কাফে দ্য লা রেজঁস

স্থানাঙ্ক: ৪৮°৫১′৩৬″ উত্তর ২°২০′৩৩″ পূর্ব / ৪৮.৮৫৯৯০° উত্তর ২.৩৪২৬০° পূর্ব / 48.85990; 2.34260
উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
হাওয়ার্ড স্টন্টনপিয়ের শার্ল ফুর্নিয়ে দ্য সাঁতামঁ-র মধ্যকার বিখ্যাত দাবা খেলার দান, ১৮৪৩ খ্রিস্টাব্দের ১৬ই ডিসেম্বর। চিত্রশিল্পী জঁ-অঁরি মার্লে
১৯শ শতকে কাফে দ্য লা রেজঁসের বহির্ভাগ
কাফে দ্য লা রেজঁসে পল মর্ফির চোখে না দেখে দাবা খেলার প্রদর্শনী, ১৮৪৮

কাফে দ্য লা রেজঁস (ফরাসি: Cafe de la Régence) ফ্রান্সের প্যারিস নগরীতে অবস্থিত একটি বিলুপ্ত কফিঘর যেটি ১৮শ ও ১৯শ শতকে ইউরোপের দাবাড়ুদের একটি গুরুত্বপূর্ণ কেন্দ্র ছিল। ঐ সময়ের প্রায় সব গুরুত্বপূর্ণ ওস্তাদ দাবাড়ুরা সেখানে খেলতেন। তাদের মধ্যে পল মর্ফি, ফ্রঁসোয়া-অঁদ্রে দানিকঁ ফিলিদর (যিনি প্রায়শই সেখানে মার্কিন রাষ্ট্রদূত বেঞ্জামিন ফ্রাঙ্কলিনের সাথে সাক্ষাৎ করতেন), লেগাল দ্য কের্ম্যর (ফিলিদরের শিক্ষক), জ্যুল আর্নু দ্য রিভিয়ের, আডলফ আন্ডেরসেন, স্যামুয়েল রোজেনথাল, পিয়ের শার্ল ফুর্নিয়ে দ্য সাঁতামঁ, লিওনেল কিসেরিৎস্কি, লুই-শার্ল মায়ে দ্য লা বুর্দনে, প্রমুখের নাম বিশেষভাবে উচ্চার্য।

দাবাড়ু ছাড়াও এই কফিঘরে ১৮শ ও ১৯শ শতকের বহু ফরাসি ও ইউরোপীয় বুদ্ধিজীবী ও রাজনীতিবিদ এখানে মিলিত হতেন (কাফে প্রোকোপ এরকম আরেকটি কফিঘর ছিল)। তাদের মধ্যে ফরাসি বিপ্লবের নায়ক মাক্সিমিলিয়াঁ রোবেস্পিয়ের, দ্যনি দিদেরো, নাপোলেওঁ বোনাপার্ত, ভলতেয়ার, প্রমুখের নাম উল্লেখ্য।

ঠিকানা[সম্পাদনা]

কফিঘরটি ১৬৮১ খ্রিস্টাব্দে প্যারিসের রাজকীয় বাসভবন পালে-রোয়াইয়ালের কাছেই কাফে দ্য লা প্লাস দ্যু পালে-রোয়াইয়াল নামে খোলা হয়। ১৮শ শতক নাগাদ এটি কাফে দ্য লা রেজঁস নামধারণ করে। ১৮৫২ সালে কফিঘরটিকে সাময়িকভাবে ২১নং, র‍্যু দ্য রিশলিয়্যো ঠিকানাতে অবস্থিত ওতেল দোদাঁ-তে স্থানান্তরিত করা হয়। ১৮৫৪ সালে এটি ১৬১নং, র‍্যু সাঁতোনোরে-তে স্থানান্তরিত হয় এবং ১৯১০ সাল পর্যন্ত সেখানেই অবস্থান করে, যখন সেটিকে একটি রেস্তোরাঁতে রূপান্তরিত করা হয়। ১৯১৬ সালে দাবাড়ুরা কাফে দ্য ল্যুনিভের-এ খেলা শুরু করেন। ১৯১৮ সালে মরক্কোর জাতীয় পর্যটন কার্যালয়টি ভবনটি নিয়ন্ত্রণে নেয়।

কিছু উল্লেখযোগ্য ঘটনা[সম্পাদনা]

  • ১৮৬৭ সালের দাবার মহা-প্রতিযোগিতা। ইগ্নাৎস ফন কোলিশ এটিতে সিমন ভিনাভের ও ভিলহেল্ম ষ্টাইনিৎসের বিরুদ্ধে জয়লাভ করেন।
  • লা সোসিয়েতে দে জামাত্যর (La Société des Amateurs) এই কফিঘরে অবস্থিত ছিল।
  • ১৭৪২ সালে এখানে বিখ্যাত ফরাসি লেখক ও দার্শনিক দ্যনি দিদ্যরো ও জঁ-জাক রুসো সাক্ষাৎ করেন।[১]
  • ১৮৪৪ সালের ২৮শে আগস্ট কার্ল মার্ক্সফ্রিডরিখ এঙেলসের মধ্যকার গুরুত্বপূর্ণ দ্বিতীয় সাক্ষাৎটি এখানেই অনুষ্ঠিত হয়, যার পর থেকে তাদের মধ্যে আজীবন ব্যক্তিগত ও পেশাদারি বন্ধুত্ব গড়ে ওঠে।[২]
  • নরওয়েজীয় চিত্রকর এডভার্ড মুনশ ১৮৮৫ সালের ৪ঠা মে ফরাসি অন্তর্মুদ্রাবাদী শিল্পীদেরকে অধ্যয়নের উদ্দেশ্যে তাঁর প্রথম ফ্রান্স সফরে এই কফিঘরটিতে বেড়াতে যান।[৩]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. Goldzink, Jean, XVIIIème siècle 
  2. While at their first meeting, a few years before, they were not very impreased with each other, the meeting at the Paris cafe was the start of their lifelong personal and political association. Marx, Karl; Engels, Friedrich (১৯৬৪-০১-০১)। The Communist Manifesto (ইংরেজি ভাষায়)। Pantheon Books – Google Books-এর মাধ্যমে। 
  3. Prideaux, Sue (২০০৫)। Edvard Munch - Behind the Scream। Yale University Press। পৃষ্ঠা 27। 

উৎসপঞ্জি[সম্পাদনা]

  • Shenk, David (২০০৬)। The Immortal Game: A history of chessDoubledayআইএসবিএন 0-385-51010-1 
  • Metzner, Paul (১৯৯৮)। Crescendo of the Virtuoso – cdlib.org-এর মাধ্যমে। 
  • Whyld, Ken (২০০৬)। Chess Christmas। Olomouc: Moravian Chess। S. 311-321। আইএসবিএন 80-7189-559-8 

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]



টেমপ্লেট:Chess-stub