কার্টুনে নারী অধিকার

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
চিত্র: নারীর ক্ষমতায়ন, শিল্পী: আরিফুর রহমান

নারী অধিকার একটি আন্তর্জাতিক কার্টুন প্রতিযোগিতা এবং প্রদর্শনী যা কার্টুন সাময়িকী টুনস ম্যাগ কর্তৃক ২০১৬ সালে আয়োজিত হয়। উক্ত আন্তর্জাতিক কার্টুন প্রতিযোগিতার বিষয় ছিলো “নারী অধিকার”।[১][২][৩] কার্টুন জমা পড়েছিলো ১৬২৫ টি, প্রতিযোগীতায় অংশ নিয়েছিলেন ৭৯ টি দেশ থেকে ৫৬৭ জন কার্টুনিস্ট। প্রদর্শনী হয়েছিলো নরওয়ে, ভারত, এবং স্লোভাকিয়ার একাধিক স্থানে।

প্রেক্ষাপট[সম্পাদনা]

বিশ্বব্যাপী নারী ও মেয়েদের দাবির অধিকার আদায়ের লক্ষ্যে বিভিন্ন সংগঠন কাজ করে থাকে। বিভিন্ন দেশে ধর্মীয় এবং সামাজিক কারণে মানুষ হিসেবে নারীরা মানবিক, সামাজিক এবং মৌলিক অধিকার থেকে বঞ্চিত এবং নির্যাতিত।[৪] কোন কোন সমাজে নারীদেরকে পূর্ণাঙ্গ মানুষ হিসেবেও গণ্য করা হয় না। সমাজ, রাষ্ট্র, জাতিভেদে নারীদের প্রকৃত অবস্থা কার্টুনে প্রকাশ এবং তা প্রদর্শন করাই ছিল এই আয়োজনের মূল লক্ষ্য।

কার্টুনে নারী অধিকার[সম্পাদনা]

নরওয়ের দ্রব্যাক শহরে অধিকার কার্টুন প্রদর্শনী

নারী অধিকার  শীর্ষক আন্তর্জাতিক কার্টুন  প্রদর্শনীতে কার্টুনে বিভিন্ন দেশ এবং সমাজের নারীদের প্রকৃত অবস্থা উঠে এসেছিলো এই প্রদর্শনীতে।[৫] সব মিলিয়ে ১৬২৫ টি কার্টুন জমা পড়েছিলো, প্রতিযোগীতায় অংশ নিয়েছিলেন ৭৯ টি দেশ থেকে ৫৬৭ জন কার্টুনিস্ট। ৭০ টি দেশের ১০৬ জন কার্টুনিস্টের কার্টুন দিয়ে আয়োজন করা হয়েছিল আন্তর্জাতিক প্রদর্শনী এবং ক্যাটালগ প্রকাশিত হয়েছিল।[৩][৬][৭]

প্রদর্শনী অনুষ্ঠিত হয়েছিলো ৮ মার্চ ২০১৬ আন্তর্জাতিক নারী দিবসে, একই দিনে দুইটি দেশের তিনটি গ্যালারীতে প্রদর্শিত হয়েছিলো। যথাক্রমে: নরওয়েজিয়ান কার্টুন গ্যালারী দ্রবাক, নরওয়ে, ভারতীয় কার্টুনিস্ট ইন্সটিটিউট গ্যালারী ব্যাঙ্গালুর, এবং আগ্রা, উত্তর প্রদেশ ভারত।[৮] ১০ ডিসেম্বর ২০১৬ প্রদর্শনীটি স্লোভাকিয়ার প্রেশব শহরে প্রদর্শিত হয়েছিলো।[৯]

টুনস ম্যাগের সহযোগী হিসেবে ছিলো নরওয়েজিয়ান কার্টুনিস্ট গ্যালারী, মিউজিয়াম অফ আকেরশুশ নরওয়ে, এবং আর্থিক সহযোগীতায় ছিলো ফ্রিত উর নামে নরওয়ের একটি দাতব্য সংস্থা[১০] ভারতে সহযোগী হিসেবে ছিল, ভারতীয় কার্টুনিস্ট ইন্সটিটিউট, স্লোভাকিয়ায় ব্রেইন স্নিজিং গ্যালারী, প্রেশভ ওয়েভ ক্লাব। আর্থিক সহযোগীতায় ছিলো ইইএ ফান্ড এবং স্লোভাক রিপাবলিক[৯]

ম্যাট উরকার, পুলিৎজার পুরস্কার বিজয়ী মার্কিন কার্টুনিস্ট
সিঁড়ি দোক্কেন, নরওয়েজীয় কার্টুনিস্ট  এবং ইলাস্ট্রেটর

বিচারক হিসেবে ছিলেন ৮ টি দেশের ৮ জন বিখ্যাত কার্টুনিস্ট তন্মধ্যে ৪ জন নারী ৪ জন পুরুষ।[১]

বিচারক মন্ডলী
নাম পরিচিতি দেশ
সিরি দক্কেন নরওয়েজিয়ান কার্টুনিস্ট এবং ইলাস্ট্রেটর নরওয়ে
সাবিনা ভইগত জার্মান কার্টুনিস্ট এবং ইলাস্ট্রেটর জার্মানী
সাদাত দেমির ইয়ালসেন তুর্কি কার্টুনিস্ট এবং এক্টিভিস্ট তুরস্ক
নিগার নাজার পাকিস্তানের প্রথম মহিলা কার্টুনিস্ট এবং কমিক শিল্পী পাকিস্তান
আহসান হাবীব বাংলাদেশী কার্টুনিস্ট এবং উন্মাদ-এর সম্পাদক বাংলাদেশ
বরিসলাভ স্তানকসিভ সার্বিয়ান কার্টুনিস্ট সার্বিয়া
ইয়ান এরিক আন্দের সুয়েডীয় কার্টুনিস্ট সুইডেন
ম্যাট উরকার পুলিৎজার পুরস্কার বিজয়ী মার্কিন কার্টুনিস্ট মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র
পুরস্কার বিজয়ী ফরাসি কার্টুনিস্ট পলান্টু

বিচারকদের ভোটে ৫৬৭ জন কার্টুনিস্টদের মধ্যে ১২ জন পুরস্কার বিজয়ী হয়েছিলেন।

পুরস্কার বিজয়ী
বিজয়ী পুরস্কার দেশ
মার্চিন বান্দারওয়াইচ প্রথম পুরস্কার পোল্যান্ড
নেনাদ ওস্তরিক দ্বিতীয় পুরস্কার ক্রোয়েশিয়া
রেজা মোক্তারযোজানি তৃতীয় পুরস্কার মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র
জিগমুন্ত জারাদকিয়েভিস বিশেষ সম্মাননা পুরস্কার পোল্যান্ড
মিখাইল জলাতকোভস্কি বিশেষ সম্মাননা পুরস্কার রাশিয়া
ওসামা হাজ্জাজ বিশেষ সম্মাননা পুরস্কার জর্দান
সাহার আজমী বিশেষ সম্মাননা পুরস্কার ইরান
সাজাদ রাফেই বিশেষ সম্মাননা পুরস্কার ইরান
সোলোই পেতেরস বিশেষ সম্মাননা পুরস্কার ব্রাজিল
আফ্রি দিয়ানসিয়াহ বিশেষ সম্মাননা পুরস্কার ইন্দোনেশিয়া
মিকায়েল কিসখা বিশেষ সম্মাননা পুরস্কার ইসরায়েল
পলান্টু বিশেষ সম্মাননা পুরস্কার ফ্রান্স

প্রদর্শনী[সম্পাদনা]

নরওয়ের দ্রব্যাক শহরের নরওয়েজিয়ান কার্টুনিস্ট গ্যালারিতে মাসব্যাপী প্রদর্শিত হয়েছিল, উদ্বোধন হয়েছিল ৮ মার্চ, ২০১৬।[৩] ভারতের কর্ণাটক রাজ্যের রাজধানী বেঙ্গালুরু ইন্ডিয়ান ইনস্টিটিউট অফ কার্টুনিস্ট এর গ্যালারিতে ৫ মার্চ থেকে ১৯ মার্চ ২০০৬ প্রদর্শনীর আয়োজন করা হয়েছিল।[৮] স্লোভাকিয়ার প্রসভ শহরের ওয়েব ক্লাবে ১০ ডিসেম্বর ২০১৬ উদ্বোধনী শুরু হয় এবং তা মাসব্যাপী প্রদর্শিত হয়।[৯]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "নারী দিবসে টুনস ম্যাগের আন্তর্জাতিক কার্টুন প্রতিযোগিতা | কালের কণ্ঠ"Kalerkantho। সংগ্রহের তারিখ ২০১৯-০৮-০১ 
  2. "'টুনস ম্যাগে'র কার্টুন প্রতিযোগিতার কার্টুন আহবান"প্রিয়.কম (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২০১৯-০৮-০১ 
  3. "Tema: Kvinners rettigheter: Moren ble barnebrud som 11-åring - nå tegner Arifur (31) for kvinners rettigheter"www.vg.no (নরওয়েজিয়ান বোকমাল ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২০১৯-০৮-০১ 
  4. "Convention on the Elimination of All Forms of Discrimination against Women"www.un.org। সংগ্রহের তারিখ ২০১৯-০৮-০১ 
  5. Welle (www.dw.com), Deutsche। "মায়ের অসহায়ত্ব তুলে ধরেছি কার্টুনে | DW | 09.03.2016"DW.COM। সংগ্রহের তারিখ ২০১৯-০৮-০১ 
  6. Quintano, Kristina (২০১৭-০১-১১)। "PENs Fribyer - En trygg havn å skrive i"55pluss (নরওয়েজিয়ান বোকমাল ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২০১৯-০৮-০১ 
  7. "Women's Rights in Cartoons"ICORN international cities of refuge network (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২০১৯-০৮-০১ 
  8. Madhukar, Jayanthi MadhukarJayanthi; Feb 27, Bangalore Mirror Bureau | Updated:; 2016; Ist, 21:01। "The feminist half"Bangalore Mirror (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২০১৯-০৮-০১ 
  9. "Pozvánka na výstavu - Správy - MZV MZV PORTAL"www.mzv.sk। সংগ্রহের তারিখ ২০১৯-০৮-০১ 
  10. "Utstillingen "Women's Rights" på Avistegnernes Hus"www.frittord.no। সংগ্রহের তারিখ ২০১৯-০৮-০১ 

আরও দেখুন[সম্পাদনা]

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]