কাকাপো

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
সরাসরি যাও: পরিভ্রমণ, অনুসন্ধান
কাকাপো
Sirocco full length portrait.jpg
মাউড আইল্যান্ডে একটি পুরুষ সিরোক্কো তোঁতা
বৈজ্ঞানিক শ্রেণীবিন্যাস e
অপরিচিত শ্রেণী (ঠিক করুন): Strigops
প্রজাতি: S. habroptilus
দ্বিপদী নাম
Strigops habroptilus
G.R. Gray, 1845

কাকাপো (মাউরিঃ kākāpō অর্থ রাতের তোতা), আউল প্যারোট (পেঁচামুখো তোঁতা) নামেও পরিচিত, নিশাচর, ভূ-চর, নিউজিল্যান্ডের এন্ডেমিক পাখি[২]। এর গাঁয়ের পাখনার রঙ হলুদাভ সবুজ, বড় আকারের ঠোঁটের রঙ ধূসর, ছোট পা, পায়ের থাবা বড়, ডানা ও লেজের দৈর্ঘ্য তুলনামূলকভাবে কম। অন্যান্য তোতা থেকে আলাদা করার মত বৈশিষ্ট্য হচ্ছে এরাই একমাত্র তোঁতা যারা ওড়ে না, সব থেকে ভারী তোঁতা, নিশাচর, তৃণভোজী। এটাই সম্ভবত পৃথিবীর সব থেকে দীর্ঘজীবি পাখি[৩]

শ্রেণীবিন্যাস[সম্পাদনা]

১৮৪৫ সালে ইংরেজ অরনিথোলজিস্ট জর্জ রবার্ট গ্রে কাকাপো সম্পর্কে বর্ণনা করেন। কাকাপো শব্দটি হচ্ছে মাউরি শব্দ কাকা পো'র ইংরেজী অনুবাদ। মাউরি কাকা অর্থ তোঁতা এবং পো অর্থ রাত। এটার জেনেরিক নাম নেওয়া হয়েছে প্রাচীন গ্রীক থেকে যার অর্থ পেঁচা মুখো।

বর্ণনা[সম্পাদনা]

কাকাপো বড় পাখি, প্রাপ্তবয়স্ক পাখির দৈর্ঘ্য ৫৮-৬৪ সেমি এবং ওজনে ০.৯৪ থেকে ৪ কেজি পর্যন্ত হয়। স্ত্রী পাখির তুলনায় পুরুষ পাখির আকার বড়। এরাই পৃথিবীর সব থেকে বড় জীবিত তোতা। কাকাপো উড়তে অক্ষম পাখি। এদের ছোট ডানা ওড়ার জন্য সক্ষম নয়।

স্বভাব[সম্পাদনা]

কাকাপো নিশাচর প্রাণী, এরা দিনের বেলা গাছের আড়ালে অথবা ভূমিতে লুকিয়ে থাকে এবং রাতের বেলা চলাফেরা করে। কাকাপো উড়তে না পারলেও খুব ভালো গাছ বাইতে পারে। এরা স্বাচ্ছন্দ্যে উঁচু গাছে চড়ে যায়। এবং গাছ থেকে নিজের ক্ষুদ্র ডানা প্যারাসুটের মত ব্যবহার করে মাটিতে নেমে আসতে পারে। এদের পা খুবই সুগঠিত, পায়ে হেটে এরা কয়েক কিলোমিটার পর্যন্ত চলতে পারে।

মাউরি সংস্কৃতিতে[সম্পাদনা]

মাউরি লোক সাহিত্যে এবং বিশ্বাসের সাথে কাকাপো ওতপ্রোতভাবে জড়িয়ে আছে। তারা বিশ্বাস করে কাকাপো পাখি ভবিষ্যত বলতে পারে।

মিডিয়ায়[সম্পাদনা]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "Strigops habroptila"বিপদগ্রস্ত প্রজাতির আইইউসিএন লাল তালিকা। সংস্করণ 2013.2প্রকৃতি সংরক্ষণের জন্য আন্তর্জাতিক ইউনিয়ন। ২০১৩। সংগৃহীত ২৬ নভেম্বর ২০১৩ 
  2. Best, H. A. (১৯৮৪)। "The foods of kakapo on Stewart Island as determined from their feeding sign" (PDF)। New Zealand Journal of Ecology 7: 71–83। সংগৃহীত ১৫ জানুয়ারি ২০১৬ 
  3. Powlesland, Ralph G.; Merton, Don V.; Cockrem, John F. (২০০৬)। "A parrot apart: the natural history of the kakapo (Strigops habroptilus), and the context of its conservation management"Notornis 53 (1): 3–26। 

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]