ঋণের আয়াত

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন

ঋণের আয়াত (আরবি: آية المداينة‎‎) হলো সূরা বাকারার ২৮২ নং আয়াত।[১][২] এই আয়াতটি কুরআনের দীর্ঘতম অধ্যায়ে দীর্ঘতম আয়াত। ঋণ গ্রহণের ধারণাটি আয়াতে ব্যাখ্যা করা হয়েছে।[৩][৪]

আয়াত[সম্পাদনা]

يَا أَيُّهَا الَّذِينَ آمَنُوا إِذَا تَدَايَنتُم بِدَيْنٍ إِلَىٰ أَجَلٍ مُّسَمًّى فَاكْتُبُوهُ ۚوَلْيَكْتُب بَّيْنَكُمْ كَاتِبٌ بِالْعَدْلِ ۚ وَلَا يَأْبَ كَاتِبٌ أَن يَكْتُبَ كَمَا عَلَّمَهُ اللَّـهُ ۚ فَلْيَكْتُبْ وَلْيُمْلِلِ الَّذِي عَلَيْهِ الْحَقُّ وَلْيَتَّقِ اللَّـهَ رَبَّهُ وَلَا يَبْخَسْ مِنْهُ شَيْئًا ۚ فَإِن كَانَ الَّذِي عَلَيْهِ الْحَقُّ سَفِيهًا أَوْ ضَعِيفًا أَوْ لَا يَسْتَطِيعُ أَن يُمِلَّ هُوَ فَلْيُمْلِلْ وَلِيُّهُ بِالْعَدْلِ ۚ وَاسْتَشْهِدُوا شَهِيدَيْنِ مِن رِّجَالِكُمْ ۖ فَإِن لَّمْ يَكُونَا رَجُلَيْنِ فَرَجُلٌ وَامْرَأَتَانِ مِمَّن تَرْضَوْنَ مِنَ الشُّهَدَاءِ أَن تَضِلَّ إِحْدَاهُمَا فَتُذَكِّرَ إِحْدَاهُمَا الْأُخْرَىٰ ۚ وَلَا يَأْبَ الشُّهَدَاءُ إِذَا مَا دُعُوا ۚ وَلَا تَسْأَمُوا أَن تَكْتُبُوهُ صَغِيرًا أَوْ كَبِيرًا إِلَىٰ أَجَلِهِ ۚ ذَٰلِكُمْ أَقْسَطُ عِندَ اللَّـهِ وَأَقْوَمُ لِلشَّهَادَةِ وَأَدْنَىٰ أَلَّا تَرْتَابُوا ۖ إِلَّا أَن تَكُونَ تِجَارَةً حَاضِرَةً تُدِيرُونَهَا بَيْنَكُمْ فَلَيْسَ عَلَيْكُمْ جُنَاحٌ أَلَّا تَكْتُبُوهَا ۗ وَأَشْهِدُوا إِذَا تَبَايَعْتُمْ ۚ وَلَا يُضَارَّ كَاتِبٌ وَلَا شَهِيدٌ ۚ وَإِن تَفْعَلُوا فَإِنَّهُ فُسُوقٌ بِكُمْ ۗ وَاتَّقُوا اللَّـهَ ۖ وَيُعَلِّمُكُمُ اللَّـهُ ۗ وَاللَّـهُ بِكُلِّ شَيْءٍ عَلِيمٌ[৫]

হে বিশ্বাসীগণ, যখন একে অন্যের সাথে কোন নির্দিষ্টকালের জন্য ঋণ সংক্রান্ত আদান প্রদান করবে তখন তা লিখে রাখ এবং তোমাদের মধ্যে কোন লেখক যেন ন্যায়ভাবে তা লিখে দেয়, যেহেতু আল্লাহ তাকে শিক্ষা দিয়েছেন তাই লেখক যেন লিখতে অস্বীকার না করে। এবং ঋণ গ্রহীতা যেন লেখার বিষয় বলে দেয় এবং সে যেন স্বীয় পালনকর্তা আল্লাহকে ভয় করে এবং লেখার মধ্যে বিন্দুমাত্রও কম-বেশী না করে। আর ঋণগ্রহীতা যদি নির্বোধ কিংবা দুর্বল হয় অথবা নিজে লেখার বিষয়বস্তু বলে দিতে অক্ষম হয়, তবে তার অভিভাবক ন্যায়সঙ্গতভাবে লিখাবে। দুজন পুরুষকে সাক্ষী করবে, যদি দুজন পুরুষ না হয়, তবে নিজেদের পছন্দ মত একজন পুরুষ ও দুজন মহিলাকে (সাক্ষী করে নেবে)। ঐ সাক্ষীদের মধ্য থেকে একজন যদি ভুলে যায়, তবে অপর জন তা স্মরণ করিয়ে দিবে। যখন সাক্ষীদেরকে ডাকা হয়, তখন যেন তারা অস্বীকার না করে। দেনা কম হোক আর বেশি হোক মেয়াদ পর্যন্ত তা লিখতে অলসতা কর না, এ লিপিবদ্ধ করণ আল্লাহর কাছে সুবিচারকে অধিক কায়েম রাখে, সাক্ষ্যকে অধিক সুসংহত রাখে এবং তোমাদের সন্দেহে পতিত না হওয়ার পক্ষে অধিক উপযুক্ত। কিন্তু যদি কারবার নগদ হয়, পরস্পর হাতে হাতে আদান-প্রদান কর, তবে তা না লিখলে তোমাদের প্রতি কোন পাপ নেই। তোমরা ক্রয়-বিক্রয়ের সময় সাক্ষী রাখ। কোন লেখক ও সাক্ষীকে (চাপ প্রয়োগ) ক্ষতিগ্রস্ত করো না। যদি তোমরা এ ধরনের কিছু কর, তবে তা তোমাদের পক্ষে পাপের বিষয়। আল্লাহকে ভয় কর তিনি তোমাদেরকে শিক্ষা দেন। আল্লাহ সব কিছু জানেন।[৬]

তাফসির[সম্পাদনা]

আয়াতে বর্ণিত কয়েকটি ধারণা নিম্নরূপ:[৭]

১.যখনই নির্দিষ্ট সময়ের জন্য ঋণের লেনদেন হয়, অবশ্যই এটি আনুষ্ঠানিকভাবে লিখে রাখতে হবে।

২. ঋণদাতা এবং ঋণদাতা উভয়কেই লেখকের উপর আস্থা রাখতে হবে।  অন্যদিকে লেখককে অবশ্যই ন্যায়সঙ্গত হতে হবে এবং ঋণের শর্তের সত্যতাগুলি লিখতে হবে।  গুরুত্বপূর্ণ বিষয় হ'ল ঋণের নিয়ম সম্পর্কে লেখকের তথ্য।  ঋণ নেওয়ার নিয়মকানুন সম্পর্কে লেখকের জ্ঞান এবং সচেতনতা জরুরি।  তিনি তাদেরকে ভালোভাবে জানতে হবে।

৩. লেখকের সুরক্ষার নিশ্চয়তা দিতে হবে এবং ন্যায়বিচার পরিচালনার কারণে তার ভাতা রয়েছে।

৪. চুক্তির সময়কাল সঠিকভাবে উল্লেখ করা উচিত।

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. Shahrudi, Seyyed Mahmud। "Fiqh dictionary" [ফিকহ অভিধান]। lib.eshia.ir (ফার্সি ভাষায়)। Encyclopaedia Institute of Islamic Fiqh। ২০১৬-০৩-০৪ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২০২০-০৫-২০ 
  2. হামিদ আল-খতিব, ফুয়াদ আবদুল। "ইসলামী অর্থনীতি"। ইসলাম একটি পূর্ণাঙ্গ জীবন ব্যবস্থা (ইংরেজি ভাষায়)। Ahsan Publication। আইএসবিএন 978-1-311-37867-5 
  3. Murad, Khurram (২০১৪-০২-১৫)। Key to al-Baqarah: The Longest Surah of the Qur'an (ইংরেজি ভাষায়)। Kube Publishing Ltd। আইএসবিএন 978-0-86037-532-6 
  4. Samii, Bahram (২০১২-১০-০৭)। "Physical Aspects of the Noble Qur'an"Al-Islam.org (ইংরেজি ভাষায়)। ২০১৮-০৭-২৬ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২০২০-০৫-২০ 
  5. "Surah Al-Baqarah [2:282]"  , Quran Surah Al-Baqara ( Verse 282 )
  6. "সূরা বাকারাহ; আয়াত ২৭৮-২৮২ (পর্ব ৬৯)"Parstoday। ২০১১-০৪-১৮। সংগ্রহের তারিখ ২০২০-০৫-২০ 
  7. Iṣlāḥī, Amīn Aḥsan (২০০৭)। Tafsir of Surah al-Fātihan and Surah al-Baqarah (ইংরেজি ভাষায়)। The Other Press। আইএসবিএন 978-983-9154-88-7