কলকাতা মেট্রো লাইন ৪

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
লাইন ৪
Kolkata Metro Logo.svg
সংক্ষিপ্ত বিবরণ
অন্য নামনোয়াপাড়া-বারাসাত মেট্রো
ধরনদ্রুত পরিবহন
শৃঙ্খলাংশকলকাতা মেট্রো
অবস্থানির্নিয়মান
সেবাগ্রহণকারী অঞ্চলবৃহত্তর কলকাতা
বিরতিস্থলনোয়াপাড়া (দক্ষিণ)
বারাসাত (উত্তর)
সংযুক্ত লাইনসমূহ Line 1   Line 6 
দৈনিক যাত্রীসংখ্যা২.৫ লক্ষ প্রতিদিন (অনুমান করা হচ্ছে)
ক্রিয়াকলাপ
উদ্বোধনের তারিখ২০২১
মালিকমেট্রো রেলওয়ে, কলকাতা
পরিচালনাকারীমেট্রো রেলওয়ে, কলকাতা
চরিত্রউত্তলিত ও ভূগর্ভস্থ
ঘাঁটি(গুলি)নোয়াপাড়া ডিপো
বিমানবন্দর ডিপো
প্রযুক্তিগত
রেললাইনের মোট দৈর্ঘ্য১৬.৮৭৬ কিলোমিটার (১০.৪৮৬ মা)[১]
ট্র্যাক গেজ১,৬৭৬ মিলিমিটার (৫ ফুট ৬ ইঞ্চি) ব্রডগেজ
চালন গতি৮০কিমি/ঘণ্টা

কলকাতা মেট্রো লাইন ৪ বা নোয়াপাড়া-বারাসাত মেট্রো দমদমের নোয়াপাড়া, বিমানবন্দর ও বারাসাতকে যুক্ত করবে।[২] এই পথের মোট দৈর্ঘ্য ১৭.১৩ কিলোমিটার এবং এই মোট্রো পথে ৯ টি মেট্রো স্টেশন তৈরি হবে।

পথ[সম্পাদনা]

কলকাতা মেট্রোর লাইন ৪ নোয়াপাড়া মেট্রো স্টেশন থেকে শুরু হয়। এই স্টেশনটি উত্তোলিত পথে অবস্থিত। এর স্টেশন থেকে লাইন ৪ দক্ষিণ দিকে অগ্রসর হয়ে কেষ্টপুর খাল অতিক্রম করে লাইন ১ সঙ্গে একটি ক্রসওভার দ্বারাযুক্ত হয়। এর পরে রেলপথটি পূর্ব দিকে বাঁক নিয়ে প্রথম কেষ্টপুর খাল ও পরে নোয়াপাড়া ডিপোর প্রবেশ পথের রেল ট্র্যাক অতিক্রম করে। এর পর লাইন ৪ পূর্ব-দক্ষিণে বাঁক নিয়ে কেষ্টপুর খালের বামপাশে অগ্রসর হয়ে রবীন্দ্র সরণি (বেদিয়াপাড়া) অতিক্রম করে। এর পর রেলপথটি কেষ্টপুর খালের বামপাশে এবং ক্ষুদিরাম সরণির ডান পাশে অগ্রসর হয়। এর পর রেলপথটি শিয়ালদহ-বনগাঁ রেলপথের আগে উত্তর-পূর্ব দিকে বাঁক নিয়ে শিয়ালদহ-বনগাঁ রেলপথের বাম পাশ বরাবর অগ্রসর হয়। লাইন ৪ দমদম ক্যান্টনমেন্টের বনগাঁগামী প্রান্তে দক্ষিণ-পূর্ব দিকে বাঁক নিয়ে শিয়ালদহ-বনগাঁ রেলপথের অতিক্রম করে কলকাতা চক্ররেল-এর রেলপথ ধরে চলতে থাকে। রেলপথটি যশোর রোডের উপর উত্তর দিকে বাঁক নিয়ে যশোর রোডকে অতিক্রম করে এবং ডান পাশ বরাবর অগ্রসর হয়। রেলপথটি যশোর রোড থেমেট্রো স্টেশনে ভূমিস্তরে নেমে আসে এবং এই স্টেশনের পরে রেলপথটি ভূগর্ভস্ত সুড়ঙ্গে প্রবেশ করে। এর পরে লাইন ৪ সুড়ঙ্গ পথে কাজী নজরুল ইসলাম সরণি (জাতীয় সড়ক ১২) অতিক্রম করে এবং কলকাতা বিমানবন্দরের পশ্চিম পাশ দিয়ে অগ্রসর হয়ে বিমানবন্দর স্টেশনে পৌছায়। বিমানবন্দর স্টেশনে থেকে পশ্চিমে বাঁক নিয়ে যশোর রোডের নিয়ে পৌছায় এবং যশোর রোডের বরাবর ভূগর্ভস্ত সুড়ঙ্গ পথে অগ্রসর হয়। মাইকেল নগরে রেলপথটি পূর্ব দিকে বাঁক নেয় নিউ ব্যারাকপুর মেট্রো স্টেশনে (প্রস্তাবিত) পৌছায়। এই স্টেশনের পরে রেলপথটি ভূগর্ভস্ত পথ থেকে উত্তোলিত পথে চলতে শুরু করে এবং বিদ্যাধরী খালে উত্তর দিকে বাঁক নিয়ে অগ্রসর হয়। এর পরে রেলপথটি শিয়ালদহ-বনগাঁ রেলপথের আগে উত্তর-পূর্ব দিকে বাঁক নিয়ে শিয়ালদহ-বনগাঁ রেলপথের ডান পাশে চলতে থাকে। লাইন ৪ মধ্যমগ্রামে সোদপুর রোড এবং বারাসাতে প্রথমে যশোর রোড ও বারাসাত স্টেশনের আগে বারাসাত উড়ালপুল অতিক্রম করে বারাসাত স্টেশনে সমাপ্ত হয়।

প্রথম অংশ[সম্পাদনা]

কলকাতা মেট্রো লাইন ৪ এর প্রথয অংশ নোয়াপাড়া ও বিমানবন্দরের মধ্যে নির্মাণ কাজ চলছে। এই অংশের দৈর্ঘ্য হবে ৬.৯ কিমি।এই অংশের বিমানবন্দর স্টেশন হবে ভূগর্ভস্থ। এই অংশে ৩ টি মেট্রো স্টেশন নির্মাণ কিরা হবে ।

দ্বিতীয় অংশ[সম্পাদনা]

দ্বিতীয় অংশ হিসাবে বিমানবন্দর ও বারাসাতের মধ্যে মেট্রো রেল নির্মিত হবে। এই অংশে মোট ৬ টি স্টেশন রয়েছে। এই পথের দৈর্ঘ্য হল ১০.২৩ কিলোমিটার। এই পথের মেট্রো রেল বিমানবন্দর স্টেশনের পড় কিছু অংশ ভূগর্ভে নির্মিত হবে ও বাকি অংশ উত্তলিত পথে নির্মাণ করা হবে।

মেট্রো স্টেশন গুলি[সম্পাদনা]

কলকাতা মেট্রো লাইন ৪ বা নোয়াপাড়া বারাসাত মেট্রো পথে মোট ৯ টি মেট্রো স্টেশন নির্মিত হবে।[৩] এই স্টেশন গুলা হল-

নোয়াপাড়া-বারাসত লাইন[সম্পাদনা]

# স্টেশনের নাম অঞ্চল সংযোগ উদ্বোধন অবস্থান উল্লেখযোগ্য তথ্য সূত্র
নোয়াপাড়া নোয়াপাড়া, উত্তর চব্বিশ পরগনা
নির্মীয়মান উড়াল
[৪][৫]
মৌলানা আবুল কালাম আজাদ দমদম ক্যান্টনমেন্ট, দমদম, উত্তর চব্বিশ পরগনা
নির্মীয়মান উড়াল ভারতের স্বাধীনতা সংগ্রামে অংশগ্রহণকারী বিপ্লবী মৌলানা আবুল কালাম আজাদের নামে উৎসর্গিত। [৪][৬]
রামকৃষ্ণ পল্লি দমদম, উত্তর চব্বিশ পরগনা
নির্মীয়মান উড়াল
[৪]
জীবনানন্দ যশোর রোড, দমদম, উত্তর চব্বিশ পরগনা
নির্মীয়মান উড়াল কবি জীবনানন্দ দাশের নামে উৎসর্গিত। [৪][৬]
শান্তিনগর দমদম, উত্তর চব্বিশ পরগনা
নির্মীয়মান উড়াল
[৪]
জয় হিন্দ নেতাজি সুভাষচন্দ্র বসু আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর, দমদম, উত্তর চব্বিশ পরগনা
নির্মীয়মান উড়াল সুভাষচন্দ্র বসু সৃষ্ট "জয় হিন্দ" ধ্বনিটির নামানুসারে স্টেশনটির নামকরণ করা হয়েছে। [৪][৬]
লোকনাথ বিরাটি, উত্তর চব্বিশ পরগনা
প্রস্তাবিত উড়াল হিন্দু ধর্মগুরু লোকনাথ ব্রহ্মচারীর নামে উৎসর্গিত। [৪][৬]
মাদার টেরিজা নিউ ব্যারাকপুর, উত্তর চব্বিশ পরগনা
প্রস্তাবিত উড়াল নোবেলজয়ী সেবাকর্মী মাদার টেরিজার নামে উৎসর্গিত। [৪][৬]
প্রমথরঞ্জন ঠাকুর মধ্যমগ্রাম, উত্তর চব্বিশ পরগনা
প্রস্তাবিত উড়াল মতুয়া ধর্মনেতা প্রমথরঞ্জন ঠাকুরের নামে উৎসর্গিত। [৪][৬]
১০ বিভূতিভূষণ হৃদয়পুর, বারাসত, উত্তর চব্বিশ পরগনা
প্রস্তাবিত উড়াল সাহিত্যিক বিভূতিভূষণ বন্দ্যোপাধ্যায়ের নামে উৎসর্গিত। [৪][৬]
১১ বারাসত বারাসত, উত্তর চব্বিশ পরগনা
প্রস্তাবিত উড়াল
[৪]

আরও দেখুন[সম্পাদনা]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "New System Map of Kolkata Metro" 
  2. Mandal, Sanjay (২৯ জুলাই ২০০৯)। "Circle of Metro commute"The Telegraph। Calcutta, India। 
  3. "Dum Dum-Barrackpore Metro project awaits state nod"। Thestatesman.net। ২০১২-০৬-০৯ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২০১২-০৭-০৭ 
  4. উদ্ধৃতি ত্রুটি: অবৈধ <ref> ট্যাগ; metrosamikkha9-9-2010 নামের সূত্রের জন্য কোন লেখা প্রদান করা হয়নি
  5. Gupta, Jayanta (২১ নভেম্বর ২০১২)। "March 2013 date for Noapara Metro"Times of India। সংগ্রহের তারিখ ৩০ মে ২০১৩ 
  6. মতুয়া এবং লোকনাথ ভক্তদের ‘উপহার’ মমতার, আনন্দবাজার পত্রিকা, ১৬ জানুয়ারি ২০১১[স্থায়ীভাবে অকার্যকর সংযোগ]