বিষয়বস্তুতে চলুন

ইরাকের মসজিদের তালিকা

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে

এটি ইরাকের মসজিদসমূহের একটি তালিকা। ইরাকে সাত হাজার সুন্নি মসজিদ এবং সাড়ে তিন হাজার শিয়া মসজিদ রয়েছে।[১] ইরাকের ওয়াকফ ও সুন্নাহ অফিস অনুসারে, ইরাকের রাজধানী বাগদাদে ৯১২ টি জামে মসজিদ রয়েছে যেখানে জুমার নামাজ পড়ানো হয়ে থাকে এবং ১৪৯ টি ছোট মসজিদ রয়েছে যেখানে নিয়মিত নামাজ পড়ানো হয়ে থাকে।[২] ২০০৯ সালের তথ্য অনুযায়ী ইরাকের ফালুজাহ শহরে ৯৭০টি মসজিদ রয়েছে।[৩]

নাম চিত্র অবস্থান বছর শাখা মন্তব্য
১৭ই রমজান মসজিদ বাগদাদ ২০শ শতাব্দী ? মসজিদটির ইতিহাস বিশ্বজুড়ে পরিচিত।
আল-আরবাইন মসজিদ তিকরিত ৫ম শতাব্দী সুন্নি অমর ইবনে জুনাইদা আল-গাফারিকে এখানে কবর দেওয়া হয়েছে। ২০১৪ সালে মসজিদটি ভেঙে ফেলা হয়েছিল এবং নতুন করে কাজ চলছে।
আল আব্বাস মসজিদ কারবালা ৭ম শতাব্দী শিয়া শিয়া ইমাম হোসাইন ইবনে আলীর ভাই আব্বাস ইবনে আলীকে এখানে কবর দেওয়া হয়েছে।
আব্দুল কাদির জিলানী মসজিদ বাগদাদ ১২শ শতাব্দী সুন্নি মূলত এটি একটি মাজার হিসেবে নির্মিত হয়েছে। এখানে কাদেরিয়া তরিকার প্রতিষ্ঠাতা আব্দুল কাদের জিলানীকে কবর দেওয়া হয়েছে।
আবু দুলাফ মসজিদ সামাররা ৮৫৯ সুন্নি
আবু হানিফা মসজিদ বাগদাদ ১০ম শতাব্দী সুন্নি আবু হানিফাকে এখানে কবর দেওয়া হয়েছে।
আল-আহমাদিয়া মসজিদ-মাদ্রাসা বাগদাদ ১৭৯৬ সুন্নি
আনাহ মিনার আনাহ ৯৯৬-১০৯৬ ? ২০১৬ সালে ইসলামিক স্টেট অব ইরাক অ্যান্ড দ্য লেভান্ট কর্তৃক এটি ধ্বংস করা হয়েছিল।
আল-আসকারী মাজার সামাররা ৯৪৪ ইসনা আশারিয়া ইসনা আশারিয়া, আলী আল-হাদী এবং তাঁর পুত্র হাসান আল-আসকারী, পাশাপাশি নার্জিস এবং হাকিমা খাতুনকে এখানে কবর দেওয়া হয়েছে।
আল-আসিফিয়াহ মসজিদ বাগদাদ ১৬০৮ ?
আমেদি বড় মসজিদ আমেদি ১১৭৭ ?
ইজরার সমাধি মায়সান প্রদেশ ১৭৬৮ ?
বড় মসজিদ (আকরা) আকরে ৭ম শতাব্দী সুন্নি
সবুজ মসজিদ, মসুল মসুল ১১৩৩ ? ২০১৪-২০১৫ সালে ইসলামিক স্টেট অব ইরাক অ্যান্ড দ্য লেভান্ট কর্তৃক এটি ধ্বংস করা হয়েছিল।
আহমদ আল-রিফাইয়ের সমাধি আল-রিফাই জেলা ১৩২৫ সালের আগে সুন্নি রিফাই তরিকার প্রতিষ্ঠাতা আহমদ আল-রেফাইকে এখানে কবর দেওয়া হয়েছে।
আল-হান্নানাহ মসজিদ কুফা-নাজাফ মহানগর ৯৯৭-১০৪১ শিয়া
হায়দার-খানা মসজিদ বাগদাদ ১৮১৯ ?
ইবনে বুনিয়াহ মসজিদ বাগদাদ ১৯৭৩ ?
ইমাম আলী মসজিদ নাজাফ ৯৭৭ শিয়া প্রথম শিয়া ইমাম আলি ইবনে আবি তালিবকে এখানে কবর দেওয়া হয়েছে।
ইমাম আলী মসজিদ (বসরা) বসরা ৬৩৫ ?
ইমাম আল-বাহের মসজিদ মসুল ১২শ-১৩শ শতাব্দী ? পূর্বে ইমাম আল-বাহেরের মাজার ছিলো যা ২০২২ সালে পুনর্নির্মাণের পরে আর বিদ্যমান নেই।
ইমাম হাসান আল-বসরীর মাজার বসরা ১১৮৫ সুন্নি হাসান বসরিকে এখানে কবর দেওয়া হয়েছে।
ইমাম হোসেনের মসজিদ কারবালা ৬৮০ শিয়া শিয়া ইমাম হোসাইন ইবনে আলী, তাঁর পুত্র আলী আকবর ইবনে হোসাইন এবং আলি আসগর ইবনে হুসাইন, কারবালার যুদ্ধে হোসেনের সেনাবাহিনীতে নিহতরা, হাবিব ইবনে মাজোয়াহির আল-আসাদি এবং ইব্রাহিম আল-মুজাব (মুসা আল-কাজিমের পুত্র) এদেরকে এখানে কবর দেওয়া হয়েছে।
আল-ইমাম মুহসিন মসজিদ মসুল ১২শ শতাব্দী ? ২০১৫ সালে ইসলামিক স্টেট অব ইরাক অ্যান্ড দ্য লেভান্ট কর্তৃক এটি ভেঙে ফেলা হয়।
জলিল খায়াত মসজিদ আর্বিল ১৯৯৭ সুন্নি
আল-কাজিমিয়া মসজিদ বাগদাদ ৯১৫ ইসনা আশারিয়া দু'জন ইসনা আশারিয়াদের কবর দেওয়া হয়। তাঁরা হলেন: মুসা আল-কাজিম এবং মুহাম্মদ আল-তাকি
কুমায়েল ইবনে জিয়াদের মাজার নাজাফ ১৯৫০ শিয়া
আল-খিলানি মসজিদ বাগদাদ ? শিয়া মূলত এটি মাজার হিসেবে নির্মিত হয়েছিল। এখানে আবু জাফর মুহাম্মদ ইবনে উসমানকে কবর দেওয়া হয়েছে, তিনি ইসনা আশারিয়ার চারজন প্রতিনিধিদের মধ্যে দ্বিতীয় ছিলেন।
আল-খুলাফা মসজিদ বাগদাদ ৯০২-৯০৮ সুন্নি[৪] এটি বাগদাদের একটি প্রাচীনতম মসজিদ, যদিও বহুবার সংস্কার করা হয়েছিল। মসজিদের মিনারটি আব্বাসীয় যুগের।
মসজিদ আল-কুফা কুফা ৬৩৯ শিয়া মসজিদটিতে মুসলিম ইবনে আকিল, হানী ইবনে উরওয়া এবং মুখতার আল সাকাফিকে কবর দেওয়া হয়েছে, পাশাপাশি মসজিদের ভিতরে ঐতিহাসিক অনেক জিনিস ও জায়গা রয়েছে।
শেখ জাওয়াদ আল-সাদিক মসজিদ তাল আফার ? শিয়া ২০১৪ সালে ইসলামিক স্টেট অব ইরাক অ্যান্ড দ্য লেভান্ট কর্তৃক এটি ভেঙে ফেলা হয়েছে।
ইমাম সাদ বিন আকিল মাজার তাল আফার ১১৪২ শিয়া ঊর্ধ্ব মেসোপটেমিয়ার একজন গভর্নরকে এখানে কবর দেওয়া হয়েছে।
আল-মাকাম মসজিদ বসরা ১৭৫৪ ?
মায়থাম আল-তাম্মারের মাজার কুফা ? শিয়া
মসুল বড় মসজিদ মসুল ? সুন্নি মসুল শহরের সবচেয়ে বড় মসজিদ।
মুধাফারিয়া মিনার আর্বিল ১১৯০-১২৩২ ?
মুরজান মসজিদ বাগদাদ ১৩৫৬ ?
আল-নুকাইলাহ মসজিদ আল কিফল ১৩০৯ শিয়া এখানে নবী ইজেকিয়েলের কবর রয়েছে।
সাইয়্যিদাহ জয়নাব মসজিদ সিনজার ১২৩৯ শিয়া আলী ইবনে হোসাইন জয়নুল আবিদীনের কন্যাকে উৎসর্গ করা একটি মাজার।
আল-নুরি বড় মসজিদ মসুল ১১৭২-১১৭৩ সুন্নি ২০১৭ সালে মসুলের যুদ্ধের সময় মিনারটি ধ্বংস হয়ে যায়।
নবী দানিয়েল মসজিদ কিরকুক ৫ম শতাব্দী শিয়া এটি কিরকুক দুর্গের ভিতরে অবস্থিত। এখানে দানিয়েল, হানানিয়া, মিশেল এবং আজরিয়াহ এর সমাধি রয়েছে। মিশেলের সমাধিটিতে বর্তমানে আর কোনো চিহ্ন নেই।
আল-নবী ইউনুস মসজিদ মসুল ১৩৬৫ ? ২০১৪ সালে ইসলামিক স্টেট অব ইরাক অ্যান্ড দ্য লেভান্ট দ্বারা মসজিদটি ধ্বংস করে।
মসুলে ইসলামিক কাঠামোর তালিকা মসুল ১৭৯১ ?
আল-রহমান মসজিদ বাগদাদ ১৯৯৯ ? অসমাপ্ত, নির্মাণ কাজ বন্ধ
আল-সাহলাহ মসজিদ কুফা ৬৫৬-৬৬০ শিয়া ভবিষ্যতে এখানে মুহম্মদ আল-মাহদীর বসবাস করবে বলে বিশ্বাস করা হয়।
সালমান আল-ফার্সি মসজিদ সালমান পাক ১৯৫০ শিয়া পূর্বে এটি একটি সুন্নি মসজিদ ছিলো, ২১শ শতাব্দীর দিকে শিয়া মসজিদে স্থানান্তরিত হয়। ১৯৫০ সালে সালমান আল-ফারসির কবরের চারপাশে মসজিদটি নির্মিত হয়।
সাইয়্যেদ আলী আল-জাকির সমাধি আল-কাহলা জেলা ২০১৭ শিয়া ১০ম শতাব্দীর মুসলিম পণ্ডিত সাইয়্যেদ আলী আল-জাকির সমাধি রয়েছে।
সুলায়মানিয়াহ বড় মসজিদ সুলায়মানিয়াহ ১৭৮৪ সুন্নি সুলায়মানিয়াহ শহরের প্রথম মসজিদ। স্থানীয় মৌলবী হাজ্বী কাকা আহমদ এবং তাঁর নাতি মাহমুদ বারজানজিকে এখানে কবর দেওয়া হয়েছে। এটিতে একটি ক্যাফেটেরিয়া রয়েছে যেখানে অভাবীদের জন্য খাবার পরিবেশন করা হয়।
সৈয়দ সুলতান আলী মসজিদ বাগদাদ ১৫৯০ সুন্নি
সামাররা বড় মসজিদ সামাররা ৮৫১ সুন্নি
আল-সারী মসজিদ বাগদাদ ১২৯৩ সুন্নি
মাশহাদ রাদ্দ আল-শামস হিল্লাহ ১১৯০ শিয়া পূর্বে এটি ব্যাবিলনীয় মন্দির ছিলো, এখন এটি মাজার যেখানে রাদ আল-শামসের অলৌকিক ঘটনা ঘটেছিল বলে মনে করা হয়।
শেখ রজব মসজিদ রাওয়া ১৬২৫ ?
আল-সুলায়মানিয়াহ মসজিদ বাগদাদ ২০১০[৫] ?
উমর সোহরাওয়ার্দীর মাজার বাগদাদ ১২শ শতাব্দী সুন্নি মূলত এটি মাজার ও মসজিদ হিসেবে নির্মিত। সোহরাওয়ার্দীয়া তরিকার প্রতিষ্ঠাতা শিহাব উদ্দিন উমর সোহরাওয়ার্দীকে এখানে কবর দেওয়া হয়েছে।
উম্মে আল-তাবুল মসজিদ বাগদাদ ১৯৬৮ সুন্নি ১৯৫৯ সালের মসুল বিদ্রোহে অংশ নেওয়া অফিসারদের স্মরণে এটি নির্মাণ করা হয়েছিল।
উম্মে আল-কুরা মসজিদ বাগদাদ ২০০১ সুন্নি
আল-ওয়াজির মসজিদ বাগদাদ ১৬৬০ সুন্নি
ইয়াহিয়া আবু আল-কাসিমের মাজার মসুল ৭৯৯ সুন্নি আবুল কাসিম ইয়াহিয়া ইবনুল হাসানকে এখানে কবর দেওয়া হয়েছে। ২০১৪ সালে ইসলামিক স্টেট অব ইরাক অ্যান্ড দ্য লেভান্ট এটি ধ্বংস করে।
জাহরা বড় মসজিদ কুট ১৯৯৭ ?
জুমুররুদ খাতুন মসজিদ ও মাজার বাগদাদ ১২০২ ? মূলত এটি মসজিদ ও মাজার হিসেবে নির্মিত হয়েছে। মসজিদের মিনারটিকে বাগদাদের সবচেয়ে পুরনো মিনার হিসেবে বিবেচনা করা হয়।[৬]
শাখা
সুন্নি
শিয়া
ইসনা আশারিয়া

আরও দেখুন

[সম্পাদনা]

তথ্যসূত্র

[সম্পাদনা]
  1. "বাগদাদ - কুদস প্রেস সার্ভিস - নূর আল-দীন আল-ওয়াইদি"। আল আরব নিউজ। ১ জুন ২০১২ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ জানুয়ারি ১১, ২০১৮ 
  2. "মসজিদ এবং প্রাচীন ঐতিহ্যবাহী মসজিদের নির্দেশিকা"। পৃষ্ঠা ১০-৯৬। 
  3. "ফাল্লুজা, কঠিন দিনের দুঃখ থেকে স্থগিত উত্থানের বর্তমান পর্যন্ত সারমাদ আল-কাসিম-সভ্য সংলাপ-ইস্যু: ৩০০৮-১৮/০৫/২০১০" 
  4. "খুলাফা মসজিদের মিনার কেন ধসের দ্বারপ্রান্তে?"আল মনিটর। সংগ্রহের তারিখ জানুয়ারি ৫, ২০১৮ 
  5. "বাগদাদে সুলায়মানিয়াহ মসজিদ উদ্বোধন"ইরাকের মসজিদ। সংগ্রহের তারিখ জানুয়ারি ১৩, ২০১৮ 
  6. "ইরাকের ঐতিহ্য "। জাওয়াদ আইমেন। সংগ্রহের তারিখ জানুয়ারি ৪, ২০১৮