কারপেন্টারিয়া উপসাগর

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
কার্পেন্টারিয়া উপসাগরের অবস্থান।
১৮৫৯ সালের ওলন্দাজ মানচিত্র থেকে কার্পেন্টারিয়া উপসাগর
বেন্টিঙ্ক দ্বীপ এবং অস্ট্রেলিয়ান মহাদেশের মধ্যে কার্পেন্টারিয়া উপসাগর
বিং বং লোডিং সুবিধা, ২০১১-এ ম্যাকআর্থার রিভার জিংক খনি থেকে আকরিক লোড হচ্ছে
দ্বিতীয় মেলবিডির করুণা নরম্যান নদীর মুখের কাছে নোঙ্গর করেছিলেন

কারপেন্টারিয়া উপসাগর ( ১৪° দক্ষিণ ১৩৯° পূর্ব / ১৪° দক্ষিণ ১৩৯° পূর্ব / -14; 139স্থানাঙ্ক: ১৪° দক্ষিণ ১৩৯° পূর্ব / ১৪° দক্ষিণ ১৩৯° পূর্ব / -14; 139 ) একটি বৃহত, অগভীর সমুদ্র যা পূর্ব, দক্ষিণ ও পশ্চিমে উত্তর অস্ট্রেলিয়া দ্বারা এবং উত্তরে পূর্ব আরাফুরা সাগর (অস্ট্রেলিয়া এবং নিউ গিনির মধ্যে অবস্থিত জলভাগ) দ্বারা সীমাবদ্ধ। উত্তর সীমানাটি সাধারণত উত্তর-পূর্বের কেপ আর্নহামের স্ল্যাড পয়েন্ট, কুইন্সল্যান্ড ( কেপ ইয়র্ক উপদ্বীপের উত্তর-পশ্চিম কোণ) থেকে পশ্চিমে উত্তর অঞ্চলের আর্নহাম ল্যান্ডের পূর্বতম পয়েন্ট পর্যন্ত একটি রেখা হিসাবে সংজ্ঞায়িত হয়।

উপসাগরের মোহনায় এটি ৫৯০ কিলোমিটার প্রশস্ত এবং আরও দক্ষিণে প্রস্থ ৬৭৫ কিলোমিটার অবধি চওড়া। উত্তর-দক্ষিণ দৈর্ঘ্য ৭০০ কিলোমিটার মত। এটির আয়তন প্রায় ৩০০,০০০ বর্গকিলোমিটার। সাধারণ গড় গভীরতা ৫৫ মিটার থেকে ৬৬ মিটার এবং গভীরতম বিন্দুর গভীরতা ৮২ মিটার । [১] কার্পেন্টারিয়া উপসাগরে জোয়ারের পরিধি দুই থেকে তিন মিটারের মধ্যে। [২] উপসাগর ও তৎসংলগ্ন সাহুল শেল্ফটি ১৮,০০০ বছর আগের সর্বশেষ বরফ যুগে শুকনো ভূমি ছিল যখন বিশ্ব্ব্যাপী সমুদ্রের স্তরটি বর্তমান অবস্থানের চেয়ে প্রায় ১২০ মিটার নিচে ছিল। সেই সময়ের একটি বৃহত, অগভীর হ্রদ এখন উপসাগরীয় অঞ্চলের কেন্দ্রস্থলটি দখল করেছে। [৩] উপসাগরীয় অঞ্চলে একটি নিমজ্জিত প্রবাল প্রাচীর রয়েছে, যা ২০১৪ সালে আবিস্কৃত হয়েছে। [৪]

ইতিহাস[সম্পাদনা]

ইউলুনা (ইয়ালারঙ্গা, ইয়ালারঙ্গা, জলঙ্গা, জলংঙ্গা, ওঙ্গানজা, গুংগালিডা, জোকুলা) নামেও পরিচিত একটি অস্ট্রেলিয়ান আদিবাসী ভাষা । ইউলুনা ভাষা অঞ্চলের মধ্যে শায়ার অফ ক্লোনকুরির প্রদেশটি অন্তর্ভুক্ত। [৫]

কায়ার্ডাইল্ড (কায়াডিল্ট এবং গায়াডিল্টা নামেও পরিচিত) কার্পেন্টারিয়া উপসাগরীয় অঞ্চলের আরও একটি ভাষা। কায়ার্ডিল্ড ভাষা অঞ্চলের মধ্যে রয়েছে মর্নিংটন শায়ার কাউন্সিলের স্থানীয় প্রদেশটি। [৬]

এই উপসাগরীয় অঞ্চলটি (এবং অস্ট্রেলিয়া) পরিদর্শনকারী প্রথম ইউরোপীয় অভিযাত্রী ছিলেন ওলন্দাজ বংশোদভূত উইলিয়াম জনসন (যার নামটি জানস নামেও লেখা হয়)। তিনি ১৬০৫-০৬ সালে এই অঞ্চলে পরিভ্রমণ করেছিলেন । পরে অন্য এক ওলন্দাজ অভিযাত্রী, জন কার্সটেনসুন (বা কার্সটেনস্ ), ১৬২৩ সালে এই অঞ্চলটি পরিদর্শন করেছিলেন এবং তদানীন্তন ডাচ ইস্ট ইন্ডিজের গভর্নর-জেনারেল পিটার ডি কার্পেন্টিয়ার সম্মানে এই উপসাগরটির নামকরণ করেছিলেন কার্পেন্টিয়ার উপসাগর । আবেল তাসমান ১৬৪৪ সালে এই অঞ্চলে অভিযান চালান। ১৮০২ এবং ১৮০৩ সালে ম্যাথু ফ্লিন্ডার এই অঞ্চল পরিদর্শন এবং নথিভুক্তিকরণ করেন।

রবার্ট ও'হারা বার্ক এবং উইলিয়াম জন উইলসের নেতৃত্বে বার্ক অ্যান্ড উইলস অভিযান টি ছিল আরও একটি গুরুত্বপূর্ণ অভিযান। অভিযাত্রীরা মেলবোর্ন, ভিক্টোরিয়া থেকে ১৮৬০ সালের আগস্টে অভিযান শুরু করেন এবং ১৮৬১ সালের ফেব্রুয়ারি তে বাইনো নদীর মোহনাতে পৌছান।

ভূগোল[সম্পাদনা]

উপসাগরের সীমানা জমি সাধারণত সমতল এবং নিম্নচাপের হয়। পশ্চিমে রয়েছে আর্নহাম ল্যান্ড, উত্তর টেরিটরির শীর্ষ প্রান্ত এবং উপসাগরের বৃহত্তম দ্বীপ গ্রুয়েট আইল্যান্ড্ট। পূর্বে কেপ ইয়র্ক উপদ্বীপ এবং টরেস স্ট্রিট যা উপসাগরকে কোরাল সাগরে মিশে । দক্ষিণে অঞ্চল (কেপ ইয়র্ক উপদ্বীপের মতো কুইন্সল্যান্ডের অংশ) উপসাগরীয় দেশ হিসাবে পরিচিত।

উপসাগরীয় দেশটি বিশ্বের বৃহত্তম অক্ষত সাভান্না কাঠের ভূখণ্ডের পাশাপাশি নেটিভ তৃণভূমিকে সমর্থন করে যা কার্পেন্টারিয়া গ্রীষ্মমন্ডলীয় সাভান্না নামে পরিচিত। বনভূমিগুলি উপসাগরের পশ্চিম এবং পূর্ব উপকূল পর্যন্ত প্রসারিত হয়। ম্যারিটেসি পরিবার থেকে তাদের ইউক্যালিপটাস এবং মেলালিউকা প্রজাতির আধিপত্য রয়েছে।

প্রবালদ্বীপ[সম্পাদনা]

প্রধান নদী[সম্পাদনা]

শীর্ষ প্রান্তে রোপার নদী, ওয়াকার নদী এবং উইল্টন নদী উপসাগরে প্রবাহিত হয়। কক্স নদী, ক্যালভার্ট নদী, লেইচার্ড নদী, ম্যাকআর্থার নদী, ফ্লিন্ডার্স নদী, নরম্যান নদী এবং গিলবার্ট নদী উপসাগরীয় অঞ্চলের জল নিষ্কাশন করে। স্মিপবার্ন নদী, মিশেল নদী, অ্যালিস নদী, স্ট্যাটেন নদী, মিশন নদী, ওয়েনলক নদী এবং আর্চার নদী সহ বেশ কয়েকটি নদী কেপ ইয়র্ক উপদ্বীপ থেকে উপসাগরে প্রবাহিত হয়েছে ।

শিল্প[সম্পাদনা]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. http://permanent.access.gpo.gov/websites/pollux/pollux.nss.nima.mil/NAV_PUBS/SD/pub175/175sec01.pdf
  2. Encyclopedia of World's Coastal Landforms 
  3. Torgersen, T., Hutchinson, M.F., Searle, D.E., Nix, H.A., 1983. General bathymetry of the Gulf of Carpentaria and the Quaternary physiography of Lake Carpentaria. Palaeogeogr., Palaeoclimatol., Palaeoecol. 41, 207-225
  4. Harris, P.T., Heap, A.D., Marshall, J.F., McCulloch, M.T., 2008. A new coral reef province in the Gulf of Carpentaria, Australia: colonisation, growth and submergence during the early Holocene. Marine Geology 251, 85-97.
  5. টেমপ্লেট:Cite SLQ-CC-BY
  6. টেমপ্লেট:Cite SLQ-CC-BY