ইয়াজিদের দরবারে যয়নব বিনতে আলীর ধর্মোপদেশ

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন

কারবালার যুদ্ধের পর প্রথম ইয়াজিদের বাহিনী যখন ইসলামের নবী মুহাম্মদ এর পরিবারের বন্দী সদস্যগণকে এবং নিহত ব্যক্তিদের মাথাসমূহ লেভ্যান্টে (এটি সিরিয়ার একটি ঐতিহাসিক অঞ্চল আরবি: شام) ইয়াজিদের দরবারে হাজির করে তখন প্রথম ইয়াজিদের উপস্থিতিতে যায়নাব বিনতে আলী যে বক্তব্য প্রদান করেন তাই  ইয়াজিদের দরবারে যায়নাব বিনতে আলীর ধর্মোপদেশ হিসেবে পরিচিত। যায়নাব ইয়াজিদের দরবারে একটি অবমাননামূলক খুতবা প্রদান করেন যাতে তিনি ইয়াজিদকে অপদস্থ করেন এবং আহলে আল-বাইত এবং কারবালায় নিহতদের সম্মান জানাতে গিয়ে তাঁর সেনাবাহিনীর নৃশংসতার তুলে ধরেন এবং যুদ্ধের চিরন্তন পরিণতিগুলি ব্যাখ্যা করেন।[১][২]

যায়নব বিনতে আলী[সম্পাদনা]

যায়নাব বিনতে আলী (আরবি: زينب بنت علي‎‎; আরো পরিচিত: জয়নব, জইনব; উপাধিঃ সৈয়েদা/সৈয়েদাহ/সাইয়্যেদা) হলেন আলীফাতিমার কন্যা। তাঁর পরিবারের অন্যান্য সদস্যের মতো তিনিও সুন্নিশিয়া উভয় সম্প্রদায়ের কাছেই ত্যাগ, শক্তি এবং ইসলামী তাকওয়ার এক মহান ব্যক্তিত্ব। যায়নাব আবদুল্লাহ ইবনে জাফরের সাথে বিবাহ বন্ধনে আবদ্ধ হন এবং তাঁর তিন ছেলে ও দুই মেয়ে ছিল। ৬৮০ খ্রিস্টাব্দে (৬১ হিজরি) যখন তার ভাই হোসাইন ইসলাম রক্ষার জন্য এবং ইয়াজিদ খলিফার অত্যাচারের বিরোধিতা করেন, তখন জয়নাব তাঁর সাথীদের সাথেই ছিলেন, কারবালার যুদ্ধে হোসাইনের ৭২ জন সঙ্গীকে ৩০,০০০ সদসে্যর ইয়াজিদ বাহিনী নির্মমভাবে হত্যা করে। জায়নব তৃতীয় শিয়া ইমাম হোসাইন এবং তার সমর্থকদের গণহত্যার সত্য ঘটনাসমূহ প্রকাশে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করেন। তিনি তাঁর ভাইপো চতুর্থ শিয়া ইমাম আলি ইবনে হুসাইন জয়নুল আবেদিনের জীবনও সুরক্ষিত করেছিলেন, আলি ইবনে হুসাইন গুরুতর অসুস্থ এবং যুদ্ধের ময়দানে যেতে অক্ষম ছিলেন। তার ত্যাগ ও বীরত্বের কারণে তিনি "কারবালার নায়ক" হিসাবে পরিচিতি লাভ করেন। যায়নাব ৬৮১ সালে মারা যান এবং তার মাজার সিরিয়ার দামেস্কে অবস্থিত।[৩]

পটভূমি[সম্পাদনা]

কারবালার যুদ্ধের পরে নবীর বন্দী পরিবার এবং যারা নিহত হয়েছিল তাদের শির ইয়াজিদের বাহিনী লেভ্যান্টে নিয়ে যায়।[৪] তুরাবীর মতানুসারে সফর[৫] মাসের প্রথম দিনে তারা লেভ্যান্টে এসে পৌঁছে এবং বন্দী পরিবার ও শির ইয়াজিদের সামনে নিয়ে যাওয়া হয়। তারা লেভান্টে এসে বন্দী পরিবার ও প্রধানদের ইয়াজিদের উপস্থিতিতে নিয়ে যায়। প্রথমে তাকে প্রতিটি মাথার পরিচয় জানানো হয়। তারপরে সে প্রতিবাদ জানানো এক মহিলার দিকে মনোযোগ দেয়। ইয়াজিদ জিজ্ঞাসা করে, "এই উদ্ধত মহিলা কে?" সমস্ত শ্রোতা এক মুহুর্তের জন্য থেমে যায়। মহিলা উত্তরে উঠে বললেন: "তুমি কেন তাদের মহিলাকে জিজ্ঞাসা করছ? আমাকে জিজ্ঞাসা কর। আমি তোমাকে বলব আমি কে। আমি মুহাম্মদ (সা.) এর নাতনী। আমি ফাতেমার মেয়ে।” দরবারে লোকেরা তাকে দেখে মুগ্ধ ও বিস্মিত হয়ে যায়।

আল-শায়খ আল-মুফিদ বর্ণনা করেন, ইয়াজিদের উপস্থিতিতে লাল ত্বকের অধিকারী এক ব্যক্তি ইয়াজিদকে বন্দী মহিলাদের একজনকে তার দাসি বানাতে বলেছিল।[৬] ইয়াজিদ হুসেনের ঠোঁট ও দাঁতকে তার লাঠি দিয়ে আঘাত করে বলেছিল: ইয়াজিদ হোসাইনের ঠোঁট ও দাঁতে তার লাঠি দ্বারা আঘাত করে বলে: "আমি আমার বংশের যারা বদরে নিহত হয়েছিল এবং যারা খাজরাজ বংশকে (উহুদের যুদ্ধে) ছুরির ক্ষতের জন্য কাঁদতে দেখেছিল তাদের কামনা করি, তারা এখানে।[৫] এই সময়, যায়নাব বিনতে আলী তাকে ধর্মোপদেশ দিতে শুরু করেন।[৭][৮]

প্রসঙ্গ[সম্পাদনা]

আলি ইবনে হুসাইন, যায়নাব এবং অন্যান্য বন্দীদের ইয়াজদের দরবারে তোলার ঘটনাকে চিত্রিত করে ইরানের কেরমানশাহর মুয়াউন উল-মুলক হুসেনিয়ার ভিতরে টালির কাজ

যায়নাব বিনতে আলী আল্লাহর প্রশংসা দিয়ে তার খোতবা শুরু করেন:[৮]

পরম করুণাময়, অসীম দয়ালু আল্লাহর নামে শুরু করছি। সমস্ত প্রশংসা বিশ্ব-পালনকর্তা আল্লাহর জন্য। আমার মাতামহ, আল্লাহর রাসূলদের নেতা এবং তাঁর বংশধরদের জন্য প্রশংসা ও শান্তি বর্ষিত হোক।

আল্লাহ কাফেরদেরকে সময় দেন[সম্পাদনা]

আল ইমরানের ১৮৭ তম আয়াত আবু সুফিয়ান ইবনে হারবের মতো মক্কার মুশরিকদের সম্পর্কে অবতীর্ণ হয়। যায়নাব বিনতে আলী আরও একবার এই আয়াত আবু সুফিয়ান ইবনে হারবের নাতি ইয়াজিদের সাথে সম্পর্কিত করেন। তিনি বলেন: "এই সাময়িক কৃতিত্বের জন্য সন্তুষ্ট হইয়ো না; এই সময় দ্রুতই ফুরিয়ে যাবে আর আল্লাহ তোমরা উপর গজব নাযিল করবেন। তুমি লাঞ্ছিত হবে।"[১]

যেমন আমরা ধর্মোপদেশে দেখি:

হে ইয়াজিদ! তুমি কি ভেবেছ যে আমাদের লোকেদের শাহাদাত এবং নিজেদের বন্দীদশার কারণে আমরা নত ও ঘৃণ্য হয়ে উঠেছি? তুমি কি মনে করেছ যে ধর্মপরায়ণ ব্যক্তিদের হত্যা করে তুমি মহান এবং শ্রদ্ধেয় হয়ে গিয়েছ এবং সর্বশক্তিমান তোমাকে বিশেষ অনুগ্রহ ও দয়া দেখাবে? তবে আল্লাহ যা বলেছেন তা তুমি ভুলে গিয়েছ: কাফেররা অবশ্যই এটা ভাবার কারণ নেই যে আমাদের অবকাশ তাদের ভালোর জন্য, আমরা তাদের সময় দিই যাতে তারা তাদের পাপ বাড়িয়ে নেয়। বস্তুতঃ তাদের জন্যে রয়েছে অপমানজনক শাস্তি। (কুরআন 3:178 (ইউসুফ আলী))[৯]

শত্রুকে হেয় করুন এবং আহলে আল-বাইতকে সম্মান করুন[সম্পাদনা]

কারবালার যুদ্ধে জায়নব বিনতে আলীর অন্যতম উদ্বেগ ছিল শত্রুর অপমান এবং আহলে আল-বাইতের সম্মান।[২]

হে মুক্ত বেশি সন্তান! এটা কি ন্যায়বিচার যে আপনি নিজের মহিলা ও দাস-কন্যাদের একাকীকরণে রেখেছেন কিন্তু মহানবী - এর অসহায় কন্যাদের দ্রুততর উটের পিঠে চালিয়ে তাদের শত্রুদের হাতে দিয়েছেন যাতে তারা তাদের এক শহর থেকে অন্য শহরে নিয়ে যেতে পারে? [৯]

কারবালায় নিহতদের অবস্থান[সম্পাদনা]

যায়নাব বিনতে আলী ইয়াজিদকে তার বিজয়ের জন্য খুশী হতে বারণ করেন। তিনি আল ইমরানের ১৬৯ আয়াত পাঠ করেন এবং জোর দিয়ে বলেন যে ন্যায়বিচারের জন্য মারা যাওয়া ব্যক্তিরা বিজয়ী এবং আল্লাহর গজবে ইয়াজিদের সুখ শেষ হবে। [১]

এটি সেই দিন যখন মহানবী (সা.) - এর বংশধরকে ছড়িয়ে ছিটিয়ে থাকা অবস্থা থেকে উদ্ধার করবেন এবং তাদের সবাইকে জান্নাতে নিয়ে আসবেন। এটাই সেই প্রতিশ্রুতি যা আল্লাহ পবিত্র কুরআনে করেছেন। যারা আল্লাহর পথে নিহত হয়েছেন তাদেরকে কখনো মৃত মনে করো না। তারা তাদের পালনকর্তার নিকট জীবিত এবং তাঁর নিকট থেকে রিযিক প্রাপ্ত।(কুরআন 3:169 (ইউসুফ আলী))[৯]

নিপীড়ন প্রসঙ্গে[সম্পাদনা]

ধর্মোপদেশের এই পর্যায়ে তিনি আবু সুফিয়ানের সময় থেকে ইয়াজিদ ইবনে মুয়াবিয়ার সময় পর্যন্ত উমাইয়াদের সমস্ত নিপীড়ন ও অবিচার তুলে ধরেন। তিনি আরও বিশ্বাস করেন যে উমাইয়া তাদের ক্ষমতা ইসলামী উম্মাহর কুরআন মজবুত করতে ব্যর্থ এবং মুহাম্মদের যথাযথ উত্তরাধিকারের জন্য ঋণী।[২] তিনি আরও বলেন যে:

তাদের হাত থেকে আমাদের রক্ত ঝরছে এবং তাদের মুখ থেকে আমাদের মাংস নেমে আসছে।[৯]

যুদ্ধের বাহ্যিক পরিণতি[সম্পাদনা]

যায়নাব বিনতে আলী উল্লেখ করেন যে কারবালার যুদ্ধ ইতিহাসের উপর ইতিবাচক প্রভাব ফেলেছে। তিনি বিশ্বাস করেন যে জিহাদ, আল্লাহর পথে লড়াইয়ের চিরন্তন প্রভাব রয়েছে।[২]

তুমি (ইয়াজিদ) তোমার ছলচাতুরী এবং কূট প্রচেষ্টা চালাতে পার, তবে আমি আল্লাহর কসম করে বলছি যে আমাদের সাথে আচরণের দ্বারা তুমি যে অপমান ও লাঞ্ছনা অর্জন করেছ তা নির্মূল করা যাবে না।[৯]

খবরে[সম্পাদনা]

বুস্তান পাবলিকেশনস কর্তৃক প্রকাশিত লেভ্যান্টে যায়নাব বিনতে আলীর ধর্মোপদেশ বক্তৃতা প্রসঙ্গে তাঁর বইয়ে আলী করিমী জহরোমি এই ধর্মোপদেশ সম্পর্কে বিভিন্ন মতামত পর্যালোচনা করেছেন।[১০]

আরও দেখুন[সম্পাদনা]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. Tahmasebi Beldaji, Asghar (এপ্রিল ২০১৩)। "Documentary review of Quran in sermons of Zainab bint Ali" 
  2. Rezaei, Sara (জুলাই ২০১১)। "Principles and guidelines for revivalism in the life of Zaynab bint Ali" 
  3. Esposito, J. L., ., The Oxford Dictionary of Islam, New York:2003
  4. Qumi AbbasMuntahal Aamaal fi tarikh al-Nabi wal Aal। পৃষ্ঠা 429। 
  5. Qumi, Abbas। Nafasul Mahmum, Relating to the heart rending tragedy of Karbala'। Islamic Study Circle। 
  6. Al-Shaykh Al-Mufidal-Irshad। পৃষ্ঠা 479। 
  7. "Martyrdom of Imam al-Hussain (Radhi Allah Anhu)"। ahlus-sunna.com। সংগ্রহের তারিখ ২৫ অক্টোবর ২০১৫ 
  8. Syed Akbar Hyder Assistant Professor of Asian Studies and Islamic Studies University of Texas at Austin N.U.S. (২৩ মার্চ ২০০৬)। Reliving Karbala : Martyrdom in South Asian Memory: Martyrdom in South Asian Memory। Oxford University Press, USA। পৃষ্ঠা 96–। আইএসবিএন 978-0-19-970662-4 
  9. Ayati, Ibrahim (২০১৪)। A Probe Into The History of Ashura। The Islamic Republic of Pakistan: CreateSpace Independent Publishing Platform। পৃষ্ঠা 252। আইএসবিএন 978-1502541529 
  10. Staff writer। "Explanations on Sermon of Zaynab bint Ali at the Levant"Young journalist club। সংগ্রহের তারিখ 2014  এখানে তারিখের মান পরীক্ষা করুন: |সংগ্রহের-তারিখ= (সাহায্য)

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]