বিষয়বস্তুতে চলুন

কাওশিউং মসজিদ

স্থানাঙ্ক: ২২°৩৭′৪০.৮″ উত্তর ১২০°২০′৩০.৯″ পূর্ব / ২২.৬২৮০০০° উত্তর ১২০.৩৪১৯১৭° পূর্ব / 22.628000; 120.341917
উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
কাওশিউং মসজিদ
高雄清真寺
ধর্ম
অন্তর্ভুক্তিইসলাম
শাখা/ঐতিহ্যসুন্নি
অবস্থান
অবস্থান১১ জিয়ানজুন রোড়,[১] কাওশিউং, তাইওয়ান
কাওশিউং মসজিদ তাইওয়ান-এ অবস্থিত
কাওশিউং মসজিদ
তাইওয়ানের মধ্যে প্রদর্শিত
স্থানাঙ্ক২২°৩৭′৪০.৮″ উত্তর ১২০°২০′৩০.৯″ পূর্ব / ২২.৬২৮০০০° উত্তর ১২০.৩৪১৯১৭° পূর্ব / 22.628000; 120.341917
স্থাপত্য
ধরনমসজিদ
সম্পূর্ণ হয়জানুয়ারি ১৯৪৯ (মূল ভবন)
১৯৫১ (দ্বিতীয় ভবন)[তথ্যসূত্র প্রয়োজন]
এপ্রিল ১৯৯২ (বর্তমান ভবন)
নির্মাণ ব্যয়ইউ.এস. $১৯০০০০০
ওয়েবসাইট
www.kh-masjid.org.tw (চীনা ভাষায়)

কাওশিউং মসজিদ (চীনা: Kaohsiung Mosque; ফিনিন: Gāoxiong Qīngzhēnsì) তাইওয়ানের কাওশিউং শহরের লিঙ্গিয়া জেলায় অবস্থিত একটি মসজিদ।[২] তাইপের তাইপে গ্র্যান্ড মসজিদের পর এটি তাইওয়ানে নির্মিত দ্বিতীয় মসজিদ।

ইতিহাস

[সম্পাদনা]

প্রথম ভবন

[সম্পাদনা]
কাওশিউং মসজিদের প্রথম ভবন

চীনের গৃহযুদ্ধে কমিউনিস্টদের বিরুদ্ধে পরাজয়ের পর মুসলিম জাতীয়তাবাদীরা ১৯৪৯ সালে তাইওয়ানে কাওশিউং মসজিদটি তৈরি করে।[৩] শুরুতে, মুসলিম পাবলিক কর্মকর্তারা তাইওয়ানে একটি নতুন মসজিদ নির্মাণের পরামর্শ দেওয়ার জন্য কুওমিনতাং সরকারের সাথে কাজ করে এবং ১৯৪৯ সালের জানুয়ারি থেকে তহবিল সংগ্রহ শুরু করে। প্রাথমিকভাবে, তারা একটি অস্থায়ী অবস্থান হিসাবে ইয়ানচেং জেলায় ১১৭ উফু ৪র্থ (五福四) রোডে ২৭০ বর্গ মিটার জায়গা ভাড়া নেয়।[৪]

দ্বিতীয় ভবন

[সম্পাদনা]

১১৭ উফু ৪র্থ রোডে সীমিত জায়গার কারণে তারা ১৯৫১ সালে সিনসিং জেলার ১৯৬ লিনসেন ১ম (林森一) রোডে একটি ৪৬০ বর্গ মিটার আয়তনের জাপানি কাঠের শৈলীর ভবনে স্থানান্তরিত হয়। সেখানে প্রধান প্রার্থনা হলের আয়তন ছিল ১৩৫ বর্গ মিটার। মুসলিম উপাসকদের ক্রমবর্ধমান সংখ্যার সাথে সাথে তারা নতুন মসজিদের জন্য তহবিল সংগ্রহ করতে শুরু করে। ১৯৮৮ সালের অক্টোবরে তারা পুরানো মসজিদের জমি বিক্রি করে দেয় এবং সেখান থেকে তারা যে অর্থ পায় তা নতুন মসজিদ নির্মাণে অর্থায়নে ব্যবহার করে। ১৯৬ লিনসেন ১ম রোড়ে বর্তমানে "ফারইসটোন" এর কাস্টমার কেয়ার সার্ভিস সেন্টার আছে।

[৫][৬]

বর্তমান ভবন

[সম্পাদনা]
কাওশিউং মসজিদের প্রার্থনা হল

অবশেষে তারা ১৯৯০ সালের ফেব্রুয়ারিতে তাদের ক্রমবর্ধমান সংখ্যক মুসলমানদের থাকার জন্য মসজিদটিকে বৃহত্তর স্থানে এবং আরও ভা্লো সজ্জিত ভবন হিসাবে লিঙ্গিয়া জেলার ১১ জিয়ানজুন (建軍) রোডে স্থানান্তরিত করে। এর নির্মাণকাজ শুরু হয় ১৭ ডিসেম্বর ১৯৯০ সালে এবং কাজ সম্পন্ন হয় ১৯৯১ সালের ডিসেম্বরের শেষের দিকে। তবে, এটি উন্মুক্ত করা হয় ১৯৯২ সালের এপ্রিলে।[৭] এটি নির্মাণে খরচ হয় ইউ.এস. $1,900,000.[৮]

স্থাপত্য

[সম্পাদনা]
কাওশিউং মসজিদে জুমার নামাজ

কাওশিউং মসজিদটি তিন তলা ভবন, যেখানে একটি বড় মধ্যপ্রাচ্য়ের খিলান রয়েছে।[৯] প্রার্থনা হলের নকশা, তাক, কোণ এবং ভবনের উপাদানগুলো মধ্যপ্রাচ্য়ের ঐতিহ্যবাহী মসজিদগুলোর উপর ভিত্তি করে নির্মাণ করা হয়। ভবনটি প্রায় ২৬৫৭ বর্গ মিটার এলাকা জুড়ে রয়েছে।

প্রথম তলায় পুরুষ ও মহিলা ছাত্রাবাস, মহিলা প্রার্থনা কক্ষ এবং মহিলা কার্যকলাপ কেন্দ্র। দ্বিতীয় তলায় প্রধান প্রার্থনা হল, আরবি ভাষার অধ্যয়ন কেন্দ্র এবং ইসলামী সংস্কৃতি প্রদর্শন কক্ষ। তৃতীয় তলায় গেস্ট রুম, যুব কার্যকলাপ কেন্দ্র, অফিস এবং রান্নাঘর। এছাড়াও মসজিদটিতে ইমামের কার্যালয়, প্রশাসনিক কার্যালয়, গ্রন্থাগার এবং ওযুর জায়গাও রয়েছে।[১০]

মসজিদের পাশে মুসলমানদের মালিকানাধীন কিছু হালাল রেস্তোরাঁ রয়েছে।

যাতায়াত

[সম্পাদনা]

কাওশিউং মসজিদটি কাওশিউং এম.আর.টি এর "ওয়েইউইয়িং" স্টেশন থেকে উত্তরে অবস্থিত। ওয়েইউইয়িং" স্টেশন থেকে কাওশিউং মসজিদে হেঁটে যাওয়া যায়।[১১]

আরও দেখুন

[সম্পাদনা]

তথ্যসূত্র

[সম্পাদনা]
  1. "Weiwuying station, Lingya District, Taiwan - Google Maps"। Maps.google.com। ১৯৭০-০১-০১। সংগ্রহের তারিখ ২১ এপ্রিল ২০১৪ 
  2. Quartly, Jules (২২ জানুয়ারি ২০২১)। "Night Markets Find Ways to Get with the Times"AmCham Taiwan। সংগ্রহের তারিখ ২২ জানুয়ারি ২০২১ 
  3. "The Kaohsiung Mosque"Kaohsiung Travel। ১৭ নভেম্বর ২০২০। ২ জুন ২০২১ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ৪ জুলাই ২০২১ 
  4. No. 117, Wufu 4th Rd, Yancheng District (১৯৭০-০১-০১)। "117, Wufu 4th Rd - Google Maps"। Maps.google.com। সংগ্রহের তারিখ ২১ এপ্রিল ২০১৪ 
  5. "Service Locations"। Fetnet.net। ২৩ এপ্রিল ২০১৪ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২১ এপ্রিল ২০১৪ 
  6. No. 196, Linsen 1st Rd, Xinxing District (১৯৭০-০১-০১)। "196 Línsēn 1st Road, Xinxing District, Taiwan - Google Maps"। Maps.google.com। সংগ্রহের তারিখ ২১ এপ্রিল ২০১৪ 
  7. "KAOHSIUNG MOSQUE"Taiwan, the Heart of Asia (মালয় ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ১৬ নভেম্বর ২০২১ 
  8. "Building Faith"Taiwan Today। ১ মে ১৯৯২। সংগ্রহের তারিখ ১০ ফেব্রুয়ারি ২০২১ 
  9. Dewi, Karlina Sintia (১৬ মে ২০১৯)। "Melihat Perkembangan Islam di Negeri Formosa Taiwan" [Witnesing the Development of Islam in the State of Formosa Taiwan]। Liputan6 (ইন্দোনেশীয় ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২২ জানুয়ারি ২০২১ 
  10. "Taiwan 2012 - Kaohsiung Mosque | Flickr - Photo Sharing!"। Flickr। ১৬ ডিসেম্বর ২০১২। সংগ্রহের তারিখ ২১ এপ্রিল ২০১৪ 
  11. Thomas, John (২৬ জুন ২০১৭)। "Taiwan – The Halal Traveler's Ultimate Destination"Arabian Gazette। ২৩ জুন ২০২০ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২০ জানুয়ারি ২০২১ 

বহিঃসংযোগ

[সম্পাদনা]