এইমার

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এইমার
স্থানীয় নামエメ
আরো যে নামে
পরিচিত
এইমারিদম
জন্মকুমামতো, জাপান
ধরনপপ
বাদ্যযন্ত্রসমূহ
কার্যকাল২০১১-বর্তমান
লেবেল
  • ডেফস্টার রেকর্ডস(২০১১-২০১৫)
  • এসএমই রেকর্ডস(২০১৬-বর্তমান)
সহযোগী শিল্পী
  • হিরোয়িশি সোয়ানো
  • চেলি
  • তাকা
  • ইওজিরো নদা
  • ইয়কো কানো
  • টিকে
  • মাও আবে
  • সুকিমা সুইচ
  • গেংকি রকেটস
ওয়েবসাইটhttp://www.aimer-web.jp/

এইমার (エメ, এইমা, [এমে]) হচ্ছে জাপানি পপ সংগীত শিল্পী এবং গীতিকার। যে বর্তমানে এসএমই রেকর্ডেসের সাথে চুক্তিবদ্ধ আছে।

প্রাথমিক জীবন[সম্পাদনা]

তার পিতা-মাতার প্রভাবের কারণে শৈশব থেকেই সংগীতের সাথে জড়িয়ে ছিল। সে গীটার এবং পিয়ানো নিয়ে ইংরেজিতে গান লেখা এবং সুর করা শুরু করে। পনের বছর বয়সে দূর্ভাগ্যবশত একটি দূর্ঘটনার ফলে সে তার কণ্ঠ হারায়। এরপরও সে সুস্থ হয়ে উঠে, এবং স্বাতন্ত্র্যসূচক এই মৃদু কণ্ঠ লাভ করে।[১]

পেশাজীবন[সম্পাদনা]

এইমার যুক্ত হন “এইজহেজস্প্রিং” দলের সাথে, যেটি বিভিন্ন সংগীত শিল্পীদের জন্য প্রযোজনা এবং সঙ্গীত প্রদান করে থাকে এর মধ্যে ইয়ুকি, মিকা নাকাশিমা, ফ্লাম্পুল, সুপারফ্লাই, ইজু, এবং গেংকি রকেটস এর মত সঙ্গীত শিল্পীরা আছেন।

[২] ২০১১ সালে তার সঙ্গীত জীবন তৎপর হয়ে উঠে। ২০১১ সালের মে মাসে তারা একটি এ্যালবাম প্রকাশ করে “ইউর ফেভারিট থিংস” নামে। যেটি বিভিন্ন জনপ্রিয় কাজের কভার ছিল, এবং বিভিন্ন ধরনের ছিল যার মধ্যে জ্যাজ এবং পশ্চিমা কাউন্ট্রিও ছিল। কভারের মধ্যে প্রথম স্থান অধিকার করেছিল লেডি গাগার “পোকার ফেইস”, এটি প্রথম গান যেটি আইটিউন স্টোরে জ্যাজ শ্রেণীতে প্রথম স্থান দখল করে। এলব্যামটি দ্বিতীয় স্থান অর্জন করেছিল।

২০১১ সালের ৭ সেপ্টেম্বর, সে ডেফস্টার রেকর্ডেসের হয়ে প্রত্যাবর্তন করে “রকতু ন ইরো”, যেটি ফুজি টিভি দ্বারা নির্বাচিত হয় ২০১১ সালের আনিমে সিরিজ “নাম্বার ৬” এর সমাপ্ত সঙ্গীত হিসাবে। “রকতু ন ইরো” রেকচকু সঙ্গীত বণ্টন এর তালিকায় সর্বোচ্চ নবম স্থান অর্জন করে।[৩] দ্বিতীয় একক প্রকাশ পায় ২০১১ সালের ১৪ ডিসেম্বর। “রিঃপ্রে/সাবিশিকুতে নেমুরানি ইরো ওয়া” প্রথম স্থান দখল করে “মরা” নামের সঙ্গীত তালিকার একটি সাইটে। গানটি “ব্লেচ” আনিমের ২৯তম সমাপ্তি সঙ্গীত হিসাবে নির্বাচিত হয়। ২০১২ সালের ২২ ফেব্রুয়ারি সে তার তৃতীয় একক প্রকাশ করে “ইয়ুকি ন ফুরুমাচি/ফুয়ু ন ডায়মন্ড” নামে। ২০১২ সালের ১১ মে সে একটি ডিজিটাল একক প্রকাশ করে যেটি সাসাকি নজমি এর নাটক “কই নানতে যেইতাকি গা ওয়াতাশি নি ওচিতে কুরু ন দারু কা?” এর ব্যাকগ্রাউন্ড সঙ্গীত হিসাবে ব্যবহৃত হয়। এইমার চতুর্থ একক প্রকাশ করেন ১৫ আগস্ট, “আনাতা নি দেওয়াকেরেবাঃকাতাসু টকা/হশিকুজু ভেনাস” নামে। ২০১৩ সালের ২০ মার্চ এইমার প্রকাশ করেন একক “রিঃআই এম” নামে যেটি “মোবাইল সুইট গানডাম ইউনিকর্নের” সমাপ্তি সঙ্গীত হিসাবে ব্যবহৃত হয়। একটি ইন্টারভিউওতে এইমার জানান এটি তার নামের এনাগ্রাম ছিল।[৪] এইমারের অষ্টম একক হচ্ছে “ব্রেইভ সাইন”, যেটি “ফেইট/স্টে নাইটঃ আনলিমিটেড ব্লেইড ওয়ার্কস” আনিমের এর দ্বিতীয় সূচনা সঙ্গীত হিসাবে ব্যবহৃত হয়। আরেকটি গান “লাস্ট স্টারডাস্ট”, যেটি একটি সূচনারও প্রতিযোগিতায় ছিল এবং বিশতম পর্বের ভিতর এই গান দেখতে পাওয়া যায়।

২০১৬ সালের ১৮ আগস্ট, এইমার ঘোষণা দেন তার চতুর্থ এলব্যাম “ডেড্রিম” এর যেটি ২১ সেপ্টেম্বর প্রকাশ পায়, এতে অন্যান্য সঙ্গীতশিল্পীদের সাথে গান ছিল যেমন ওয়ান ওকে রক ব্যান্ডের তাকা, রেডউইম্পেসের ইজরি নদা, তরু কিতাজিমা, ইগোয়িস্ট ব্যান্ডের চেলি, আন্দ্রোপ, হিরোয়িকু সুয়ানু, শুকিমা সুইচ এবং মাও আবে। তাকা চারটি গান প্রযোজনা করেন, যেখানে টিকে দুইটি। এরমধ্যে “কাবানেরি অফ দ্য আয়রন ফরট্রেস” আনিমের থিম ছিল যেটি চেলি এবং হিরোইকি সুয়ানো যৌথ প্রযোজনায় সৃষ্টি করেছিলেন, এছাড়াও মোট তেরটি গান ছিল। “ফলিং এলন” গানটি শীর্ষ গান ছিল এবং এটি এলব্যামের পূর্বে মুক্তি দেয়া হয়েছিল তার দশম একক হিসাবে।[৫][৬]

২০১৬ সালের আগস্টে এইমার প্রথমবারের মত তার মুখ প্রকাশ করেন কোন মিউজিক স্টেশনে চচু মুশুবি গানের সাথে।[৭] তার চতুর্থ এলব্যাম “ডেড্রিমের” প্রচারণার জন্য এইমার “নাতসুমে’স বুক অব ফ্রেন্ডস” আনিমের পঞ্চম কিস্তির গান ‘আকানে সাসু’ পারফর্ম করেন।[৮]

জানুয়ারি ৫, ২০১৭ তে ঘোষণা দেয়া হয় যে এইমার একটি গান লিখেছেন জাপানের রন্ধনশিল্প প্রতিযোগিতা “তাবেগামিসামা ন ফুসিগিনা রেস্টুরান্তেন” এর জন্য যেটি পরিচালনা করে মোমেন্ট “ফ্যাক্টরি স্টুডিও”[৯] একদিন পর এইমার টুইটারের মাধ্যমে জানান যে গানটির নাম হচ্ছে “কাচো ফুগিতেসু”[১০] পরবর্তিতে ঘোষণা দেয়া হয় “কগোশনা কিসেতেরু কারা” নামের আরেকটি একক গানের যেটি জাপানি নাটক “উবাই আই, ফুয়ু” এর থিম হিসাবে ব্যবহৃত হবে, যেটি মুক্তি পায় ২০১৭ সালের ১০ ফেব্রুয়ারি।[১১] ২০১৭ সালের মে মাসে ঘোষণা দেয়া হয় যে তার সব সেরা গানের দুটো এলব্যাম বের হবে “ব্লাঙ্ক” এবং “নইর” নামে। দুটোতেই তার সব আগের এলব্যামগুলোর গান ছাড়াও দুটি নতুন একক ছিল। এইমারের একক “রেফঃরেইন” মুক্তি পাবে ২০১৮ সালে। যেটি ২০১৮ এর আনিমে টেলিভিশন সিরিজ “কই ওয়া আমেগারি ন ইউ নি”তে ব্যবহৃত হবে।[১২]

ডিস্কোগ্রাফি[সম্পাদনা]

এলব্যাম[সম্পাদনা]

  • স্লিপলেস নাইট (২০১২)
  • মিডনাইট সান (২০১৪)
  • ডউন (২০১৫)
  • ডেড্রিম(২০১৬)

শ্রেষ্ট্য এলব্যাম[সম্পাদনা]

  • ব্লাঙ্ক (২০১৭)
  • নইর (২০১৭)

ক্ষুদ্র এলব্যাম[সম্পাদনা]

  • আফটার ডার্ক (২০১৩)
  • দারে কা, উমি ও (২০১৪)

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. Barks. Aimer : Biography ওয়েব্যাক মেশিনে আর্কাইভকৃত ১৮ জানুয়ারি ২০১৭ তারিখে
  2. agehasprings
  3. [১]
  4. [২]
  5. ro69.jp
  6. natalie.mu
  7. News about Music Station media appearance http://natalie.mu/music/news/198056
  8. News about new single and tie-up for anime http://natalie.mu/music/news/207814
  9. 「食神さまの不思議なレストラン展」CM (featuring Aimer) https://www.youtube.com/watch?v=s_Wh9Cmde8A
  10. Aimer's staff reveals the name of her new song for the culinary exhibition "Tabegamisama no Fushigina Resutoranten" https://twitter.com/Aimer_and_staff/status/817280037070127104
  11. [৩]
  12. "Koi wa Ameagari no You ni TV Anime Reveals New Visual, Main Staff"Anime News Network। নভেম্বর ২, ২০১৭। সংগ্রহের তারিখ নভেম্বর ২, ২০১৭ 

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]