বিবর্ধিত এইচএসপিএ

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
(এইচএসপিএ+ থেকে পুনর্নির্দেশিত)
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন

এইচএসপিএ+, বা বিবর্ধিত হাই-স্পিড প্যাকেট অ্যক্সেস (ইংরেজি: HSPA+ / Evolved High-Speed Packet Access) হল ওয়্যারলেস ব্রডব্যান্ড যোগাযোগ প্রযুক্তির জন্য এক ধরনের প্রযুক্তিগত মান। এইচএসপিএ+ গতি বৃদ্ধির মাধ্যমে ডাব্লুসিডিএমএ (ইউএমটিএস) ভিত্তিক ৩জি নেটওয়ার্কের মান উন্নত করে। এইচএসপিএ+ ৩জিপিপি এর ৭ম অবমুক্তিতে প্রবর্তিত হয় এবং পরবর্তী অবমুক্তিগুলোতে বর্ধিত হয়।

যুক্তরাষ্ট্রে, এটিএন্ডটি মোবিলিটি এবং টি-মোবাইল ইউএস এইচএসপিএ+ সেবা দিয়ে থাকে।

গতি[সম্পাদনা]

এইচএসপিএ+ প্রযুক্তিতে বিবর্ধিত হাই স্পিড প্যাকেট অ্যাক্সেসের সুবিধা পাওয়া যায় এবং এতে অধিক গতি পাওয়া সম্ভব, যা ডাউনলিংকে সর্বোচ্চ ১৬৮ মেগাবিট প্রতি সেকেন্ড এবং আপলিংকে সর্বোচ্চ ২২ মেগাবিট প্রতি সেকেন্ড পর্যন্ত হয়ে থাকে। প্রযুক্তিগতভাবে এই গতি পাওয়া যায় একাধিক অ্যান্টেনা প্রযুক্তি ব্যবহারের মাধ্যমে, যা এমআইএমও (মাল্টিপল-ইনপুট এবং মাল্টিপল-আউটপুট) প্রযুক্তি নামে পরিচিত। এছাড়া উচ্চতর ক্রমের মডুলেশন (৬৪কিউএএম) ব্যবহার অথবা একাধিক সেলের একটিতে সমন্বয়ের (ডুয়াল-সেল এইচএসডিপিএ নামে পরিচিত) মাধ্যমে এই গতি পাওয়া যায়।

১৬৮ মেগাবিট/সে. এবং ২২ মেগাবিট/সে. গতি হল তাত্ত্বিক পিক গতি। একজন ব্যবহারকারীর কাছে বাস্তবিক গতি হবে এর চেয়ে কম। সাধারণভাবে, এইচএসপিএ+ অধিক বিটরেট দিয়ে থাকে শুধুমাত্র ভালো মানের রেডিও পরিস্থিতিতে (সেল টাওয়ারের খুব নিকটে) অথবা যদি টার্মিনাল এবং নেটওয়ার্ক উভয়েই এমআইএমও অথবা ডুয়াল-সেল এইচএসডিপিএ সমর্থন করে, যা কার্যকরভাবে বিভিন্ন প্রযুক্তিগত রূপান্তরের সাথে দুটি সমান্তরাল প্রেরণ চ্যানেল ব্যবহার করে।

উচ্চতর ১৬৮ মেগাবিট/সে. গতি অর্জিত হয় একাধিক ক্যারিয়ার ব্যবহারের মাধ্যমে, অর্থাত্‍ একসাথে ডুয়াল-সেল এইচএসডিপিএ এবং ৪ প্রণালীর এমআইএমও প্রযুক্তি ব্যবহার করে।[১][২]

এছাড়া, এই প্রযুক্তি উল্লেখযোগ্যভাবে ব্যাটারি লাইফের উন্নতি সাধন করে। এইচএসপিএ+ এবং এলটিই এক জিনিস নয়, যা এয়ার ইন্টারফেস ভিত্তিক ওএফডিএমএ প্রযুক্তি ব্যবহার করে। এইচএসপিএ+ হল এইচএসপিএ এর বিবর্ধিত সংস্করণ, যা বিদ্যমান ৩জি নেটওয়ার্ককে উন্নত করে এবং টেলিকম অপারেটরদের কোন নতুন রেডিও ইন্টারফেস স্থাপন ছাড়াই ৪জি নেটওয়ার্কে স্থানান্তরের সুযোগ করে দেয়।[৩]

অল-আইপি আর্কিটেকচার[সম্পাদনা]

বিস্তার[সম্পাদনা]

২০০৮[সম্পাদনা]

  • ২০০৮ সালের ১০ জুন, অস্ট্রেলিয়ার টেলস্ট্রা নেক্সট জি নেটওয়ার্ক প্রথম এইচএসপিএ+ এর কিছু বৈশিষ্ট্য সক্রিয় করে।[৪]
  • ২০০৮ সালের ৫ ডিসেম্বর, একটি বাণিজ্যিক নেটওয়ার্কে (টেলস্ট্র) প্রথম ২১ মেগাবিট/সে (ডাউনলিংক) এবং ৫.৮ মেগাবিট/সে (আপলিংক) ডাটা লিংক স্থাপিত হয়।
  • ২০০৮ সালের ২৩ অক্টোবর, এইএএসপিএ+ মানের জন্য প্রথম ওয়্যারলেস ডাটা ডিভাইসের ঘোষণা দেওয়া হয়। ডিভাইসগুলো ডেভলপ করে সিয়েরা ওয়্যারলেস এবং তাদেরকে সহযোগিতা করে নেটকম, টেলস্ট্রা, কোয়ালকম এবং এরিকসন। টেলস্ট্রার নেক্সট জি নেটওয়ার্কে যার পিক ডাউনলোড স্পিড ২১ মেগাবিট/সে, যা বর্তমানে বিদ্যমান এইচএসপিএ মোডেমগুলোর গতির চেয়ে তিনগুন বেশি।
  • নিউজিল্যান্ডের ২ডিগ্রিস মোবাইল নেটওয়ার্ক ঘোষণা দেয় যে তারা এইচএসপিএ+ প্রযুক্তি ব্যবহার করে।
  • নিউজিল্যান্ডের টেলিকমও এটি ব্যবহারের ঘোষণা দেয়।[৫]

২০০৯[সম্পাদনা]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "Multi-carrier HSPA Evolution" (PDF)। এরিকসন। ২৬ মে ২০১৩ তারিখে মূল (পিডিএফ) থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১১ জানুয়ারি ২০১৪ 
  2. "HSPA evolution white paper low res 141220" (পিডিএফ)। Nokia Siemens Networks। সংগ্রহের তারিখ ১১ জানুয়ারি ২০১৪ 
  3. "HSPA" (PDF)। এরিকসন। ৫ জুন ২০১৪ তারিখে মূল (PDF) থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১৫ জানুয়ারি ২০১৪ 
  4. "Ericsson world-first in delivering innovative 3G technology to Telstra – Press Release"। এরিকসন। ১০ জুন ২০০৮। ১৫ জানুয়ারি ২০১৪ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১৫ জানুয়ারি ২০১৪ 
  5. "TUANZ praises Telecom's network investment choice"। Computerworld। ১৬ অক্টোবর ২০০৮। ১৫ জানুয়ারি ২০১৪ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১৫ জানুয়ারি ২০১৪ 

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]