ইমাম হিসাবে মহিলারা

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে

কোন পরিস্থিতিতে নারীরা ইমাম হিসেবে কাজ করতে পারে, অর্থাৎ সালাতে (জামাতে) একটি জামাতের নেতৃত্ব দিতে পারে সে বিষয়ে মুসলমানদের মধ্যে মতভেদ রয়েছে। 'অর্থোডক্স অবস্থান' হল যে নারীরা নামাজের নেতৃত্ব দিতে পারবে না, যা সমাজে পুরুষ এবং নারীদের ভিন্ন ভিন্ন ভূমিকা গ্রহণকে সমর্থন করে। খুব অল্প সংখ্যক ইসলামী চিন্তাধারার প্রতিষ্ঠান রয়েছে যেখানে নারীরা তারাবীহ (রমজানের ঐচ্ছিক নামাজ) বা শুধুমাত্র নিকটাত্মীয়দের নিয়ে গঠিত জামাতের ইমামতি করতে পারবেন তা সমর্থন করে। সমাজের সকল ক্ষেত্রে নারীরা তাদের যোগ্যতায় নেতা, শিক্ষক, চিকিৎসক, আইনবিদ, এবং কর্তৃপক্ষ হিসাবে সাফল্যের সাথে কাজ করছেন তবে ইসলামী আইনে নারীদের কখনোই শিক্ষক, চিকিৎসক, আইনবিদ, মুফতি, প্রচারক বা ধর্মপ্রচারক হতে বাধা দেওয়া হয়নি। ইসলামী বিজ্ঞানে নারী শিক্ষক দিয়ে পুরুষদের শিক্ষা দেওয়ার দীর্ঘ ইতিহাস রয়েছে।

ঐতিহাসিকভাবে, কিছু সম্প্রদায় মহিলাদের ইমাম হিসাবে কাজ করার জন্য গ্রহণযোগ্য বলে মনে করেছে। এটি শুধুমাত্র ইসলামের কেন্দ্রস্থল আরবে নয়, বরং বর্তমান শতাব্দীতে চীনেও, যেখানে মহিলাদের মসজিদ গড়ে উঠেছিল। পশ্চিমা বিশ্ব এবং যৌনতার বিষয়গুলো পুনর্বিবেচনা করে একবিংশ শতাব্দীতে এ বিতর্ক পুনরায় উতত্থাপিত করা হয়েছে।

বিভিন্ন দেশে নারী ইমাম[সম্পাদনা]

বাহরাইন[সম্পাদনা]

একজন পুরুষের ছদ্মবেশে একজন নারী জুমার খুতবা দেওয়ার চেষ্টা করেছিলেন কিন্তু জামাতের সদস্যরা তাকে সনাক্ত করে এবং বাহরাইন পুলিশ তাকে গ্রেফতার করে। ২০০৪ সালে রমজানের শেষ শুক্রবারে ৭০০০ মুসল্লির সামনে দ্বীপ রাজ্যের অন্যতম বড় মসজিদে এই ঘটনা ঘটে। নকল দাড়ি ও গোঁফসহ পুরুষের পোশাক পরিহিত নারী খতিব কথা বলার ঠিক আগে মিম্বারে বসেছিলেন, সেই সময়ে কিছু উপাসক বুঝতে পেরেছিলেন যে নতুন ইমাম ছদ্মবেশে একজন নারী। তারা এবং মসজিদের ইমাম শেখ আদনান আল-কাত্তান, ৪০ বছর বয়সী নারীকে পুলিশের হাতে তুলে দেয়।[১]

কানাডা[সম্পাদনা]

কানাডার মুসলমানরা ২০০৩ সাল থেকে মহিলাদের নেতৃত্বাধীন প্রার্থনা আন্দোলনে সক্রিয় ছিলেন। ২০০৪ সালে, ইউনাইটেড মুসলিম অ্যাসোসিয়েশন (ইউএমএ) মহিলাদের খুতবা দেওয়ার এবং নামাজের নেতৃত্ব দেওয়ার প্রতিশ্রুতি দিয়েছিল। সেই বছরে, ২০ বছর বয়সী মরিয়ম মির্জা ইউএমএ পরিচালিত টরন্টোর ইটোবিকোক মসজিদে ঈদুল ফিতরের খুতবার দ্বিতীয়ার্ধ প্রদান করেছিলেন। পরে একই বছর, ইয়াসমিন শাদি, পুরুষ ও নারী উভয়ের সমাবেশে রাতের ইশার নামাজের ইমামতি করেন।[২][৩][৪]

ফ্রান্স[সম্পাদনা]

২০১৯ সালে ইভা জানাদিন, অ্যান-সোফি মনসিনে এবং কাহিনা বাহলুল ফ্রান্সে মুসলিম নামাজের নেতৃত্বদানকারী প্রথম মহিলা ইমাম হয়েছিলেন।[৫][৬]

ভারত[সম্পাদনা]

২০১৮ সালে, কেরালার একজন নারী দেশের প্রথম মহিলা ইমাম হয়েছিলেন, যিনি নারী ও পুরুষ উভয়ের জুমার নামাজের নেতৃত্ব দিয়েছিলেন।[৭]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "Woman 'Imam' Held in Bahrain Mosque". Arab News. 2004-11-15. Archived from the original on 2007-09-30. Retrieved 2008-06-09.
  2. Rachel Sa, "Making history first mosque prayers led by a woman: Mixed-gender service", National Post, July 2, 2005
  3. Jen Gerson, "Woman leads Islamic prayers in mosque, a first for Canada -- Country could become the conscience of the religion, she says in Friday sermon", Globe & Mail, July 2, 2005
  4. 1] Archived 2009-02-03 at the Wayback Machine, Washington Post/Newsweek
  5. "French women seek to break ground with mosques of their own". The Straits Times. September 18, 2019. Archived from the original on September 26, 2019. Retrieved September 26, 2019.
  6. "The rise of the female imam in France?". France24. 5 February 2019.
  7. Sherrif, Ahmed (2018-01-25). "Meet India's First Woman Imam to Lead Both Genders in Friday Prayers". Thebetterindia.com. Archived from the original on 2018-01-30. Retrieved 2018-01-29.