এন্ড্রু কানের্গি

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
সরাসরি যাও: পরিভ্রমণ, অনুসন্ধান
এন্ড্রু কানের্গি
Andrew Carnegie, three-quarter length portrait, seated, facing slightly left, 1913.jpg
Carnegie in 1913
জন্ম (১৮৩৫-১১-২৫)নভেম্বর ২৫, ১৮৩৫
স্কটল্যান্ড, যুক্তরাজ্য
মৃত্যু আগস্ট ১১, ১৯১৯(১৯১৯-০৮-১১) (৮৩ বছর)
ম্যাসাচুসেট্‌স
পেশা ব্যবসা মানবসেবা
মোট সম্পত্তি বৃদ্ধি US$৩০৯বিলিয়ন
রাজনৈতিক দল রিপাবলিকান পার্টি (যুক্তরাষ্ট্র)
ধর্ম প্রোটেস্ট্যান্ট মতবাদ
দাম্পত্য সঙ্গী লুইস ওয়াইটফিল্ড কানের্গি
সন্তান মার্গারেট কানের্গি মিলার
পিতা-মাতা মার্গারেট মরিসন কানের্গি
আত্মীয় থমাস কানের্গি (ভাই)
স্বাক্ষর
Andrew Carnegie signature.svg

এন্ড্রু কার্নেগী হলেন এক সময়ের অন্যতম মার্কিন ধনী ব্যক্তি। তার জীবনে তিনি যা কিছু আয় করেছেন তার সবই তিনি মানুষের সেবার জন্য দান করে গেছেন।

জন্ম শৈশব[সম্পাদনা]

১৮৩৫ সালের ২৫ নভেম্বর স্কটল্যান্ডের এক সামান্য পল্লীগ্রামের এক নগন্য পরিবারে এন্‌ড্রু কার্নেগীর জন্ম হয়। জীবনের প্রথম ১৩টি বছর স্কটল্যান্ডে কাটে পরিবারের সাথে। পরবর্তীতে জীবিকার তাগিদে তার বাবা সপরিবারে আমেরিকা পাড়ি জমান। আমেরিকাতে তাদের ঠিকানা হয় একটি বস্তি।    

ধনী হওয়ার ইচ্ছা[সম্পাদনা]

কার্নেগীর বয়স তখন মাত্র ১৩ বছর। পোশাক-আশাক একেবারেই ভালো ছিল না। একে তো নোংরা তার উপর বিভিন্ন জায়গায় ছেড়া ছিল। এই অবস্থাতেই একদিন খেলার জন্য একটি পাবলিক পার্কে ঢুকতে যাচ্ছিলেন এমন সময় পার্কের দারোয়ান তাকে পার্কে প্রবেশ করতে দেননি। তখন বালক কার্নেগী দারোয়ানকে বলে যে, সে এই পার্ক কিনেই পার্কের ভেতরে ঢুকবে। পরে ঠিকই তিনি ওই পার্ক কিনেই পার্কের ভেতরে ঢোকেন। পার্কটি কেনার পর সেখানে একটি সাইনবোর্ড টানিয়ে দেন যাতে লেখা ছিল, “আজ থেকে দিনে বা রাতে যে কোন সময়ে যে কোন মানুষ যে কোন পোশাকে এই পার্কে প্রবেশ করতে পারবে।”

ব্যবসা[সম্পাদনা]

টেলি বিভাগের ম্যানেজার হওয়ার পর চাকরির পাশাপাশি তিনি রেলগাড়ি ও খনির তেলের ব্যবসা শুরু করেন। খুব অল্পদিনের মধ্যেই এই ব্যবসা থেকে অনেক টাকা লাভ হতে থাকে। লাভের টাকা আরও নতুন নতুন ব্যবসায় বিনিয়োগ করতে থাকেন কার্নেগী। সব ব্যবসাতেই তিনি একের পর এক সফল হতে থাকেন। এভাবে একে একে সাতটি বড় বড় লোহার কারখানা কিনে ফেলেন কার্নেগী এবং নিজস্ব তত্ত্বাবধানে সেগুলো চালাতে থাকেন। কার্নেগীর বয়স তখনও ৩৫ এর কোটায় পৌঁছেনি, এই সময়েই কার্নেগী বিশ্বের নামকরা লোহা ব্যবসায়ী হিসেবে পরিচিত হয়ে ওঠেন। তিনি তার সময়ে আমেরিকার সবচেয়ে বড় স্টিল কোম্পানির মালিক ছিলেন। একসময় ৩৪জন  ক্রোড়পতি তার সংস্থায় কাজ করতেন।

ব্যবসা-বাণিজ্যের অবসান[সম্পাদনা]

১৯০২ সালে তিনি ৪০০ মিলিয়ন ডলারে তার স্টিল কোম্পানি জে, পি, মরগানের কাছে বিক্রি করে দেন, যার বর্তমান বাজারমূল্য ৩১০ বিলিয়ন ডলার।

মানবসেবা[সম্পাদনা]

কার্নেগী তার অর্জিত সম্পদ থেকে প্রায় ১০০ কোটি টাকা মানবতার সেবায় দান করে গিয়েছেন। বিশ্বের বিভিন্ন স্থানে কার্নেগীর দানের নিদর্শন ছড়িয়ে ছিটিয়ে রয়েছে। শিক্ষা বিস্তারের লক্ষ্যে বিশ্বের বিভিন্ন স্থানে লাইব্রেরি প্রতিষ্ঠা করার জন্য ২০ কোটি টাকা দান করেন কার্নেগী। কার্নেগী যেই গ্রামটিতে জন্মেছিলেন সেই গ্রামটি ছিল একটি অজোপাড়া গ্রাম। কিন্তু আজ সেটি বিশ্বের উন্নত শহরগুলোর মতোই একটি শহর হিসেবে দাঁড়িয়ে আছে। যার মূলে রয়েছেন কার্নেগী। এই শহরটির উন্নতির জন্য তিনি সম্পত্তি রেখে গেছেন, তার আয় হয় বছরে চার লক্ষ টাকা। বীরত্বের পুরস্কারের জন্য আমেরিকায় ও ইংল্যান্ডে তিনি দুটি 'Hero fund' বা বীর ভান্ডার স্থাপন করে গেছেন; বিপদের সময়ে অন্যের প্রাণ বাঁচাতে গিয়ে যারা নিজেরা আহত ও অকর্মণ্য হয়ে পড়ে, এই ভাণ্ডার থেকে তাদের খাওয়া-পরার সমস্ত খরচ দেওয়া হয়। এমনি করে ছোট বড় যত অসংখ্যরকমের দান তিনি করে গেছেন। 

দেশ ফেরত[সম্পাদনা]

১৯০১ সালে এসে ৫৬ বছর বয়সে ব্যবসা-বাণিজ্য বাদ দিয়ে ফিরে যান নিজ দেশ স্কটল্যান্ডে। দেশে ফিরে যাওয়ার বিষয়ে কার্নেগীর মতামত ছিল এরকম - "রোজগার যথেষ্ট করেছি, এখন এই বুড়ো বয়সে আর 'টাকা টাকা' করে ছুটে বেড়ান ভাল দেখায় না। এতদিন যা সঞ্চয় করেছি, এখন দানের মত দান করে তার সদ্ব্যবহার করতে হবে।"

ব্যক্তিগত জীবন[সম্পাদনা]

১৮৮৭ সালে লুইস উইটফিল্ড এর সাথে বিবাহ বন্ধনে আবদ্ধ হন এন্ড্রু কার্নেগী। ১৯১৯ সালে তার স্ত্রী মারা যান। মার্গারেট কার্নেগী নামে তাদের একটি মেয়ে রয়েছে।

মৃত্যু[সম্পাদনা]

১৯১১ সালের ১১ আগষ্ট দানশীল ‘এন্ড্রু কার্নেগী’ মৃত্যুবরণ করেন।

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

১. Andrew Carnegie's Legacy. carnegie.org. Retrieved August 20, 2014.

২. "The All-Time Richest Americans"  All the Money in the World. Forbes. 14 September 2007. Retrieved 4 May 2014.

৩."Andrew Carnegie" Encyclopedia.com.

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]