এডউইন হল

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
এডউইন হল
Edwin Herbert Hall (1855-1938).jpg
এডউইন হারবার্ট হল (১৮৫৫-১৯৩৮)
জন্ম(১৮৫৫-১১-০৭)৭ নভেম্বর ১৮৫৫
গোরহাম, মেইন, যুক্তরাষ্ট্র
মৃত্যু২০ নভেম্বর ১৯৩৮(1938-11-20) (বয়স ৮৩)
ক্যামব্রিজ, ম্যাসাচুসেটস, যুক্তরাষ্ট্র
জাতীয়তামার্কিন
কর্মক্ষেত্রপদার্থবিদ
প্রতিষ্ঠানহার্ভার্ড বিশ্ববিদ্যালয়
প্রাক্তন ছাত্রজনস হপকিন্স বিশ্ববিদ্যালয়
বোডইন কলেজ
পিএইচডি উপদেষ্টাহেনরি অগাস্টাস রোল্যান্ড
পরিচিতির কারণহল ইফেক্ট

এডউইন হারবার্ট হল (৭ নভেম্বর ১৮৫৫ - ২০ নভেম্বর ১৯৩৮) ছিলেন একজন মার্কিন পদার্থবিদ, যিনি হল প্রভাব আবিষ্কার করেছেন। হল হার্ভার্ডে থার্মোইলেক্ট্রিক গবেষণা পরিচালনা করেন এবং প্রচুর পদার্থবিদ্যার পাঠ্যপুস্তক এবং পরীক্ষাগার ম্যানুয়ালও লিখেছেন।

জীবনী[সম্পাদনা]

হল গোরহাম, মেইন, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে জন্মগ্রহণ করেন। হল বোডোইন কলেজ, ব্রান্সউইক, মেইন-এ তার স্নাতক পর্যায় সম্পন্ন করেন এবং ১৮৭৫ সালে স্নাতক হন। তিনি ১৮৭৫-১৮৭৬ সালে গোল্ড একাডেমির অধ্যক্ষ এবং ১৮৭৬-১৮৭৭ সালে ব্রানসউইক হাই স্কুল এর অধ্যক্ষ ছিলেন।[১] তিনি তার স্নাতক স্কুলিং ও গবেষণা এবং তার পিএইচডি ডিগ্রি (১৮৮০) অর্জন করেছেন জনস হপকিন্স বিশ্ববিদ্যালয়-এ, যেখানে তার প্রাথমিক পরীক্ষাগুলি সম্পাদিত হয়েছিলো।

১৮৭৯ সালে হল পদার্থবিদ্যায় তার ডক্টরাল থিসিসে কাজ করার সময় হল ইফেক্ট আবিষ্কার করেন।[১] হলের পরীক্ষাগুলোর মধ্যে ছিল কাঁচের প্লেটের উপর পাতলা গোল্ড লিফ (এবং পরে, অন্যান্য বিভিন্ন উপকরণ ব্যবহার করে) উন্মোচিত করা এবং এর দৈর্ঘ্যের নিচের বিন্দুতে গোল্ড লিফটি টোকা দেওয়া। হল প্রভাবটি হলো পরিবাহী বা অর্ধপরিবাহী উপাদানের (হল উপাদান) একটি পাতলা শীটের বিপরীত দিকের সম্ভাব্য পার্থক্য (হল ভোল্টেজ) যার মাধ্যমে বিদ্যুৎ প্রবাহিত হয়। এটি হল উপাদানে লম্বভাবে প্রয়োগ করা একটি চৌম্বক ক্ষেত্র দ্বারা তৈরি করা হয়েছিল। কারেন্টের পরিমাণের সাথে সৃষ্ট ভোল্টেজের অনুপাতকে হল রেজিস্ট্যান্স বলা হয় এবং এটি উপাদানটির একটি বৈশিষ্ট্য। ১৮৮০ সালে, হলের পরীক্ষাটি আমেরিকান জার্নাল অফ সায়েন্স এবং ফিলোসফিক্যাল ম্যাগাজিন-এ ডক্টরাল থিসিস হিসাবে প্রকাশিত হয়।

১৮৯৫ সালে হল হার্ভার্ডে পদার্থবিজ্ঞানের অধ্যাপক হিসেবে নিযুক্ত হন এবং ১৯১৪ সালে রামফোর্ড প্রফেসর অব ফিজিক্স হিসেবে জন ট্রব্রিজ-এর স্থলাভিষিক্ত হন।[১] হল ১৯২১ সালে অবসর গ্রহণ করেন এবং ১৯৩৮ সালে ক্যামব্রিজ, ম্যাসাচুসেটস, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে মৃত্যুবরণ করেন।

হল ইফেক্ট ম্যাগনেটিক ফিল্ড সেন্সরে ব্যবহৃত হয় যা প্রচুর সংখ্যক ডিভাইসে উপস্থিত, সেইসাথে মহাকাশযানে উচ্চ দক্ষতার ইলেকট্রিক প্রপালশন সিস্টেম-এও ব্যবহার করা হয়।

বৃহৎ চৌম্বক ক্ষেত্র শক্তি এবং নিম্ন তাপমাত্রা-র উপস্থিতিতে কোয়ান্টাম হল ইফেক্ট পর্যবেক্ষণ করা যায়, যা হল রেজিস্ট্যান্সেের পরিমাপ। এটি এখন বৈদ্যুতিক রোধের জন্য স্বীকৃত মান।

আরও দেখুন[সম্পাদনা]

প্রাসঙ্গিক তালিকা[সম্পাদনা]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. Bridgman, P. W. (১৯৩৯)। Biographical Memoir of Edwin Herbert Hall। National Academy of Sciences। 

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]

প্রকাশনাসমূহ[সম্পাদনা]

তিনি লোহা ও নিকেলের তাপ পরিবাহিতা, তাপবিদ্যুৎ ক্রিয়া তত্ত্ব এবং ধাতুতে তাপবিদ্যুৎ বৈচিত্র্যের উপর বৈজ্ঞানিক জার্নালে বিভিন্ন অবদান রেখেছেন। তার প্রকাশনার অন্তর্ভুক্ত:

  • A Text-Book of Physics (1891; third edition, 1903), with J. Y. Bergen
  • Elementary Lessons in Physics (1894; 1900)
  • The Teaching of Chemistry and Physics (1902), with Alexander Smith
  • College Laboratory Manual of Physics (1904; revised edition, 1913)
  • Elements of Physics (1912)
  •  This article incorporates text from a publication now in the public domainGilman, D. C.; Thurston, H. T.; Moore, F., সম্পাদকগণ (১৯০৫)। "article name needed"। New International Encyclopedia (1st সংস্করণ)। New York: Dodd, Mead।