কলকাতা মেট্রোর স্টেশনগুলির তালিকা

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
সরাসরি যাও: পরিভ্রমণ, অনুসন্ধান

কলকাতা মেট্রোর স্টেশনগুলির তালিকা এই পৃষ্ঠায় সন্নিবেশিত হল। কলকাতা মেট্রো কলকাতা ও তার পার্শ্ববর্তী হাওড়া, উত্তর চব্বিশ পরগনাদক্ষিণ চব্বিশ পরগনা জেলার দ্রুত পরিবহন ব্যবস্থা। বর্তমানে কলকাতা মেট্রোয় মোট ২৩টি স্টেশন চালু রয়েছে এবং ৬০টিরও বেশি স্টেশনের নির্মাণকাজ চলছে।

কলকাতা মেট্রো ভারতের দ্বিতীয় বৃহত্তম মেট্রো রেল নেটওয়ার্ক (দিল্লি মেট্রোর পরে)। ১৯৮৪ সালের ২৪ অক্টোবর কলকাতা মেট্রোর প্রথম অংশটি চালু হয়। বর্তমানে এই মেট্রোর দৈর্ঘ্য ২২.৩ কিলোমিটার। উত্তর-দক্ষিণ করিডোর বা দমদম-কবি সুভাষ লাইন বর্তমানে এই মেট্রোর একমাত্র চালু লাইন। এছাড়া পূর্ব-পশ্চিম মেট্রো, জোকা-বিবাদীবাগ (ভায়া বেহালা ও মাঝেরহাট) লাইন, দমদম-দক্ষিণেশ্বর সম্প্রসারিত লাইন, দমদম-বরানগর-ব্যারাকপুর লাইন, দমদম-বারাসত লাইন ও নিউ গড়িয়া-বিমানবন্দর লাইনের কাজ বর্তমানে নির্মাণাধীন।

কলকাতা মেট্রোর স্টেশনগুলি সাধারণত অঞ্চলের নামে চিহ্নিত হয়ে থাকে। কোনো কোনো স্টেশন নিকটবর্তী রাস্তা (মহাত্মা গান্ধী রোড), প্রাচীন নাম (শোভাবাজার-সুতানুটি) বা দ্রষ্টব্য স্থলগুলির (রবীন্দ্র সদন, নেতাজি ভবন) নামেও চিহ্নিত। আবার প্যারিস মেট্রোর ধাঁচে বিভিন্ন মণীষী, শিল্পী, বিপ্লবী ও উল্লেখযোগ্য সাহিত্যকর্মের নামেও স্টেশন উৎসর্গ করা হয়ে থাকে।

মেট্রো স্টেশন[সম্পাদনা]

দমদম-কবি সুভাষ লাইন[সম্পাদনা]

# স্টেশনের নাম অঞ্চল সংযোগ উদ্বোধন অবস্থান উল্লেখযোগ্য তথ্য সূত্র
নোয়াপাড়া নোয়াপাড়া, উত্তর চব্বিশ পরগনা ১০ জুলাই, ২০১৩ উড়াল কলকাতা মেট্রোর বৃহত্তম স্টেশন। [১][২]
দমদম দমদম, উত্তর চব্বিশ পরগনা দমদম জংশন স্টেশন, পূর্ব রেল ১২ নভেম্বর, ১৯৮৪ উড়াল ১৯৮৪ থেকে ২০১৩ সাল পর্যন্ত দমদম ছিল কলকাতা মেট্রোর ১ নং লাইনের উত্তর দিকের টার্মিনাল। [৩]
বেলগাছিয়া বেলগাছিয়া, কলকাতা
১২ নভেম্বর, ১৯৮৪ ভূগর্ভস্থ কলকাতা মেট্রোর লাইন ১-এর উত্তর দিকের সর্বশেষ ভূগর্ভস্থ স্টেশন। [৩]
শ্যামবাজার শ্যামবাজার, কলকাতা
১৫ ফেব্রুয়ারি, ১৯৯৫ ভূগর্ভস্থ
[৩]
শোভাবাজার সুতানুটি শোভাবাজার, কলকাতা
১৫ ফেব্রুয়ারি, ১৯৯৫ ভূগর্ভস্থ স্টেশনটির পুরনো নাম "শোভাবাজার"। পরে কলকাতার তিনটি আদি বসতির অন্যতম সুতানুটি গ্রামের নাম স্টেশনের নামের সঙ্গে যুক্ত হয়। [৩]
গিরিশ পার্ক জোড়াসাঁকো, কলকাতা
১৫ ফেব্রুয়ারি, ১৯৯৫ ভূগর্ভস্থ এই স্টেশনটি অতীতে জোড়াসাঁকো নামে পরিচিত ছিল। পরে বিশিষ্ট নাট্যকার গিরিশচন্দ্র ঘোষের নামে উৎসর্গিত হয়। [৩]
মহাত্মা গান্ধী রোড বড়বাজার, কলকাতা
২৭ সেপ্টেম্বর, ১৯৯৫ ভূগর্ভস্থ এই স্টেশনটি মহাত্মা গান্ধী রোডচিত্তরঞ্জন অ্যাভেনিউ-এর সংযোগস্থলে অবস্থিত [৩]
সেন্ট্রাল বউবাজার, কলকাতা নির্মীয়মান পূর্ব-পশ্চিম লাইন ১৫ ফেব্রুয়ারি, ১৯৯৫ ভূগর্ভস্থ
[৩]
চাঁদনি চক চাঁদনি চক, কলকাতা
১৫ ফেব্রুয়ারি, ১৯৯৫ ভূগর্ভস্থ এই স্টেশনটির প্রস্তাবিত নাম টিপু সুলতান [৩]
১০ এসপ্ল্যানেড এসপ্ল্যানেড, কলকাতা
২৪ অক্টোবর, ১৯৮৪ ভূগর্ভস্থ কলকাতা মেট্রোর প্রথম স্টেশন। [৩]
১১ পার্ক স্ট্রিট মাদার টেরিজা সরণি, কলকাতা
২৪ অক্টোবর, ১৯৮৪ ভূগর্ভস্থ এই স্টেশনটির প্রস্তাবিত নাম মাদার টেরিজা [৩]
১২ ময়দান ময়দান, কলকাতা
২৪ অক্টোবর, ১৯৮৪ ভূগর্ভস্থ এই স্টেশনটির প্রস্তাবিত নাম গোষ্ঠ পাল [৩]
১৩ রবীন্দ্র সদন রবীন্দ্র সদন-নন্দন চত্বর, কলকাতা
২৪ অক্টোবর, ১৯৮৪ ভূগর্ভস্থ
[৩]
১৪ নেতাজি ভবন ভবানীপুর, কলকাতা
২৪ অক্টোবর, ১৯৮৪ ভূগর্ভস্থ এই স্টেশনটির পূর্বনাম ভবানীপুর। পরবর্তীকালে এই অঞ্চলে অবস্থিত নেতাজি সুভাষচন্দ বসুর পৈত্রিক বাসভবনের নামে চিহ্নিত। [৩]
১৫ যতীন দাস পার্ক হাজরা, কলকাতা
২৯ এপ্রিল, ১৯৮৬ ভূগর্ভস্থ এই স্টেশনটি মেট্রো স্টেশনের পাশে অবস্থিত বিপ্লবী যতীন্দ্রনাথ দাসের স্মৃতিচিহ্নিত উদ্যানের নামে নামাঙ্কিত। [৩]
১৬ কালীঘাট কালীঘাট, কলকাতা
২৯ এপ্রিল, ১৯৮৬ ভূগর্ভস্থ
[৩]
১৭ রবীন্দ্র সরোবর রবীন্দ্র সরোবর অঞ্চল, কলকাতা টালিগঞ্জ স্টেশন, পূর্ব রেল ২৯ এপ্রিল, ১৯৮৬ ভূগর্ভস্থ
[৩]
১৮ মহানায়ক উত্তমকুমার টালিগঞ্জ, কলকাতা
২৯ এপ্রিল, ১৯৮৬ ভূতলস্থ এই স্টেশনটি অতীতে টালিগঞ্জ নামে পরিচিত ছিল। ২০০৯ সালে স্টেশনটিকে কিংবদন্তি অভিনেতা উত্তম কুমারের নামে উৎসর্গ করা হয়। [৩][৪]
১৯ নেতাজি কুঁদঘাট, কলকাতা
২২ অগস্ট, ২০০৯ উড়াল এই স্টেশনটি নেতাজি সুভাষচন্দ্র বসুর নামে উৎসর্গিত। [৪]
২০ মাস্টারদা সূর্য সেন বাঁশদ্রোণী, কলকাতা
২২ অগস্ট, ২০০৯ উড়াল এই স্টেশনটি মাস্টারদা সূর্য সেনের নামে উৎসর্গিত। [৪]
২১ গীতাঞ্জলি নাকতলা, কলকাতা
২২ অগস্ট, ২০০৯ উড়াল রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের গীতাঞ্জলি কাব্যরচনার শতবর্ষ উপলক্ষে স্টেশনটি উক্ত কাব্যগ্রন্থের নামে উৎসর্গিত। [৪]
২২ কবি নজরুল গড়িয়া বাজার, কলকাতা
২২ অগস্ট, ২০০৯ উড়াল এই স্টেশনটি কাজী নজরুল ইসলামের নামে উৎসর্গিত। [৪]
২৩ শহিদ ক্ষুদিরাম বৃজি, কলকাতা
৭ অক্টোবর, ২০১০ উড়াল এই স্টেশনটি বিপ্লবী ক্ষুদিরাম বসুর নামে উৎসর্গিত। [৪][৫]
২৪ কবি সুভাষ বৈষ্ণবঘাটা পাটুলী, কলকাতা প্রস্তাবিত কবি সুভাষ-বিমানবন্দর লাইন ৭ অক্টোবর, ২০১০ উড়াল এই স্টেশনটির পূর্বনাম নিউ গড়িয়া। বর্তমানে কবি সুভাষ মুখোপাধ্যায়ের নামে উৎসর্গিত। [৫]

নির্মীয়মান পূর্ব-পশ্চিম লাইন[সম্পাদনা]

# স্টেশনের নাম অঞ্চল সংযোগ উদ্বোধন অবস্থান উল্লেখযোগ্য তথ্য সূত্র
সল্টলেক সেক্টর ৫ সেক্টর ৫, বিধাননগর, উত্তর চব্বিশ পরগনা
নির্মীয়মান উড়াল
করুণাময়ী করুণাময়ী, বিধাননগর, উত্তর চব্বিশ পরগনা
নির্মীয়মান উড়াল
সেন্ট্রাল পার্ক সেন্ট্রাল পার্ক, বিধাননগর, উত্তর চব্বিশ পরগনা
নির্মীয়মান উড়াল
সিটি সেন্টার সিটি সেন্টার, বিধাননগর, উত্তর চব্বিশ পরগনা
নির্মীয়মান উড়াল
বেঙ্গল কেমিক্যাল বেঙ্গল কেমিক্যাল, বিধাননগর, উত্তর চব্বিশ পরগনা
নির্মীয়মান উড়াল
যুবভারতী ক্রীড়াঙ্গন যুবভারতী ক্রীড়াঙ্গন, বিধাননগর, উত্তর চব্বিশ পরগনা
নির্মীয়মান উড়াল
ফুলবাগান ফুলবাগান, কলকাতা
নির্মীয়মান উড়াল
শিয়ালদহ স্টেশন শিয়ালদহ, কলকাতা
নির্মীয়মান ভূগর্ভস্থ
সেন্ট্রাল বউবাজার, কলকাতা দমদম-কবি সুভাষ লাইন নির্মীয়মান ভূগর্ভস্থ
১০ মহাকরণ বিবাদীবাগ, কলকাতা
নির্মীয়মান ভূগর্ভস্থ
১১ হাওড়া স্টেশন হাওড়া স্টেশন, হাওড়া হাওড়া স্টেশন, পূর্ব রেল নির্মীয়মান ভূগর্ভস্থ
১২ হাওড়া ময়দান হাওড়া ময়দান, হাওড়া
নির্মীয়মান ভূগর্ভস্থ

নির্মীয়মান জোকা-বিবাদীবাগ লাইন[সম্পাদনা]

২০১০ সালের ২২ সেপ্টেম্বর রাষ্ট্রপতি প্রতিভা দেবীসিংহ পাটিল জোকা-বিবাদীবাগ মেট্রো লাইনের ১৬.৭২ কিমি মেট্রো রেলপথের শিলান্যাস করেন।[৬] এই প্রকল্প রূপায়ণের মোট খরচ ধার্য করা হয়েছে ২৬১৯.০২ কোটি টাকা; এর মধ্যে ২০১০-১১ সালের বাজেটে ১৫০ কোটি টাকা বরাদ্দ করা হয়েছে।[৭] রেলমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় ঘোষণা করেছেন, এই লাইনের ছয়টি স্টেশন মোহিনী চৌধুরী ("মুক্তির মন্দির সোপানতলে" গানের রচয়িতা তথা বেহালার বাসিন্দা), মহম্মদ রফি, গুরু গোবিন্দ সিংহ, কিশোর কুমার, গোষ্ঠ পালমুহাম্মদ ইকবালের নামে উৎসর্গ করা হবে।

# স্টেশনের নাম অঞ্চল সংযোগ উদ্বোধন অবস্থান উল্লেখযোগ্য তথ্য সূত্র
জোকা জোকা, দক্ষিণ চব্বিশ পরগনা
নির্মীয়মান উড়াল
ঠাকুরপুকুর বাজার ঠাকুরপুকুর, কলকাতা
নির্মীয়মান উড়াল
সখের বাজার বড়িশা, কলকাতা
নির্মীয়মান উড়াল
বেহালা চৌরাস্তা বেহালা, কলকাতা
নির্মীয়মান উড়াল
বেহালা বাজার বেহালা, কলকাতা
নির্মীয়মান উড়াল
তারাতলা বেহালা, কলকাতা
নির্মীয়মান উড়াল
মাঝেরহাট মাঝেরহাট, কলকাতা
নির্মীয়মান উড়াল
মোমিনপুর মোমিনপুর, কলকাতা
নির্মীয়মান উড়াল
খিদিরপুর খিদিরপুর, কলকাতা
নির্মীয়মান ভূগর্ভস্থ
১০ হেস্টিংস খিদিরপুর, কলকাতা
নির্মীয়মান ভূগর্ভস্থ
১১ পার্ক স্ট্রিট মাদার টেরিজা সরণি, কলকাতা
নির্মীয়মান ভূগর্ভস্থ
১২ ধর্মতলা চৌরঙ্গী, কলকাতা
নির্মীয়মান ভূগর্ভস্থ
১৩ বিনয়-বাদল-দীনেশ বাগ বিনয়-বাদল-দীনেশ বাগ, কলকাতা
নির্মীয়মান ভূগর্ভস্থ

নির্মীয়মান দমদম-দক্ষিণেশ্বর লাইন[সম্পাদনা]

# স্টেশনের নাম অঞ্চল সংযোগ উদ্বোধন অবস্থান উল্লেখযোগ্য তথ্য সূত্র
দমদম দমদম, উত্তর চব্বিশ পরগনা দমদম জংশন স্টেশন, পূর্ব রেল ১২ নভেম্বর, ১৯৮৪ উড়াল
[১]
নোয়াপাড়া নোয়াপাড়া, উত্তর চব্বিশ পরগনা ১০ জুলাই, ২০১৩ উড়াল
[১]
বরানগর বরানগর, উত্তর চব্বিশ পরগনা নির্মীয়মান উড়াল
[১]
দক্ষিণেশ্বর দক্ষিণেশ্বর, উত্তর চব্বিশ পরগনা নির্মীয়মান উড়াল
[১]

প্রস্তাবিত বরানগর-ব্যারাকপুর লাইন[সম্পাদনা]

# স্টেশনের নাম অঞ্চল সংযোগ উদ্বোধন অবস্থান উল্লেখযোগ্য তথ্য সূত্র
স্বামী বিবেকানন্দ বরানগর, উত্তর চব্বিশ পরগনা
নির্মীয়মান উড়াল হিন্দু ধর্মগুরু স্বামী বিবেকানন্দের নামে উৎসর্গিত। [১][৮]
কৃষ্ণকলি কামারহাটি উত্তর চব্বিশ পরগনা
নির্মীয়মান উড়াল রবীন্দ্রসংগীত কণ্ঠশিল্পী সুচিত্রা মিত্রের স্মরণে তাঁর বিখ্যাত "কৃষ্ণকলি" গানটির নামানুসারে স্টেশনটির নামকরণ হয়েছে। [১][৮]
আচার্য প্রফুল্লচন্দ্র আগরপাড়া, উত্তর চব্বিশ পরগনা
নির্মীয়মান উড়াল বিজ্ঞানী প্রফুল্লচন্দ্র রায়ের নামে উৎসর্গিত। [১][৮]
গান্ধী আশ্রম সোদপুর, উত্তর চব্বিশ পরগনা
নির্মীয়মান উড়াল
[১][৮]
শরৎচন্দ্র পানিহাটি, উত্তর চব্বিশ পরগনা
নির্মীয়মান উড়াল কথাসাহিত্যিক শরৎচন্দ্র চট্টোপাধ্যায়ের নামে উৎসর্গিত। [৮]
ঋষি বঙ্কিম খড়দহ, উত্তর চব্বিশ পরগনা
নির্মীয়মান উড়াল সাহিত্যিক বঙ্কিমচন্দ্র চট্টোপাধ্যায়ের নামে উৎসর্গিত। [১][৮]
ডক্টর রাজেন্দ্রপ্রসাদ সিইএসসি, খড়দহ, উত্তর চব্বিশ পরগনা
নির্মীয়মান উড়াল ভারতের প্রথম রাষ্ট্রপতি রাজেন্দ্র প্রসাদের নামে উৎসর্গিত। [৮]
শাহনওয়াজ খান টিটাগড়, উত্তর চব্বিশ পরগনা
নির্মীয়মান উড়াল সুভাষচন্দ্র বসুর সহকারী তথা আজাদ হিন্দ ফৌজের সেনানায়ক শাহনওয়াজ খানের নামে উৎসর্গিত। [১][৮]
অনুকূল ঠাকুর তালপুকুর, টিটাগড়, উত্তর চব্বিশ পরগনা
নির্মীয়মান উড়াল হিন্দু ধর্মগুরু অনুকূলচন্দ্র ঠাকুরের নামে উৎসর্গিত। [৮]
১০ মঙ্গল পাণ্ডে ব্যারাকপুর, উত্তর চব্বিশ পরগনা
নির্মীয়মান উড়াল ১৮৫৭ সালের মহাবিদ্রোহের বিদ্রোহী মঙ্গল পাণ্ডে নামে উৎসর্গিত। [১][৮]

প্রস্তাবিত নোয়াপাড়া-বারাসত লাইন[সম্পাদনা]

# স্টেশনের নাম অঞ্চল সংযোগ উদ্বোধন অবস্থান উল্লেখযোগ্য তথ্য সূত্র
নোয়াপাড়া নোয়াপাড়া, উত্তর চব্বিশ পরগনা
নির্মীয়মান উড়াল
[১]
মৌলানা আবুল কালাম আজাদ দমদম ক্যান্টনমেন্ট, দমদম, উত্তর চব্বিশ পরগনা
নির্মীয়মান উড়াল ভারতের স্বাধীনতা সংগ্রামে অংশগ্রহণকারী বিপ্লবী মৌলানা আবুল কালাম আজাদের নামে উৎসর্গিত। [১][৯]
রামকৃষ্ণ পল্লি দমদম, উত্তর চব্বিশ পরগনা
নির্মীয়মান উড়াল
[১]
জীবনানন্দ যশোর রোড, দমদম, উত্তর চব্বিশ পরগনা
নির্মীয়মান উড়াল কবি জীবনানন্দ দাশের নামে উৎসর্গিত। [১][৯]
শান্তিনগর দমদম, উত্তর চব্বিশ পরগনা
নির্মীয়মান উড়াল
[১]
জয় হিন্দ নেতাজি সুভাষচন্দ্র বসু আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর, দমদম, উত্তর চব্বিশ পরগনা
নির্মীয়মান উড়াল সুভাষচন্দ্র বসু সৃষ্ট "জয় হিন্দ" ধ্বনিটির নামানুসারে স্টেশনটির নামকরণ করা হয়েছে। [১][৯]
লোকনাথ বিরাটি, উত্তর চব্বিশ পরগনা
নির্মীয়মান উড়াল হিন্দু ধর্মগুরু লোকনাথ ব্রহ্মচারীর নামে উৎসর্গিত। [১][৯]
মাদার টেরিজা নিউ ব্যারাকপুর, উত্তর চব্বিশ পরগনা
নির্মীয়মান উড়াল নোবেলজয়ী সেবাকর্মী মাদার টেরিজার নামে উৎসর্গিত। [১][৯]
প্রমথরঞ্জন ঠাকুর মধ্যমগ্রাম, উত্তর চব্বিশ পরগনা
নির্মীয়মান উড়াল মতুয়া ধর্মনেতা প্রমথরঞ্জন ঠাকুরের নামে উৎসর্গিত। [১][৯]
১০ বিভূতিভূষণ হৃদয়পুর, বারাসত, উত্তর চব্বিশ পরগনা
নির্মীয়মান উড়াল সাহিত্যিক বিভূতিভূষণ বন্দ্যোপাধ্যায়ের নামে উৎসর্গিত। [১][৯]
১১ বারাসত বারাসত, উত্তর চব্বিশ পরগনা
নির্মীয়মান উড়াল
[১]

প্রস্তাবিত বিমানবন্দর-কবি সুভাষ লাইন[সম্পাদনা]

নিউ গড়িয়া থেকে নেতাজি সুভাষচন্দ্র বসু আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর পর্যন্ত প্রস্তাবিত নিউ গড়িয়া-বিমানবন্দর মেট্রোর কয়েকটি প্রস্তাবিত স্টেশন হল: বিমানবন্দর, হলদিরাম, নিউ টাউন, কনভেনশন সেন্টার, রাজারহাট, সেক্টর ৫, নিক্কো পার্ক, চিংড়িঘাটা, সায়েন্স সিটি, ভিআইপি বাজার, রুবি হাসপাতাল, কালিকাপুর, মুকুন্দপুর, সত্যজিৎ রায় ও কবি সুভাষ।[১]

আরও দেখুন[সম্পাদনা]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]