উইনিং (ব্যান্ড)

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
উইনিং
ধরনমেলো রক, সফট রক,রক
কার্যকাল১৯৮৩ সাল-বর্তমান
লেবেলসারগাম
সহযোগী শিল্পীফিডব্যাক,চাইম
সদস্যবৃন্দচন্দন
কিরণ
রঞ্জন
পল
শমী
অ্যালিস (শারিফ)
প্রাক্তন সদস্যবৃন্দহায়দার হোসেন
মিতুল
শেলী
রানা
ফাহিম
বাবু
রেজা
রেজা খান
বিপ্লব
তারিক
সোহাল
মাহাবুব
রাসেল
রুবায়েত
রবিন
মোর্শেদ
ইমন
টিপু
রাজু
সজল

উইনিং বাংলাদেশের একটি ব্যান্ড যা ১৯৮৩ সালের ১লা জানুয়ারি গঠিত হয়। ব্যান্ডটি ৯০-এর দশকে বাংলাদেশে জনপ্রিয়তা অর্জন করে।

ইতিহাস[সম্পাদনা]

৭০-এর দশকে পপ সম্রাট আজম খানের ব্যান্ডের কিছু সদস্য সিদ্ধান্ত নেন নিজেরা কিছু গান করার।তখন ১৯৮৩ সালে উইনিং ব্যান্ডটি গঠিত হয় যার সদস্য ছিলেন হায়দার হোসেন (গিটার ও ভোকাল),মিতুল(গিটার ও ভোকাল), রঞ্জন (ড্রামসভোকাল,শেলী (বেজ গিটার),রানা (কি-বোর্ড),ফাহিম (ইংরেজি গানের ভোকাল)।তারা নির্জর নামের একটি টিভি অনুষ্ঠানে প্রথম অংশ নেন। ১৯৮৪ থেকে ১৯৮৫ সালের ভেতর ব্যান্ডের সদস্য মিতুল, হায়দার, ফাহিম ও রানা আমেরিকাতে পাড়ি জমান উন্নত জীবন এবং পড়াশোনার জন্য। তখন ব্যান্ডে কিছু সদস্য যোগ দেন ।১৯৮৫ সালে বাবু গিটারে ও ভোকালে ,রেজা রিদম গিটারে ও ভোকালে যোগ দেন, রেজা খান গিটার ও কি-বোর্ডে এবং বিপ্লব ১৯৮৬ সালে কি-বোর্ডে যোগ দেন।[১]

উইনিং[সম্পাদনা]

১৯৮৬-৮৭ সালের দিকে উইনিং ব্যান্ড তাদের মূল ভোকালের খোঁজ শুরু করে। তখন বর্তমানে নগর বাউল ব্যান্ডের জেমসকে তারা কিছু সময়ের জন্য ব্যান্ডের সাথে অনুশীলনে রাখে।পরে ১৯৮৭ সালে চন্দন ব্যান্ডে যোগ দেয় গিটারিস্ট ও ভোকাল হিসেবে।

১৯৮৮ সালে রঞ্জন ক্রিকেট খেলতে গিয়ে আহত হয়ে আংগুল ভেঙ্গে ফেলেন এবং আর ড্রামস বাজাতে সক্ষম ছিলেন না । এ অবস্থাতে টিপু ব্যান্ডে যোদ দেন ড্রামার হিসেবে।১৯৯১ সালে তাদের সেলফ টাইটেল অ্যালবাম উইনিং বের হয় এবং বাবু ও রেজা ব্যান্ড ত্যাগ করেন।তখন ব্যান্ডের নতুন সদস্য হিসেবে যোগ দেয় কি-বোর্ডে বিপ্লব ও সজল ম্যানেজার।[১]

অচেনা শহর[সম্পাদনা]

১৯৯১ সাল থেকে ১৯৯৪ সাল ছিল ব্যান্ডের জন্য সবচেয়ে সফল সময়। এসময় তারা বিভিন্ন কনসার্টে অংশ নেয়।১৯৯৪ সালে ব্যান্ডে আবার ভাঙ্গণ দেখা দেয়। রঞ্জন সিদ্ধান্ত নেন ব্যান্ড থেকে বিরতি নেয়ার, শেলী সিলেটে চা-বাগানে তার কর্মজীবন শুরু করে ও সজল তার ব্যবসা নিয়ে ব্যস্ত হয়ে পড়েন।এ সময় দলে যোগ দেন মবিন যিনি পরে সড়ক দুর্ঘটনাতে নিহত হন।১৯৯৪ সালে ব্যান্ডের ২য় অ্যালবাম অচেনা শহর মুক্তি পায়।১৯৯৫ সাল থেকে ১৯৯৭ সাল পর্যন্ত ব্যান্ডে অনেক পরিবর্তন হয়।টিপু ব্যান্ড ত্যাগ করলে তার জায়গায় আসেন ইমন, মবিন ব্যান্ড ত্যাগ করেন শব্দ প্রকৌশলী হিসেবে কাজ করার জন্য। এসময় বর্তমানে মাইলস ব্যান্ডের সদস্য জুয়েল ব্যান্ডে কিছুদিন কাজ করেন।সবশেষে মোর্শেদ বেজ গিটারিস্ট হিসেবে এবং ভোকাল ও গিটারিস্ট রাসেল ব্যান্ডে যোগ দেয়। [২] ১৯৯৮ সালে ইমন ব্যান্ড ত্যাগ করেন ও চন্দন ব্যান্ড ছেরে ১ বছরের জন্য ইংল্যান্ডে উচ্চ শিক্ষার জন্য পাড়ি জমান। এসময় ব্যান্ডের কার্যক্রম স্থবির হয়ে পড়ে।২০০০ সালে শেরাটনে উইনিং ব্যান্ডের নেসক্যাফে আনপ্লাগড কনসার্টটি ভীষণ সফল হয়।[৩]

উইনিং প্রবাসে[সম্পাদনা]

২০০০ সালের জুলাই মাসে চন্দন কানাডাতে অভিবাসী হিসেবে পাড়ি জমান এবং সেখানে উইনিং ব্যান্ডের প্রতিষ্ঠাতা সদস্য রঞ্জনের সাথে দেখা করেন।এদিকে বাংলাদেশেও উইনিং ব্যান্ড কাজ চালিয়ে যায় চন্দনকে ছাড়াই।কানাডাতে চন্দনও উইনিং ব্যান্ড চালিয়ে নেন[৪] এবং ২০০৩ সালে উইনিং প্রবাসে নামের অ্যালবাম বের করেন।[১] বাংলাদেশেও চন্দনবিহীন উইনিং একটি অ্যালবাম ওই বছরই বের করে।কানাডাতে উইনিং মন্ট্রিল, অটোয়াসহ বিভিন্ন রাজ্যে কনসার্ট করে প্রবাসী বাংলাদেশী সম্প্রদায়ের জন্য।[৫] ২০১১ সালের ১লা জানুয়ারি উইনিং ব্যান্ডের পুনঃমিলনী হয় এবং সেখানে কনসার্ট ও গানের সিডি প্রকাশিত হয়।‘হৃদয় ভরে ভালবাসা’ নামের একটি একক অ্যালবাম করেছেন ব্যান্ডের ভোকাল চন্দন ২০১১ সালে অগ্নিবীণার ব্যানারে।[৬]

প্রকাশিত অ্যালবাম[সম্পাদনা]

  • উইনিং (১৯৯১)
  • অচেনা শহর (১৯৯৪) [৭]
  • উইনিং প্রবাসে (২০০৩)

বর্তমান সদস্য[সম্পাদনা]

  • চন্দন
  • কিরণ
  • রঞ্জন
  • পল
  • শমী
  • অ্যালিস (শারিফ)

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. লাস্ট এফ এমে উইনিং
  2. http://www.deshforum.com/printthread.php?tid=416[স্থায়ীভাবে অকার্যকর সংযোগ]
  3. কাজল, সফি দেলোয়ার (০৬ আগস্ট ২০০৮)। "উত্তর আমেরিকা বিএমএ এর বার্ষিক সম্মেলন অনুষ্ঠিত"নিউজবাংলা। ৬ মার্চ ২০১৬ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২০শে ফেব্রুয়ারি,২০১১  এখানে তারিখের মান পরীক্ষা করুন: |তারিখ=, |সংগ্রহের-তারিখ= (সাহায্য)
  4. কাজল, সফি দেলোয়ার (২৮ নভেম্বর ২০০৯)। "মেট্রো ওয়াশিংটনে ঈদ উৎসবে প্রানের স্পন্দন"নিউজবাংলা। ৬ মার্চ ২০১৬ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২০শে ফ্রব্রুয়ারি,২০১১  এখানে তারিখের মান পরীক্ষা করুন: |সংগ্রহের-তারিখ= (সাহায্য)
  5. কাজল, সফি দেলোয়ার (২৮ নভেম্বর ২০০৯)। "টরন্টোতে সম্মিলিত উদযাপন পরিষদ গঠন"নিউজবাংলা। সংগ্রহের তারিখ ২০শে ফেব্রুয়ারি,২০১১  এখানে তারিখের মান পরীক্ষা করুন: |সংগ্রহের-তারিখ= (সাহায্য)[স্থায়ীভাবে অকার্যকর সংযোগ]
  6. http://thebengalitimes.ca/details.php?val=1133&pub_no=27&menu_id=1[স্থায়ীভাবে অকার্যকর সংযোগ]
  7. http://www.grohon.com/forum/viewtopic.php?f=98&t=1421