ইসলামি চরমপন্থা

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
২০১২ সালে সিডনিতে ইসলাম বিরোধী চলচ্চিত্র বিক্ষোভ

ইসলামি চরমপন্থা, ইসলামি উগ্রবাদ, বা উগ্র ইসলাম, ইসলাম ধর্মের সাথে যুক্ত চরমপন্থী বিশ্বাস ও আচরণের ক্ষেত্রে ব্যবহৃত হয়। এগুলি হল বিভিন্ন সংজ্ঞা সহ বিতর্কিত শব্দ, যার মধ্যে তাত্ত্বিক বোধগম্যতা থেকে শুরু করে এই ধারণা যে ইসলাম ছাড়া অন্য সমস্ত মতাদর্শ ব্যর্থ এবং ইসলামের চাইতে নিকৃষ্ট। এই ধরনের বিশ্বাস পোষণ করে না এমন ইসলামের অন্যান্য সম্প্রদায়ের ক্ষেত্রেও এই শব্দগুলো ব্যবহার করা যেতে পারে। ইসলামি চরমপন্থার রাজনৈতিক সংজ্ঞার মধ্যে একটি হচ্ছে যুক্তরাজ্যের সরকার কর্তৃক ব্যবহৃত সংজ্ঞা যেটিতে বলা হয়েছে, ইসলামের এমন কোনো রূপ যেটিতে "গণতন্ত্র, আইনের শাসন, ব্যক্তিস্বাধীনতা ও পারস্পরিক শ্রদ্ধা এবং বিভিন্ন ধর্ম ও বিশ্বাসের সহনশীলতার বিরোধিতা করে" সেটিই ইসলামি চরমপন্থা।

ইসলামি চরমপন্থাকে ইসলামি মৌলবাদ বা ইসলামবাদের সাথে সমতুল্য করা উচিত নয়, পূর্বেরটি মুসলমানদের একটি আন্দোলন হিসাবে সংজ্ঞায়িত করা হয় যারা বিশ্বাস করে যে মুসলিম-সংখ্যাগরিষ্ঠ দেশগুলিকে একটি ইসলামি রাষ্ট্রের মূলনীতিতে ফিরে আসা উচিৎ এবং পরবর্তী আন্দোলনকে রাজনৈতিক ইসলামের একটি রূপ হিসাবে সংজ্ঞায়িত করা হয়েছে, কিন্তু কিছু বিশেষজ্ঞ ইসলামি মৌলবাদ ও ইসলামবাদ উভয়কেই ইসলামি চরমপন্থা বা উগ্র ইসলামের রূপ বলে মনে করেন। ইসলামি সন্ত্রাসবাদী এবং জিহাদিদের দ্বারা সংঘটিত সহিংসতার কাজগুলিকে প্রায়শই ইসলামী চরমপন্থার উপর দোষারোপ করা হয়, তবে ইসলামিক চরমপন্থা প্রতিটি সহিংসতার মূল কারণ নয়।

সংজ্ঞা[সম্পাদনা]

তাত্ত্বিক সংজ্ঞা[সম্পাদনা]

উগ্র ইসলামের তাত্ত্বিক সংজ্ঞা মূলত দুটি অংশ নিয়ে গঠিত:

  • প্রথমটি: এমন ইসলামী চিন্তাধারা যা বলে যে, ইসলাম ছাড়া অন্য সমস্ত মতাদর্শ, তা পাশ্চাত্য (পুঁজিবাদ বা গণতন্ত্র) বা প্রাচ্য (সাম্যবাদ বা সমাজতন্ত্র) এর সাথে যুক্ত হোক না কেন ব্যর্থ হয়েছে এবং তাদের দেউলিয়াত্ব প্রদর্শন করেছে।[১]
  • দ্বিতীয়টি হল: এমন ইসলামি চিন্তাধারা যা বলে যে (আধা) ধর্মনিরপেক্ষ শাসনব্যবস্থাগুলি ইসলামের প্রতি অবহেলার কারণে ভুল।[২]

যুক্তরাজ্যের উচ্চ আদালতের সংজ্ঞা[সম্পাদনা]

যুক্তরাজ্যের হাইকোর্ট ইসলামি চরমপন্থা সম্পর্কিত দুটি মামলার রায় দিয়েছে এবং সংজ্ঞা প্রদান করেছে।

এগুলো ছাড়াও, ইসলামি চরমপন্থার জন্য দুটি প্রধান সংজ্ঞা দেওয়া হয়েছে, কখনও কখনও ওভারল্যাপিং ব্যবহার করে কিন্তু ইসলামই আদর্শের চরম ব্যাখ্যা ও অনুসরণের স্বতন্ত্র দিকগুলিও ব্যবহার করে:

  • অনুভূত ইসলামিক লক্ষ্য অর্জনের জন্য বোমা হামলা এবং হত্যার মতো সহিংস কৌশলের ব্যবহার (দেখুন জিহাদিবাদ; অথবা জেনো বারান, সিনিয়র ফেলো এবং সেন্টার ফর ইউরেশিয়ান নীতির পরিচালক হাডসন ইনস্টিটিউট, "ইসলামবাদী চরমপন্থা" শব্দটিকে পছন্দ করে)[৩]
  • ইসলামের একটি অত্যন্ত রক্ষণশীল দৃষ্টিভঙ্গি, যা অগত্যা সহিংসতাকে অন্তর্ভুক্ত করে না।[৪][৫] (এছাড়াও ইসলামিক মৌলবাদ দেখুন [বারান আবার ইসলামবাদ শব্দটিকে পছন্দ করেন])[৩]

খারেজি[সম্পাদনা]

খারিজি (আরবি: الخوارج‎‎, আল-খাওয়ারিজ, একবচন خارجي, খারিজি), আশ-শুরাহও বলা হয় (আরবি: الشراة‎, প্রতিবর্ণী. আশ-শুরাহ‎ "যে (টাকা) ভাঙিয়ে দেয়") শব্দ দ্বারা ইসলামের প্রথম যুগে উদ্ভব হওয়া একটি বিদ্রোহী গোষ্ঠীকে বুঝায়। ৭ম শতাব্দীতে এই গোষ্ঠীর উদ্ভব হয়েছিল। ইরাকের দক্ষিণাশে তারা কেন্দ্রীভূত হয়েছিল। সুন্নিশিয়াদের থেকে খারিজিরা ভিন্ন মত পোষণ করত। পরবর্তীতে সময়ের সাথে সাথে খারিজিরা সংখ্যায় বৃদ্ধি পায়। খলিফা আলি ইবনে আবি তালিবের শাসন শুরু হওয়ার পর তারা প্রথমে তা মেনে নেয়, তবে পরে তার শাসন প্রত্যাখ্যান করে। আলি নিজেও আবদুর রহমান ইবনে মুলজাম নামক একজন খারিজির হাতে নিহত হন।

আরও দেখুন[সম্পাদনা]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. উদ্ধৃতি ত্রুটি: <ref> ট্যাগ বৈধ নয়; auto নামের সূত্রটির জন্য কোন লেখা প্রদান করা হয়নি
  2. Cook, David (২০১৫)। Understanding Jihad। University of California Press। পৃষ্ঠা 107। আইএসবিএন 9780520287327 
  3. Baran, Zeyno (২০০৮-০৭-১০)। "The Roots of Violent Islamist Extremism and Efforts to Counter It" (PDF)Senate Committee on Homeland Security and Governmental Affairs। সংগ্রহের তারিখ ২০১১-১১-১১ 
  4. Brian R. Farmer (২০০৭)। Understanding radical Islam: medieval ideology in the twenty-first century। Peter Lang। পৃষ্ঠা 36। আইএসবিএন 978-0-8204-8843-1 
  5. Jason F. Isaacson; Colin Lewis Rubenstein (২০০২)। Islam in Asia: changing political realities। Transaction Publishers। পৃষ্ঠা 191। আইএসবিএন 978-0-7658-0769-4