্রতিনিধিত্বকারী পুরুষদের জাতীয় দল, যার সকল কার্যক্রম কিউবার ফুটবলের সর্বোচ্চ নিয়ন্ত্রক সংস্থা কিউবা ফুটবল অ্যাসোসিয়েশন দ্বারা নিয়ন্ত্রিত হয়। এই দলটি ১৯৩২ সাল হতে ফুটবলের সর্বোচ্চ সংস্থা ফিফার এবং ১৯৬১ সাল হতে তাদের আঞ্চলিক সংস্থা কনকাকাফের সদস্য হিসেবে রয়েছে।[৩] ১৯৩০ সালের ১৬ই মার্চ তারিখে, কিউবা প্রথমবারের মতো আন্তর্জাতিক খেলায় অংশগ্রহণ করেছে; কিউবার হাভানায় অনুষ্ঠিত উক্ত ম্যাচে কিউবা জ্যামাইকাকে ৩–১ গোলের ব্যবধানে পরাজিত করেছে।

৩০,০০০ ধারণক্ষমতাবিশিষ্ট পেদ্রো মারেরো স্টেডিয়ামে লেওনেস দেল কারিবে নামে পরিচিত এই দলটি তাদের সকল হোম ম্যাচ আয়োজন করে থাকে। এই দলের প্রধান কার্যালয় কিউবার রাজধানী হাভানায় অবস্থিত। বর্তমানে এই দলের ম্যানেজারের দায়িত্ব পালন করছেন পাবলো এলিয়ের সানচেস এবং অধিনায়কের দায়িত্ব পালন করছেন ইন্দেপেন্দিয়েন্তের মধ্যমাঠের খেলোয়াড় আরিচেল এর্নান্দেস

কিউবা এপর্যন্ত মাত্র ১ বার ফিফা বিশ্বকাপে অংশগ্রহণ করেছে, উক্ত আসরে তাদের সাফল্য হচ্ছে কোয়ার্টার-ফাইনালে পৌঁছানো, যেখানে তারা সুইডেনের কাছে ৮–০ গোলের ব্যবধানে পরাজিত হয়েছে। অন্যদিকে, কনকাকাফ গোল্ড কাপে কিউবা এপর্যন্ত ১১ বার অংশগ্রহণ করেছে, যার মধ্যে সেরা সাফল্য হচ্ছে ১৯৭১ কনকাকাফ চ্যাম্পিয়নশিপে চতুর্থ স্থান অর্জন করা।

ইয়েনিয়ের মার্কেস, অদেলিন মোলিনা, হাইমে কলোমে, লেস্তের মোরে এবং রবের্তো লিনারেসের মতো খেলোয়াড়গণ কিউবার জার্সি গায়ে মাঠ কাঁপিয়েছেন।

র‌্যাঙ্কিং[সম্পাদনা]

ফিফা বিশ্ব র‌্যাঙ্কিংয়ে, ২০০৬ সালের নভেম্বর মাসে প্রকাশিত র‌্যাঙ্কিংয়ে কিউবা তাদের ইতিহাসে সর্বোচ্চ অবস্থান (১৮০তম) অর্জন করে এবং ২০১৭ সালের আগস্ট মাসে প্রকাশিত র‌্যাঙ্কিংয়ে তারা ১৮২তম স্থান অধিকার করে, যা তাদের ইতিহাসে সর্বনিম্ন। অন্যদিকে, বিশ্ব ফুটবল এলো রেটিংয়ে কিউবার সর্বোচ্চ অবস্থান হচ্ছে ৫২তম (যা তারা ২০০৫ সালে অর্জন করেছিল) এবং সর্বনিম্ন অবস্থান হচ্ছে ১৪৭। নিম্নে বর্তমানে ফিফা বিশ্ব র‌্যাঙ্কিং এবং বিশ্ব ফুটবল এলো রেটিংয়ে অবস্থান উল্লেখ করা হলো:

ফিফা বিশ্ব র‌্যাঙ্কিং
৩১ মার্চ ২০২২ অনুযায়ী ফিফা বিশ্ব র‌্যাঙ্কিং[১]
অবস্থান পরিবর্তন দল পয়েন্ট
১৭৫ হ্রাস  সেন্ট ভিনসেন্ট ও গ্রেনাডাইন দ্বীপপুঞ্জ ৯৬০.৭১
১৭৬ বৃদ্ধি  সেন্ট লুসিয়া ৯৫৩.৪৫
১৭৭ বৃদ্ধি  কিউবা ৯৫০.৯১
১৭৮ অপরিবর্তিত  মন্টসেরাট ৯৫০.৭১
১৭৯ হ্রাস  মরিশাস ৯৪০.৪৭
বিশ্ব ফুটবল এলো রেটিং
৩০ এপ্রিল ২০২২ অনুযায়ী বিশ্ব ফুটবল এলো রেটিং[২]
অবস্থান পরিবর্তন দল পয়েন্ট
১৩৫ হ্রাস ১৯  কঙ্গো ১২৯৮
১৩৬ বৃদ্ধি  মোজাম্বিক ১২৯৪
১৩৭ বৃদ্ধি ১০  কিউবা ১২৮৯
১৩৭ বৃদ্ধি  তুর্কমেনিস্তান ১২৮৯
১৩৯ বৃদ্ধি ১০  তাজিকিস্তান ১২৮৩

প্রতিযোগিতামূলক তথ্য[সম্পাদনা]

ফিফা বিশ্বকাপ[সম্পাদনা]

ফিফা বিশ্বকাপ বাছাইপর্ব
সাল পর্ব অবস্থান ম্যাচ জয় ড্র হার স্বগো বিগো ম্যাচ জয় ড্র হার স্বগো বিগো
উরুগুয়ে ১৯৩০ অংশগ্রহণ করেনি অংশগ্রহণ করেনি
ইতালি ১৯৩৪ উত্তীর্ণ হয়নি ১৩ ১৪
ফ্রান্স ১৯৩৮ কোয়ার্টার-ফাইনাল ৭ম ১২ উত্তীর্ণ
ব্রাজিল ১৯৫০ উত্তীর্ণ হয়নি ১১
সুইজারল্যান্ড ১৯৫৪ অগৃহীত[৪] অগৃহীত[৪]
সুইডেন ১৯৫৮ অংশগ্রহণ করেনি অংশগ্রহণ করেনি
চিলি ১৯৬২
ইংল্যান্ড ১৯৬৬ উত্তীর্ণ হয়নি
মেক্সিকো ১৯৭০ অগৃহীত[৪] অগৃহীত[৪]
পশ্চিম জার্মানি ১৯৭৪ অংশগ্রহণ করেনি অংশগ্রহণ করেনি
আর্জেন্টিনা ১৯৭৮ উত্তীর্ণ হয়নি
স্পেন ১৯৮২ ১১
মেক্সিকো ১৯৮৬ অংশগ্রহণ করেনি অংশগ্রহণ করেনি
ইতালি ১৯৯০ উত্তীর্ণ হয়নি
মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র ১৯৯৪ প্রত্যাহার প্রত্যাহার
ফ্রান্স ১৯৯৮ উত্তীর্ণ হয়নি ১০ ১৭ ১৮
দক্ষিণ কোরিয়া জাপান ২০০২
জার্মানি ২০০৬
দক্ষিণ আফ্রিকা ২০১০ ১৩ ২১
ব্রাজিল ২০১৪ ১০
রাশিয়া ২০১৮
কাতার ২০২২ অনির্ধারিত অনির্ধারিত
মোট কোয়ার্টার-ফাইনাল ১/২১ ১২ ৬৮ ২০ ২০ ২৯ ৮৫ ১০২

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "ফিফা/কোকা-কোলা বিশ্ব র‍্যাঙ্কিং"ফিফা। ৩১ মার্চ ২০২২। সংগ্রহের তারিখ ৩১ মার্চ ২০২২ 
  2. গত এক বছরে এলো রেটিং পরিবর্তন "বিশ্ব ফুটবল এলো রেটিং"eloratings.net। ৩০ এপ্রিল ২০২২। সংগ্রহের তারিখ ৩০ এপ্রিল ২০২২ 
  3. "Ramón Coll, electo Presidente de la Confederación de Futbol de América del Norte, América Central y el Caribe"La Nación (Google News Archive)। ২৩ সেপ্টেম্বর ১৯৬১। 
  4. "History of the FIFA World Cup Preliminary Competition (by year)" (PDF)FIFA.com। Fédération Internationale de Football Association। ২১ অক্টোবর ২০১৩ তারিখে মূল (PDF) থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১৩ ডিসেম্বর ২০১১ 

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]