কালচে প্রিনা

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন

কালচে প্রিনা
Ashy Prinia (Prinia socialis), Mangaon, Maharashtra, India, by Shantanu Kuveskar.jpg
পি. এস. socialis এর সাথে লেজ
বৈজ্ঞানিক শ্রেণীবিন্যাস
জগৎ: Animalia
পর্ব: Chordata
শ্রেণী: Aves
বর্গ: Passeriformes
পরিবার: Cisticolidae[২]
গণ: Prinia
প্রজাতি: P. socialis
দ্বিপদী নাম
Prinia socialis
(Sykes, 1832)
PriniaSocialisMap.png
প্রতিশব্দ

Burnesia socialis

কালচে প্রিনা বা ছাই রঙের ক্ষুদ্র ডানা-ওয়ালা (প্রিনা সামাজিক) একটি ছোট গায়ক পাখি। এই প্রিনা ভারতীয় উপমহাদেশের প্রজনন বাসিন্দা। এরা ভারত, বাংলাদেশ, নেপাল, ভুটান, শ্রীলঙ্কাপশ্চিম মায়ানমারের অধিকাংশ অঞ্চল জুড়ে থাকে। এরা ভারতের অনেক অংশের কৃষিজমি ও উদ্যানের একটি সাধারণ পাখি এবং ছোট আকার, বিশেষ রং এবং লম্বা লেজের জন্য এদের শনাক্ত করা সহজ। উত্তরাঞ্চলের পাখিদের লালচে বাদামি রঙের লেজ ও পিঠ আছে এবং একটি স্বতন্ত্র প্রজনন ও অপ্রজনন পালক আছে যা অন্যান্য প্রজতির মধ্যে অনুপস্থিতি।

বর্ণনা[সম্পাদনা]

পি. এস. stewartii এর দৃশ্যমান ভুরু (হারিয়ানা, ভারত)।
লালবাগ বেঙ্গালোরে

এই ১৩-১৪ সেন্টিমিটার লম্বা গায়ক পাখিটির ছোট গোলাকার ডানা থাকে এবং লম্বা লেজে ক্রিমের ফোটার সাথে কাল ছাপ থাকে। লেজ সাধারণত লম্বা হয় এবং শক্তিশালী পা মাটিতে লাফানোর জন্য ব্যবহার করে। এদের গায়ে ছোট কালো লোম আছে। মুকুট ধূসর এবং নিম্নাংশে অধিকাংশ পালকসমুহের রঙ ছাই ধূসর হয়। প্রজনন পালকের মধ্যে, উত্তর জাতিগোষ্ঠীর প্রাপ্তবয়স্কদের উপরে ছাই ধূসরের সাথে উজ্জল কালো মুকুট আছে তবে ভুরু ও সংকীর্ণ ডানা নেই। অপ্রজনন মৌসুমে, এদের ছোট এবং সংকীর্ণ সাদা ভুরু এবং লেজ লম্বা থাকে।[৩] এরা এককভাবে বা জোড়ায় বিদ্যমান ভাবে গুল্মকৃষি মধ্যে থাকে এবং মাটিতে দেখার যায়।[৪]   শীতকালে উত্তর উপপ্রজাতির পি. এস. স্টুয়ার্টি ব্লেথ, ১৮৪৭, এর উপরের অংশ উষ্ণ বাদামী এবং একটি লম্বা লেজ এবং পালকের মৌসুমী প্রকরণ হয়। অন্যান্য জাতিগোষ্ঠী গ্রীষ্মের পালকসমূহ সারাবছর ধরে রাখে। পশ্চিমবঙ্গ ও পূর্বদিকে হুইসলার এবং নিকটগোষ্টী, ১৯৩৩ সালে যা উপদ্বীপের মনোনীত জাতির চেয়ে উপরে ছিল এবং এরা ধরালো ছোট ঠোঁট দিয়ে তৈরি গাঢ় খরের নীড়ের মধ্যে থাকে। শ্রীলঙ্কার স্বাতন্ত্র্যসূচক জাতি, পি. এস. ব্র্যাভিকাউদা ল্যাগ, ১৮৭৯-এর একটি খাটো লেজ আছে এবং অপ্রাপ্তবয়স্কদের নিম্নাংশ হলুদাভ এবং একটি স্বতন্ত্র ডাক আছে।[৩]

বিতরণ ও আবাসস্থল[সম্পাদনা]

এই চড়াই জাতীয় পাখি শুষ্ক খোলা তৃণভূমি, উন্মুক্ত বনভূমি, মাজা এবং শহরের অনেক বাড়ির বাগানে পাওয়া যায়। কিছু উত্তর প্রজাতি হিমালয়ের পাদদেশে সিন্ধু নদী ব্যবস্থার সীমানার উপরের অংশের সঙ্গে প্রসারিত হয়। প্রজাতিটি পশ্চিম ভারত ও বার্মার পূর্ব প্রসারনের মধ্যে শুষ্ক মরু অঞ্চলে অনুপস্থিত। শ্রীলঙ্কার জনগন প্রধানত নিচুভূমিতে খুজে পেয়েছে কিন্তু ১৬০০ মিটার থেকে পাহাড়ের মধ্যে উঠে যাচ্ছে।[৪]

আচরণ ও বাস্তুবিদ্যা[সম্পাদনা]

অধিকাংশ কালচে প্রিনা কীটভক্ষক হয় । এর গান একটি পুনরাবৃত্তিমূলক 'ছিউপ, ছিউপ, ছিউপ' 'বা' 'জিট-জিট-জিট' হয়। আরেকটি ডাক একটি অনুনাসিক 'টী-টী-টী' 'হয়। এছাড়াও উড়ার সময় ডানা দ্বারা "বৈদ্যুতিক স্পার্ক" এর মত একটি শব্দ করে[৩] (এক লেখক অবশ্য ইঙ্গিত করে যে, এটা ঠোঁট দ্বারা তৈরি করা হয়[৫])।

এটা উড়ার সময় উচ্চ শব্দের দ্বারা সৃষ্ট অনেক সহজ বৈশিষ্ট। আমরা নির্দিষ্ট ভাবে জানি না কিভাবে এই শব্দের সৃষ্টি হয় । রিড এর মতামত ছিল যে পাখিটি এটা লম্বা লেজ দ্বারা করে। আমি জানি না এর ঠিক মানে কি। জেসি বিশ্বাস করে যে শব্দটি পাখির চোয়াল দ্বারা সৃষ্ট । আমি পাখিটি দেখে অনেক সময় নষ্ট করেছি এবং আমি মনেকরি শব্দটির কারন ডানা ও লেজ এর আঘাত। এটা ক্রমাগত হয় শেষ পর্যন্ত এবং আমার মনে হয় যে এটা ফ্ল্যাশ এর মত ডানার সাথে আঘাত করে। যখন ঘুঘু ও কবুতর উড়ে তখন ডানার আঘাতে শব্দ তৈরি হয়। আমি মনেকরি যে এটাও কিছুটা অনুরুপ ঘটে তখন অ্যাসিটিরও ক্ষুদ্র ডানায় লাগে।

— ডগলস ডেওয়ার[৬]
ভারতের পুনেতে
কালচে প্রিনার "বৈদ্যুতিক স্পার্ক"-এর শব্দ

অপরিযায়ী 'প্রিনা' মহাজাতি দ্বিবার্ষিক ঝরান দেখায় যা চড়াই-জাতীয় পক্ষিবিশেষের মধ্যে বিরল। একটি ঝরান বসন্তে (এপ্রিল-মে) এবং অন্য ঝরান শরত্কালে (অক্টোবর-নভেম্বর) ঘটে। দ্বিবার্ষিক ঝরান হল বিশেষ সুবিধাপ্রাপ্ত মত গঠন যখন বাহিরে পরজীবী অনেক বেশি তবে কোনো পর্যবেক্ষন তৈরি করা হই নি। প্রিনা সামাজিক কিছু প্রজাতি বছরে দুবার ঝরান ছাড়ে এবং একে আংশিকভাবে ঝরান বলা হয়।[৭] তবে কিছু লেখক বর্ণনা করেছেন পি. সামাজিক দুইটি সম্পূর্ণ ঝরান ছাড়ে।[৪]

পাখি গুলি জোড়ায় জোড়ায় থাকে কিন্তু একটি ছোট গাছ বা গুল্ম এর শাখা উপর একা বিশ্রাম করে।[৮]

প্রজনন[সম্পাদনা]

একটা ঝোপের উপর থেকে গান করে ও পুরুষ লেজ তুলে নিয়ে ঝাপটানি দিয়ে উড়ে। কালচে প্রিনা তার বাসা গুল্ম বা লম্বা ঘাসের মধ্যে তৈরী করে এবং ৩-৫ টা ডিম পাড়ে। বাসা বেশ কয়েক ধরনের ও বেশ কয়েকটি পাতা সেলাই করে তৈরি  করার মত।[৪][৯] স্বাভাবিক নীড় একটা ঝোপের মধ্যে স্থাপন করে ও জালের সাথে সেলাই পাতার মত রেখাযুক্ত গঠন বানায়।[১০] ডিম কিছুটা উল্লেখ্য ডিম্বাকৃতি ফর্ম ও অতীব চকচকে হয়। তার রঙ সমৃদ্ধ বাদামী থেকে ইটের মত লাল হয় বা কিছু পরিবর্তিত গাঢ়। ডিমের সাধারণত গাঢ় হয় ও টুপি বা জোনের মত প্রদর্শণ করে। ডিমের পরিমাপ ০.৬ থেকে ০.৬৮ ইঞ্চি দৈর্ঘ্য ও ০.৪৫ থেকে ০.৫ ইঞ্চি প্রস্থ।[১১]  প্রায় ১২ দিনের মধ্যে ডিম থেকে বাচ্চা হয় । [১২]

স্থানের সাথে প্রজনন মৌসুমের বছর পরিবর্তিত হয় কিন্তু বেশিরভাগ মৌসুমী বায়ু পরে প্রজনন লিপিবদ্ধ করা হয়েছে।[১৩] উত্তর ভারতে জুন থেকে সেপ্টেম্বরে এবং শ্রীলঙ্কায় প্রধানত ডিসেম্বর থেকে মার্চ বা আগস্ট থেকে অক্টোবর।[৩] মে-জুন মাসে প্রজাতির একগামী বিশ্বাস করা হয় ও উভয় পুরুষ অণ্ডস্ফুটনে মধ্যে মহিলা অংশ নেয়।[১১][১৪] শীতের দিনে মাতাপিতা নীড় এ বেশি সময় ব্যয় পার করে ।[১৫][১৬] প্রায় ১২ দিনের মধ্যে ডিম থেকে বাচ্চা হয় ।[১৩] এই প্রজাতির জন্য কোকিল এর মেরিলিন ও চড়াই পাখি অণ্ডজ পরিচিত হয়েছে ।[১৭] যখন নীড় শিকারী দ্বারা হুমকির সম্মুখীন হয়, যেমন বিড়াল, প্রাপ্তবয়স্ক কপটাচারী আঘাত পরিলক্ষিত হয়েছে ।[১২]

নীড় থেকে উপাদান পুনঃব্যবহার করে নতুন অবস্থানে নীড় পুনর্নির্মাণের জন্য পাখি বিরল ক্ষেত্রে উল্লিখিত হয়েছে ।[১৩]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "Prinia socialis"বিপদগ্রস্ত প্রজাতির আইইউসিএন লাল তালিকা। সংস্করণ 2013.2প্রকৃতি সংরক্ষণের জন্য আন্তর্জাতিক ইউনিয়ন। ২০১২। সংগ্রহের তারিখ ২৬ নভেম্বর ২০১৩ 
  2. Alström, Per; Ericson, Per G.P.; Olsson, Urban; Sundberg, Per (ফেব্রু ২০০৬)। "Phylogeny and classiWcation of the avian superfamily Sylvioidea"। Molecular Phylogenetics and Evolution38 (2): 381–397। doi:10.1016/j.ympev.2005.05.015PMID 16054402আইএসএসএন 1055-7903 
  3. Rasmussen, P. C.  & Anderton, J.  (২০০৫)। Birds of South Asia: The Ripley Guide.। Smithsonian Institution & Lynx Edicions। আইএসবিএন 84-87334-67-9 
  4. Ali, S.  & Ripley, S. D.  (১৯৯৭)। Handbook of the Birds of India and Pakistan. Volume 8 (2nd সংস্করণ)। New Delhi: Oxford University Press। পৃষ্ঠা 55–60। 
  5. Uttangi, J. C. (১৯৯১)। ""Electric sparks" from Ashy Wren Warbler"। Newsletter for Birdwatchers31 (7&8): 14। 
  6. Dewar, Douglas (১৯০৮)। Birds of the Plains। পৃষ্ঠা 222। 
  7. Hall, KSS  & Tullberg, BS  (২০০৪)। "Phylogenetic analyses of the diversity of moult strategies in Sylviidae in relation to migration" (PDF)Evolutionary Ecology18: 85–105। doi:10.1023/B:EVEC.0000017848.20735.8b 
  8. Hemanth, J. (১৯৯০)। "On the roosting of the Ashy Wren-Warbler"Newsletter for Birdwatchers30 (5&6): 15। 
  9. Ramanan, R. V. (১৯৯৫)। "The nest of Ashy Wren Warbler Prinia socialis"Newsletter for Birdwatchers35 (1): 17। 
  10. Bhambral, R. (১৯৬৬)। "Dog's hair used for nest by Ashy Wren Warblers"Newsletter for Birdwatchers6 (8): 7। 
  11. Oates, E. W. (১৯০৫)। Catalogue of the collection of birds' eggs in the British Museum.। British Museum। 
  12. Chakravarthy, AK; Subramanya, S; Nagarajan, S (১৯৮০)। "The nesting of the Ashy Wren-Warbler Prinia socialis, Sykes in Bangalore"Newsletter for Birdwatchers20 (4): 8–9। 
  13. George,J. C. (১৯৬২)। Nest-shifting behaviour of the Ashy Wren-Warbler (PDF)The Auk78। পৃষ্ঠা 435–6। 
  14. Karthikeyan, S (১৯৯৩)। "Monogamy in Ashywren Warbler Prinia socialis: How much do sexes share domestic duties"। Verghese, A; Sridhar, S; Chakravarthy, AK। Bird Conservation: Strategies for the Nineties and Beyond। Ornithological Society of India, Bangalore। পৃষ্ঠা 200–201। 
  15. Wesley, H. D.  (১৯৯৪)। "Nest-temperature regulation during incubation in Ashy Wren-Warbler"Newsletter for Birdwatchers34 (2): 29–31। 
  16. Desai, R. N. (১৯৯৩)। "Atmospheric temperature and the incubation pattern in the Ashy Wren-Warbler Prinia socialis"। Verghese, A; Sridhar, S; Chakravarthy, AK। Bird Conservation: Strategies for the Nineties and Beyond। Bangalore: Ornithological Society of India। পৃষ্ঠা 176। 
  17. Lowther, Peter E. (২০০৭)। Host list of Avian brood parasites – 2. (PDF)। Field Museum of Natural History, Chicago। [স্থায়ীভাবে অকার্যকর সংযোগ]

অন্যান্য উৎস[সম্পাদনা]

  • Balachandran, S; Rosalind, Lima (1992): Southern Ashy Wren-Warbler Prinia socialis socialis Sykes in Pt. Calimere Wildlife Sanctuary, Tamil Nadu.J. Bombay Nat. Hist. Soc. 89(3), 377.
  • Jairamdas, Arjun (1977) Three nests of Ashy Wren Warbler – diary of one season. Newsletter for Birdwatchers . 17(2):4–6.
  • Subramanya, S.; Veeresh, G. K. (1998) Nesting of two insectivorous birds in the rice fields of Bangalore. Chap. 4. In: Birds in Agricultural Ecosystem. (Eds: Dhindsa, MS; Rao, P Syamsunder; Parasharya, BM) Society for Applied Ornithology, Hyderabad, 10–17.
  • Ajmeri, R. M.; Das, A. R. K.; Sasikumar, M. (1961) An unusual nest of the Ashy Wren-warbler (প্রিনা সামাজিক). Newsletter for Birdwatchers . 1(4):1.

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]