ইস্ট-ওয়েস্ট মেডিকেল কলেজ ও হাসপাতাল

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
ইস্ট-ওয়েস্ট মেডিকেল কলেজ ও হাসপাতাল
ইস্ট-ওয়েস্ট মেডিকেল কলেজ ও হাসপাতালের লোগো
ইস্ট-ওয়েস্ট মেডিকেল কলেজ ও হাসপাতালের লোগো
নীতিবাক্যDevotion, Duty, Dedication
ধরনবেসরকারী
স্থাপিত২০০০
প্রতিষ্ঠাতাডাঃ মোহাম্মদ মোয়াজ্জেম হোসেন
মূল প্রতিষ্ঠান
আলিম ফাউন্ডেশন, শিপ-আইচি মেডিকেল সার্ভিসেস লিমিটেড, জাইকা।
চেয়ারম্যানডাঃ মোহাম্মদ মোয়াজ্জেম হোসেন
অধ্যক্ষডা: জাফরউল্লাহ চৌধুরী
পরিচালকউলফাত জাহান মুন
শিক্ষায়তনিক ব্যক্তিবর্গ
২০০
প্রশাসনিক ব্যক্তিবর্গ
১০০
শিক্ষার্থী৮০০
ঠিকানা
আইচি নগর, জেবিসিএস সরণী, খাইরটাক, তুরাগ
,
ঢাকা
,
১৭১১
,
বাংলাদেশ
শিক্ষাঙ্গন৭ একর
ভাষাইংরেজি
ওয়েবসাইটeastwestmedicalcollege.com

ইস্ট-ওয়েস্ট মেডিকেল কলেজ বাংলাদেশের রাজধানী ঢাকায় অবস্থিত একটি বেসরকারী মেডিকেল কলেজ। এর অবস্থান ঢাকা উত্তর সিটি কর্পোরেশন এলাকার আওতাধীন তুরাগ থানার আইচিনগর, জেবিসিএস সরণীতে, আব্দুলাহপুর-আশুলিয়া বেড়িবাঁধ সড়ক সংলগ্ন এলাকায়। এখানে ৬৫০ শয্যা বিশিষ্ট জেনারেল হাসপাতাল আছে। জাপানের জাইকা ও শিপ-আইচি মেডিকেল সার্ভিসেস লিমিটেড এর সহায়তায় আরো ৬৫০ শয্যা হাসপাতাল ভবনের কাজ প্রায় শেষ পথে। হাসপাতালের সাথে সংযুক্ত এই কলেজে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় এর মেডিসিন ফ্যাকাল্টির অধীনে ৫ বছর মেয়াদি ব্যাচেলর অব মেডিসিন ও ব্যাচেলর অব সার্জারি প্রোগ্রাম চালু রয়েছে। এছাড়াও একই ক্যাম্পাসে ডেন্টাল কলেজ ও হাসপাতাল, বিএসসি নার্সিং ও নার্সিং ইন্সটিটিউট রয়েছে। বাংলাদেশের ২য় বার্ন ইউনিট এখানে অবস্থিত। এছাড়াও বিশেষায়িত ট্রমা সেন্টার ও ক্যান্সার নিরাময় কেন্দ্র নির্মানাধীন।

অন্যান্য[সম্পাদনা]

ইস্ট ওয়েস্ট মেডিকেল কলেজ ও হাসপাতাল (ইডব্লিউএমসিএইচ) আলিম ফাউন্ডেশনের সক্রিয় সহযোগিতায় ২০০০ সালে ঢাকার তুরাগে প্রতিষ্ঠিত হয়। প্রথমে ৫০ জন ছাত্রছাত্রী নিয়ে যাত্রা শুরু হয় মেডিকেল কলেজের কার্যক্রম। বর্তমানে ১২০ জন করে শিক্ষার্থী সম্মিলিত মেডিকেল ভর্তি পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হয়ে ভর্তি হতে পারেন এবং ২০১৮-১৯ শিক্ষাবর্ষে ১৬ তম এমবিবিএস ব্যাচ ভর্তি হয়েছে। ৫০% আসন বিদেশী শিক্ষার্থীদের জন্য বরাদ্দ, যেখানে বর্তমানে নেপাল, মালদ্বীপ এবং ভারতের জম্মু-কাশ্মীর, আসাম, উত্তর প্রদেশ, বিহার ও পশ্চিমবঙ্গের শিক্ষার্থী রয়েছে।

বিভাগসমূহ

এনাটমি, ফিজিওলজি, বায়োকেমিস্ট্রি, কমিউনিটি মেডিসিন, ফরেনসিক মেডিসিন, প্যাথলজি, মাইক্রোবায়োলজি, ফার্মাকোলজি, জেনারেল মেডিসিন, জেনারেল সার্জারি, গাইনি ও অবস, অপথ্যালমোলজি, ইএনটি, নিউরোমেডিসিন, কার্ডিও-থোরাসিক সার্জারি, অর্থোপেডিক্স, সাইকিয়াট্রি, ব্লাড ট্রান্সফিউশন, ফ্যামিলি প্ল্যানিং, ইউরোলজি, ডার্মাটোলজি, নেফ্রলজি এবং অন্যান্য গুরুত্বপূর্ণ সব বিভাগ রয়েছে।

শিক্ষার্থীদের আবাসন ব্যবস্থা

ছেলেদের জন্য ১টি ও মেয়েদের জন্য ২টি পৃথক হল রয়েছে। এছাড়াও নার্সিং হোস্টেল আছে। নতুন হল নির্মানাধীন।

সহশিক্ষা কার্যক্রম

মেডিকেল শিক্ষার্থীদের দ্বারা পরিচালিত জাতীয় পর্যায়ের স্বেচ্ছাসেবী সংগঠন "সন্ধানী" এর কার্যক্রম রয়েছে। "সন্ধানী, ইস্ট-ওয়েস্ট মেডিকেল ও আপডেট ডেন্টাল কলেজ ইউনিট" নাম এ এর কার্যক্রম পরিচালিত হয়। এছাড়াও "ইস্ট-ওয়েস্ট মেডিকেল ডিবেটিং ও কুইজ ক্লাব" নামে পৃথক একটি সংগঠন রয়েছে। নিয়মিত ক্রীড়া প্রতিযোগিতা ও বার্ষিক সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান আয়োজিত হয়। এলামনাই এসোসিয়েশনের কাজ শুরু হয়েছে।

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]