ইসরায়েল-নেপাল সম্পর্ক

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
Jump to navigation Jump to search
ইসরায়েল–নেপাল সম্পর্ক
মানচিত্র Israel এবং Nepal অবস্থান নির্দেশ করছে

ইসরায়েল

নেপাল

১ ই জুন, ১৯৬০ তারিখে প্রতিষ্ঠিত ইসরায়েল-নেপাল সম্পর্ক, ইসরায়েল ও নেপালের মধ্যকার সম্পর্ক হল নেপালকে প্রথম এশীয় দেশগুলির মধ্যে এক ইসরায়েলের সাথে কূটনৈতিক সম্পর্ক গড়ে তুলতে।[১][২][৩]

১৯৫৯ থেকে ১৯৬০ পর্যন্ত নেপালের প্রধানমন্ত্রী বিশ্বশান্ত প্রসাদ কৈরালা, ইসরায়েলের একটি দৃঢ় প্রয়াত ইসরায়েল নীতিমালা করেছিলেন। রাজা, সরকার প্রধান, মন্ত্রী ইত্যাদি সহ বিভিন্ন রাষ্ট্রের রাষ্ট্রপতিকে ইসরাইল সফর করেন এবং তাদের পররাষ্ট্র নীতি অব্যাহত রাখেন। নেপালের মাওবাদী সরকারের ৯ মাস সংক্ষিপ্ত সময়ের ব্যবধানে, অন্য সব নেপালী সরকার সাধারণভাবে ইসরায়েলের পক্ষে একটি দৃঢ়ভাবে ইসরায়েলের নীতিমালা করেছে। তবে, নেপাল এমন একটি দেশ নয়, যা মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র, অস্ট্রেলিয়া, কানাডা, ইসরায়েল, মার্শাল দ্বীপপুঞ্জ, মাইক্রোনেশিয়া, পালাও, পানামা, চেক প্রজাতন্ত্র এবং নাউরু মত জাতিসংঘের মত প্যালেস্টিনকে পর্যবেক্ষক রাষ্ট্রের অনুমতি ছাড়াই বিরত করেছে।

রাজনৈতিক সম্পর্ক[সম্পাদনা]

১৯৫৮ সালে ইসরাইলের উইজমেন ইনস্টিটিউট অব সাইন্সে নেপালের দ্বিতীয় রাজা বাদশা মাহেন্দ্র (বাম থেকে দ্বিতীয়)।

১ লা জানুয়ারি, ১৯৬০ সালে নেপালইসরায়েলের মধ্যে কূটনৈতিক সম্পর্ক স্থাপিত হয়।[৪] সম্পর্ক প্রতিষ্ঠার পর থেকে নেপাল ইসরায়েলকে আন্তর্জাতিকভাবে সমর্থন করেছে। মার্চ ১৯৬১ সালে ইসরায়েল কাঠমান্ডুতে দূতাবাস খুলে।[৪] মিশরে নেপালী রাষ্ট্রদূত প্রথমে ইজরায়েলকে স্বীকৃতি প্রদান করেন।[৪] নেপালে ১৯৯৩ সালে [৪] এবং ২০০৭ সালে দূতাবাসে নেপালী মানবাধিকার কনস্যুলেট জেনারেল খোলা। ইসরায়েলে বর্তমান নেপালী রাষ্ট্রদূত বেয়াজ নাথ থাপালিয়া, যিনি ১ মার্চ, ২০০৮ তারিখে রাষ্ট্রপতি প্যারেসকে তার স্বীকৃতি প্রদান করেন।

নেপাল প্রথম এবং ইসরায়েলের অস্তিত্ব স্বীকার দক্ষিণ এশিয়ার সম্প্রতি শুধুমাত্র দেশ পর্যন্ত।[৪] নেপাল কূটনৈতিক সম্পর্ক বজায় রেখেছে এবং নিরাপদ ও আন্তর্জাতিকভাবে স্বীকৃত সীমারেখা বরাবর ইসরায়েলের অধিকারকে সমর্থন করে যাচ্ছে।[৪] ২৪২ (১৯৬৭) ও ৩৩৮ (১৯৭৩) সিকিউরিটি কাউন্সিলের সিদ্ধান্তের পক্ষে নেপাল ভোট দেয়, যা এই অঞ্চলের সব রাজ্যে শান্তি বজায় রাখার অধিকারকে সমর্থন করে।[৪] ১৯৭৮ সালে মিশর ও ইসরায়েলে স্বাক্ষরিত ক্যাম্প ডেভিড অ্যাকর্ডের মত মধ্যপ্রাচ্য সমস্যাগুলির সমাধান করার জন্য যেকোনো চতুর্থাংশের প্রতি নেপালের প্রতি উদ্যোগও স্বাগত জানানো হয়েছে এবং মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের মতো দেশগুলি দ্বারা পুনর্নবীকরণ শান্তি প্রক্রিয়া স্পন্সর করার সময়।

১৯৭৫ সালে জাতিসংঘের সাধারণ পরিষদ আরব স্পন্সর রেজোলিউশন (৩৩৭৯) পাস করে যা জিয়াউনবাদ এবং বর্ণবাদ এবং জাতিগত বৈষম্যকে সমান করে।[৪] এই বিষয়ে আলোচনাকালে নেপাল তার রিজার্ভেশন প্রকাশ করে এবং রেজুলেশন সমর্থন করে না।[৪] পশ্চিম এশিয়ায় পুনর্নবীকরণ শান্তি প্রেক্ষাপটে জাতিসংঘের ৪৬ তম অধিবেশনে ১৯৭৫ সালের ৩৩৭৯ সালের প্রস্তাবটি বাতিল করার জন্য একটি খসড়া প্রস্তাব উত্থাপন করার জন্য মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র উদ্যোগ গ্রহণ করে।[৪] একটি বড় সংখ্যাগরিষ্ঠ খসড়া রেজল্যুশন গৃহীত। নেপাল ভোটের পক্ষে ভোট দেয়। ইসরায়েল, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র এবং পশ্চিমা দেশগুলির প্রস্তাবের জন্য নেপালের সমর্থনের প্রশংসা করেছে।[৪]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "Ministry of Foreign Affairs Nepal"। ৮ ডিসেম্বর ২০০৯ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১৭ এপ্রিল ২০১৭ 
  2. Visit to Israel of Honorable Mrs. Sahana Pradhan, Minister for Foreign Affairs of Nepal Israel Ministry of Foreign Affairs
  3. "Israel-Nepal 55 years of diplomatic relations"। mfa.gov.il। ২৯ জুন ২০১৬ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২ সেপ্টেম্বর ২০১৬ 
  4. Ministry of Foreign Affairs Nepal