ইরানের পরিবহন ব্যবস্থা

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
Major routes and railways of Iran. Tehranis the hub of Iran's transport and communication system.

ইরানের বেশিরভাগ শহরে সুগঠিত সড়ক ব্যবস্থা রয়েছে।ইরানের প্রায় সমস্ত শহরই এ সড়ক ব্যবস্থার সাথে যুক্ত। ২০১১ সালে দেশে ১৭৩,০০০ কিলোমিটার (১০৭,০০০ মাইল) রাস্তা ছিল, যার মধ্যে ৭৩% পাকা সড়ক। ২০০৮ সালে প্রতি এক হাজার বাসিন্দার জন্য প্রায় ১০০ যাত্রীবাহী গাড়ি ছিল। ট্রেনের জন্য ১১,১০৬ কিলোমিটার (৬,৯৪২ মাইল) দীর্ঘ রেলপথ বিদ্যমান । দেশের প্রবেশের প্রধান বন্দরটি হরমুজ প্রণালীর বন্দর-আব্বাস।বন্দরে আসার পরে আমদানিকৃত পণ্যগুলি ট্রাক ও মালবাহী ট্রেনের মাধ্যমে সারাদেশে বিতরণ করা হয়। ১৯৯৫ সালে খোলা তেহরান-বন্দর-আব্বাস রেলপথটি তেহরান ও মাশহাদ হয়ে মধ্য এশিয়ার রেলপথ ব্যবস্থায় বান্দর-আব্বাসকে সংযুক্ত করে। অন্যান্য বড় বন্দরগুলির মধ্যে রয়েছে ক্যাস্পিয়ান সাগরের বন্দর ই-আনজালি এবং বন্দর ই-তার্কম্যান এবং পারস্য উপসাগরে খোররমশহর এবং বান্দর-ই-ইমাম খোমেনী। কয়েক ডজন শহরে বিমানবন্দর রয়েছে, যা যাত্রী এবং কার্গো পরিবহন করে।ইরানের জাতীয় বিমান সংস্থা ইরান এয়ার, ১৯৬২ সালে প্রতিষ্ঠিত হয়।এটি দেশীয় এবং আন্তর্জাতিক ফ্লাইট পরিচালনা করে। সমস্ত বড় শহরগুলিতে বাস ব্যবহার করে ভর ট্রানজিট সিস্টেম রয়েছে এবং বেশ কয়েকটি বেসরকারী সংস্থা শহরগুলির মধ্যে বাস পরিষেবা সরবরাহ করে। সরকারের পেট্রোলের দাম ভর্তুকি দেওয়ার কারণে ইরানে পরিবহন কম ব্যয়বহুল। ২০০৮ সালে, এক মিলিয়নেরও বেশি লোক পরিবহন খাতে যুক্ত ছিল , যা ছিল দেশীয় জিডিপির ৯% ।

সড়ক ও পরিবহন মন্ত্রণালয়[সম্পাদনা]

সড়ক ও পরিবহন মন্ত্রণালয় পরিবহন নীতিমালা বাস্তবায়নের দায়িত্বে রয়েছে ;  পাশাপাশি পরিবহন সংস্থাগুলি প্রতিষ্ঠার জন্য লাইসেন্স প্রদান করা। ২০১৬ সালের মধ্যে, পরিবহন খাতে বিদেশী প্রত্যক্ষ বিনিয়োগের পরিকল্পনার মধ্যে ৫,৬০০ কিলোমিটারেরও বেশি হাইওয়ে, ৭৪৫ কিমি ফ্রিওয়ে এবং প্রায় ৩,০০০ কিলোমিটার মূল সড়ক অন্তর্ভুক্ত করা হয়েছিল।

রেলপথ[সম্পাদনা]

পরিকল্পনা রয়েছে ২০২২ সালের মধ্যে মোট রেলপথ ২০,০০০ কিলোমিটারে বাড়ানোর।যার মধ্যে -

  • স্ট্যান্ডার্ড গেজ: ৮২৭৩ কিলোমিটার
  • ব্রড গেজ: ৯৪ কিলোমিটার

তাবরিজ থেকে জোলফা পর্যন্ত বিদ্যুতায়িত রেলপথ যা প্রায় ১৪৬ কিমি দীর্ঘ এবং তেহরান-মাশহাদ রেলওয়ে বিদ্যুতায়ন এর কাজও শেষ হয়েছে।

তবে,ইরানের বেশিরভাগ পরিবহন সড়ক-ভিত্তিক।

প্রতিবশী রাষ্ট্রগুলোর সাথে রেল যোগাযোগ ব্যবস্থা[সম্পাদনা]

২০১৪ সালের ডিসেম্বরে, ইরান থেকে একটি রেললাইন তুর্কমেনিস্তান এবং কাজাখস্তান পর্যন্ত চালু করা হয়।

  • আফগানিস্তান - (কাজ এখনো সমাপ্ত হয় নি)
  • আজারবাইজান- রেল যোগাযোগ বিদ্যমান
  • আর্মেনিয়া- (কাজ এখনো সমাপ্ত হয় নি)
  • পাকিস্তান- রেল যোগাযোগ বিদ্যমান
  • তুরস্ক- রেল যোগাযোগ বিদ্যমান
  • তুর্কমেনিস্তান - রেল যোগাযোগ বিদ্যমান

র‌্যাপিড ট্রানজিট[সম্পাদনা]

ইরানের উল্লেখযোগ্য র‌্যাপিড ট্রানজিট এর মধ্যে রয়েছে-

তেহরান মেট্রো[সম্পাদনা]

তেহরান বাস র‌্যাপিড ট্রানজিট[সম্পাদনা]

মাশহাদ রেলপথ[সম্পাদনা]

ইসফাহান মেট্রো[সম্পাদনা]

শিরাজ মেট্রো[সম্পাদনা]

তাবরিজ মেট্রো[সম্পাদনা]

রোডওয়ে এবং অটোমোবাইল[সম্পাদনা]

মোট: ১৭২,৯২৭ কিমি (২০০৬)

পাকা সড়ক :১২৫,৯০৮ কিমি

অন্যান্য:৪৭.০১৯ কিমি

সড়ক দুর্ঘটনা[সম্পাদনা]

সড়ক দুর্ঘটনায় মৃত্যুতে ইরান বিশ্বব্যাপী ২৩ তম স্থানে রয়েছে।

প্রতিবছর ইরানে ৩৮,০০০ জনের মৃত্যু ও আহত হবার ঘটনা ঘটে,আর সবচেয়ে বেশি সড়ক দুর্ঘটনার ঘটনায় ইরান বিশ্বব্যাপী প্রথম স্থান অধিকার করে।

গাড়ি দুর্ঘটনায় উচ্চ মৃত্যু হারের জন্য দ্রুত গতি, অনিরাপদ যানবাহন, ট্র্যাফিক আইনকে ব্যাপকভাবে অবহেলা করা এবং অপ্রতুল জরুরি পরিষেবাকে দায়ী করা হয়।

জলপথ[সম্পাদনা]

শাত আল-আরব সাধারণত প্রায় ১৩০ কিলোমিটারের জন্য সামুদ্রিক ট্র্যাফিক দ্বারা চলাচল করতে পারে; চ্যানেলটি 3 মিটার করে ড্রেজ করা হয়েছে এবং ব্যবহৃত হচ্ছে।

পাইপলাইন[সম্পাদনা]

ইরান সম্প্রতি তেল ও গ্যাস পাইপলাইন তৈরির জন্য প্রতিবেশী দেশ পাকিস্তানের সাথে আলোচনা চলছে।

বন্দর[সম্পাদনা]

দেশের বন্দরগুলিতে কনটেইনার লোডিং ও আনলোডিংয়ের সক্ষমতা বর্তমানে ৪.৪ মিলিয়ন যা ২০১৫ সালের মধ্যে বেড়ে ৭ মিলিয়নে উন্নীত হয়।২০১০ সালে বন্দরের ধারণ ক্ষমতা ১৫০ মিলিয়ন টন থেকে ২০০ মিলিয়ন টনে বৃদ্ধি পাবে।

  • ইরানের বন্দর সমূহ: আবাদান (১৯৮০-৮৮ যুদ্ধের সময় বেশিরভাগ যুদ্ধে ধ্বংস)
  • আহওয়াজ
  • বন্দার আব্বাস
  • বন্দর-ই আনজালি (ক্যাস্পিয়ান সমুদ্র)
  • বুশেহর
  • বন্দর-ই ইমাম খোমেনি
  • বন্দর-ই লেঙ্গেহ
  • বন্দর-ই মহশাহর
  • বন্দর-ই তোড়কামান (ক্যাস্পিয়ান সমুদ্র)
  • চাবাহার (বন্দর-ই বেহেশতি)
  • খর্গ দ্বীপ
  • লাভান দ্বীপ
  • সিরিরি দ্বীপ
  • খোররমশহর (নভেম্বর 1992 থেকে সীমাবদ্ধ অপারেশন)
  • নোশাহর (ক্যাস্পিয়ান সমুদ্র), অরবন্দ কেনার

বিমানবন্দর এবং বিমান সংস্থা[সম্পাদনা]


ট্রানজিট পরিসংখ্যান[সম্পাদনা]

লোক[সম্পাদনা]

পণ্য[সম্পাদনা]

পরিবহনের পদ্ধতি[সম্পাদনা]

প্রবেশের পোর্ট[সম্পাদনা]

অর্থনীতি[সম্পাদনা]