কার্টুনিস্ট

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
Jump to navigation Jump to search

কার্টুন একটি ইংরেজি শব্দ। এর বাংলা অর্থ ব্যঙ্গচিত্র।[১] তবে কার্টুনের সংজ্ঞা সময়ের সাথে সাথে পরিবর্তিত হয়েছে। কার্টুন প্রধানত একটি চিত্র, যা ব্যঙ্গ করে অাঁকা হয়। এবং যিনি কার্টুন ‌আঁকেন তাকে কার্টুনিস্ট বলা হয়। কার্টুনের বিভিন্ন শাখা রয়েছে। সামাজিক রাজনৈতিকসহ বিভিন্ন বিষয়ের ওপর কার্টুন অাঁকা হয়ে থাকে। কার্টুনের বিভিন্ন শাখা রয়েছে। তবে সংবাদপত্রে সাধারণত রাজনৈতিক বা সম্পাদকীয় কার্টুন ও স্ট্রিপ কার্টুন বেশি ব্যবহৃত হয়। একজন কার্টুনিস্ট তার কার্টুনের মাধ্যমে সমসাময়িক বিভিন্ন বিষয়ে মন্তব্য করে থাকেন। কার্টুনে শুধু ব্যঙ্গবিদ্রুপ নয়, অনেক তথ্যও থাকে।[২]

ইতিহাস[সম্পাদনা]

১৮ শতকে ইংরেজ বিদ্রূপাত্মক এবং সম্পাদকীয় কার্টুনিস্ট উইলিয়াম হোঘাট আবির্ভূত হন, যিনি পশ্চিমা সিকুয়েন্সিয়াল আর্টের জন্যে বিখ্যাত। তাঁর কাজের ব্যাপ্তি ভিজুয়াল আর্টস থেকে কমিক পর্যন্ত বিস্তৃত। সমসাময়িক রাজনৈতিক ও সামাজিক ইশু নিয়ে তার অনেক মজার কাজ রয়েছে। [৩] হোঘার্থের অনুসরণে, ১৮ শতকের শেষভাগে ইংল্যান্ডে জেমস গিলরে ও থমাস রোল্যান্ডসনের নেতৃত্বে জনপ্রিয়তা পায়, যার কারণে তারা পলিটিকাল কার্টুনের জনক বা ফাদার অব পলিটিকেল কার্টুন হিসেবে মর্যাদা পান।

বাংলাদেশের জনপ্রিয় কয়েকজন কার্টুনিস্ট[সম্পাদনা]

বাংলাদেশের কয়েকজন জনপ্রিয় কার্টুনিস্ট হলেন:

রফিকুন নবী বা রনবী[সম্পাদনা]

রফিকুন নবী (উপনাম রনবী) (জন্ম: ২৮ নভেম্বর, ১৯৪৩ ) বাংলাদেশের খ্যাতনামা চিত্রশিল্পী, কার্টুনিস্টটোকাই নামক কার্টুন চরিত্রটি তার অনবদ্য সৃষ্টি। ১৯৭৮ খ্রিস্টাব্দ থেকে টোকাই কার্টুন স্ট্রিপ হিসেবে সাপ্তাহিক বিচিত্রা পত্রিকায় প্রকাশিত হয়ে আসছে। শিল্পকলায় তার অনন্য অবদানের জন্য তিনি ১৯৯৩ সালে বাংলাদেশ সরকার কর্তৃক প্রদত্ত দ্বিতীয় সর্বোচ্চ বেসামরিক সম্মান একুশে পদকে ভূষিত হন।

আহসান হাবীব[সম্পাদনা]

আহসান হাবীব (ইংরেজি: Ahsan Habib; জন্ম: ১৫ নভেম্বর) বাংলাদেশের একজন জনপ্রিয় কার্টুনিস্ট এবং রম্য সাহিত্যিক এবং একজন কমিক বুক লেখম। পল্টু-বিল্টু, পটলা-ক্যাবলা তার কিছু বিখ্যাত কমিক্স ক্যারেক্টার। তিনি জনপ্রিয় মাসিক রম্য পত্রিকা উন্মাদ এর বর্তমান প্রধান সম্পাদক। এছাড়া বেশকিছু হাস্যরসাত্মক নাটক রচনা করে তিনি সুনাম কুড়িয়েছেন। তিনি জনপ্রিয় সাহিত্যিক হুমায়ুন আহমেদ এবং মুহম্মদ জাফর ইকবালের সর্বকনিষ্ঠ ভ্রাতা। "ড্যাড অফ বাংলাদেশী কার্টুন", "গ্র্যান্ডফাদার অফ জোকস" আরও নানারকম উপাধিতে তাকে ভূষিত করা হয়েছে।[৪][৫]

আরাফাত করিম[সম্পাদনা]

আরাফাত করিম একজন চিত্রশিল্পী ও কার্টুনিস্ট। তার কার্টুনে যেমন স্যাটায়ার রয়েছে, আবার তার পেইন্টিং এ রয়েছে গাম্ভীর্য। [৬]

খলিল রহমান[সম্পাদনা]

খলিল রহমান (জন্ম: ১৬ই এপ্রিল, ১৯৮৩) বাংলাদেশের একজন রাজনৈতিক কার্টুনিস্ট। তার করা কার্টুন স্থান পেয়েছে বেশকিছু নেত্রীস্থানীয় বাংলা সংবাদপত্রের সামনের পাতায়, যার মধ্যে রয়েছে দৈনিক যুগান্তর এবং দৈনিক সমকাল[৭][৮][৯][১০]

শিশির ভট্টাচার্য্য[সম্পাদনা]

শিশির ভট্টাচার্য্য (জন্ম: ৯ মার্চ ১৯৬০)[১১] বাংলাদেশী চিত্রশিল্পীকার্টুনিস্ট। ১৯৮০ সাল থেকেই তার শিল্পকর্মে রাজনৈতিক প্রতিষ্ঠানগুলোর সমালোচনা বিদ্রুপাত্মক শৈলীতে প্রকাশ পেয়ে আসছে। বাংলাদেশের দৈনিক পত্রিকাগুলোতে তার রাজনৈতিক কার্টুনগুলো নিয়মিত প্রকাশিত হয়। তিনি দেশের রাজনৈতিক বিষয়কে কার্টুনের বলিষ্ঠ অথচ সহজ রেখা আর বিদ্রুপের ভঙ্গিতে সাবলীলভাবে জনগণের কাছে উপস্থাপন করার প্রয়াশ চালিয়েছেন।

মুর্তজা বশীর[সম্পাদনা]

মুর্তজা বশীর (জন্ম : ১৭ আগস্ট ১৯৩২) হচ্ছেন একজন বাংলাদেশী চিত্রশিল্পী, কার্টুনিস্ট এবং ভাষা আন্দোলনের সক্রিয় কর্মী। তার বাবা ছিলেন ড. মুহম্মদ শহীদুল্লাহ। তিনি ১৯৪৯ সালে বগুড়া করনেশন ইন্সটিটিউট থেকে মেট্রিক পাশ করেন। ছাত্র ফেডারেশনের সদস্য হিসেবে তিনি আন্দোলনের সঙ্গে জড়িত হয়েছিলেন। ১৯৪৮ এ, ভাষা আন্দোলনের প্রাথমিক পর্যায়ে, তিনি বগুড়া শহরে আন্দোলনের জন্য বেশ কয়েকটি মিছিল এবং মিটিং আয়োজনে কাজ করেছিলেন। ১৯৪৯ সালে তিনি ঢাকা আর্ট কলেজে ভর্তি হন। তিনি ১৯৫০ সালে ৫ মাস কারাভোগ করেছিলেন এবং পরিশেষে নিস্পাপ প্রমাণিত হয়েছিলেন। ২১শে ফেব্রুয়ারি তিনি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে আমতলার মিটিং যোগ দিয়েছিলেন। সেই দিনের পরবর্তী কালে, ভয়াবহ পরিস্থিতির কারণে ঢাকা জাদুঘরে প্রদর্শনী মুলতবি রাখতে ঢাকা জাদুঘরে যান। তিনি ফেব্রুয়ারি ২২ তারিখের গায়েবানা জানাজাতেও যোগদান করেছিলেন এবং পুলিশ আন্দোলনকারীদের গ্রেপ্তার করার চেষ্টা করলে তারা পলাতক থাকতে বাধ্য হয়েছিলেন। তিনি আন্দোলনের জন্য অনেক কার্টুন এবং ফেস্টুন এঁকেছেন। তার কার্টুনগুলো দেশ ও ভাষার জন্য লড়াই এবং ত্যাগের কথাই স্মরণ করিয়ে দেয়।[১২]

শাহরিয়ার খান[সম্পাদনা]

বেসিক আলী হলো কার্টুনিস্ট শাহরিয়ার খানের রচনা ও অঙ্কনে বাংলা ভাষায় প্রকাশিত একটি কার্টুন স্ট্রিপ। প্রতিদিনের এই স্ট্রিপ কার্টুনের মূল বিষয় হচ্ছে পরিবার, বন্ধুত্ব এবং অফিস ঘিরে মজার মজার সব ঘটনা।

আসিফুল হুদা[সম্পাদনা]

আসিফুল হুদা একজন স্বনামধন্য কার্টুনিস্ট। তিনি ফিচার, গ্যাগ, স্ট্রিপ, বিজ্ঞাপনী, পকেট ও সম্পাদকীয় কার্টুন আঁকেন।

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. কার্টুনের বাংলা অর্থ
  2. কার্টুন কি
  3. ব্রিটিশ জাদুঘর, বেয়ার স্ট্রীট, উইলিয়াম হোঘার্থ-ফাইন আর্ট প্রিন্ট ১১ এপ্রিল ২০১০ সংশোধিত।
  4. http://archive.prothom-alo.com/detail/date/2010-05-08/news/61595
  5. http://www.samakal.com.bd/details.php?news=14&view=archiev&y=2010&m=02&d=16&action=main&menu_type=&option=single&news_id=47385&pub_no=251&type=
  6. টানটান একজন কার্টুনিস্ট লেখেছেন আহসান হাবীব
  7. "বাংলা ট্রিবিউন » কার্টুনিস্ট কী বার্তা দিচ্ছেন সেটি খুব গুরুত্বপূর্ণ : খলিল রহমান"বাংলা ট্রিবিউন। ২০১৫-০২-২৪ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। 
  8. "একজন রাজনৈতিক কার্টুনিস্ট একজন কলামিস্টের মতো : খলিল রহমান"Toons Mag 
  9. "The Best Works of Cartoonist Khalil"Toons Mag 
  10. "খলিলের কার্টুন"এনটিভি অনলাইন। ২০ ফেব্রুয়ারি ২০১৫ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। 
  11. "শিশির ভট্টাচার্য্য"www.dhakaartcenter.org 
  12. আহমেদ, মানোয়ার. ভাষা আন্দোলনের সচিত্র দলিল, আগামী প্রকাশনী, পৃষ্ঠা ৯০-৯১ আইএসবিএন ৯৮৪-৪০১-১৪৭-৭