ইমপেক কলেজ অব টেকনোলজি

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
ইমপেক কলেজ অব টেকনোলজি
অবস্থান
চট্টগ্রাম
বাংলাদেশ
তথ্য
ধরনবেসরকারী
প্রতিষ্ঠাকাল2002 সাল
শ্রেণীডিপ্লোমা-ইন-ইঞ্জিনিয়ারিং
শিক্ষার্থী সংখ্যা৩০০
ওয়েবসাইট

ইমপেক কলেজ অব টেকনোলজি চট্টগ্রামের শেখ মুজিব রোডে অবস্থিত বাংলাদেশ কারিগরি শিক্ষা বোর্ড অধিভূত একটি বেসরকারি পলিটেকনিক কলেজ। ইহা প্রতিষ্ঠিত হয় ২০০২ সালে। মাত্র ২০ জন শিক্ষার্থী নিয়ে যাত্রা শুরু করে। কম্পিউটার ও ইলেকট্রনিক্স নিয়ে এই কলেজের কার্য়ক্রম শুরু হয়। বর্তমানে এই কলেজের রয়েছে প্রায় ৩০০ শিক্ষার্থী। তিনটি টেকনোলজি রয়েছে । কম্পিউটার, ইলেকট্রিক্যাল ও ইলেকট্রনিক্স।

প্রতিটি মানুষ খাদ্য, বস্ত্র, বাসস্থান, স্বাস্থ্য ও নিরাপত্তা এবং শিক্ষার মত মৌলিক চাহিদা অর্জন করতে চায়। আমাদের দেশের মানুষও এর বাইরে নয়। আমরা একটি বাস্তবসম্মত, বৈজ্ঞানিক ও দেশের উন্নয়ন ভিত্তিক শিক্ষাব্যবস্থা (কারিগরি শিক্ষাব্যবস্থা) মাধ্যমে শুধুমাত্র দেশের মধ্যে নয়, দেশের বাইরেও প্রবেশ করতে বদ্ধপরিকর। ইমপেক কলেজ বিশ্বমানের শিক্ষাপ্রদান করতে প্রতিশ্রুতিবদ্ধ। ডিপ্লোমা-ইন-ইঞ্জিনিয়ারিং শিক্ষাব্যবস্থায় প্রতিফলিত হয়- ১.বিশ্বায়নে সুযোগের জন্য শিক্ষা। ২.দক্ষতার জন্য শিক্ষা। ৩.কর্মসংস্থানের জন্য শিক্ষা। এ প্রতিষ্ঠানের লক্ষ্য গবেষণার মাধ্যমে উচ্চমানের শিক্ষা প্রদান করে অত্যন্ত দক্ষ জনশক্তি. স্বপ্নদর্শী নেতা ও আলোকিত নাগরিক সৃষ্টি করা। আমরা সৃজনশীল চিন্তা দ্বারা মানবধর্ম, শান্তিপ্রচার ও মানবসম্পদ উন্নয়নে প্রতিজ্ঞাবদ্ধ। সেই চ্যালেঞ্জ মোকাবিলা করার লক্ষ্যে বাংলাদেশ সরকার কারিগরি শিক্ষাবোর্ড কর্তৃক বিভিন্ন পলিটেকনিক ইনষ্টিটিউট অধিভুক্ত করার মাধ্যমে দক্ষ জনশক্তি গড়ে তোলার কঠিন দায়িত্ব অর্পণ করছে। সেই কঠিন দায়িত্ব পালনে একটি ব্যতিক্রমধর্মী আদর্শ প্রতিষ্ঠান ইমপেক কলেজ অব টেকনোলজি। আমাদের ঐকান্তিক চেষ্টায় ২০০২ সাল থেকে কর্মসংস্থান ভিত্তিক প্রশিক্ষণ প্রদান করে সুশিক্ষিত নাগরিক গড়ে তুলছি। শিক্ষা, জ্ঞান-বিজ্ঞান এবং পড়ালেখার গুনগতমান বজায় রেখে প্রতিনিয়ত উন্নয়ন ও পরিবর্তনের মধ্যদিয়ে এগিয়ে যাচ্ছে। ইমপেক কলেজ কর্মমূখী আধুনিক শিক্ষার এক ব্যতিক্রমধর্মী সহ-শিক্ষার আদর্শ প্রতিষ্ঠান। এ প্রতিষ্ঠান-এর সাধারণ ও কারিগরি সমন্বিত শিক্ষা প্রচেষ্টার মাধ্যমে একজন শিক্ষার্থীকে আত্মনিভর্রশীল ব্যক্তিত্ব সম্পন্ন ও মানবতাবোধে উদ্দীপ্ত করে তার বৃহত্তর কর্মজীবনের প্রবেশ পথকে উন্মুক্ত করাই হল এই প্রতিষ্ঠানের লক্ষ্য।

ইতিহাস[সম্পাদনা]

শাখাসমূহ[সম্পাদনা]

অন্যান্য কার্যক্রম[সম্পাদনা]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]